1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : naga5000 : naga5000 naga5000
“সঠিক তালিকা সংরক্ষনে নেই কোনো দপ্তরের হাতে” সুন্দরবণ সংলগ্ন বাঘ বিধবাদের খবর রাখছেন না কেউ - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ০৫:২৪ অপরাহ্ন

“সঠিক তালিকা সংরক্ষনে নেই কোনো দপ্তরের হাতে” সুন্দরবণ সংলগ্ন বাঘ বিধবাদের খবর রাখছেন না কেউ

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ৩০ এপ্রিল, ২০২০
  • ১২৬ বার

নইন আবু নাঈমঃ
আনোয়ারা বেগম (৪৮) সুন্দরবণ সংলগ্ন ভোলা নদীর তীরের বাসিন্দা। নব্বইয়ের দশকে স্বামী জেলে মোঃ বাবুল হোসেন সুন্দরবনে মাছ ধরতে গিয়ে বাঘের হামলায় নিহত হন। সংঙ্গীয় জেলেরা সেদিন অনেক চেষ্টা করেও তার মৃতদেহ বাঘের মুখ থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন নি। তবে একদিন পর গভীর জঙ্গল থেকে রক্তে ভেজা জামাকাপড় সহ বাবুলের হাত ও পায়ের কিছু অংশ উদ্বার করে সহযোগীরা বাড়িতে নিয়ে আসলে আনোয়ারার মাথায় যেন আকাশ ভেঙ্গে পড়ে।
স্বামীর রেখে যাওয়া একমাত্র স্মৃতি ছেলে আব্দুর রহিমকে বুকে নিয়ে সেই থেকে দীর্ঘ দুই যুগের বেশি সময় ধরে বনসংলগ্ন এলাকায় বসবাস করছেন তিনি কিন্তু আজ পর্যন্ত সহায়-সম্বলহীন ওই বাঘ বিধবার খবর নেয়নি কেউ। বর্তমানে সে পুর্ব সুন্দরবনের শরনখোলা রেঞ্জের আওতাধীন দাসের ভাড়ানী টহল ফাঁড়ি সংলগ্ন উপজেলার রায়েন্দা ইউনিয়নের দক্ষিন রাজাপুর গ্রামের ভরাট হওয়া ভোলা নদীর চরে একটি খুপড়ি ঘরে বসবাস করছেন। সম্প্রতি আলাপকালে আনোয়ারা বেগম বলেন, পারিবারিক দৈন্যতার কারনে নব্বইয়ের দশকে মাত্র ১০বছর বয়সে বিয়ে হয় তার। স্বামীর পেশা ছিল সুন্দরবনে মাছ ধরা। বিয়ের বছর খানেক পর তার কোল জুড়ে আসেন একমাত্র ছেলে আব্দুর রহিম। ১৯৯৪সালে ছেলের বয়স এক মাস। ওই সময় তার স্বামী বাবুল ভাই আবুল হোসেনের সাথে বনের দাসের ভারানী এলাকায় মাছ ধরতে যায়। একদিন সন্ধ্যায় জাল ফেলতে বনের একটি খালে নামে বাবুল। ওই সময় বাঘের থাবায় নিহত হন তিনি। সাথে থাকা ভাই আবুল তাকে বাঁচানোর চেষ্টা করে গুরতর আহত হন। ঘটনার একদিন পর আবুলও মারা যান। এছাড়া ১৯৯৩সালে তাদেও বড়ভাই নুরুল ইসলাম চাঁদপাই রেঞ্জের নিশানবাড়িয়া এলাকায় মাছ শিকাওর গিয়ে বাঘের হামলায় নিহত হন। মাত্র এক বছরের ব্যাবধানে আপন তিনভাই নিহতের ঘটনায় তখনকার সময় বনের উপর নির্ভশীল ওই এলাকার পেশাজিবীদের মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পড়ে। পরিবারের উর্পাজনক্ষম ব্যক্তিরা একে একে চলে যাওয়ায় দুঃস্বপ্নের কালবৈশাখী ঝড়ে যেন উড়ে যায় খড়-কুটো দিয়ে বাঁধা আনোয়ারাসহ তার অন্য দুই জ্বায়ের সংসার। পরবর্তীতে, যে যার মতো চলে গেলেও ওই গ্রাম আজও ছাড়েনি আনোয়ারা বেগম। সময়ের ব্যবধানে তখনকার একমাস বয়সী শিশু আব্দুর রহিম এখন টগবগে যুবক। রহিমের পেশাও সুন্দরবনে মাছ ধরা। তবে, এখনও অভাব পিছু ছাড়েনি আনোয়ারার। এ বয়সে এসেও ভোলা নদীতে রেনু পোনা আহরনের কাজ করছেন তিনি। তারমতো বহু বাঘ বিধবার অজানা গল্পর য়েছে বনসংলগ্ন এলাকার বিভিন্ন গ্রামে যাদের দুঃখ র্দুদশার খবর জানতে কিংবা তাদের ভাগ্য পরিবর্তনে এগিয়ে আসেনি রাষ্ট্র বা সমাজের কেউ।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, বাগেরহাট, শরনখোলা, মোড়েলগঞ্জ, রামপাল ও মোংলা সহ দক্ষিনাঞ্চলের হাজার হাজার মানুষ বনের উপর নির্ভশীল। তাই বাঘের আক্রমনে নিহতের ঘঁটনা কম বেশি ঘটে থাকে এ অঞ্চলে। পেশাজীবিদের কেউ নিহত হলে তাৎক্ষনিক তাদের মহাজনরা লাশ দাফনের জন্য হাজার টাকা ধরিয়ে দিয়ে সটকে পড়ে । পরে ওই পরিবারের দিকে আর ফিরেও তাকায়না কেউ । তবে, পেশাজীবির কাজ করতে গিয়ে গত ৩ যুগের বেশি সময়ে সুন্দরবনের বাঘের আক্রমনে উপজেলার দক্ষিন রাজাপুর গ্রামের আমীর হোসেন পহলান, আব্দুল মান্নান রাজা, জাফর হাওলাদার, মজিদ ঘরামী , আঃ গনি, সোহরাপ তালুকদার, আবুল হাসেম, বাদশা মিয়া, নুরুল হক, রুহুল ফকির, জাফর মীর, আইয়ুব আলী গাজী, খলিল গাজি, চাঁন মিয়া গাজী, উত্তর রাজাপুরের জাহাঙ্গীর হাওলাদার, আলম মোল্লা, পশ্চিম রাজাপুরের কবির হাওলাদার, আব্বাস হাওলাদার, হোসেন আলী, জাফর খান , সোহরাপ হাওলাদার, জামাল খান, মুজিবর মোল্লা, কাসেম আলী, মোসলেম উদ্দিন, উত্তর তাফালবাড়ীর ইসাহাক, আঃ রহমান, রুস্থুম আলী ফকির , ইসাহাক আলী, রতিয়া রাজাপুরের আমির হাওলাদার, মিলন মৃধা, আলম হাওলাদার, খুরিয়াখালীর হাবিব সর্দার, রশিদ বয়াতী, সোহরাপ গোলদার, রাসেল হাওলাদার, চালিতাবুনিয়ার শহিদুল জোমাদ্দার, আঃ করিম খান, জাহাঙ্গীর হোসেন, সোনাতলার মুজিবর, মোহম্মদ আলী, আঃ খালেক , তোতাম্বর আলী, আঃ হক ঘরামী সহ বনসংলগ্ন বিভিন্ন গ্রামের শতাধিক ব্যাক্তি নিহত হয়েছেন। পরিবারের একমাত্র উর্পাজনক্ষম ব্যাক্তিকে হারিয়ে এ অঞ্চলের বহু পরিবার আজ পথে বসেছে। ওই সব পরিবার গুলোকে সহযোগিতা করা তো দুরের কথা নিহত কিংম্বা আহত ব্যাক্তিদের সঠিক হিসাব পর্যুন্ত সংরক্ষনে নেই, বন-বিভাগ ও প্রসাশনের কারো কাছে। অভিযোগ আছে, বনবিভাগের গাফেলতির কারনে ওইসব পরিবারের লাইন দীর্ঘ হচ্ছে। এছাড়া সঠিক তথ্য প্রমানের অভাবে সরকারি অনুদান হতে বঞ্চিত হচ্ছে ওই অশিক্ষিত পরিবারগুলো। সরকার ও মালিক পক্ষের কোন অনুদান না পেয়ে চরাঞ্চলের ওই পরিবারগুলো এখন দুর্বিসহ জীবন যাপন করছেন। তবে, সুন্দরবনের শরনখোলা রেঞ্জের এক দায়সারা তালিকায় ২০০৪ সাল থেকে চলতি বছরের মার্চ মাস পর্যন্ত ১৬ বছরে বাঘের হামলায় নিহত মাত্র ১০ পেশাজিবীর নাম লিপিবদ্ব আছে বলে বন বিভাগ জানায়। এ বিষয়ে শরনখোলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সরদার মোস্তফা শাহিনের বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে, পুর্ব সুন্দরবনের শরনখোলা রেঞ্জের সহকারি বনসংরক্ষক (এসিএফ) মোঃ জয়নাল আবেদীন জানান, তালিকা তৈরীর ক্ষেত্রে বনকর্মীদের গাফেলতির বিষয়টি সঠিক নয়। বৈধভাবে বনে প্রবেশ কওর যারা নিহত কিংবা আহত হন বনবিভাগ কেবল মাত্র ওই সকল ব্যাক্তিদের তালিকা করে থাকেন। তবে বাঘের হামলায় নিহত এবং আহতদেওরসরকারি সামান্য সহয়তা ছাড়া বাড়তি কোন সুবিধা দেয়া হয়না। এছাড়া এ অঞ্চলে বাঘর আক্রমনে নিহতের সংখ্যা উল্লেখযোগ্য ভাবে খুবই কম ।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম