1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
ভোট ৩০ শতাংশের বেশি নয় : সিইসি - দৈনিক শ্যামল বাংলা
বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ০৯:১১ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
বর্তমান এবং  ভবিষ্যৎ প্রজন্ম একটি সুখী সমৃদ্ধ বাংলাদেশের গর্বিত নাগরিক হবে – মো. তাজুল ইসলাম, (এলজিইডি মন্ত্রী) পোকখালী’র ইউপি চেয়ারম্যান জামিনে মুক্ত চৌদ্দগ্রামে ইউনাইটেড ফর হিউমিনিটি’র অভিষেক ও দুর্ঘটনায় আহত শিক্ষকের মাঝে অর্থ হস্তান্তর ভিসির নির্দেশে বন্ধ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আয়োজন, মানেনি কুবি শিক্ষকরা ঢাকা সাব-এডিটরস কাউন্সিলের সাথে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের মতবিনিময় ফুলবাড়িতে ত্রিমুখী লড়াইয়ে এগিয়ে জামায়াত সমর্থিত প্রার্থী ঘূর্ণিঝড়ে রাউজানে দুইটি ঘর বিধ্বস্ত, বিচ্ছিন্ন  বিদ্যুৎ সংযোগ  রাশিয়া তালেবানকে আমন্ত্রণ জানিয়েছে বৃহত্তর বার্ষিক অর্থনৈতিক ফোরামে উদাহরণ দিয়ে বলতে পারবেন না, কোথাও আমরা মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছি – সেনা প্রধান  ঠাকুরগাঁওয়ে পীরগঞ্জের রেজিয়া হত্যার রহস্য উদ্ঘাটন বিষয়ে – পুলিশের প্রেস ব্রিফিং !

ভোট ৩০ শতাংশের বেশি নয় : সিইসি

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
  • ১৮১ বার

নির্বাচন কমিশন থেকে আবদুর রহিম :
প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা বলেছেন, ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোট ভালো হয়েছে। কত শতাংশ ভোট পড়েছে, তা তিনি জানেন না। তবে এটা ৩০ শতাংশের বেশি হবে না।

আজ শনিবার সন্ধ্যায় আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে নিজের দপ্তর থেকে বের হওয়ার পথে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার সময় তিনি এসব কথা বলেন।

সিইসি বলেন, ভোটকেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়ার ব্যাপারে কেউ কোনো অভিযোগ করেননি। ভোটকেন্দ্রে যাওয়ার দায়িত্ব এজেন্টদের। তিনি যে কেন্দ্রে ভোট দিতে গিয়েছিলেন, সেখানে আওয়ামী লীগ-বিএনপি দুই দলেরই এজেন্ট ছিল।

একজনের ভোট আরেকজন দিতে পারেননি বলেও দাবি করেন সিইসি। একজন ফিঙ্গারপ্রিন্ট দেওয়ার পর অন্য কেউ ইভিএম মেশিনে ভোট দিয়ে দিয়েছেন, এমন অভিযোগের বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, এ বিষয়ে কোনো অভিযোগ তিনি পাননি। যেসব ভোটার ভোটকেন্দ্রে গিয়েছেন, তাঁরা কেউ ভোট না দিয়ে ফেরত যাননি বলেও দাবি করেন তিনি।

নির্বাচন সুষ্ঠু হয়নি—এমন অভিযোগ তুলে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ সিইসির পদত্যাগ দাবি করেছে। দাবি মেনে পদত্যাগ করবেন কি না, এ বিষয়ে জানতে চাইলে সিইসি এক কথায় বলেন, ‘না’।

ইভিএমে ভোট হওয়ায় এবার ব্যালটে সিল বা জাল ভোট দেওয়ার উপায় ছিল না। কিন্তু অনেকেই অভিযোগ করেছেন, নিজের ভোট নিজে দিতে পারেননি। ইভিএমে আঙুলের ছাপ দিয়ে মেশিনটি খোলা হলেও অনেক ভোটারকে নির্দিষ্ট প্রতীকে ভোট দিতে বাধ্য করা হয়। সরেজমিনে নির্বাচনে নানা অনিয়মের চিত্র দেখতে পাওয়া গেছে। ঢাকার বহু কেন্দ্রে বিএনপির মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের এজেন্টদের ঢুকতে দেওয়া হয়নি। কেন্দ্রের আশপাশে বিএনপির কর্মীদের উপস্থিতিও ছিল না। কিন্তু ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের বিপুলসংখ্যক নেতা-কর্মীর উপস্থিতি ছিল সর্বত্র।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম