1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
মাসদাইর বড় কবরস্থান শ্মশান একসাথে, ধর্মীয় সম্প্রীতির উজ্জ্বল উদাহরণ - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ০৭:২৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
গুইমারাতে এক যুবকের গলাকাটা লাশ উদ্ধার ২ টি হেলমেটসহ মোটরসাইকেল পুলিশ হেফাজতে চৌদ্দগ্রামে দারুল উলুম ক্যাডেট মাদরাসায় বার্ষিক ওয়াজ মাহফিল অনুষ্ঠিত আশুলিয়ার ইয়ারপুরে নৌকার গনজোয়ারে ভাসছে মুসা ঠাকুরগাঁওয়ে একতা প্রতিবন্ধী উন্নয়ন স্কুল ও পুনর্বাসন কেন্দ্রের বার্ষিক পরীক্ষা চলছে । তিতাসে ৩২’শ কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে ধানের বীজ ও সার বিতরণ লক্ষ্মীছড়ির অবৈধ করাতকলে কাটছে সরকারি বনাঞ্চলের কাঠ! পথশিশুদের নিয়ে বিশ্বকাপ ফুটবল উৎসবে ঢাকা ইয়ুথ ক্লাব ইন্টারন্যাশনাল রাউজানে ধর্মীয় অনুষ্ঠানে কিলোমিটার জুড়ে আলোকসজ্জা ও মাইকের শব্দ দুষণ জনজীবন অতিষ্ট এক ঘন্টা পর ঢাকা-ময়মনসিংহ সড়কে ট্রেন চলাচল শুরু মীরসরাইয়ে বন বিভাগের উচ্ছেদ অভিযানে ১ একর জায়গা উদ্ধার

মাসদাইর বড় কবরস্থান শ্মশান একসাথে, ধর্মীয় সম্প্রীতির উজ্জ্বল উদাহরণ

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১৪ জানুয়ারী, ২০২০
  • ২৭৫ বার

মাহমুদুল হাসান হৃদয়, নারায়ণগঞ্জ :
চলছে মুসলিম হিন্দুর এক সাথে উৎসব এবং সমাধি।
কবরস্থান শ্মশান একসাথে ধর্মীয় সম্প্রীতি, সাথে রয়েছে থ্রিস্টান দের সমাধি।
নারায়নগঞ্জ উত্তর মাসদাইর চাষাঢ়া থেকে ঠিক এক কিলোমিটার পশ্চিমে যা বড় গোরস্থান নামে পরিচিত, যে খানে নেই ধর্ম নিয়ে বাড়া বাড়ি নেই কোন হিংসা বিদ্বেষ, যে যার ধর্মের নীতি অনুসারে চলছে সমাধি।

কবর হলো মৃতদেহ মাটিতে পুতেঁ রাখার গর্ত। মৃত মানুষকে কবরে শায়িত করাকে বলা হয় “দাফন করা”। মুসলমান, খ্রিস্টান ও ইহুদীদের মৃতদেহ মাটিতে দাফন করা হয়। অন্যদিকে অধিকাংশ ক্ষেত্রে হিন্দুদের মৃতদেহ আগুনে পুড়িয়ে ফেলা হয়।

এলাকাবাসী জানান, দীর্ঘদিন ধরে একইস্থানে শ্মশান, কবরস্থান ও সমাধি হলেও তিন ধর্মের মানুষ সম্প্রীতির বন্ধনে থেকে নিজ নিজ ধর্ম পালন করে আসছেন। এ নিয়ে কখনও কোনো বাক-বিতণ্ডা পর্যন্ত হয়নি।
কবরস্থান আর শসান এর মাঝে ৪’ফুট এর দেয়াল, এক পাশ থেকে আরেক পাশে দেখা যায় কি ভাবে তারা তাদের প্রিয় মানুষ কে সমাধি দিচ্ছে।
পারস্পরিক সহযোগিতায় ধর্মীয় আচার পালন করে আসছেন এখানকার সকল ধর্মের মানুষ। একই স্থানে পাশাপাশি তিন ধর্মের সমাধিস্থল হলেও কখনো কোন মতবিরোধ হয় নি। সব ধর্মের মানুষের মাঝে সৌহার্দের দৃষ্টান্ত হিসেবেই এই সমাধিস্থলটি গড়ে উঠেছে।

পাশাপাশি তিন ধর্মের মুরুব্বীরা বসে সিদ্ধান্ত নিয়ে , যেহেতু চাষাঢ়া থেকে ফতুল্লা, পাগলা হাইওয়ে রোড এর পাশে সমাধির স্থান,সেহেতু তারা ছোট বড় গেট দিয়ে মিনার করে ২০০ গজ পথ ধরে তুলছেন দেঁয়াল।

এলাকাবাসী আরো জানান, এখানে একই জায়গায় ধর্ম-নির্বিশেষে দাফন কিংবা সৎকার হচ্ছে মুসলমান, হিন্দু এবং খ্রিষ্টানদের মরদেহ। সব ধর্মের মানুষের মাঝে সৌহার্দ্যরে দৃষ্টান্ত হিসেবেই এই সমাধিস্থলটি গড়ে উঠেছে। আমরা মনে করি সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপিত হয়েছে এই উত্তর মাসদাইর বড় গোরস্থান।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম