1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
করোনার প্রভাবে স্থবির শরণখোলা শ্রমজীবী পরিবারে দুর্দশা - দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০৬:১০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
Situs Slot Gacor Pragmatic Bet 200 Resmi mudah Menang dan Terpercaya ঈদগাঁওতে ৬ দিন পর নির্বাচনী সহিংসতায় কর্মী খুনের মামলা কয়েক শত মাছের ঘের প্লাবিত হয়ে একাকার রাঙ্গাবালীতে ঘূর্ণিঝড় রিমালের তান্ডবে ক্ষয়ক্ষতি ২০ গ্রাম প্লাবিত আইপিএল এ সানরাইজার্স হায়দরাবাদকে ফাইনালে রীতিমতো বিধ্বস্ত করে শিরোপা জিতে নিল কলকাতা নাইট রাইডার্স তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে এনে সাজা দেওয়া হবে -প্রধানমন্ত্রী ইনাতগঞ্জ ডিগ্রী কলেজে অধ্যক্ষ ও শিক্ষকের অপসারণের দাবিতে শিক্ষার্থীদের অবস্থান কর্মসূচি পালন।। ২৪ ঘন্টার আল্টিমেটাম ঠাকুরগাঁওয়ে শিশুর পুরুষাঙ্গে ইট বেঁধে ভিডিও, ৩ কিশোর আটক ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গীতে মলম ও অজ্ঞান পার্টির ৩ সদস্য আটক মাগুরায় প্রতারণার বিচার চেয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন এক প্রধান শিক্ষক!

করোনার প্রভাবে স্থবির শরণখোলা শ্রমজীবী পরিবারে দুর্দশা

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২৬ মার্চ, ২০২০
  • ১৪৫ বার

নইন আবু নাঈম বাগেরহাট প্রতিনিধি ঃ
সারা দেশের ন্যায় বাগেরহাটের শরণখোলাও করোনার প্রভাবে স্থবির হয়ে পড়েছে। জরুরী প্রয়োজনীয় কিছু জিনিসপত্রের দোকান ছাড়া ‘লকডাউন’ করা হয়েছে গোটা উপজেলার সবকিছু। সবখানেই থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। খুব বেশি দরকারি না হলে ঘর থেকে বের হচ্ছে না বিত্তবানরা। কিন্তু শ্রমজীবী ও নিম্ন আয়ের মানুষ পেটের দায়ে বাইরে বের হলেও কাজ পাচ্ছেনা তারা। ফলে তাদের পরিবারে নেমে এসেছে দৈন্যদশা।
সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী গত বুধবার থেকে সকল হাটবাজারগুলোতে ওষুধ, মুদি ও কাচামাল বাদে সমস্ত দোকানপাঠ বন্ধ ঘোষনা করেছে উপজেলা প্রশাসন। যার কারণে লোকসমাগম একেবারেই কমে গেছে। ঢাকা, খুলনা, বাগেরহাট থেকে এসব দোকানে স্থল ও নৌ-পথের মাধ্যমে মালামাল পরিবহনের ট্রান্সপোর্টগুলো বন্ধ রয়েছে। এসব ঘাটে মালামাল ওঠানামার কাঝে নিয়োজিত শতাধিক শ্রমিক প্রায় বেকার হয়ে পড়েছে। তাছাড়া বাজারঘাটে লোকজন কম ওঠায় উপজেলার তিন সহস্রাধিক অটোভ্যান ও ইজিবাইক চালকও পড়েছে বিপাকে।
খুলনা ট্রান্সপোর্টের রায়েন্দা বাজার হ্যান্ডলিং শ্রমিক ইউনিয়নের শহীদ নিমার ঘাটে শ্রমিক সলেমান শিকদার (৩৮), শহিদুল হাওলাদার (৪০), হামিদুল বয়াতি (৪২), হালিম ফরাজী (৩৫) জানান, গত দুদিন ধরে কাজ নেই। তাদের এই ঘাটে আগে খুলনা থেকে ৭-৮টি ট্রাক মালামাল নিয়ে আসতো। তাতে একেকজন শ্রমিক ৬০০-৭০০টাকা ভাগে পেত। বৃহস্পতিবার মাত্র একটি ট্রাক এসেছে। তাদের প্রত্যেকের সংসারে ছয় থেকে সাত জন লোক। এ অবস্থা চলতে থাকলে তাদের না খেয়ে মরতে হবে বলে আক্ষেপ করেন তারা।
অপরদিকে, রায়েন্দা ইউনিয়নের জিলবুািনয়া গ্রামের অটোভ্যান চালক মো. মিজান মোল্লা (১৮), সোহাগ ফকির (৩৫) ও কদমতলা গ্রামের সোবাহান হাওলাদার (৪৮) জানান, আগে প্রতিদিনি ৪০০ থেকে ৫০০টাকা আয় হতো। করোনার প্রভাবে এখন একশ-দেড়শ টাকাও হচ্ছেনা। দানসাগর ইউনিয়নের পহরানবাড়ি এলাকার ইজিবাইক চালক মিজানুর রহমান (৪০) জানান, অন্যান্য দিন ৬০০ থেকে ৭০০টাকা আয় হতো। বৃহস্পতিবার বিকেল পর্যন্ত মাত্র দেড়শ টাকা পেয়েছেন।
শহীদ নিার ঘাটের শ্রমিক সরদার মো. ফিরোজ শেখ ও রায়েন্দা বাজার ট্রলারঘাট শ্রমিক সরদার মো. খলিল হাওলাদার জানান, করোনার কারণে পণ্য পরিবহনের ট্রলার ও ট্রাক কম আসায় শ্রমিকরা বেকার হয়ে পড়েছে। দুটি ঘাঠে একশ’র বেশি শ্রমিক রয়েছে। তারা পরিবার-পরিজন নিয়ে সবাই কষ্টে আছে।
রায়েন্দা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান মিলন বলেন, শ্রমজীবী ও নিম্ন আয়ের মানুষকে সরকার মানবিক সহায়তা প্রদানের ঘোষনা দিয়েছে। এজন্য তাদের তালিতা প্রস্তুত করা হয়েছে। সরকারি নির্দেশনা পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম