1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
গাইবান্ধা-৩ জাতীয় সংসদ উপনির্বাচনে চরম বিপাকে তৃনমূল বিএনপি॥ দলও নেতা কর্মীর চরম পরিস্থতিতে পার্শ্বে থাকবে এমন কাউকে মনোয়নয়ন দেয়ার দাবি - দৈনিক শ্যামল বাংলা
মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২, ০১:৫২ অপরাহ্ন

গাইবান্ধা-৩ জাতীয় সংসদ উপনির্বাচনে চরম বিপাকে তৃনমূল বিএনপি॥ দলও নেতা কর্মীর চরম পরিস্থতিতে পার্শ্বে থাকবে এমন কাউকে মনোয়নয়ন দেয়ার দাবি

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২০
  • ৮২ বার

আনোয়ার হোসেন শামীম, গাইবান্ধা :
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গাইবান্ধা-৩ (সাদুল্ল্যাপুর-পলাশবাড়ী) আসনের সংসদ সদস্য ডা. ইউনুস আলী সরকারের মৃত্যুতে আসনটি শূন্য ঘোষণা করেছে সংসদ সচিবালয়। তার মৃত্যুতে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে এই আসনে। তবে নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা না হলেও গাইবান্ধা-৩ আসনে বিভিন্ন দল থেকে মনোনয়ন পেতে দোঁড়ঝাপ করছেন প্রায় এক ডজন নেতা। সাদুল্ল্যাপুর ও পলাশবাড়ী দুই উপজেলা নিয়ে গাইবান্ধা-৩ আসনটি। সাদুল্ল্যাপুর উপজেলায় ১১টি ও পলাশবাড়ী উপজেলার ৯টি ইউনিয়নসহ সর্বমোট ২০টি ইউনিয়ন রয়েছে এ আসনে। ভোটার সংখ্যা প্রায় ৪ লক্ষাধিক।
গাইবান্ধা- ৩ আসনে বিএনপি থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী ডা: মইনুল হাসান সাদিক ও ড: মিজানুর রহমান মাসুম । বিএনপি থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী জেলা বিএনপির সভাপতি ডা: মইনুল হাসান সাদিক। জাসদ থেকে বিএনপিতে আসা ডাঃ সাদিক এর আগে এই আসনে ২০১৯ সালের ২৭ জানুয়ারির প্রথম উপনির্বাচনে বিএনপি থেকে মনোনয়ন পেলে ও এলাকায় নির্বাচনে প্রতিদন্ধিতা তো দূরের কথা মনোনয়ন ফরম জমা দিয়ে আর এলাকাতে ও যাননি। এতে করে দলের ইমেজের পাশাপাশি এলাকার নেতাকর্মীরা চড়ম ক্ষুব্ধ ও হতাশ হন। বিএনপি নেতাকর্মীদের সুত্রে জানা গেছে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারীর নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এর আগে ও পরের আন্দোলনে ডা: সাদিক নেতাকর্মীদের খোজখবর নেননি এবং নিজে ও ওই সময় এলাকায় না গিয়ে বগুড়ায় নিজ চেম্বার নিয়েই ব্যস্ত থাকেন। রাজ পথের আন্দোলন দিলে তাকে মাঠে খুঁজে পাওয়ার সম্ভবনা বেশী।নেতাকর্মীরা জানান, ২০১৮ সালে ৮ই ফেব্রুয়ারী বেগম খালেদা জিয়ার মিথ্যায় মামলায় সাজার প্রতিবাদে গাাইবান্ধা জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি খন্দকার আহাদ আহমেদদের নেতৃত্বে জেলার নেতা কর্মীরা রাজপথে নামলে আন্দোলন থেকে গ্রেফতার হলেও মইনুল হাসান সাদিক বগুড়ায় নিজ চেম্বারে রোগী দেখে ব্যস্ত সময় পার করছেন। শুধু শক্রবার ছাড়া অন্য কোন প্রোগামে তিনি আসেন না। তৃনমূলের অনেক নেতা কর্মী সাদিককে বন্ধের দিনের নেতা হিসাবে আখ্যায়িত করছেন। দলের জন্য নেতাকর্মীরা যত ত্যাগীই হোক না কেন ডা : সাদিকের লোক না হলে পদ মিলে না,কোন ইউনিটে নিজের লোক না থাকলে সেখানে কমিটিই হয় না। এতে করে নেতাকর্মীরা যারপরনাই হতাস,অন্যদিকে শুধু বিএনপিই নয় ২০ দলীয় জোটের নেতাকর্মীদের সাথে তার দূরত্ব তৈরি হয়েছে নানা কারনে। এতে করে ডা: সাদিক আবারো মনোনয়ন পেলে বিএনপি বা ২০ দলীয় জোটের সকলকে মাঠে নামানো যাবে না।
অন্যদিকে বিএনপি থেকে আরেক হেভিওয়েট মনোনয়ন প্রত্যাশী ড:মিজানুর রহমান মাসুম। ঢাকাবিশবিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র থাকা অবস্থায়ই ছাত্রদলের রাজনীতিতে তার হাতেখড়ি।সাবেক এই তুখোড় ছাত্রনেতা তৃনমূল নেতাকর্মীদের কাছে বেশ জনপ্রিয়। মার্জিত স্বভাবের এই নেতা বিগত ১২ বছরের ও বেশী সময় ধরে পলাশবাড়ী ও সাদ্দুলাপুরের নেতাকর্মীদের সুখেদুঃখে পাশে থেকে ইতিমধ্যেই তাদের মাঝে আস্থা তৈরি করে নিয়েছেন।নিয়মিত এলাকায় গিয়ে নেতাকর্মীদের খোঁজ খবর নিচ্ছেন।চষে বেড়াচ্ছেন সাদুল্লাপুর ও পলাশবাড়ীর এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্ত, মসজিদ,মাদ্রাসা,স্কুল-কলেজ থেকে শুরু করে দুস্থ ও অসহায় সহ সামাজিক সকল কাজে নিজের সর্বোচ্চ সাধ্যমত পাশে থাকেন বলেন জানা যায়।ক্লিন ইমেজের তরুন এই নেতা দলীয় মনোনয়ন পেলে সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে কোন প্রতিবন্ধকতা থাকবেনা বলে জানান গাইবান্ধা ও সাদুল্লাপুরের নেতাকর্মীরা। সকলকে নিয়ে কাজ করার মানসিকতার কারনে ২০ দলীয় জোটের নেতাকর্মীদের কাছেও রয়েছে তার গ্রহনযোগ্যতা। তাই তৃন মূল নেতা কর্মীর একটাই দাবি মইনুল হাসান সাদিককে মনোয়ন না দিয়ে তরুন কোন নেতাকে মনোয়ন দিয়ে ভোটের মাঠে জয় লাভ করে জেলা ও উপজেলা বিএনপির পূর্ন সংগঠিত করার আহবান জানান কেন্দ্রীয় নেতাদের প্রতি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম