1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
মানুষের সিক্ত ভালবাসায় চির শায়িত হয়েছেন অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ০৮:০০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
ঘূর্ণিঝড় রেমাল: ঝুঁকি এড়াতে প্রস্তুত বাঁশখালী উপজেলা প্রশাসন মাগুরায় নবনির্বাচিত শ্রীপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রাজনকে গণসংবর্ধনা প্রদান হোমনায় পরিবারতন্ত্র ভাঙতে চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়ে মাঠে নেমেছি-সিদ্দিকুর রহমান আবুল হাটহাজারীতে বাসচাপায় প্রাণ গেলো দুইজনের : চালক আটক আনোয়ারায় আনারস মার্কায় নিজে এবং আত্মীয়দের ভোট দিতে ও ভোট কেন্দ্র পাহারা দিতে বললেন কাজী মোজাম্মেল চন্দনাইশে এসে পৌঁছেছে নির্বাচনী সরঞ্জাম শিক্ষকদের দাবিতে দায়সারা প্রতিবেদনের অভিযোগ; অনাস্থা কুবি শিক্ষক সমিতির চন্দনাইশে অনুমোদনহীন মাছ বাজারে প্রশাসনের অভিযান ৬ মাছ ব্যবসায়ীকে ৯০ হাজার টাকা জরিমানা ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশের অভিযানে ৩ মাদক ব্যবসায়ি গ্রেফতার , মাদক উদ্ধার মিশ্র ফলের বাগান ও মৎস্য প্রকল্প করে সফল রাউজান পৌর কাউন্সিলর আজাদ  

মানুষের সিক্ত ভালবাসায় চির শায়িত হয়েছেন অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া

ফলোআপ: ভাই, ক্ষমা করবেন আমাদের

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ২৯ মার্চ, ২০২০
  • ১৪৮ বার

অলিউল্লাহ নোমান :
নিজ নির্বাচনী এলাকার মানুষের সিক্ত ভালবাসায় চির শায়িত হয়েছেন অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া। করোনা ভীতি ঠেকাতে পারেনি মানুষকে। সবকিছু উপক্ষো করেই মানুষ এসেছেন তাদের প্রিয় নেতার বিদায় জানাতে। এসেছেন, জানাযায় শরীক হয়ে দোয়া করতে। মনের ভেতর বুকভরা কষ্ট নিয়ে কবরবাসী হলেন। চিরদিনের জন্য শূয়ে দেয়া হয়েছে আপনাকে। বেচে থাকলে দেশে কোনদিন ফিরলেও আর দেখা হবে না আপনার সাথে। অথবা কোনদিন আর লন্ডনেও আসবেন না আপনি। খোজ নিবেন না, কিছু করছি কিনা! এটাই অমোঘ বিধান। জন্মের পর একটা বিষয় সুনিশ্চিত। সেটা হচ্ছে, মরতে হবে। আর কোন কিছুই নিশ্চিত নয়। সুতরাং সবাইকেই বিদায় নিতে হবে একদিন। এটাই আমরা ভুলে যাই! ভুলে না গেলে সানাউল্লাহ মিয়াকে এতবড় কষ্ট দিয়ে বিদায় দেয়ার কথা নয়!
তাঁর ইন্তেকালের খবর শুনে নিজের অজান্তেই চোখে পানি আসে। আবেগ ধরে রাখতে পারছিলাম না। তাঁর সাথে অনেক ষ্মৃতি। কতটা লিখব! প্রথমে ভাষা হারিয়ে ফেলেছিলাম। তাই সঙ্গে সঙ্গে কিছুই লিখিনি। কয়েক ঘন্টা সময় নিয়ে লিখতে বসেছিলাম। লন্ডন সময় তখন ছিল রাত ১০টা। নিশ্চয়ই আপনারা গতকালের লেখাটি পড়েছেন। অনেক রেসপন্স পেয়েছি। লাইক-কমেন্টস শুধু নয়। অনেকেই কপি এবং শেয়ার করেছেন। বলা যায় ভাইরাল হয়ে ছিল সারাদিন লেখাটি। ইনবক্সেও অনেকে লেখাটি নিয়ে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। অনেকে ফোন করেছেন। অনেকে দেশ থেকে ম্যাসেঞ্জারে ফোন দিয়েছেন। সবাইকে ধন্যবাদ।
আজকের এ লেখাটি হল ফলোআপ। গতকালৈর লেখার কিছুটা পাশ্ব প্রতিক্রিয়া হিসাবে আজ আবার তাঁকে নিয়ে লিখতে হল।
গতকালের লেখায় পাঠকদের কমেন্টস পড়তেছিলাম। রেসপন্স দেখে মনে হচ্ছে সবার মনে সুপ্ত ক্ষোভ বিরাজামান। নির্বাচনে মনোনয়ন বিক্রির প্রসঙ্গটি সবাই অবহিত। একেবারেই বিচ্ছিন দু/একজন ছাড়া যত কমেন্টস সবাই আমাকে সমর্থন করেছেন। তাঁর মানে মনোনয়ন বিক্রি কবুল করেন সকলেই।
আবেগঘন অনেক কমেন্টস। এর মধ্যে একজায়গায় এসে থমকে যাই। শতাধীক কমেন্টস-এর প্রতিটি মনযোগ দিয়ে পড়েছি। আমার নিজের পেইজে একজন আবেগের উর্ধ্বে উঠে বাস্তব কিছু বলেছেন। যা আমি জানতাম না। কমেন্টসটি’র স্ক্রীনশর্ট এখানে দিলাম। আপনারা চাইলে পড়ে নিতে পারেন। তিনি দাবী করেছেন ইন্তেকালের পূর্বে ঘটে যাওয়া ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী। সানাউল্লাহ মিয়া তখন মুমূর্ষ অবস্থায়। পরিবার আরো উন্নত চিকিৎসার জন্য তাঁর প্রিয় দলের ডাক্তারদের সাহাজ্য চেয়েছিলেন। অনেকের সাথে যোগাযোগ এবং কথা হয়েছে পরিবারের পক্ষ থেকে। কেউ এগিয়ে আসেনি সাহাজ্য করতে! এই কষ্টটা হয়ত: সানাউল্লাহ মিয়া নিজে অনুভব করার মত অবস্থায় ছিলেন না তখন। তাহলে তাঁর কষ্টা আরো বেড়ে যেত! তাঁর পরিবার সেটা ষ্মরণ করবে চিরদিন! কারন আপনজনদের চিকিৎসার শেষ চেষ্টায় এরকম বেদনা ভুলার নয়।
১/ ডাক্তার এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ, সংক্ষেপে ড্যাব-এর নেতা ছিলেন প্রফেসর ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন। তিনিসহ অনেক ডাক্তারের মামলা করতেও নিজে দেখেছি। ২০১০ সালের শেষ দিকের ঘটনা। তেজগাওয়ে একজন ডাক্তারের নির্মানাধীন একটি ভবন হেলে পড়ার ঘটনা। ওই ডাক্তারের স্ত্রী বিএনপি করেন। কিন্তু এ ঘটনায় গ্রেফতার করা হয় ডা.এ জেড এম জাহিদ হোসেনকে। পরের দিন বিকালে সিএমএম কোর্টে নেয়া হয়। আমিও সেখানে উপস্থিত ছিলাম। তাঁর বিরুদ্ধে নতুন ৭টি মামলা দিয়ে ৫২ দিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ। সানাউল্লাহ মিয়া তাঁর আইনজীবী সহকর্মীদের নিয়ে হাজির। রিমান্ড আবেদন না মঞ্জুর করে জামিন দেয়া হল প্রতিটি মামলায়। এরকম বহু ঘটনা আছে। কিন্তু ওই ডাক্তাররা হয়ত: এসব বিষয় ভুলে গেছেন। কারন সানাউল্লাহ মিয়া তাদের আর কিছু দেয়ার মত অবস্থায় নেই। তাই হয়ত: জীবনের শেষ সময়ে পরিবারের ডাকে সারা দেননি!
২/ গতকালের লেখায় তাঁর নি:স্বার্থ ত্যাগের কথা লিখেছি। সে বিষয়টা আর পুনরাবৃত্তি করতে চাই না। এক কথায় বলতে চাই তাঁর দুয়ার সবার জন্য উম্মুক্ত ছিল। দলের শীর্ষ নেতা-নেত্রী শুধু নয়। নগন্য কর্মীর পাশেও তিনি দাড়িয়েছেন সমানতালে। শুধু তাই নয়, ২০ দলীয় জোটভুক্ত রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরা তাঁর কাছেই যেতেন। শায়খুর হাদীস আল্লামা আজিজুল হকের ছেলে মুফতি মামুনুল হকের একটি স্ট্যাটাস পড়েছি তাঁকে নিয়ে। মুফতি ইজাহারের রাজনৈতিক দলের নেতা মাওলানা ওয়ালিউল্লাহ আরমানের একটি স্ট্যাটাস পড়েছি। আরো অনেকের স্ট্যাটাস পড়েছি। সবাই তাঁর অকৃত্রিম ভালবাসা এবং উদারতার প্রসংশা করেছেন। মূল কথা হচ্ছে, তাঁর নিজ দলের বাইরেও সবার জন্য তিনি ছিলেন উদার। সবাই তাঁর উদারতার স্বীকৃতি দিয়েছেন।
৩/ ২০১৩ সালের ৫ মে শাপলা চত্তরে হত্যাকান্ডের ঘটনা কেউ হয়ত ভুলে যাননি। সেই রাতের নারকীয় হত্যাকান্ডের পর উল্টা মামলা দেয়া হয় আলেম-ওলামা ও ইসলামী ব্যক্তিত্বদের বিরুদ্ধে। আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী থেকে শুরু করে সেই রাতের ঘটনায় সবার মামলায় তিনি ছিলেন আইনজীবী। ওলামারা এ ঘটনাও ষ্মরণ করেছেন অকপটে।
৪/ সানাউল্লাহ মিয়া কতটা কষ্ট পেয়েছিলেন এটা অনুভব করার মত নয়। গতকালের লেখা পাঠ করে একজন প্রবাসী ফোন করেছিলেন সকালেই। তিনিও মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন। জানালেন, গত ডিসেম্বরে দেশে গিয়েছিলেন। তখন সানাউল্লাহ মিয়ার অসুস্থতার এক বছর হয়ে গেছে। অসুস্থ সানাউল্লাহ মিয়ার খোজ নিতে যান তিনি। জানতে পারলেন, কাকরাইলে ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। হাসপালে দেখতে গেলেন। বললেন, রুমে ঢুকার পরই চোখের পানি ছেড়ে দিয়ে সানাউল্লাহ মিয়া ভাঙ্গা ভাঙ্গা গলায় বলছিলেন, ভাই, শুনেছি আপনাকেও মনোনয়ন দেয়া হয়নি! তিনি বলেন, ভাল-মন্দ কুশল বিনিময় হয়নি। শুরুটাই করেছিলেন চোখের পানি ফেলে মনোনয়নের কথা বলে। এতেই অনুমেয়, কঠিন অসুস্থতায়ও তাঁর সেই কষ্ট ভুলতে পারেননি। শুধু তাই নয়, মনোনয়ন না দিয়ে কেউ তাঁর সাথে সৌজন্যমূলক শন্তনা দেয়ার প্রয়োজনবোধ করেননি। টাকা ওয়ালা অন্য আসন থেকে এসে তাঁকে ধাক্কা দিয়েছেন। এতে কষ্ট যতটা ছিল। তার চেয়ে বেশি ছিল কেউ তাঁকে মুখের কথা বলেননি, কেন তাঁকে মনোনয়ন দেয়া গেল না।
৫/ সাবেক সামরিক কর্মকর্তা ওয়াহিদ উন নবী ভাই আমার লেখা পোষ্টটি কপি করেছেন। তাঁর ওখানে একজনের কমেন্টস দেখে অবাক হয়েছি। তিনি বলতে চেয়েছেন, বিএনপি করতেন বলেই সানাউল্লাহ মিয়া আজ এতটা ভালবাসা পাচ্ছেন মানুষের। কথাটা সত্য। অনেক বড় নেতার মুখেও এরকম অর্বাচিন মন্তব্য শোনা যায়! কিন্তু এটাও সত্য, সানাউল্লাহ মিয়াদের মত নিবেদিতপ্রাণ ভাল মানুষরা এ দল করেন বলেই দলটি এখনো টিকে আছে। সানাউল্লাহ মিয়া একদিনের তৈরি হননি। তিনি যে শ্রম এবং সময় আদালত পাড়ায় দলীয় গন্ডির ভেতরে দিয়েছেন। সেই শ্রম এবং সময় যদি গরীব মজলুমের পক্ষে দিতেন তাইলে কি ভালবাসা কম পেয়ে বিদায় নিতেন! অমুক চলে গেছে, তমুক মরে গেছেন। তো কি হয়েছে? এরকম অর্বাচিন মন্তব্য অনেক বড় নেতার মুখেও শোনা যায়। কিন্তু এটাও সত্য অমুক-তমুন চলে যাওয়া বা মরে যাওয়ার পর দলটি কি ভাল অবস্থানে আছে??? থাকার কথা ক্ষমতায়। অথচ এখন বিরোধী দলেও নাই! হাসিনার দয়া এবং করুনার মধ্যে রাজনীতি সীমাবদ্ধ! হাসিনার মর্জি যতটকু পর্যন্ত তার বাইরে যাওয়ার সুযোগ নাই! এ বিষয় গুলোও ভাবতে হবে, কেন এমনটা হল!
৬/ বেচে থাকলে এবং দেশে ফেরার সুযোগ হলে হয়ত: আপনার চেম্বারে যাব। কিন্তু আপনার সাথে দেখা হবে না ভাই! আর মিষ্টি হাসি দিয়ে জানতে চাইবেন না কেমন আছি! আল্লাহ আপনার কবরকে জান্নাতের বাগিচায় রুপান্তর করুক। এই দোয়া করি। আপনি যেভাবে মজলুম মানুষের পাশে দাড়াতেন, আপনার চারপাশে রহমতের ফেরেশতারা ঘিরে রাখুক। আল্লাহর করুনা এবং রহমতের ছায়ায় ভাল থাকেন ওপার জীবনে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম