1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
সৈয়দপুর শহরের বেহাল সড়কটি সংষ্কারের নামে আবারও লোক দেখানো কাজ শুরু - দৈনিক শ্যামল বাংলা
মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ০২:২৫ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
নবীনগরে কোটাপদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল রাউজানে তিনদিন ব্যাপী বৃক্ষ মেলার উদ্বোধন রাউজানে ৬০ প্রজাতির ১ লাখ ৮০ হাজার ফলজ ও ঔষধি গাছের চারা রোপন কর্মসূচি উদ্বোধন মাগুরায় নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান শরিয়াতউল্লাহ হোসেন রাজনকে গণসংবর্ধনা প্রদান  *জরুরী রক্ত প্রয়োজন*রক্তের গ্রুপ: AB+ (এবি পজেটিভ) ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে চৌদ্দগ্রামে তিন ছাত্রলীগ নেতার পদত্যাগ কক্সবাজারে সাংবাদিকদের উপর আ’লীগ-ছাত্রলীগের হামলা সারাদেশে ছাত্রসমাজের উপর মর্মান্তিক হামলার প্রতিবাদ ও কোটা সংস্কারের এক দফা দাবিতে দোহাজারীতে বিক্ষোভ মিছিল  এমএসআর’র ১ কোটি ২৬ লক্ষ টাকা লুটপাট সমস্যায় জর্জরিত চট্টগ্রামের চন্দনাইশ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স-অধিকাংশ চিকিৎসক অনুপস্থিত থাকেন নবীনগরে কুতুবিয়া দরবার শরীফে শাহাদাতে কারবালা মাহফিল অনুষ্ঠিত

সৈয়দপুর শহরের বেহাল সড়কটি সংষ্কারের নামে আবারও লোক দেখানো কাজ শুরু

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৯ জুলাই, ২০২৪
  • ১৫ বার

মো:জাকির হোসেন নীলফামারী প্রতিনিধি:

নীলফামারীর সৈয়দপুর শহরের দীর্ঘ ৮ বছর ধরে চলাচল অযোগ্য চরম বেহাল সড়কটি সংষ্কারের নামে আবারও লোক দেখানো কাজ শুরু করেছে পৌর কর্তৃপক্ষ। কোন প্রকার দরপত্র আহ্বান ছাড়াই চলছে শুধু ইট আর বালু দিয়ে ভরাট করা হচ্ছে রাস্তাজুড়ে সৃষ্ট বড় বড় গর্তগুলো। তার উপরে রোলার চালিয়ে সামান্য বসিয়ে দেয়া হচ্ছে। আর এক্ষেত্রে ব্যবহার করা হচ্ছে সম্পূর্ণ ব্যবহার অযোগ্য ইটের খোয়া।

তাই এটাকে পৌরবাসী অভিহিত করেছেন থুক পালিশ হিসেবে। কারণ ইতোপূর্বেও প্রায় ২৮ লাখ টাকা খরচ করে এমন কাজ করা হয়েছিল। যা মাত্র ১ মাসেই নষ্ট হয়ে গিয়েছিল এবং ৬ মাসের মধ্যেই গর্তগুলো থেকে খোয়া উঠে গিয়ে আগের চেয়েও দূরাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। সৈয়দপুরের লোকজন এই ধরনের অস্থায়ী কাজ নয় বরং পরিপূর্ণভাবে পূণ: মেরামত চায় রাস্তাটির।

মঙ্গলবার (৯ জুলাই) বেলা সাড়ে ১২ টায় সরেজমিনে শহরের গোলাহাট এলাকায় গেলে দেখা যায় ওয়াপদা মোড় হতে তামান্না মোড় পর্যন্ত ৪ কিলোমিটার দীর্ঘ শেরেবাংলা সড়কের সংষ্কার কাজ চলছে। অত্যন্ত নিম্নমানের (গুড়িয়া ও সাল্টি) ইটের খোয়া দিয়ে ছোট বড় গর্তগুলো ভরাট করে তার উপর সামান্য বালু ও পানি দিয়ে রোড রোলারের মাধ্যমে চাপ দিয়ে বসিয়ে দেয়া হচ্ছে। রেলারের চাপে ইটের খোয়াগুলো গুড়ো হয়ে মাটিতে পরিণত হচ্ছে। এই মাটি ও বালুর মিশ্রণ আপাতত জমাট বাধা কাদার মত চেপে থাকলেও এর উপর দিয়ে কিছু সময় যানবাহন চলাচল করামাত্রই সেগুলো ডেবে ও চাকার সাথে উঠে যাচ্ছে।

এলাকাবাসী জানান, এই বালু ও ইটের গুড়ার লাল মাটির মিশ্রণ সামান্য বৃষ্টি হলেই নরম কাদায় পরিণত হয়ে ভয়াবহ পরিস্থিতির সৃষ্টি হবে। বেশি বৃষ্টি হলে এগুলো উঠে ধুয়ে পানির সাথে গিয়ে ড্রেনে পড়ে প্রবাহে বিঘ্ন ঘটাবে। আর রাস্তাটা কাদায় পরিপূর্ণ হয়ে আগের চেয়েও অচলাবস্থার সৃষ্টি করবে।

তারা অভিযোগ করে বলেন, এর আগেও এমন থুক পালিশ কাজ করা হয়েছিল। তখন খোয়ার উপর পিচ দেয়ার পরও মাত্র ১ মাসেই সব উঠে গিয়ে বেহাল হয়ে পড়েছিল। আর এবার দেয়া হচ্ছে শুধু ইট ও বালু। ইটগুলোও পরিত্যক্ত রাবিশের মত অত্যন্ত নিম্নমানের। যা থুক পালিশ মাত্র। এভাবে লোক দেখানো কাজ করে অর্থ লোপাট করা হচ্ছে। এতে পৌরবাসীর ন্যুনতম উপকার হয়না বরং আরও বেশী দুর্ভোগে পড়তে হয়।

এব্যাপারে কাজের তদারকি ও মালামাল সরবরাহে নিয়োজিত পৌরসভার সুপারভাইজার ঈসা মিঠুর সাথে মুঠোফোন কথা হলে তিনি বলেন, এটা সংষ্কার নয় সাময়িক চলাচল যোগ্য করা হচ্ছে। মেয়রের নির্দেশে আমি ইটভাটা থেকে ইট এনে খোয়া করে রাস্তায় বিছিয়ে গর্তগুলো ভরাট করছি। এটা কোন প্রকল্প নয়। কোন বরাদ্দ থেকে এই কাজ হচ্ছে এবং কত টাকার? জানতে চাইলে তিনি এর কোন সদুত্তর দিতে পারেননি। তিনি জানান, কিছু দিনের মধ্যেই এই রাস্তা সংষ্কারে টেন্ডার হবে।

পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী শহিদুল ইসলাম বলেন, এই কাজ মূলতঃ রাজস্ব খাতের তবে কোন বিভাগের অর্থায়নে হচ্ছে তা আমার জানা নাই। এবিষয়ে পৌর মেয়র ভালো বলতে পারবেন। তিনি এটি কোন প্রকল্প হিসেবে দেখাবেন তা তাঁর উপরই নির্ভর করছে। তিনি আরও বলেন, কাজের ক্ষেত্রে নিম্নমানের উপকরণ ব্যবহারের অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। আপাতত কাজ বন্ধ রাখতে বলেছি। আর অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

পৌর প্যানেল মেয়র ও ১ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শাহিন হোসেন বলেন, আমি নিজে দেখেছি ১ নম্বর বলে ২ ও ৩ নম্বর ইটের খোয়া দিয়ে কাজ করা হচ্ছে। যা অল্প দিনেই উঠে গিয়ে আবারও গর্তগুলো কাদাপানিতে একাকার হয়ে দূর্দশায় ফেলবে।

তিনি জানান, মাসিক সভায় আলোচনা হয়েছিল চরম বেহাল দুইটি রাস্তা সংষ্কার করা হবে। কিন্তু এখন সংষ্কারের নামে থুক পালিশ করা হচ্ছে। মেয়রই এবিষয়ে ভালো বলতে পারবেন কেন এমন দুইনম্বর কাজ করা হচ্ছে।

ওই পথে চলাচলকারী অটো রিকশা চালক খোকন বলেন, আজ প্রায় ৫-৬ বছর ধরে এই রাস্তাটির বেহাল দশা। একেবারে ব্যবহার অযোগ্য হয়ে গেছে। চরম কষ্ট করে গাড়ি চালাতে হয়। প্রায়ই দূর্ঘটনা হয়, যাত্রী চালক আহত হয়। গাড়ি নষ্ট হওয়াতো প্রাত্যহিক ব্যাপার। পৌর মেয়র বার বার আশ্বাস দিলেও আজও দূরাবস্থা নিপতিত আমরা।

এর আগে ২৮ লাখ টাকা ব্যয় করে নাকি সংষ্কার করা হয়েছে। কিন্তু ১ মাসও ঠিক থাকেনি রাস্তা। আবারও শুরু হয়েছে সেই থুক পালিশ। পরিত্যক্ত ইটের খোয়া আর বালুর আস্তরণ দেয়া হচ্ছে। যা দুই দিনও থাকবেনা। জানিনা এবার কত টাকা হাতিয়ে নেয়া হবে। এভাবে কাজের নামে চলছে লুটপাট।

গোলাহাট এলাকার ব্যবসায়ী রবিউল ইসলাম বলেন, আবারও তামাশার কাজ শুরু করা হয়েছে। এভাবে কাজ করে কি লাভ? যদি দুই চার দিন পরেই তা অকার্যকর হয়ে পড়ে? বরং এখন যতটুকু যাতায়াত করা যাচ্ছে এই ইটের গুড়া আর বালুর আস্তরণ দেয়ায় তাও কঠিন হয়ে পড়বে। কাদাপানিতে গর্তগুলো আরও মারাত্মক আকার ধারণ করবে। তখন এখনকার চেয়ে বেশি দূর্দশা হবে এই পথের চলাচলকারীদের।

বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টির সৈয়দপুর উপজেলা সভাপতি ও নাগরিক কমিটির আহ্বায়ক ম আ শামিম বলেন, পৌর এলাকার প্রায় ৯০ ভাগ সড়কই ভাঙাচুড়া। এর মধ্যে ৪ টি রাস্তা একেবারে চলাচল অযোগ্য হয়ে পড়েছে। আর শেরেবাংলা সড়কতো পরিত্যক্ত রাস্তায় পরিণত হয়েছে। কিন্তু বিকল্প পথ না থাকায় মানুষ নিরুপায় হয়ে কষ্ট করে হলেও এপথে চলাচল করছে।

আমরা এই সড়কগুলো সংষ্কারের দাবীতে নিয়মিত আন্দোলন করে আসছি। কিন্তু মেয়র কর্ণপাত করেনি বরং পূর্বের মতই লুটপাটে মত্ত। এখন সংষ্কারের নামে আবারও বিল ভাউচার করে জনগণের টাকা পকেটে ভরার অপকৌশল চালাচ্ছেন। যে মানের উপকরণ ব্যবহার করা হচ্ছে তা কোনভাবেই গ্রহনযোগ্য নয়। এটা মূলতঃ পৌরবাসীর সাথে তামাশা করা হচ্ছে। এক সপ্তাহ ঠিক থাকবেনা এই সংষ্কার। বরং আগেও চেয়েও বেহাল হবে। এর তীব্র প্রতিবাদ জানাই এবং টেকসই ও পরিপূর্ণ সংষ্কারের দাবী করছি।

সৈয়দপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোখছেদুল মোমিন বলেন, আমরা লজ্জিত। প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা যে আশা নিয়ে দয়া করে রাফিকা আকতার বেবীকে পৌর মেয়র করেছেন তা তিনি (মেয়র) বিন্দুমাত্র পূরণ করতে পারেননি।

আজ সাড়ে তিন বছরে তিনি কোন উন্নয়ন কাজ উপহ

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম