1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
গাইবান্ধা জেলা হাসপাতালের পরিক্ষা নিরীক্ষার সকল যন্ত্রাদি দীর্ঘ দিন থেকে অকোজে ॥ নেই কোন বিশেষজ্ঞ ডাক্তার - দৈনিক শ্যামল বাংলা
বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০:১৭ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
শ্রেণীকক্ষ সংকটে পাঠদান ব্যাহত, জরুরি ভিত্তিতে ভবন প্রয়োজন নোয়াখালীতে ব্যবসায়ীকে পিটিয়ে জখম, প্রতিষ্ঠান ভাঙচুর ও লুট দেশে মেডিকেল ডিভাইস তৈরি করলে তা সাধারণ মানুষের কাছে সহজলভ্য হবে’ -স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন নবীগঞ্জ শহরের রাজা কমপ্লেক্সে হামলা ভাংচুর ও ৪ ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষ! শহর রণক্ষেত্র- আহত অর্ধশতাধিক৷ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশের টিয়ারসেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ৷ লালমনি এক্সপ্রেস ট্রেনে যাত্রী ভোগান্তির শিকার দেখার কেউ নেই। চৌদ্দগ্রামে মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে ট্রাই সাইকেল বিতরণ চৌদ্দগ্রামের বাতিসায় জাতীয় পার্টির উদ্যোগে ইফতার সামগ্রী বিতরণ ব্যবসায়ী হাবিবুর রহমান হাবিবের ১৮তম মৃত্যুবার্ষিকী পালন ঠাকুরগাঁও জমে উঠেছে জেলা পরিষদ নির্বাচন ! মোঃ মজিবর রহমান শেখ,

গাইবান্ধা জেলা হাসপাতালের পরিক্ষা নিরীক্ষার সকল যন্ত্রাদি দীর্ঘ দিন থেকে অকোজে ॥ নেই কোন বিশেষজ্ঞ ডাক্তার

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
  • ১৩৮ বার

আনোয়ার হোসেন শামীম, গাইবান্ধা :
মানুষের মৌলিক চাহিদা গুলোর মধ্যে অন্যতম চিকিৎসা কিন্তু গাইবান্ধা জেলা সদর হাসপাতালে ডাক্তার সংকটসহ নানা সমস্যায় জরজরিত থাকায় এ মৌলিক চাহিদা হতে বঞ্চিত হচ্ছেন গাইবান্ধার সাধারণ মানুষ। নিয়মিত ডাক্তার না আসায় বাধ্য হয়ে মোটা অঙ্কের টাকা দিয়ে বাহিরের ডাক্তার দেখিয়ে চিকিৎসা নিতে হচ্ছে রোগীদের।সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় রোগীদের থাকার ওয়ার্ড, টয়লেট, বাথরুম, বিছানা নোংরা হওয়ায় ছড়াচ্ছে দুর্গন্ধ।
২০০ শয্যা বিশিষ্ট গাইবান্ধা জেলা সদর হাসপাতালটিতে মেডিসিন, ইএনটি, চক্ষু, চর্ম ও যৌন, অর্থোসার্জারি বিভাগে বিশেষজ্ঞ ডাক্তার নেই। হাসপাতালে ৪২ জন চিকিৎসকের পদের বিপরীতে কর্মরত আছেন মাত্র ১৮ জন। আবাসিক চিকিৎসকের পদও শূন্য। জরুরি বিভাগ সামলাতে হচ্ছে মাত্র একজন মেডিকেল অফিসার দিয়ে। শিশু ও কার্ডিওলজিস্ট বিভাগে আছেন একজন করে জুনিয়র কনসালটেন্ট। হাসপাতালে রেডিওলজিস্ট না থাকায় এক্স-রে, আলট্রাসনোগ্রামের জন্য রোগীদের যেতে হয় বাহিরে। আর ডিজিটাল এক্স-রে মেশিন, আলট্রাসনোগ্রাম মেশিনে নানা সমস্যা থাকায় সেগুলো দীর্ঘদিন থেকে অকেজো। যা চিকিৎসা সেবা প্রদানে হিমসিম খাচ্ছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। হাসপাতালের বেড গুলোতেও নেই ভালো পরিবেশ। হাসপাতাল জুড়ে নোংরা পরিবেশ। টয়লেটগুলো ব্যবহার অনুপযোগী। ওয়ার্ডে সুইপার দিনে একবারে এসে কোনো রকম ঝাড়ু দিয়ে চলে যায়। ময়লা জমে মেঝে ও দেয়াল কালো রং ধারণ করেছে।
এখানে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীরা জানান, ডাক্তার প্রত্যক দিন ফিরে যেতে হয়, পরিক্ষা দিলে তা বাইরে করতে হয়। বাইরের পরিক্ষার রিপোর্ট নিয়ে আসার আগেই ডাক্তার থাকে না। বাধ্য হয়েই ডাক্তার সাহেব বাইরে যে চেম্বারে বসে সেখানে আবার টাকা দিয়ে দেখাতে হয়।
গাইবান্ধা জেলা কমিউনিস্ট পাটির সভাপতি মিহির ঘোষ বলেন , হাসপাতালের অনিয়ম দুর্নীতি নিয়ে আমরা মানব বন্ধনসহ অনেক কর্মসূচি পালন করছি কিন্তু কোন প্রতিকার পাই নেই। এই হাসপাতালে অনেক ভালো ভালো ডাক্তার আসলেও তারা বেশী দিন থাকেন না। রংপুর বগুড়া বদলী হয়ে যান। এই জেলার অধিকাংশ লোক নিম্ন আয়ের মানুষ । গাইবান্ধা জেলা সদর হাসপাতালে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারেরা বাইরে চেম্বারে ৭শ-হাজার টাকা ভিজেট দিয়ে দেখান না। সেজন্য তারা মোটা অঙ্কের টাকা ইনকামের জন্য জেলার বাইরে বদলী হন। তিনি আরো বলেন ডাক্তারী পাশের আগে সাধারন জনগনের ট্যাক্্েরর টাকা দিয়ে লেখাপড়া করে। আজ সাধারন জনই তাদের কাছ থেকে মৌলিক চাহিদা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। ডাক্তারদের টাকার পিছনে না ছুটে একটু মানবিকতার দেখানো আহ্বান জানান ।

গাইবান্ধা জেলা সদর হাসপাতাল উপ পরিচালক- ডাঃ মোঃ মাহফুজার রহমান বলনে, হাসপাতালের নানা সমস্যা আছে , তা দ্রুত সমাধান করার কথা জানালেন এই কর্মকর্তা।

গাইবান্ধা জেলা সদর হাসপাতাল সিভিল সার্জন ডাঃ এ.বি.এ.আবু হানিফ ডাক্তার সংকটের কথা স্বীকার করে শীর্ষক এই কর্মকর্তা বললেন, আমরা এই সমস্যা সমাধানের জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি। আশাকরি অতি দ্রুতই এই ঘাটতি পদগুলো আমরা সমাধান করতে পারবো। জেলার প্রায় ৩০ লাখ মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে ২০০৩ সালে ৫০ শয্যার হাসপাতালটি ১০০ শয্যায় উন্নীত করা হয়। ২০১৬ সালে এটি ২০০ শয্যায় উন্নীত করা হলেও লোকবল ও অবকাঠামো রয়েছে ১০০ শয্যারই।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম