1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : naga5000 : naga5000 naga5000
মুরগির দোকানের কর্মচারী থেকে শীর্ষ মাদক কারবারি চর্থার কাশেম - দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ১১:২৫ পূর্বাহ্ন

মুরগির দোকানের কর্মচারী থেকে শীর্ষ মাদক কারবারি চর্থার কাশেম

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ১৬২ বার

জামাল উদ্দিন স্বপন, কুমিল্লা :

কুমিল্লা মহানগরীর দক্ষিণ চর্থা (থিরা পুকুরপাড়) মিয়া বাড়ির কাশেম মুরগির দোকানের কর্মচারী থেকে এখন শীর্ষ মাদক কারবারি। স্থানীয় এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, কাশেম এক সময় নিউ মার্কেটের মুরগির দোকানের কর্মচারী হলেও বর্তমানে মাদক ব্যবসা করে কোটি টাকার মালিক বনে গেছেন। কাশেমের মাদক ব্যবসার ধরন একটু ভিন্ন রকমের, সুচতুর কাশের প্রথমে ফেনসিডিলের ব্যবসা করলেও এখন ইয়াবা, গাঁজা পাইকারি বিক্রি করে থাকেন। কাশেমের ইয়াবা ও গাঁজা বিক্রি করার জন্য ১০/১৫ জনের একটি গ্রুপ রয়েছে যারা কাশেমের কাছ থেকে মাদক পাইকারি ক্রয় করে খুচরা বিক্রয় করে থাকেন। খুচরা বিক্রেতাদের নিকট মাদক পৌঁছে দেয় তার বড় ভাই একাধিক মাদক, ছিনতাই, ডাকাতি মামলার আসামি নজির। সূত্র জানায়, এক সময় নুন আনতে পান্তা ফুরানো কাশেম বর্তমানে কোটি কোটি টাকার মালিক হয়েছেন এই মাদক ব্যবসা করে। পুরাতন পরিত্যাক্ত মাটির ঘর ভেঙে পাঁচতলা ফাউন্ডেশন করে বিল্ডিং নির্মান করে রুমে এসি লাগিয়েছেন। নিজে চলাচল ও মাদক বহনের জন্য রয়েছে শীতাতপনিয়ন্ত্রিত গাড়ি। বীরদর্পে মাদক ব্যবসা করার জন্য সমাজের প্রভাবশালী লোকদের সুকৌশলে আত্বীয়, বন্ধু, বানিয়ে নিয়েছেন। কাশেম নিয়ন্ত্রিত খুচরা মাদক ব্যাবসায়ীরা পুলিশের হাতে ধরা পরলে জামিন, সংসারের খরচসহ যাবতীয় সব কিছু কাশেম দেখাশোনা করেন শর্ত কাশেমের নাম বলা যাবেনা। কাশেমের অবৈধ টাকার প্রভাবে তার বাড়ির লোকজনও অসহায় প্রায়। কাশেমের বাড়ির একাধিক লোক নাম প্রকাশ না করার শর্তে এই প্রতিবেদককে জানান, কাশেমের মাদক ব্যবসায় বাঁধা দিতে গিয়ে আমরা বিভিন্নভাবে হয়রানি হই। কাশেম আমাদের হুমকি দিয়ে বলেন, আমাকে কেউ কিছু করতে পারবেনা। বিভিন্ন পুলিশ অফিসারের সাথে তার একান্ত মুহুর্তের ছবি দেখিয়ে বলে এরা সবাই আমার বন্ধু। অনেক সাংবাদিক পুলিশ ও নাকি কাশেমের কথায় ওঠবস করে। সূত্র জানায়, কাশেম পুলিশ অফিসারদের ভয় দেখিয়ে সবাইকে ভিতু করে রাখে। কাশেমের মাদক ব্যাবসার প্রতিবাদ করতে গিয়ে অনেক অসহায় লোক মিথ্যা মামলা হামলার স্বীকার হয়েছেন। দ্রুত কাশেমকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় না আনা হলে যুব সমাজকে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করা যাবেনা।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম