1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
দেশ নেত্রী, গণত্রন্ত্রের মা কে মুক্তি দিন না হয় যে কোন পরিস্থিতি জন্য এই সরকার দায়ী থাকবে  - মীর্জা ফখরুল - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ০৩:১৬ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
নবীনগরে কোটাপদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল রাউজানে তিনদিন ব্যাপী বৃক্ষ মেলার উদ্বোধন রাউজানে ৬০ প্রজাতির ১ লাখ ৮০ হাজার ফলজ ও ঔষধি গাছের চারা রোপন কর্মসূচি উদ্বোধন মাগুরায় নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান শরিয়াতউল্লাহ হোসেন রাজনকে গণসংবর্ধনা প্রদান  *জরুরী রক্ত প্রয়োজন*রক্তের গ্রুপ: AB+ (এবি পজেটিভ) ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে চৌদ্দগ্রামে তিন ছাত্রলীগ নেতার পদত্যাগ কক্সবাজারে সাংবাদিকদের উপর আ’লীগ-ছাত্রলীগের হামলা সারাদেশে ছাত্রসমাজের উপর মর্মান্তিক হামলার প্রতিবাদ ও কোটা সংস্কারের এক দফা দাবিতে দোহাজারীতে বিক্ষোভ মিছিল  এমএসআর’র ১ কোটি ২৬ লক্ষ টাকা লুটপাট সমস্যায় জর্জরিত চট্টগ্রামের চন্দনাইশ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স-অধিকাংশ চিকিৎসক অনুপস্থিত থাকেন নবীনগরে কুতুবিয়া দরবার শরীফে শাহাদাতে কারবালা মাহফিল অনুষ্ঠিত

দেশ নেত্রী, গণত্রন্ত্রের মা কে মুক্তি দিন না হয় যে কোন পরিস্থিতি জন্য এই সরকার দায়ী থাকবে  — মীর্জা ফখরুল

আল হাসান মোবারক নিজস্ব প্রতিনিধি (শ্যামল বাংলা)
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৩০ জুন, ২০২৪
  • ৩৯ বার

বিএনপি’র চেয়ারপার্সন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী, প্রতিহিংসার শিকার বেগম খালেদা জিয়া’র নিঃশর্ত মুক্তির দাবীতে আজ পল্টনে পার্টি অফিসের সামনে সমাবেশ।

মির্জা আব্বাস সভাপতিত্ব প্রধান অতিথি  ছিলেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর মহাসচিব।
আরও বক্তব্য রাখবেন: : বিএনপি জাতীয় স্থায়ী কমিটির সম্মানিত নেতৃবৃন্দ।

আজ ২৯ জুন শনিবার রাজধানী পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কর্যালয়ের সামনে দুপুর ২টায়  বিএনপি’র চেয়ারপার্সন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী, প্রতিহিংসার শিকার শীর্ষক ও  বেগম খালেদা জিয়া’র নিঃশর্ত মুক্তির দাবীতে আজ পল্টনে পার্টি অফিসের সামনে সমাবেশ।
মির্জা আব্বাস সভাপতিত্ব প্রধান অতিথি  ছিলেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর মহাসচিব।
প্রধান অতিথি’র বক্তব্য  ফখরুল বলেন ১৯৮১ সালে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান শাহাদাতের পরে শহীদ প্রেসিডেন্ট রহমানের রেখে যাওয়া  জাতীয়তাবাদী পতাকা, স্বাধীনতার পতাকা গণতন্ত্রের পতাকা এবং নয় বছর গণতন্ত্রের  জন্য সংগ্রাম করেছেন স্বৈরাচার সরকারের বিরুদ্ধে।


তিনি আরও বলেন সে সময় দুই শিশু সন্তান নিয়ে পায়ে হেঁটে হেঁটে আন্দোলন সংগ্রাম জেল জুলুম নির্যাতনের গ্রেফতারের  শিকার হয়ে গণতন্ত্রের মুক্তি আন্দোলন কখনো ছেড়ে দেননি,,কখনো আপোষ করেননি,
সেই দিন ছাত্র জনতা কে সঙ্গে নিয়েই স্বৈরাচারকে  পরাজিত করে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠাতা  করে ছিলেন,
তিনি আরো বলেন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া আর গণতন্ত্র এই দুটো জিনিস কে আলাদা করে দেখের কোন সুযোগ নেই। বাংলাদেশ গণতন্ত্র মানেই হচ্ছে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া।

তিনি বলেন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ২০১৮ সালে ৮ ফেব্রুয়ারি সাজানো নাটক মামলায় আমাকে আপনাদের মাঝে থেকে আলাদা করা চেষ্টা করা হচ্ছে।  তিনি আটক হওয়ার আগে এনোয়েল মিটিয়ে এক ভাষণে আমাদের উদ্দেশ্য করে আরও বলে ছিলেন আমাদের  ব্যাক স্বাধীনতা  হরণ ও গণতন্ত্রকে হত্যা করার জন আমাকে আটক করা  হতে পারে। আপনারা গণতন্ত্র,  পুনরুত্থান জন্য আন্দোলন সংগ্রাম অব্যাহত  রাখবেন, আজকে সে আন্দোলন অব্যাহত রয়েছে।।

তিনি আরও বলেন  আপারা এই  আন্দোলনে ৬০ লক্ষ মানুষের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা, ৭০০ এর বেশী মানুষকে গুম করে দেওয়া হয়েছে। আমাদের কয়েক হাজার লোককে হত্যা করা হয়েছে। (এক্সট্রা জুডিশিয়াল কিলিং)
প্রায় ৪ হাজার নেতাকর্মীকে মিথ্যা মামলায় সাজা দেওয়া হয়েছে। এখানে আনেকেই সাজাপ্রাপ্ত রয়েছেন যেমন সাইফুল ইসলাম নিরব সহ অনেকেই ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক কে কারাগারে আটক রাখা হয়েছে। আমাদের নেতা আব্দুস সালাম পিন্টু কে ১৫ থেকে ১৬ বাছর, লুতফুর জামান বাবার, ইরান সহ অনেক নেতা কে অনেক নেতাকে আটক রাখা হয়েছে।
তিনি বলেন উদ্দেশ্য একটাই এদেশের গণতান্ত্রিকগামী জনগণ তরুণ সমাজকে আটক রেখে বাংলাদেশের গণতন্ত্র ও স্বাধীনতা নির্বাচনে দেওয়া।

তিনি আরও বলেন আজকে বাংলাদেশের দিকে তাকিয়ে দেখেন তারা এদেশে তিন তিনটি নির্বাচন করেছে তারা ক্ষমতা আসার জন্য সকল কু- কৌশল অবলম্বন করে গণতন্ত্রকে বিসর্জন দিয়ে ক্ষমতা কুক্ষিগত  করেছে। ১৪ সালেন ভোটার বিহীন নির্বাচন করে ১৫৪ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতে  সংসদ সদস্য নির্বাচিত করে ১৮ সালে  দিনের ভোট করে এবং  ২৩ সালে ডামি ইলেকশন করে এই হচ্ছে তাদের গনতন্ত্রের নমুনা।
তিনি  বিএনপি নেতা কর্মীদের উদ্দেশ্য করে বলেন ঘরে বসে একা মৃত্যুবরণ করার চেয়ে রাস্তায় এসে সম্মিলিতভাবে আন্দোলন সংগ্রামের মাধ্যমে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার শহিদ হওয়া আনেক শ্রেয়। তরুণ প্রজন্মের কে তিনি বলেন তরুণ প্রজন্মেরই পরে দেশের স্বাধীন ও গণতন্ত্র রক্ষা করতে তাই তরুণ প্রজন্মের এই আন্দোলন এগিয়ে আশার আহবান জানান।


এসময় সরকারকে বলেন দেশ নেত্রীকে মুক্তি দিন না হয় যে কোন পরিস্থিতি জন্য এই সরকার দায়ী থাকবে।
সরকারের উদ্দেশে তিনি বলেন  ‘মানুষ কখনো দেশনেত্রীকে এভাবে অন্যায়ভাবে কারাগারে বন্দী অবস্থায় চলে যেতে দেবে না, এটা মনে রাখতে হবে।

তিনি ভারতের প্রসঙ্গে বলেন আমাদের দেশের আইন বিশেষজ্ঞ পানি বিশেষজ্ঞ,  বুদ্ধিজীবী গণ  বলেছেন এই চুক্তি দেশবিরোধী দেশের কোন স্বার্থ এতে বিদ্যমান নেই।
তাই এই সরকারের কাছে দেশের, স্বাধীনতা, গণতন্ত্র, মানুষের অধিকার, সম্পদ নিরাপদ নয়। আমরা পানি চাই। আমরা আমাদের অধিকার চাই। অভিন্ন নদীর ন্যায্য হিস্যা চাই, সীমান্তহত্যা বন্ধ চাই। তা না করে এই সরকার সব কিছু বিলিয়ে দিয়েছে।

এসময় আমির খসরু মাহমুদ  সদস্য জাতীয় স্থায়ী কমিটি (বিএনপি) বলেন যেখানে অন্যায় আইনে পরিনতি হয়, সেখানে প্রতিরোধ  কর্তব্য হিসাবে মেনে নিতে হবে, কেন বেগম খালেদা জিয়া গণতন্ত্রের মা  আজকে জেলের মধ্যে আছে, সেটা কারো অজানা নয়। ভোট চুরি করে জনগণকে বাহিরে রেখে সরকারি কর্মকর্তাদের সুবিধে দিয়ে লুটপাট, দুর্নীতির সুযোগ দিয়ে, ভোট চুরি করে ক্ষমতা দখল করতে হবে, বাংলাদেশের জনগণের সকল অধিকার কেড়ে নিতে হবে, বাকস্বাধীনতা কেড়ে নিতে হবে, সমস্ত গণতান্ত্রিক কর্মকাণ্ড  কেড়ে নিতে হবে, জীবনের নিরাপত্তা কেড়ে নিতে হবে, দেশ বিক্রি করে দিতে হবে, দেশনেত্রীকে বাইরে রেখে এটা কি কখনো সম্ভব হবে সেজন্য দেশনেত্রী বেগম খালেদা অন্যায় ভাবে কে জেলে আটক রাখাতে হবে।
এছাড়াও সমাবেশের সভাপতির বক্তব্যে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেন, ‘আমরা পরিষ্কার ভাষায়  বলতে চাই, দেশনেত্রীকে যেকোনো মূল্যে মুক্তি দিতে হবে। তাঁর মুক্তির স্বার্থে আমরা কোনো আপস কারও সঙ্গে করবো না।
স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘যেই সরকারের নিযুক্ত এত বড় বড় কর্মকর্তা দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত হয়, তাহলে সেই সরকার কী দুর্নীতিবাজ নয়?’

এদিকে সবেক সভাপতি যুবদল  সুলতান সালাউদ্দিন টুকুর পরিচালনায় সমাবেশে স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, সেলিমা রহমান, ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লা বুলু, মো. শাহজাহান, এ জেড এম জাহিদ হোসেন, জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীসহ সদ্য কার মুক্ত সাইফুল ইসলাম নিরব,  বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা বক্তব্য দেন।
এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর বিএনপির বিভিন্ন থানা বিএনপি, নেতা কর্মী সকল থেকেই সমাবেশ স্থলে আসতে শুরু করে।
এ সময় রূপনগর থানা বিএনপি একটি মিছিল জনাব আমজাদ হোসেন মোল্লা মেল্লার (সাবেক সদস্য আহবায়ক কমিটি ঢাঃমঃউ)) নেতৃত্বে সমাবেশ স্থলে আসে
এসময় মোল্ল্যা  বলেন তৃণমূল সঠিক ও সৎ নেতৃত্ব পেলে রাজপথে আন্দোলন মাধ্যমে দেশনেত্রী বেগম খালেদাকে আমরা মুক্ত করবো ইনশাল্লাহ।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম