1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
বিংশ শতাব্দীর সভ্যতার লড়াই এবং মুসলিম বিশ্ব : সঙ্কট ,দায় ও মুক্তি - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ০২:০০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
অ্যাডভোকেট রহমত আলীর চতুর্থ মৃত্যুবার্ষিকী পালিত! সন্তানকে ভালো মানুষ হিসাবে তৈরি করুন,তাহলেই দেশটা ভালো হয়ে যাবে-ডঃ তাপস সৈয়দ জিয়াউল হক মাইজভাণ্ডারী ট্রাস্ট ৪৫৭ জন শিক্ষার্থীকে ২৬ লক্ষ টাকার বৃত্তির অর্থ প্রদান নদী গুলো খনন করা হলে বদলে যাবে দৃশ্যপট লালমনিরহাটসহ বৃহত্তর রংপুর অঞ্চল দিয়ে বয়ে যাওয়া নদীর চর গুলো সবুজে ঢাকা শোক সংবাদ মানবিকতার অনন্য নির্দশন চন্দনাইশে ২ জুটির বিয়ে দিলেন জেসিকা গ্রুপের জসিম। নবীগঞ্জ শহরে ভয়াবহ সংঘর্ষের ঘটনায় ৩০ জনের নাম উল্লেখ করে ২০০/২৫০জনকে অজ্ঞাত করে পুলিশ এসল্ট মামলা দায়ের মীরসরাইয়ে হরিহরপুর গ্রামে ২৮ তম অষ্টপ্রহর ব্যাপী মহোৎসব শ্রীপুরে বেতন বাড়ানোর দাবিতে মহাসড়ক অবরোধ করে শ্রমিকদের বিক্ষোভ শ্রীপুরে পুলিশী বাধায় বিএনপি’র অনুষ্ঠান পন্ড বন্ধ হওয়া রেল ষ্ট্রেশন দ্রুততম সময়ে চালু করা হবে। রেল মন্ত্রী

বিংশ শতাব্দীর সভ্যতার লড়াই এবং মুসলিম বিশ্ব : সঙ্কট ,দায় ও মুক্তি

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৭ এপ্রিল, ২০২০
  • ২৬২ বার

| সিরাজুল ইসলাম শাহীন|

সভ্যতার সঙ্কট ও পরিবর্তন পৃথিবীর ইতিহাসের নিয়মিত অধ্যায়। একই ধারাবাহিকতায় ঐশী প্রত্যাদেশ তথা ওহী লব্ধ সভ্যতার সর্বশেষ উত্তরাধিকারী মুসলিম উম্মাহ। চলমান সভ্যতার লড়াই তাই বিংশ শতাব্দীতে এসে একটি কৌণিক বিন্দুতে মিলিত হয়েছে। সকল জুলুম ,অন্যায় , অনাচার যেন মুসলিম বিশ্বের ললাট লিখন। মানবাধিকার আর সুশাসনের বালাই এখানে থাকতে নেই। একজন ঈমানদারের মৌলিক দায়িত্ত্ব ” আল্লাহর সার্বভৌমত্ব প্রতিষ্টা ” তো মুখে আনাই বড় অপরাধ।

ঐশী প্রত্যাদেশ বহির্ভুত সভ্যতা বিভিন্ন ভূখণ্ডে ভিন্ন নামে থাকলেও একবিংশ শতাব্দীতে এখন একই মোহনায় দাঁড়িয়েছে। আর তা হচ্ছে ভোগবাদী সভ্যতা। পূর্বের ঐশী সভ্যতার বিকৃত ধারকেরাও এদের সাথে কাঁধ মিলিয়ে একে করেছে সর্বগ্রাসী। অশ্লীলতা আর অনিয়ন্ত্রিত পুঁজিবাদী অর্থনীতির যাঁতাকলে তৈরী হয়েছে সামাজিক অস্থিরতা। নিজেদের গৃহদাহ সামলাতে হামলে পড়েছে কমন টার্গেট মুসলিম ভূখণ্ডে । এখানে পেয়েছে অর্থের জন্য ব্যবসার সহজ বাজার , মোড়লীপনার জন্য অনুগত শিষ্য , সভ্যতার লড়াইয়ে চির প্রতিপক্ষ দমিয়ে রাখার নিশ্চয়তা। সঙ্গতকারণেই ক্ৰমান্বয়ে তারা হয়ে উঠেছে বেপরোয়া। মুসলিম জনপদের রক্তের কোন দাম নেই , জীবনের কোন নাম নেই , মজলুমের চিৎকারের যেন কোন শব্দ নেই। বার্মা -বাংলাদেশ -ভারত -আফগান -ইরাক -সিরিয়া -লিবিয়া -ফিলিস্তিন -কাশ্মীর -উইঘুর -মিশর – ইয়েমেন – আরব কোথায় নেই মজলুমের আর্ত – চিৎকার ? মুসলিম জনপদের বাইরে বছর-দশক -যুগের পর যুগের ধারাবাহিক এমন পাশবিকতা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরে আর কোথাও নাই। আধুনিক সভ্যতার এই কলঙ্কই এখন গলার কাঁটা। বর্তমান সভ্যতার ব্যর্থতার চূড়ান্ত দলিল।যে ব্যর্থতা একটি সভ্যতার পতন নিশ্চিত করার জন্য যথেষ্ট। অতীত জাতি সমূহের হারিয়ে যাওয়ার ইতিহাসে এর সত্যতা লিপিবদ্ব রয়েছে। আদ -সামুদ-লুত -হুদ -নূহ (আ 🙂 জাতি সমূহের বর্ননায় আল কোরআনে মহান রাব্বুল আলামিন তা জানিয়ে দিয়েছেন।

মহানবী (সঃ) এর ঘোষণা অনুযায়ী কিয়ামতের আগে সমগ্র মানবজাতি একসাথে শেষ হয়ে যাবে না। কিন্তু সভ্যতার লড়াইয়ে অনেক ওলট পালট ঘটবে। পাশ্চত্যের নেতৃত্বে ভোগবাদী সভ্যতা চলমান সংঘাতটা ইসলামী সভ্যতার সাথে দ্বিমুখী লড়াইয়ে পরিণত করেছে। কিন্তু উভয় পক্ষের জাগতিক শক্তির ভারসাম্যহীনতা এটাকে এখনো ওয়াক ওভার পর্যায়ে রেখে দিয়েছে। অর্থাৎ আপাত কোন সমাধান পরিলক্ষিত হচ্ছে না। এক পক্ষের মধ্যেই নেতৃত্বের পরিবর্তন বা নতুন শক্তির আবির্ভাব হতে পারে। মানবতার মুক্তির কোন আশু সম্ভাবনা নেই। কারন ভোগবাদী মানসিকতা তথা আখেরাত বিমুখ সভ্যতা আদম সন্তানের জন্য কখনো কল্যাণ বয়ে আনতে পারে না। এজন্য প্রয়োজন ওহী প্রত্যাদেশ প্রাপ্ত সভ্যতা তথা ইসলামী সভ্যতার পুনর্জাগরণ। এটি মুসলিম উম্মাহর বড় অংশের এখনো বুঝতে বাকি থাকলেও পাশ্চাত্য সভ্যতার ধারকেরা প্রতিপক্ষ নির্ধারণে একটুও কালক্ষেপন করেনি।

আল্লাহ তায়ালা সময়ে সময়ে পরিবেশ তথা সুযোগ তৈরী করে দিয়ে পরীক্ষা করেন। স্বাভাবিক ভাবেই যোগ্যতা – দক্ষতায় উত্তীর্ন শক্তি সভ্যতার নেতৃত্বে আসীন হয়। পৃথিবীর মানুষের সকল ক্ষমতা আজ আল্লাহর ক্ষমতার কাছে কত অসহায়। নভেল করোনা – কোভিড ১৯ এক অদৃশ্য ঘাতক হয়ে গোটা মানব জাতিকে তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে। জ্ঞান -বিজ্ঞনের চরম উৎকর্ষতায় অহংকারী মানুষ আজ নিজেকে চেনার চেষ্টা করছে। স্রষ্টার নাম স্মরণের কথা মনে পড়ছে। দায়িত্ব বাড়ছে মুসলিম উম্মাহর। আল্লাহর দ্বীনের দাওয়াত যথার্থভাবে পৌছিয়ে দিতে হবে। সভ্যতার নেতৃত্ব নিতে হবে। এর জন্য যোগ্যতা নিশ্চিত করতে হবে। নির্মুহ আত্মপর্যালোচনা করতে হবে। সভ্যতার লড়াইয়ের বিভিন্ন ধাপে ধাপে নিজেদের দায় গুলো চিহ্নিত করে আগামীর পথচলা দৃঢ় করতে হবে।

খোলাফায়ে রাশেদার আমলের শেষ দিক থেকে শুরু করে আমীর মুয়াবিয়া (রা) ও ইমাম হাসান (রা) চুক্তি , কারবালা ট্রাজেডি ,উমাইয়া আমলের পতন , আব্বাসীয় আমল , মধ্যযুগ , ক্রসেডার তান্ডব , ওসমানীয় শাসন থেকে আজকের একবিংশ শতাব্দী পর্যন্ত সময়ের ইতিহাসের বাঁক সমূহ জানা প্রয়োজন। প্রায় চৌদ্দশত বৎসরের মধ্যে নিকট সময় হিসেবে বিগত বিংশ শতাব্দীর ঘটনাবলী বিশেষভাবে বিবেচনায় নেয়া একান্ত জরুরি। দিবালোকের নেয়ায় স্পষ্টত ক্ষমতার নির্লজ্জ্ব মোহ , লোভ – দুর্নীতি , অপরিণাম দর্শিতা এবং জাতিগত ভাবে উদাসীনতা পরিলক্ষিত হয়। আমরা সুযোগ না দিলে প্রতিপক্ষ এমন সর্বনাশ করতে পারতো না। তাই এ মহা সংকটের দায় নিতে হবে।

নিজেদের মধ্যকার প্রতিবন্ধকতা – শত্রূ চিহ্নিত করে সমাধান নিশ্চিত করতে হবে। জ্ঞান -বিজ্ঞান -গবেষণায় , মেধার বিকাশে ,রাজনৈতিক স্থিতিশীলতায় মনোযোগী হতে হবে। চরম স্বার্থপর- লোভী , ইসলাম বিদ্বেষী , দালাল শ্রেণীকে বর্জন করতে হবে। মিথ্যাবাদী , বেওকুফ -জ্ঞানপাপীদের পরিবর্তে মেধাবী, জ্ঞানী ,পরীক্ষিত সৎ -যোগ্য নেতৃত্বকে সুযোগ দিতে হবে। দেশপ্রেম ও আত্মত্যাগে উদ্বুদ্ব জাতি গঠনে প্রয়াসী হতে হবে। যত্নের সাথে ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে যোগ্যতর করে গড়ে তুলতে হবে।

sirajulislamshaheen@yahoo.com ; London 03.03am ; 07/04/2020

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম