1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
ভয়াল ২৯ এপ্রিল : ৩০মিনিটে ঘরের বারান্দায় হাটু পানি দেখেছেন ৫ম শ্রেণির কছির - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ১০:২২ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:

ভয়াল ২৯ এপ্রিল : ৩০মিনিটে ঘরের বারান্দায় হাটু পানি দেখেছেন ৫ম শ্রেণির কছির

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৯ এপ্রিল, ২০২০
  • ১৪১ বার

শাহজালাল শাহেদ, চকরিয়া: আজ ভয়াল ২৯ এপ্রিল। দুঃসহ স্মৃতির আষ্টেপিষ্টে জড়ানো সময়ের আবর্তে ঘুরে-ফিরে আসা ২৯তম একটি দিন। এখনও ছোপ ছোপ করে জলে ভাসা দূরদৃষ্টির প্রত্যক্ষ সাক্ষীদের বুকে রক্তক্ষরণ হয় দিনটির কথা মনে পড়লে। সেদিন ভাগ্যানুক্রমে অল্প সংখ্যক বেঁচে যাওয়া মানুষগুলো কার বাড়ির ভিটে কোনটা? সেই সীমানা চিহ্ন নির্ধারণ করাটাও মুশকিল হয়ে গিয়েছিল। এমনকি বহু মানুষের গায়ে ঠিকমতো কাপড়ও ছিলনা। ঠাঁইহীন উপকূলে অনেকে প্রাণে বেঁচেছিল গাছের সাথে বাদুর ঝোলা করে থাকা নারীদের চুল ধরে। লাশের খোঁজ মেলাতে গিয়ে স্বজনদের আহাজারিতে সেখানকার পরিবেশ ভারী হয়ে উঠেছিল। গগণ বিদারি বুকফাটা এক একটা আর্তনাদের শোর চিৎকারে সেদিন মনে হয়েছিল “স্বজন হারানোদের শান্তনা দিতে আল্লাহ ছাড়া বুঝি আর কেউই নেই। তিনিই হয়তো আসমান থেকে বিশেষ কোন দূত পাঠাচ্ছেন আশার বাণী যোগাতে।
সূত্রমতে, ১৯৯১ সালের ২৯ এপ্রিল এইদিন বাংলাদেশের ইতিহাসের এক ভয়াবহতম দিন। ওইদিন ‘ম্যারি এন’ নামক প্রলয়ংকরী ঘুর্ণিঝড় ল-ভ- করে দেয় কক্সবাজারসহ দেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় এলাকার পূরো উপকূল। লাশের পরে লাশ ছড়িয়ে-ছিটিয়ে ছিল চারদিকে। বিস্তীর্ণ অঞ্চল ধ্বংস্তুপে পরিণত হয়েছিল। দেশের মানুষ বাকরুদ্ধ হয়ে সেদিন প্রত্যক্ষ করেছিল প্রকৃতির করুণ এই আঘাত। স্বজন হারার আর্তনাদে ভারি হয়ে উঠে চারিদিকের পরিবেশ। প্রাকৃতিক দূর্যোগের এতোবড় অভিজ্ঞতার মুখোমুখি এদেশের মানুষ এরআগে আর কখনো হয়নি। পরদিন সারা বিশ্বের মানুষ অবাক বিস্ময়ে তাকিয়ে দেখেছিলেন ধ্বংসলীলা, আর্তনাদে কেঁপে উঠেছিল বিশ্ব বিবেক। বাংলাদেশে আঘাত হানা ১৯৯১ সালের প্রলয়ংকরী ঘূর্ণিঝড়ে নিহতের সংখ্যা বিচারে পৃথিবীর ভয়াবহতম ঘূর্ণিঝড়গুলোর মধ্যে অন্যতম। ২৯শে এপ্রিল রাতে বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্বে অবস্থিত চট্টগ্রাম উপকূলে আঘাত হানা এ ভয়ংকর ঘূর্ণিঝড়টিতে বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ঘন্টায় প্রায় ২৫০ কিলোমিটার (১৫৫ মাইল/ঘন্টা)। ঘুর্ণিঝড় এবং তার প্রভাবে সৃষ্ট ৬মিটার (২০ফুট) উঁচু জলোচ্ছ্বাসে সরকারি হিসাবে মৃতের সংখ্যা ১ লাখ ৩৮ হাজার ২৪২ জন। তবে বেসরকারি হিসাবে এর সংখ্যা আরো বেশি। মারা যায় ২০ লাখ গবাদিপশু। গৃহহারা হয় হাজার হাজার পরিবার। ক্ষতি হয়েছিল ৫ হাজার কোটি টাকারও বেশি সম্পদ। সেইদিন আশ্রয়হীন হয়ে খোলা আকাশের নিচে বসবাস করেছিল প্রায় এক কোটি মানুষ।
এমনই এক প্রলয়ংকরীর ক্ষুদে সাক্ষী বর্তমান চকরিয়া উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক ছাত্রনেতা আলহাজ্ব কাউছার উদ্দিন কছির। তিনি জানান, মগখালে মানুষ আর গরু-ছাগলের লাশ দেখে জোরে জোরে কেঁদেছিলাম। ৩০মিনিটে আমি ঘরের বারান্দায় হাটু পানি দেখেছি। সেই পানি দেখে অঝোর নয়নে কেঁদেছে আব্বু-আম্মুসহ সকলেই। আব্বু-আম্মুর সাথে আমিও কেঁদেছি সেজো ভাইয়ের জন্য। মূলত তারাও কাঁদছিলেন ছেলেটি কিভাবে বেঁচে আছে খোঁজ-খবর পাওয়ার জন্য। তার দেয়া বিশেষ তথ্যটি হুবুহু তুলে ধরা হয়েছে।
তখন আমি ৫ম শ্রেণির ছাত্র। ঘুর্ণিঝড়ের সেইরাতে প্রথমে মনে করছিলাম বাতাস বইতেছে। বাড়ির চারিপাশে অনেক আম আর নারিকেল গাছ। আমরা সবাই তখন আম আর নারিকেল কুড়াতে ব্যস্ত, বাড়ির ভিতরে অনেক আম আর নারিকেলের স্তুপ করে ফেললাম। হঠাৎ দেখি একটা টিন উড়ে এসে দরজার সামনে পড়ল। তখন ভয়ে সবাই দরজা বন্ধ করে ভিতরে বসে থাকলাম। আধঘন্টার (৩০মিনিট) মধ্যে বাড়ির বারান্দায় একহাটু পানি। সবাই চিন্তায় অস্তির হয়ে গেলাম; মা বাবা সবাই কান্নাকাটি করতেছে সেজ ভাইয়ের জন্য। সে ছিল মাইল্যাঘোনা প্রজেক্টে। আল্লাহ্ আল্লাহ্ করতে করতে সকাল হল। ভাইকে খোঁজার জন্য বের হলাম আমি আর মেজো ভাই। রওয়ানা হলাম মগখাল হয়ে সওদাগরঘোনা বেয়ে মাইল্যাঘোনা যাওয়ার জন্য। কিছুদূর গিয়ে আর পা সামনে যায়না। মগখাল আর খাল নেই; পরিপূর্ণ হয়ে গেছে মানুষ আর গরু-ছাগলের লাশে। আমি তা দেখে জোরে জোরে কান্না শুরু করেদিলাম। আরো পাঁচ ছয়জন মানুষ সেখানে জড়ো হল, কারো মুখে কোন ভাষা নেই। সবাই মিলে গাছ বাঁশ দিয়ে লাশের স্তুপ ফাঁকা করে নদী পার হলাম মগখাল। কিছুদূর গিয়ে বাইশ্যাঘোনা নামক জায়গায় একটা ছোট বাচ্চার কান্নার শব্দ শুনতে পেয়ে সামনে এগিয়ে গিয়ে দেখলাম। ছোট বাচ্চাটির পাশে পড়ে আছে তার মায়ের লাশ। বাচ্চাটিকে মৃত অবস্থায়ও জড়িয়ে আছে তার মা। অবাক কান্ড! আল্লাহ মাকে নিয়ে গেলেও মায়ের ভালবাসায় বাচ্চাটিকে বাঁচিয়ে রেখেছেন নিপুনভাবে। সঙ্গে যাওয়া লোকদের মধ্যে একজন বাচ্চাটাকে নিয়ে গেলেন, যা দেখে আঞ্চলিক গানের সম্রাট শিল্পী সিরাজুল ইসলাম আজাদ ভাই গান করেছিলেন (মারে বেইলত ভাতের অর্থ অইয়ে আরে দেনা ভাত…..)। সামনে যতই যাই লাশ আর লাশ। শেষ পর্যন্ত আমাদের গন্তব্য স্থানে গিয়ে খবর পেলাম সেজোভাই একটা বাড়িতে অসুস্থ হয়ে পড়ে আছে। বেঁচে আছে শুনে আল্লাহর কাছে শোকরিয়া আদায় করলাম। পরে তার মুখ থেকে শোনলাম রাতে ঝড় বাতাস শুরু হলে কোন প্রকারে একটা গাছে উঠে অনেক কষ্টে গাছকে জড়িয়ে ধরে পানি থেকে বেঁচে গেছেন। সেদিনের নিজের চোখে দেখা স্মৃতি মনে পড়লে এখনও বুকের ভিতর কম্পন শুরু হয়। সবার সাথে ছোট ছেলে হিসেবে আমিও অনেককে একসাথে শতশত মানুষের নামাযে জানাযা পড়ে কবর দিতে দেখলাম। সেদিন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের ত্রাণ তহবিল থেকে আশ্রয়হীন বেঁচে যাওয়া মানুষের মাঝে নৌকা-বোট নিয়ে ত্রাণ বিতরণের সৌভাগ্য সিনিয়র নেতাদের সাথে আমারও হয়েছিল। আমার আপন বড়ভাই যুবলীগের তৎকালীণ সাধারণ সম্পাদক আব্বাস উদ্দীনের সাথে সিনিয়র নেতাদের মধ্যে আরো যাদের পেয়েছিলাম তৎকালীণ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি শ্রদ্ধেয় নুরুল কাদের বি.কম, সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আমজাদ হোসেন, যুগ্ম সম্পাদক জিয়া উদ্দীন চৌধুরী জিয়া, জামাল উদ্দীন জয়নাল, আলমগীর চৌধুরী, আমিনুর রশিদ দুলাল ভাইসহ অনেককে। এককথায় সেদিনের স্মৃতির কথা লিখতে গেলে শেষ করা যাবেনা। চকরিয়া উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক ছাত্রনেতা আলহাজ্ব কাউছার উদ্দিন কছির (ঘুর্ণিকালীণ ৫ম শ্রেণির ছাত্র) এক বিবৃতিতে ভয়াবহ ঘুর্ণিঝড়ের এইদিনে কক্সবাজার জেলাসহ সারাদেশের নিহত সকলের রুহের মাগফিরাত কামনা করেন। এদিকে দিনটিকে কেন্দ্র করে উপকূলীয় বিভিন্ন সংগঠন নানান কর্মসূচির আয়োজন করে থাকে। এবারও বিভিন্ন ব্যানারে এসব সংগঠন একাধিক কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। তন্মধ্যে খতমে কুরআন, মিলাদ, দোয়া মাহফিল, শোক র‌্যালি, এতিমদের মাঝে খাবার বিতরণ ও স্মৃতিচারণমূলক আলোচনা সভা করার তথ্য জানা গেছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম