1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
অধিকারহীন জনসাধারণ, নির্লিপ্ত নাগরিক সমাজ - দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ০১:৩৭ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
গাজীপুর মহানগরীর ধীরাশ্রম এলাকায় ট্রেনের বগি লাইনচ্যুত, যোগাযোগ বন্ধ রপ্তানি যোগ্য ইনসুলেটর তৈরি করতে যাচ্ছেন নিটল নিলয় গ্রুপ লালমনিরহাটে সাংবাদিকদের উপরে হামলার ঘটনায় প্রাধান আসামি গ্রেপ্তার ঠাকুরগাঁও জেলা আইন শৃংখলা কমিটির সভা । ঠাকুরগাঁওয়ে জাতীয় শোকদিবস উপলক্ষে শিশু একাডেমীর বিভিন্ন কর্মসূচী । ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গীতে ৭৫০ টাকার পটাশ সার কিনতে হচ্ছে ১৮০০ টাকায় । আবেগ দিয়ে নয়, বুদ্ধি ও বিচক্ষণতা দিয়ে এগোতে হবে নারীদের: বুলবুলি নির্বাচনী প্রতিহিংসার জেরে সাতকানিয়ায় স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতির বাড়িতে গুলিবর্ষণ গাজীপুর টঙ্গীতে এমফিটামিন জাতীয় ইয়াবা ট্যাবলেট সহ আটক ৩। মীরসরাইয়ে ৯টি হোটেল ও ৩ বেকারীকে জরিমানা

অধিকারহীন জনসাধারণ, নির্লিপ্ত নাগরিক সমাজ

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৭ জানুয়ারী, ২০২০
  • ৮৭ বার

ড. বদিউল আলম মজুমদার :
৩০ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখের একাদশ জাতীয় সংসদের তথাকথিত নির্বাচনের প্রেক্ষাপটে শুরু হয় ২০১৯। নির্বাচনটি ছিল নির্বাচন কমিশন, এক শ্রেণির সরকারি কর্মকর্তা, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও সরকারি দলের কর্মীদের এক নগ্ন আঁতাতের ভয়াবহ ফসল। এমনকি এতে উচ্চ আদালতের ভূমিকাও ছিল অস্বচ্ছ ও বিতর্কিত। আমাদের গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাকে সুসংহত ও কার্যকর করার লক্ষ্যে বাংলাদেশের সংবিধান নির্বাচন কমিশনকে সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের দায়িত্ব দিয়েছে। কমিশন এ দায়িত্ব পালনে শুধু ব্যর্থই হয়নি, তারা নগ্নভাবে জনগণের ভোটাধিকারও হরণ করেছে। বস্তুত, নির্বাচনটি ছিল একটি মস্ত বড় দুঃস্বপ্ন এবং কমিশনের পক্ষ থেকে জাতির সঙ্গে এক মহাপ্রতারণা।

নাগরিক সমাজের নৈতিক দায়িত্ব মানুষের রাজনৈতিক ও মৌলিক অধিকার খর্ব হলে তার বিরুদ্ধে প্রতিবাদী ও সক্রিয় হওয়া। বস্তুত আধুনিক রাষ্ট্রব্যবস্থায় রাষ্ট্রবহির্ভূত প্রতিষ্ঠানের (নন স্টেট ইনস্টিটিউশন) নাগরিক সমাজ যার অংশ; ভূমিকা আরও বিস্তৃত। রাষ্ট্রের অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের ওপর নজরদারিও নাগরিক সমাজের অন্যতম দায়িত্ব। প্রসঙ্গত, নাগরিক সমাজকে সংঘবদ্ধ করার লক্ষ্যে গড়া প্রতিষ্ঠানের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হলো, এগুলো অলাভজনক এবং ব্যক্তির পরিবর্তে নাগরিক স্বার্থে দলনিরপেক্ষভাবে এগুলো কাজ করে।

একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে নাগরিকরাই সব ক্ষমতার মালিক। নাগরিকরা তাদের এই ক্ষমতার একটি অংশ ভোটের মাধ্যমে তাদের নির্বাচিত প্রতিনিধিদের কাছে হস্তান্তর করে, যাতে সেসব প্রতিনিধি জনগণের স্বার্থে ও কল্যাণে সে ক্ষমতা প্রয়োগ করে। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত ক্ষমতার গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য হলো, এর কুক্ষিগতকরণ ও এর অপব্যবহার। ফলে নির্বাচিত প্রতিনিধিরা প্রশাসন ও আইনসভার সদস্য হিসেবে তাদের ক্ষমতার অপব্যবহার করে নাগরিকের অধিকার খর্ব করে এবং তাদের স্বার্থহানি ঘটায়। দুর্নীতি-দুর্বৃত্তায়ন ও অন্যান্য অপকর্মে জড়িয়ে পড়ে।

এমন পরিস্থিতি এড়ানোর জন্য আধুনিক রাষ্ট্র রক্ষাকবচ হিসেবে অনেক প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলে, যার অধিক সংখ্যকই সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান। আমাদের দেশে জাতীয় সংসদ ও উচ্চতর বিচার বিভাগ গড়ে তোলা হয়েছে, যাতে শাসন প্রক্রিয়ায় চেক অ্যান্ড ব্যালেন্স প্রতিষ্ঠিত হয়। একই সঙ্গে আমাদের সংবিধানে নির্বাচন কমিশন, সরকারি কর্ম কমিশন, মহা হিসাবরক্ষক ও নিরীক্ষক এবং ন্যায়পালের বিধান রয়েছে, যদিও এখন পর্যন্ত ন্যায়পাল নিয়োগ করা হয়নি।

নাগরিকের অধিকার সংরক্ষণের লক্ষ্যে সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান ছাড়াও আমাদের দেশে বেশ কয়েকটি বিধিবদ্ধ প্রতিষ্ঠান আইনের দ্বারা প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। এগুলো হলো :দুর্নীতি দমন কমিশন, মানবাধিকার কমিশন ও তথ্য কমিশন। এগুলোর লক্ষ্য হলো সরকারের স্বচ্ছতা-জবাবদিহি প্রতিষ্ঠা এবং দুর্নীতি-দুর্বৃত্তায়ন রোধ করা।

সাংবিধানিক ও বিধিবদ্ধ প্রতিষ্ঠানের বাইরেও আমাদের দেশে কয়েকটি রাষ্ট্রবহির্ভূত প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এর মধ্যে রাজনৈতিক দল ও নাগরিক সমাজ উল্লেখযোগ্য। রাজনৈতিক দল কোনো বিশেষ আদর্শ ও কর্মসূচি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে গঠিত হয়, যা কার্যকর করতে তারা ক্ষমতায় যেতে চায়।

একটি সত্যিকারের গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র একটি কার্যকর নজরদারিত্বের কাঠামোর ওপর প্রতিষ্ঠিত। আর এই নজরদারিত্বের কাঠামোকে কার্যকর করার ক্ষেত্রে নাগরিক সমাজ ও নাগরিক সমাজের প্রতিষ্ঠানের ভূমিকা অপরিসীম। শিক্ষক, বুদ্ধিজীবী, আইনজীবী, চিকিৎসক, সমাজসেবী ও অন্যান্য পেশাজীবীরাই সাধারণত নাগরিক সমাজের পুরোধা হয়ে থাকেন। তারা নিঃশর্ত ও নিঃস্বার্থভাবে এবং নির্দলীয় অবস্থানে থেকে একটি জাতিকে সামনে এগিয়ে নিতে কাজ করেন। তাই নাগরিক সমাজের দায়িত্ব শুধু নাগরিকের অধিকার সংরক্ষণে সোচ্চার হওয়াই নয়; অন্যান্য সাংবিধানিক ও বিধিবদ্ধ প্রতিষ্ঠানকে কার্যকর করার লক্ষ্যেও সক্রিয় ভূমিকা রাখা। ফলে নাগরিক সমাজের সবলতার ওপরে রাষ্ট্রের কার্যকারিতা বহুলাংশে নির্ভর করে।

দুর্ভাগ্যবশত আমাদের দেশে এক সময়ে নাগরিক সমাজ অত্যন্ত সবল ও সক্রিয় ভূমিকা রাখলেও বর্তমানে এর ভূমিকা অনেকটা অপ্রাসঙ্গিক। ১৯৯০ সালের নির্বাচনের পর আমাদের নির্বাচিত সরকারগুলো নাগরিক সমাজকে ক্রমাগতভাবে দুর্বল করেছে। ক্রেনিজম বা ফায়দা প্রদানের মাধ্যমে তারা নাগরিক সমাজকে বিভক্ত করে ফেলেছে। নিবর্তনমূলক আইনকানুন প্রণয়ন ও প্রয়োগের ফলে সমাজে একটি ভীতির সংস্কৃতি সৃষ্টি হয়েছে। সর্বোপরি ক্ষমতাসীনরা একটি কার্যকর গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা গড়ার ক্ষেত্রে নাগরিক সমাজের ভূমিকার কোনোরূপ স্বীকৃতিই প্রদান করেন না।

নাগরিক সমাজের একটি বড় অংশও কম ঝুঁকিপূর্ণ বিষয়ে সোচ্চার হওয়া নিরাপদ মনে করে। ফলে নাগরিকের রাজনৈতিক ও মৌলিক অধিকার সংরক্ষণের লক্ষ্যে এখন বাংলাদেশে শুধু কয়েকটি হাতেগোনা প্রতিষ্ঠানই সক্রিয় ভূমিকা রাখে, যা আমাদের গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার জন্য কোনোভাবেই সুখকর নয়। আরও হতাশাব্যঞ্জক হলো, আমাদের বুদ্ধিজীবী ও নাগরিক সমাজের একটি বড় অংশ নাগরিকদের অধিকার সংরক্ষণে তাদের কোনো দায়িত্ব আছে বলেই মনে করে না। তাদের কেউ কেউ এখন নিতান্তই বক্তৃতাজীবীতে পরিণত হয়েছেন। বাংলাদেশ সৃষ্টির কারণে অনেক সুযোগ-সুবিধা পেয়ে সাফল্যের উচ্চশিখরে পৌঁছলেও তারা সামাজকে এগিয়ে নেওয়ার স্বার্থে সাধারণ জনগণের অধিকার সমুন্নত রাখার ব্যাপারে কোনোরূপ দায়িত্ব গ্রহণে চরম অনীহাই প্রকাশ করেন।

নির্বাচন হলো জনগণের সম্মতির শাসন প্রতিষ্ঠার একমাত্র উপায়। নির্দিষ্ট সময়ের ব্যবধানে সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনই নিয়মতান্ত্রিকভাবে ক্ষমতা রদবদলের একমাত্র স্বীকৃত পথ। এ পথ রুদ্ধ হয়ে গেলে শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা বদলের পথই রুদ্ধ হয়ে যায়। জনগণের সম্মতিহীন শাসন ব্যবস্থা এবং তা বল প্রয়োগের মাধ্যমে চলমান রাখার পরিণতি যে কী ভয়াবহ হতে পারে, তা আমাদের বুদ্ধিজীবী ও নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিরা ভালো করেই জানেন। তবুও দুর্ভাগ্যবশত আমাদের বুদ্ধিজীবীদের অনেকেই এ ব্যাপারে নির্বিকার ও নির্বাক। সত্যিই আমরা এক দুর্ভাগা জাতি!

আমরা ২০২০ সালে প্রবেশ করেছি। এ বছর আমরা বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন করতে যাচ্ছি। এ দেশের মানুষের আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু আজীবন সংগ্রাম করেছেন। তাঁরই শাসনামলে গণতন্ত্র, ধর্মনিরপেক্ষতা, আইনের শাসন, সাম্য ও মানবিক মর্যাদা সুরক্ষার অঙ্গীকার আমাদের সংবিধানে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। তাই আমাদের শাসনব্যবস্থায় এসব ক্ষেত্রে চরম ঘাটতি রেখে ‘মুজিববর্ষ’ পালন যে নিছক একটি আনুষ্ঠানিকতায় পরিণত হবে, তা আশা করি আমাদের ক্ষমতাসীনরা উপলব্ধি করবেন। আরও আশা করি, মুজিববর্ষ ও পরবর্তী বছরে আমাদের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী সামনে রেখে নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিরাও তাদের নির্লিপ্ততা কাটিয়ে উঠবেন এবং তাদের দায়িত্ব ও করণীয় সম্পর্কে অনুধাবন করবেন ও সক্রিয় হবেন। বঙ্গবন্ধুর সাহচর্যে আসার সুযোগপ্রাপ্ত এবং ৬-দফা ও ঊনসত্তরের গণআন্দোলনের একজন সক্রিয় কর্মী হিসেবে এ-ই আমার অকৃত্রিম আকাঙ্ক্ষা।

এ প্রসঙ্গে পূর্ব ইউরোপে বহুল আলোচিত একটি কবিতার কথা মনে পড়ে যায়। কবিতাটির সারমর্ম :তোমার বন্ধুকে ভয় পেয়ো না, সে বড় জোর তোমার সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করবে; তোমার শত্রুকে ভয় পেয়ো না, সে বড় জোর তোমাকে হত্যা করবে; কিন্তু সাবধান থেকো সেসব ব্যক্তি থেকে যারা নির্লিপ্ত; যুগে যুগে হত্যা ও বিশ্বাসভঙ্গতা টিকে আছে সেসব ব্যক্তির কারণেই। সে জন্যই মনে হয়, মানব ইতিহাসে বারবার জেনোসাইডের মতো অমানবিক ঘটনা ঘটছে।

সম্পাদক, সুজন-সুশাসনের জন্য নাগরিক

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম