1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
একজন রাজনৈতিক নেতার মহানুভবতা ও রাষ্ট্রের নিষ্ঠুরতা এবং সাংবাদিকদের নীরবতা! - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ০৯:৪১ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
নবীনগরে কোটাপদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল রাউজানে তিনদিন ব্যাপী বৃক্ষ মেলার উদ্বোধন রাউজানে ৬০ প্রজাতির ১ লাখ ৮০ হাজার ফলজ ও ঔষধি গাছের চারা রোপন কর্মসূচি উদ্বোধন মাগুরায় নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান শরিয়াতউল্লাহ হোসেন রাজনকে গণসংবর্ধনা প্রদান  *জরুরী রক্ত প্রয়োজন*রক্তের গ্রুপ: AB+ (এবি পজেটিভ) ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে চৌদ্দগ্রামে তিন ছাত্রলীগ নেতার পদত্যাগ কক্সবাজারে সাংবাদিকদের উপর আ’লীগ-ছাত্রলীগের হামলা সারাদেশে ছাত্রসমাজের উপর মর্মান্তিক হামলার প্রতিবাদ ও কোটা সংস্কারের এক দফা দাবিতে দোহাজারীতে বিক্ষোভ মিছিল  এমএসআর’র ১ কোটি ২৬ লক্ষ টাকা লুটপাট সমস্যায় জর্জরিত চট্টগ্রামের চন্দনাইশ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স-অধিকাংশ চিকিৎসক অনুপস্থিত থাকেন নবীনগরে কুতুবিয়া দরবার শরীফে শাহাদাতে কারবালা মাহফিল অনুষ্ঠিত

একজন রাজনৈতিক নেতার মহানুভবতা ও রাষ্ট্রের নিষ্ঠুরতা এবং সাংবাদিকদের নীরবতা!

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
  • ১৭০ বার

✍ বাবুল তালুকদারঃ রাষ্ট্র পরিচালনায় রাজনীতিবিদের কোন বিকল্প নেই, তেমনি দেশ গঠনসহ মানুষের সুখ দুঃখের একমাত্র ভাগিদার রাজনীতিকরাই। যার জ্বলন্ত প্রমান ২০০৭ সাল! দেশে জরুরী অবস্থা ঘোষণার পর মাত্র দুই বছরের মধ্যেই সর্বস্তরের মানুষ রাষ্ট্র পরিচালনায় রাজনীতিকদের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করে। সর্বস্তরে অপশাসনের ধারাবাহিক ব্যর্থতার ফল স্বরূপ দুই বছরের মধ্যেই তারা ক্ষমতা ছাড়তে বাধ্য হয়।

আর একজন রাজনীতিককে কঠোর অনুশীলন এবং সাংগঠনিকভাবে যোগ্যতার প্রমাণ দিয়েই রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব নিতে হয়। কিন্তু ক্ষমতার পট পরিবর্তন হলেই রাষ্ট্র যখন কোন রাজনীতিকের প্রতিপক্ষ হয়ে দাঁড়ায় তখন খারাপ নজির স্থাপিত হয়। আর এরই ধারাবাহিকতায় যে কোন রাজনীতিবিদই ভবিষ্যতে আক্রান্ত হতে পারে।

আজ এমন একটি মানুষকে নিয়ে কথা বলছি সে মানুষটির আজ ছিল জন্মদিন। এই মানুষটির সপ্তাহে গড়ে পাঁচ দিনই আদালতের বারান্দায় বারান্দায় হাজিরা দিতে হয় এখন!
অপশাসনের প্রেক্ষাপটে চরম এক বিদ্বেষমূলক চক্রান্তের শিকার সে মানুষটি হলো , বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির অন্যতম সদস্য ও ঢাকার সাবেক মেয়র ও মন্ত্রী জনাব মির্জা আব্বাস।

২০১৮ সালের মধ্য রাতের নির্বাচনে ঢাকার বুকে সস্ত্রীক বারবার হামলার শিকার হয়েও প্রতিবারই ঘুরে দাড়িয়ে ছিলেন, আর এই অপরাধেই এখন প্রহসনের মামলায় বিপর্যস্ত করা হচ্ছে তাকে।

এইতো কিছুদিন আগেও ৩০০ ‘সাংবাদিকদের কমমূল্যে প্লট প্রদান’ এর অভিযোগে আদালত যে মামলা চলবে বলে বলা হয়েছে, সেই মামলায় মির্জা আব্বাসের কোন নামই ছিলো না, কিন্তু এখন এই মামলায় নতুন করে তাকে প্রধান আসামী করা হয়েছে।

জানা যায়, সাংবাদিকদের কম মূল্যে প্লট বরাদ্দ দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ এনে সরকার একটি মামলা দায়ের করে। মামলায় তৎকালীন পূর্ত মন্ত্রী হিসেবে মির্জা আব্বাসকে স্বাক্ষী করা হয়। কিন্তুু হঠাৎ করেই সেই মামালায় মির্জা আব্বাসকে নতুন করে প্রধান আসামী করা হয়েছে।

শত্রুতারও একটা সীমা থাকে কিন্তু মির্জা আব্বাসের উপর ধারাবাহিক নির্যাতনের কোন সীমা নেই। একজন সাবেক সংসদ সদস্য, ঢাকার মেয়র, মন্ত্রী এবং দেশের সর্ববৃহৎ একটি দলের শীর্ষ নেতার উপর এ ধরনের প্রতিহিংসা দেশের সব রাজনীতিকদের জন্যই লজ্জার এবং আতঙ্কের।

শুধুমাত্র রাজনীতি করার কারনে একজন প্রবীণ রাজনীতিকের উপর এমন নির্যাতন ভবিষ্যতের জন্য যদি উদাহরণ হয়ে থাকে! যা বাকী সব রাজনীতিকের জন্যই অমঙ্গল এবং বিপদ জনক সাক্ষ্য বহন করবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মির্জা আব্বাস বলেন, ‘পূর্ত মন্ত্রণালয়ের আওতায় যদি কোন প্লট থাকে তাহলে সরকার তা নির্ধারিত মূল্যে বরাদ্দ দেয়। আর এর জন্য মন্ত্রনালয়ের আলাদা বিভাগ রয়েছে তারাই এর পকিল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করে থাকে। সরকার বা সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের পক্ষ থেকে যে মূল্য নির্ধারণ হবে সেই মূল্যই প্লট বরাদ্দ হয় অতএব, এখানে পূর্ত মন্ত্রীর কোন কাজ নেই।’

তবে এখানে উল্লেখ করা যেতে পারে, ‘এর আগে মিরপুরসহ বিভিন্ন জায়গায় সাংবাদিকসহ বিভিন্ন পেশাজীবিদের প্রতিজনকে ৫ কাঠা বা তারও বেশী জায়গা বরাদ্দ দেয়া হতো। কিন্তু সেই সময়ে ৩০০ সাংবাদিকের মধ্যে ৭ কাঠার একটি প্লট ৫ জনকে ভাগ করে দেয়া হয়েছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘সবচেয়ে হতাশার বিষয়, যে সাংবাদিকরা প্লট গুলো যারা পেয়েছে তারা কি শুধু বিএনপি সমর্থিত সাংবাদিক? তা মোটেেও নয়, এখানে অনেক আওয়ামীলীগ সমর্থিত সিনিয়র সাংবাদিকরাও রয়েছে। তবে তারা কোন পক্ষই এ নিয়ে এখন কোন কথা বলছে না এবং এ বিষয়টি নিয়ে আমার প্রতি যে অবিচার ও অন্যায় করা হচ্ছে তারও প্রতিবাদ করা হচ্ছে না।

এদিকে জানা যায়, যে সাংবাদিকরা সরকারের নির্ধারিত টাকাটি অনেক কষ্ট করে জমা দিয়েছিলেন, কেউ স্ত্রীর গহনা বন্ধক রেখে কেউবা সুদের উপর টাকা ঋণ নিয়ে! কিন্তু দুর্ভাগ্যের বিষয় প্রায় এক যুগ পরেও আজও তারা সেই কাঙ্খিত জাগা সাংবাদিকরা বুঝে পেলো না, অনেক সাংবাদিক মনে আক্ষেপ নিয়ে মৃত্যুবরণ করতে হয়েছে। আর এদিকে সরকার দলীয় লোকজন সেই জায়গায় অবৈধ স্থাপনা তৈরি করে ভোগ দখল করছেন।

আমি শুধু এটুকুই বলবো, কোন রাজনীতিবিদ ষড়যন্ত্র আশা করে না। রাষ্ট্র যখন একজন রাজনীতিকের প্রতিপক্ষ হয়ে দাঁড়ায় তখন কারো কিছু করার থাকে না। আইন যেখানে বাধাগ্রস্থ তখন মানুষের নিরুপায় হওয়া ছাড়া কোন উপায় থাকে না।

তবে রাজনীতিতে চিরস্থায়ী বলে কিছু নেই। আজকের ষড়যন্ত্র আগামীর দৃষ্টান্ত হয়ে থাকলে কারো জন্যই তা শুভ নয়। সত্যের জয় একদিন হবেই।

পরিশেষে শুধু এতটুকু বলবো, শুভ জন্মদিন ভাই,💐 মহান আল্লাহর কাছে দোয়া করি আপনি দীর্ঘজীবি হোন, আমীন।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম