1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : naga5000 : naga5000 naga5000
মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড়- এবার পথ হারাবেনা কেউ? - দৈনিক শ্যামল বাংলা
মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ১০:৫৮ পূর্বাহ্ন

মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড়- এবার পথ হারাবেনা কেউ?

ক্রিকেট স্পোর্টস মতামত

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
  • ১৭৪ বার

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার|
আশিকুর রহমানের কথা মনে আছে? ২০০৪ যুব বিশ্বকাপে বাংলাদেশের অধিনায়ক আজ কোথায়, ক্রিকেটাঙ্গনের কেউ জানে না। অথচ ১৪ জনের ওই স্কোয়াড থেকে সবচেয়ে বেশি, ১১ জন ভিন্ন ভিন্ন ফরম্যাটে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলেছেন। কিন্তু সেই দলটির নেতা ক্রিকেট পুরোপুরি ছেড়েছেন ২০১৫ সালে। সেটাও জানা গেছে দলিল দস্তাবেজ ঘাঁটাঘাঁটি করে। প্রথম বিভাগ ক্রিকেটের খবর আর কে রাখে! তারপরও দৃঢ় বিশ্বাস এবার পথ হারাবেনা কেউ।

এভাবেই যুব বিশ্বকাপের স্কোয়াড থেকে ঝরে গেছে আরো নাম। আশিকের সতীর্থ আবুল বাশার যেমন। সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল ও মুশফিকুর রহিমের প্রথম যুব বিশ্বকাপের স্কোয়াডে থাকা ইশরাক সনেট কিংবা সিরাজুল্লাহ খাদিমকে ঘিরেও আশার বাতাবরণ তৈরি হয়েছিল। আবার যুবাদের আসরে বড় স্বপ্ন দেখিয়ে স্বপ্নভঙ্গের বেদনাও মিলেছে কারো কারো ভাগ্যে। নাফিস ইকবাল, তালহা যুবায়ের, রকিবুল হাসান—এমন নামের সংখ্যা একেবারে হারিয়ে যাওয়াদের চেয়েও বেশি।

প্রায়ই বলা হয় যে, জাতি হিসাবে আমরা ভীষণ আবেগপ্রবণ। আমাদের উচ্ছ্বাস যেমন বাঁধভাঙ্গা, আমাদের বেদনাবোধও তেমনই প্রবল। যেদিন আকাশে ঘন কালো মেঘ জমে আমাদের মনও সেদিন অকারণে, অসময়ে ভারী হয়ে আসে। কখনো বৃষ্টি নামলে আমরা স্থান, কাল, পাত্র ভুলে কাদাজল গায়ে মেখে প্রশান্তি অনুভব করি। আবার কখনো শীতের সকালের নরম রোদটাকেও মনেহয় প্রকৃতির বাড়াবাড়ি রকমের পক্ষপাতিত্ব আমাদের প্রতি। আমরা রবীন্দ্রনাথ আর কফির কাপের ধোঁয়া একসঙ্গে মিলিয়ে অনুভব করি। এসবকিছুই আমাদের চূড়ান্ত অনুভূতির বাহ্যিক রূপ।

দীর্ঘদিন ধরেই আমাদের আরেকটি আবেগের নাম হল ক্রিকেট। যখন কোনও আন্তর্জাতিক ম্যাচে বাংলাদেশ খেলে আমরা তখন আবেগঘন চোখে নিস্পলক চেয়ে থাকি টেলিভিশনের পর্দায়। হোক সে ম্যাচ সিলেট কিংবা সিডনি, মিরপুর অথবা মেলবর্নে। আইসিসির র‌্যাঙ্কিং তালিকার শেষদিকের দল হলেও (টেস্ট র‌্যাঙ্কিং-৯, ওডিআই-৭, টি-টোয়েন্টি-৯) যেকোন একটি জয় আমাদের প্রত্যাশা বাড়িয়েছে বহুগুণ। কতবার ভেবেছি এইবার বোধহয় সব ব্যর্থতা শেষে টুর্নামেন্ট সেরা হয়ে আমরা পৌঁছে যাব সাফল্যের বন্দরে; অন্যদের মত ‘চ্যাম্পিয়ন’ লেখাটিকে সামনের সারিতে রেখে মাথায় তুলে ধরবো ট্রফিটি! কিন্তু বরাবরই শিরোপার খুব কাছে যেয়ে খুব দূর থেকে ফিরে এসেছি আমরা।

কিন্তু রোববারের ইতিহাসটি ভিন্ন। সেখানে শুধুই লেখা আছে বিজয়ের গল্প। অনুর্ধ্ব-১৯! একটি গল্পের শিরোনাম যেন। একটি জাতির আজন্ম লালিত স্বপ্ন সত্যি হয়েছে যাদের মাধ্যমে তারা অনুর্ধ্ব-১৯! শুধু ‘অভিন্দন’ ওদের জন্য যথেষ্ঠ শব্দ নয়, এই প্রথম মনে হল আরো কিছু থাকলে খুব ভালো হত। এই প্রথম বাংলা ভাষায় স্বাগত জানানোর ক্ষেত্রে শব্দভাণ্ডারকে অপর্যাপ্ত মনে হচ্ছে। কবিতার মত বলতে ইচ্ছা হচ্ছে- ‘আরো কিছু হোক, আরো বেশি কিছু…’

রোববার ফাইনাল খেলার শুরুতে খুব আফসোস হচ্ছিল কেন আজ শুক্রবার নয়। তাড়া ছিল কখন কাজ শেষে বাসায় ফিরে খেলা দেখবো। প্রথম ইনিংস পুরাটাই ক্রিকইনফোর ওপর ভরসা রাখলাম। ভারতের ইনিংস শেষ হলে ভাবলাম, যাক স্কোর তো বেশি নয় এইবার যদি কিছু একটা হয়। কিন্তু কিসের কি! ১২ ওভারের পরে মনে হচ্ছিল আবার সেই একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটতে যাচ্ছে হয়ত। আমরা তখন জানতাম না যে আমাদেরকে আরেকটি ‘আকবরনামা’ লিখতে হবে। যেন বা ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি! হাজার হাজার কিলোমিটার দূরের মাঠটি ততক্ষণে লাল-সবুজ পতাকাময় আর আমাদের চোখ ঝাপসা শুধু! মাথার ভেতর গানের এ লাইনটি তখন ঝড় তুলছে, “ঠিক যেখানে দিনের শুরু, অন্ধ-কালো রাত্রি শেষ, মন যতদূর চাইছে যেতে, ঠিক ততদূর আমার দেশ”।

আমার ছেলেটির বয়স প্রায় নয় বছর। একবার অফিসের ট্যুর শেষে ঢাকা ফেরার সময় ওর জন্য একটি খেলনা বাঘ কিনে নিয়ে এলাম। সেটি পেয়ে সে ভীষণ খুশি। কারণ এখন থেকে বাংলাদেশের খেলা হলেই সে জার্সি গায়ে বাঘ হতে নিয়ে আনন্দ করতে পারবে। এরপর থেকে যতবার বাংলাদেশ খেলায় জিতেছে সে ততবার বাঘ মাথার উপরে তুলে নেচেছে। আনন্দের কোন বয়স নেই; হোক সে নয় কিংবা ঊনিশ। এমন আবেগে উদ্বেলিত হবার উপলক্ষ তো আমাদের জীবনে বড় একটা আসে না! বিশ্বকাপ বলে কথা! আজ আমরা বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন!

আসলে মানুষের অভিধানে অসম্ভব বলে কিছু নেই। মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড়। যদি না একদিন আমরা স্বপ্ন দেখতে শিখতাম, বিশ্বাস না করতাম যে, আমরাও বিশ্ব চ্যাম্পিয়ান হব তাহলে এইদিনটি আর কখনোই আসতো না বাংলাদেশের ইতিহাসে। বিজয়ের এই বিশ্বাসটাকে ধরে রাখতে হবে, লালন করতে হবে। সামনে অনেক পথচলা বাকি। আমরা যে পেরেছি এটা আর এখন কল্পনা নয়, সত্যি। আজকের দিনের শুরুটা তাই অন্যরকম; শীতের রোদ্দুটাকে খুব মায়াময় লাগে। মধ্যদুপুরে করিডরের পাশে প্রাণপণ ডাকতে থাকা কাকগুলোকেও যেন মনেহয় বিজয় মিছিলে নেমেছে। কারণ এদেশের বুকে আজ আঠারো নয় ঊনিশ নেমে এসেছে। আজ সত্যিই মনে হচ্ছে, “আমরা মলয় বাতাসে ভেসে যাবো, শুধু কুসুমের মধু করিবো পান…”। ক্রিকেট ও ক্রিকেটারদের জন্য ভালোবাসা অশেষ। এমন দিন বারবার ফিরে আসুক বাংলাদেশ নামের মানচিত্রে সেই শুভকামনা।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম