1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : naga5000 : naga5000 naga5000
‘বন্দুকযুদ্ধে’ এক রাতে ৮ রোহিঙ্গা ‘সন্ত্রাসী’ নিহত - দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ১১:২৩ পূর্বাহ্ন

‘বন্দুকযুদ্ধে’ এক রাতে ৮ রোহিঙ্গা ‘সন্ত্রাসী’ নিহত

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৩ মার্চ, ২০২০
  • ১৩১ বার

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার :
কক্সবাজারের টেকনাফে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে ৭ রোহিঙ্গা ডাকাত’ নিহত হয়েছে। র‌্যাব বলছে, গতকাল সোমবার ভোররাত ৫টার দিকে টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের মোছনী রোহিঙ্গা ক্যাম্পসংলগ্ন পাহাড়ি এলাকায় এ বন্দুকযুদ্ধের পর ৩টি পিস্তল, ৭টি এলজি ও ১২ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়েছে। এর আগে রাত সাড়ে ৪টার দিকে টেকনাফ উপজেলার জাদিমোরা নাফ নদের পয়েন্টে বিজিবির সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ আরেক রোহিঙ্গা মারা যায়। বিজিবি বলছে, বন্দুকযুদ্ধের পর ঘটনাস্থল থেকে ১ লাখ ৫০ হাজার ইয়াবা ও একটি এলজি উদ্ধার করা হয়েছে।

এ ঘটনায় বিজিবির তিন জওয়ান আহত হয়েছেন। পুলিশ বলছে, এ আটজনকে নিয়ে ২০১৭ সাল থেকে এ পর্যন্ত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ৬৬ রোহিঙ্গা নিহত হয়েছে। কূটনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, যতদিন যাবে রোহিঙ্গাদের নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন হয়ে পড়বে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের। পাশাপাশি কক্সবাজারের স্থানীয়দের নিরাপত্তা ঝুঁকি বাড়বে। দ্রুত রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে পাঠানোর উদ্যোগ নিতে হবে। সেই সঙ্গে রোহিঙ্গাদের সাময়িকভাবে ভাসানচরে স্থানান্তরের ব্যবস্থা করতে হবে।
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে দেশ রূপান্তরকে বলেন, ইয়াবা কারবারের পাশাপাশি বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে যাচ্ছে রোহিঙ্গারা। তাদের ভয়ে টেকনাফ ও উখিয়ায় স্থানীয় বাসিন্দারা অনেকটাই আতঙ্কিত থাকেন। তাছাড়া অনেক এনজিও কাজ করছে যারা রোহিঙ্গাদের অপরাধের দিকে যেতে সাহায্য করছে।

সাবেক পররাষ্ট্র সচিব এবং কূটনৈতিক বিশ্লেষক ওয়ালি উর রহমান বলেন, রোহিঙ্গারা হুমকি হয়ে উঠছে। রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে উচ্চপর্যায়ের কূটনৈতিক টিম গঠন করে আন্তর্জাতিক চাপ তৈরি করতে হবে। আর ভাসানচরে জোর করে হলেও তাদের স্থানান্তর করতে হবে। রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলো অপরাধের ঘাঁটিতে রূপ নিয়েছে। অনেক এনজিও তাদের সহযোগিতা করছে। অপরাধের সামগ্রীও কেউ কেউ জোগান দিচ্ছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল দেশ রূপান্তরকে বলেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তৎপর রয়েছে। অভিবাসন বিশেষজ্ঞ আসিফ মুনীর দেশ রূপান্তরকে বলেন, রোহিঙ্গারা ইয়াবা ও অস্ত্র ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত এটা ঠিক। তবে তাদের কারা এসবের জোগান দিচ্ছে সরকারকে সেটাও দেখতে হবে। দেশের মধ্যে কারা রোহিঙ্গাদের এসব অবৈধ কাজে সহযোগিতা করছে সেটা বের করতে হবে। তা না হলে কোনো কাজ হবে না।

র‌্যাব-১৫ রামু ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক উইং কমান্ডার আজিম আহমেদ বলেন, ‘সোমবার মধ্যরাতে টেকনাফের মোছনী রোহিঙ্গা ক্যাম্পসংলগ্ন পাহাড়ি এলাকায় সশস্ত্র রোহিঙ্গা ডাকাত জকি বাহিনীর সদস্যরা অবস্থান করছে এমন খবরে র‌্যাবের একটি দল অভিযান চালায়। একপর্যায়ে ভোররাত ৫টার দিকে র‌্যাব সদস্যদের লক্ষ্য করে ডাকাত দল গুলি ছোড়ে। র‌্যাব সদস্যরাও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি চালায়। এ সময় ৭০-৮০ রাউন্ড গুলিবিনিময় হয়। একপর্যায়ে গোলাগুলি থেমে গেলে ঘটনাস্থল থেকে সাতজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়। ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার হয়েছে ৩টি পিস্তল ও ৭টি দেশীয় তৈরি বন্দুক ও ১২ রাউন্ড গুলি। তাদের উদ্ধার করে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। ’ তিনি বলেন, “নিহতরা রোহিঙ্গা ডাকাত দল ‘জকি বাহিনীর’ সদস্য এবং সবাই রোহিঙ্গা নাগরিক। তবে তাদের নাম এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। টেকনাফ থানা পুলিশের মাধ্যমে পরিচয় জানার চেষ্টা চলছে। এ ঘটনায় জড়িত অন্য ডাকাতদের গ্রেপ্তারে র‌্যাব নানাভাবে অভিযান অব্যাহত রাখবে। ’

নিহতদের মধ্যে তিনজনের পরিচয় শনাক্ত করেছে পুলিশ। তারা হলো রোহিঙ্গা ডাকাত জকি বাহিনীর সদস্য ইমরান (৩০), ফারুক (২৫) ও নুরাইয়া (৩৫)। অন্যদের পরিচয় জানার জন্য চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছেন টেকনাফ থানার পুলিশ। টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ জানিয়েছেন, ‘খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে সাতজনকে উদ্ধার করে টেকনাফ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন। ময়নাতদন্তের জন্য মৃতদেহগুলো কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনার পর থেকে পুলিশ রোহিঙ্গা ডাকাত জকি বাহিনীপ্রধান ও সদস্যদের ধরতে পাহাড়ের সম্ভাব্য স্থানে অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে। এ ব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। ’

টেকনাফ ২নং বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল মোহাম্মদ ফয়সল হাসান খান জানান, গোপন সংবাদে টেকনাফের নয়াপাড়া বিওপির বিশেষ একটি টহল দল মাদকের চালান আসার সংবাদ পেয়ে জাদিমোরা খালসংলগ্ন পয়েন্টে অবস্থান নেয়। কিছুক্ষণ পর মাদকের একটি চালান নিয়ে নৌকাযোগে দুই-তিন ব্যক্তি কিনারায় উঠে পালিয়ে যাওয়ার সময় বিজিবি জওয়ানরা চ্যালেঞ্জ করলে মাদক কারবারিরা তাদের লক্ষ্য করে গুলি চালায়। আত্মরক্ষার্থে বিজিবিও পাল্টা গুলি ছোড়ে। এ সময় বিজিবির তিন জওয়ান আহত হন। পরে ঘটনাস্থল তল্লাশি করে দেড় লাখ ইয়াবা, একটি দেশীয় অস্ত্র ও দুই রাউন্ড তাজা কার্তুজসহ গুলিবিদ্ধ অজ্ঞাত এক ব্যক্তিকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য টেকনাফ উপজেলা সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে আহত বিজিবি জওয়ানদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হলেও গুলিবিদ্ধ অজ্ঞাত মাদক কারবারিকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। মৃতদেহ মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে টেকনাফ থানায় সংশ্লিষ্ট আইনে মামলা করবে বিজিবি।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একাধিক সূত্র জানিয়েছে, কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফে অবস্থানরত রোহিঙ্গারা নানা অপরাধ কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়ছে। বিশেষ করে মিয়ানমার থেকে ইয়াবাসহ সীমান্তে চোরাচালান এবং ক্যাম্প ও ক্যাম্পের বাইরে গিয়ে চুরি-ডাকাতিসহ নানা অপরাধ করছে। এসব প্রতিরোধে ক্যাম্পের চারপাশে কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণ করছে সেনাবাহিনী। এছাড়া শুরু থেকে উখিয়া ও টেকনাফের বিভিন্ন পয়েন্টে স্থায়ী চেকপোস্ট বসানো হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম