1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
কাউন্সিলর মইনুল হক মনজু, অভিযোগ ও বাস্তবতা - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০৪:১০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
সাবেক ওয়ার্ড সভাপতি তপনের চতুর্থ মৃত্যুবার্ষিকী নকলা উপজেলা নির্বাচন : চেয়ারম্যান সোহাগ, ভাইস চেয়ারম্যান কনক ও লাকী বিজয়ী মাগুরায় আল-আমিন ট্রাস্টের উদ্যোগে  এ+প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা প্রদান অনুষ্ঠিত নবীগঞ্জে জামানত হারিয়েছেন ৯জন প্রার্থী চন্দনাইশ দোহাজারীতে শহীদ হালিম-লিয়াকত স্মৃতি বৃত্তি পরীক্ষার পুরষ্কার বিতরণ চন্দনাইশ বরকলে চেয়ারম্যান প্রার্থী আবু আহমেদ জুনুর গণ-সংযোগ ভুক্তভোগী পরিবারের সংবাদ সম্মেলন সেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি সুমনের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী হামলার অভিযোগ চন্দনাইশে বুদ্ধ পূর্ণিমা উপলক্ষে শান্তি শোভাযাত্রা চন্দনাইশে চেয়ারম্যান প্রার্থী জসিম উদ্দীনের বৈলতলীতে গণ-সংযোগ ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গীতে ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান ও রাস্তা সংস্কারে জন্য ১৫ লক্ষ টাকা অনুদান বিতরণ করেছেন – সুজন এমপি

কাউন্সিলর মইনুল হক মনজু, অভিযোগ ও বাস্তবতা

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ১৬৮ বার

নিজস্ব প্রতিবেদক |
মইনুল হক মনজু কাউন্সিলর ঢাকা সিটি দক্ষিণের ৩৯ নং ওয়ার্ড। শৈশবে বাবা বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ আজিজুল হক মল্লিকের হাতধরে আওয়ামী লীগ রাজনীতির হাতেখড়ি। মনজুর বাবা ছিলেন বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সাথে খুবই ঘনিষ্ঠ। মজনুর মা বঙ্গবন্ধুকে উপহার দেন তার বিয়ে গহনা দিয়ে তৈরি সোনার নৌকা।

একথা বলা এই কারণে যে, সম্প্রতি সরকারের সুদ্ধি অভিযানের নামে সাজানো হয় কাউন্সিলর মনজুকে গ্রেফতারের এক মহড়া। তার এই গ্রেফতারের পেছনে মূল কারণ ভিন্ন।
গত জোট সরকারের আমলে রাজধানী মার্কেট নির্মাণ করা হয় এবং এই মার্কেটের অর্ধেকের বেশি দোকানের মালিক বনে যান বিএনপি সমর্থিত রাজাকার আজমল হোসেন বাবুল।
মরহুম সাবেক স্থানীয় এমপি মিজানুর রহমান খান দীপুর অনুরোধে মার্কেট কমিটির সেক্রেটারি হন কাউন্সিলর মনজু। আর এটাই হয় মইনুল হক মনজুর জন্য কাল। বিশাল বিত্তশালী বাবুল গংদের চোখুসুলে পরিণত হন এলাকার সবচেয়ে জনপ্রিয় এই নেতা।
শুরু হয় চক্রান্ত। সুদ্ধি অভিযানে যখন সম্রাটসহ দু-একজন কাউন্সিল গ্রেফতার হয়, ঠিক এই সময়টাকে কাজে লাগিয়ে র ্যাবকে মিথ্যা তথ্য দিয়ে ভুল বুঝিয়ে সুযোগ বুঝে কাজে লাগান চতুর রাজারকার বাবুল গং।
কেএম দাসলেনে ভোলাগিরি আশ্রমের জায়গায় জাতীয় অধ্যাপক নুরুল ইসলামের নেতৃত্বে হসপিটাল গড়ে তুলেন কাউন্সিলর মনজু। যেখানে সাধারণ মানুষ নামমাত্র মূল্যে চিৎসাসেবা নিচ্ছেন। অথচ বলা হচ্ছে, তিনি সেখানটা দখল করে রেখেছেন,যা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন ও বানোয়াট। এই সবই পূর্ব পরিকল্পিত রাজাকার বাবুলের জনপ্রিয় কাউন্সিলর মনজুকে গ্রেফতারের প্রেক্ষাপট তৈরির অংশ বিশেষ।
মনজুর পরিবার গত ২৫/১১/১৯ ইং তারিখে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় ও আইন মন্ত্রণালয়ে ন্যায় বিচারের জন্য দুটি আবেদন দাখিল করেন
সরকারের এই অভিযান সর্বমহল থেকে প্রশংশিত হলেও, জনপ্রিয় কাউন্সিলর মনজুর গ্রেফতারে প্রশ্নবিদ্ধ হয় অভিযান।
যখন সায়েদাবাদ, গোপীবাগ এলাকাটি সন্ত্রাসের নগরী ছিল তখন এই কাউন্সিলর লাঠি-বাঁশি প্রকল্পের মাধ্যমে এলাকাবাসীকে শান্তি এনে দেন, যা তাকে পৌছে দেয় আকাশ চুম্বী জনপ্রিয়তায়। সাবেক মহানগর আওয়ামী লীগের শিক্ষা ও গবেষণাবিষয়ক সম্পাদক, গত কমিটির ছিলেন নির্বাহী সদস্য।
বলা হচ্ছে তিনি অস্ত্রের রাজনীতি করতেন, অথচ তার চিরশুত্রুরাও কখনো এই বলতে পারবে না মনজু সন্ত্রাসী কোনো কর্মকান্ডের সাথে যুক্ত ছিলেন। দুটি লাইসেন্স করা অস্ত্র নেয়ার সুযোগ থাকলেও তিনি তা নেননি। কারণ মনজুর কাছে বড় অস্ত্র হলো জনগণের শক্তি।
তিনি ছিলেন শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্রের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি। ১/১১ এ সভানেত্রী শেখ হাসিনার মুক্তিতে রেখেছেন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। বিএনপির জনপ্রিয় মেয়র সাদেক হোসেন খোকার এলাকায় বারবার নির্বাচিত হয়েছেন কাউন্সিলর মনজু।
তার পুরা পরিবার আমেরিকার সিটিজেন, শুধুই মজিবাদর্শের রাজনীতি করতে প্রিয় আত্মীয়স্বজন ছেড়ে বাংলাদেশে থেকেছেন। মেয়র হানিফের সাথে জীবনবাজী রেখে জনতার মঞ্চের আন্দোলনে সক্রিয় ভূমিকা রেখেছেন।
দেশের সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনে আওয়ামী লীগের পক্ষে মনজুর ছিল গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা।
এখন প্রশ্ন দেখা দিয়েছে, কে বেশি শক্তিশালী বাবুল রাজারকার, নাকি মুক্তিযোদ্ধা পক্ষের মইনুল হক মনজু।
এই প্রশ্ন এলাকাবাসীর মুখে মুখে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম