1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
অটোমান সাম্রাজ্য ভাগাভাগি - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০১:৫৬ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
ঠাকুরগাঁওয়ে সীমান্ত হত্যা ও বিদেশী আগ্রাসন বন্ধের দাবীতে লাশের মিছিল ! নবীগঞ্জে শাখা বরাক বাঁচাতে পদযাত্রা পরিবেশ রক্ষায় নাগরিক আন্দোলনে এগিয়ে আসুন গাজীপুরে ১৫ ঘন্টায় তিনজনের আত্মহত্যা গাজীপুরে সিটি কর্পোরেশনের ময়লার গাড়ির ধাক্কায় শ্রমিকের মৃত্যু শ্রীপুরের বরমী থেকে একটি বিদেশি পিস্তল,১ রাউন্ড গুলি ও ১০০পিস ইয়াবাসহ গ্রেফতার-১ বাঁশখালীতে বেকারির শ্রমিক হত্যাকান্ডের আসামী মাহাবুব গ্রেপ্তার কুবিতে বিজ্ঞান উৎসব অনুষ্ঠিত। চৌদ্দগ্রামে সাবেক রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক এমপিকে মুক্তিযোদ্ধাদের ফুলেল শুভেচ্ছা মাগুরায় সংঘর্ষের ঘটনায় মামলা, আটক-৩ মাগুরায় শহিদ ও মৃত মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

অটোমান সাম্রাজ্য ভাগাভাগি

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২ জুন, ২০২০
  • ১৬৩ বার

সাহাদত হোসেন খান (দ্বিতীয় অংশ) |
আরব উপদ্বীপে ক্ষমতার হাতবদল
আরব উপদ্বীপে আরবরা কয়েকটি স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় সক্ষম হয়। ১৯১৬ সালে মক্কার শেরিফ হোসেন বিন আলী হেজাজ রাজ্য প্রতিষ্ঠা করেন। অন্যদিকে রিয়াদ আমিরাত নজদ সালতানাতে রূপান্তরিত হয়। ১৯২৬ সালে নজদ ও হেজাজ রাজ্য গঠন করা হয়। ১৯৩২ সালে এ রাজ্য সৌদি আরব রাজ্যে পরিণত হয়। ১৯১৮ সালে ইয়েমেনের মুতাওয়াক্কিল রাজ্য স্বাধীন হয়। অন্যদিকে পারস্য উপসাগরীয় আরব রাষ্ট্রগুলো কিছুটা অভ্যন্তরীণ স্বায়ত্তশাসনসহ কার্যত ব্রিটিশ আশ্রিত রাজ্যে পরিণত হয়। হোসেন বিন আলী ছিলেন হাশেমীয় নেতা। তিনি ছিলেন শেরিফ ও মক্কার আমির। রাজত্বের শেষভাগে তিনি খলিফা পদ দাবি করেন। তিনি ছিলেন বিশ্বনবীর (সা.) ৩৭তম অধঃস্তন পুরুষ। ইয়াং টার্ক মুভমেন্টের পর ১৯০৮ সালে অটোমান সুলতান দ্বিতীয় আবদুল হামিদ তাকে মক্কার আমির হিসেবে নিযুক্তি দেন। একটি স্বাধীন আরব দেশ প্রতিষ্ঠায় ব্রিটিশের প্রতিশ্রুতিতে বলীয়ান হয়ে তিনি অটোমান সাম্রাজ্যের বিরুদ্ধে আরব বিদ্রোহের ঘোষণা দেন এবং ইসলামী অনুশাসন লংঘন এবং সুলতানের ক্ষমতা খর্ব করার জন্য কমিটি অব ইউনিয়ন এন্ড প্রোগ্রেসকে অভিযুক্ত করেন। তিনি নিজেকে আরব দেশগুলোর বাদশাহ হিসেবে ঘোষণা করেন। কিন্তু মিত্রপক্ষ তার প্যান-আরব উচ্চাকাঙ্খার স্বীকৃতি দেয়নি। তবে তারা তাকে হেজাজের একমাত্র বাদশাহ হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর হোসেন বিন আলী বেলফোর ঘোষণা এবং সিরিয়া, ইরাক ও ফিলিস্তিনে ব্রিটিশ ও ফরাসি ম্যান্ডেট প্রতিষ্ঠার প্রতিবাদে ভার্সাই চুক্তি অনুমোদনে অস্বীকৃতি জানান। পরবর্তীতে তিনি অ্যাংলো-হাশেমীয় চুক্তিতে স্বাক্ষরদানে অস্বীকৃতি জানান। ইবনে সৌদ তার রাজ্য আক্রমণ করলে তিনি ব্রিটিশের সমর্থন থেকে বঞ্চিত হন।
প্রথম বিশ্বযুদ্ধকালে প্রাথমিকভাবে শেরিফ হোসেন অটোমানদের মিত্র হিসেবে কাজ করেন। কিন্তু তিনি তার পুত্র আবদুল্লাহর পরামর্শে ব্রিটিশের সঙ্গে গোপন আলোচনায় মিলিত হন। আবদুল্লাহ ১৯১৪ সাল পর্যন্ত অটোমান পার্লামেন্টে প্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ক্রমবর্ধমান জাতীয়তাবাদী অটোমান প্রশাসন থেকে পৃথক হয়ে যাবার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেন। ব্রিটিশ যুদ্ধমন্ত্রী ফিল্ড মার্শাল লর্ড কিচেনার যুদ্ধে ত্রিপক্ষীয় আঁতাতের পক্ষে তার কাছে সহায়তার জন্য আবেদন করেন। মিসরে নিযুক্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার লেফটেন্যান্ট কর্নেল স্যার হেনরি ম্যাকমোহনের আশ্বাসের প্রেক্ষিতে ১৯১৫ সালে শেরিফ হোসেন একটি আরব রাষ্ট্রের স্বীকৃতি এবং আরব খেলাফত ঘোষণার অনুমোদন দাবি করেন। কর্নেল হেনরি ম্যাকমোহন তার দাবি মেনে নেন এবং আশ্বাস দেন যে, কুয়েত, এডেন ও সিরীয় উপকূল বাদে মিসর থেকে পারস্য পর্যন্ত একটি সাম্রাজ্য গঠনের সুযোগ দিয়ে তাকে পুরস্কৃত করা হবে। ১৯১৬ সালের ৩০ অক্টোবর আমির আবদুল্লাহ একটি মজলিস আহ্বান করেন। মজলিসে পঠিত একটি চিঠিতে তিনি হোসেন বিন আলীকে আরব জাতির সার্বভৌম হিসেবে স্বীকৃতি দেন। উপস্থিত সবাই দাঁড়িয়ে তাকে মালিক আল-আরব হিসেবে ঘোষণা করেন। হেনরি ম্যাকমোহনের আশ্বাস সত্ত্বেও শেরিফ হোসেন প্রতিশ্রুত ভূখ- পাননি। ম্যাকমোহন দাবি করেন যে, প্রতিশ্রুত ভূখ- ‘বিশুদ্ধ’ আরব ভূখ- নয়। আসলে ব্রিটিশের মিত্র ফ্রান্স এসব ভূখ- দাবি করছিল।
প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর আরবরা নিজেদেরকে শত শত বছরের অটোমান শাসনের নাগপাশ থেকে মুক্ত দেখতে পায়। শেরিফ হোসেনের পুত্র ফয়সালকে সিরিয়ার বাদশাহ হিসেবে ঘোষণা দেয়া হয়। কিন্তু তার রাজত্ব বেশি দিন স্থায়ী হয়নি। কেননা শিগগির মধ্যপ্রাচ্যে ব্রিটিশ ও ফ্রান্সের ম্যান্ডেট শাসন কার্যকর হয়। পরবর্তীতে ব্রিটিশ সরকার ফয়সাল ও তার ভাই আবদুল্লাহকে যথাক্রমে ইরাক ও ট্রান্সজর্দানের বাদশাহ হিসেবে ঘোষণা করে। ১৯২৪ সালের মার্চে অটোমান খেলাফত বিলুপ্ত করা হলে হোসেন বিন আলী হেজাজের বাদশাহ হিসেবে ঘোষণা দেয়ার পাশাপাশি নিজেকে আরব দেশের (মালিক বিলাদ আল-আরব) বাদশাহ হিসেবেও ঘোষণা করেন। তার এ ঘোষণায় আবদুল আজিজ ইবনে সৌদের সঙ্গে তার বৈরিতা বৃদ্ধি পায়। তাদের মধ্যে ধর্মীয় বিশ্বাস নিয়ে মতপার্থক্য ছিল এবং প্রথম বিশ্বযুদ্ধের আগে ১৯১০ সালে ইবনে সৌদের সঙ্গে তার যুদ্ধ বেধে গিয়েছিল। ১৯২৪ সালের ৩ মার্চ তুর্কি গ্রান্ড ন্যাশনাল এসেম্বলি তুর্কি খেলাফত বিলুপ্ত করার দুদিন পর হোসেন বিন আলী ট্রান্সজর্দানের শুন্নায় তার পুত্র আবদুল্লাহর শীতকালীন অবকাশযাপন কেন্দ্রে নিজেকে খলিফা হিসেবে ঘোষণা করেন। তার খেলাফত ঘোষণার বিরুদ্ধে মিশ্র প্রতিক্রিয়া হয়। শিগগির হোসেন বিন আলী ক্ষমতাচ্যুত হন এবং সৌদিরা তাকে সৌদি আরব থেকে বহিষ্কার করে। ১৯২৪ সালে আবদুল আজিজ ইবনে সৌদ শেরিফ হোসেনকে পরাজিত করেন। তবে ট্রান্সজর্দানে অবস্থানকালে তিনি খলিফা খেতাব ব্যবহার অব্যাহত রাখেন। আরব বিদ্রোহের শুরু থেকে ব্রিটিশ হোসেন বিন আলীকে সমর্থন দিয়ে আসছিল। তারা তাকে সৌদি আক্রমণ প্রতিরোধে সহায়তা করেনি। পর্যায়ক্রমে সৌদিরা মক্কা, মদিনা ও জেদ্দা দখল করে নেয়। বাদশাহ হোসেনকে সাইপ্রাসে পালিয়ে যেতে বাধ্য করা হয়। সাইপ্রাস থেকে তিনি বসবাসের জন্য তার পুত্র আবদুল্লাহর শাসনাধীন ট্রান্সজর্দানে আশ্রয় নেন। শেরিফ হোসেন সিংহাসন ত্যাগ করার পর তার পুত্র আলী সংক্ষিপ্তকালের জন্য হেজাজের সিংহাসনে বসেন। সৌদি বাহিনীর অগ্রযাত্রার মুখে আলীকেও পালাতে হয়। শেরিফ হোসেনের আরেক পুত্র ফয়সাল প্রথমে সিরিয়া এবং পরে ইরাকের বাদশাহ হন।

আনাতোলিয়া ভাগাভাগি
রুশ, ব্রিটিশ, ইতালীয়, ফরাসি, গ্রীক, অ্যাসিরীয় ও আর্মেনীয়রা যুদ্ধকালীন চুক্তি, সামরিক তৎপরতা, গোপন চুক্তি ও সমঝোতার ভিত্তিতে অটোমান সাম্রাজ্যের মূল ভূখ- আনাতোলিয়ার ওপর নিজ নিজ দাবি উত্থাপন করে। সেভার্স চুক্তি অনুযায়ী অ্যাসিরীয়দের বাদে সবার আশা আকাঙ্খাকে সম্মান জানানো হয়। আর্মেনিয়াকে ভান হ্রদ থেকে পশ্চিমে মুশ পর্যন্ত বিস্তৃত উইলসোনিয়ান আর্মেনিয়া নামে পরিচিত পূর্বদিকের একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূখ- প্রদান করা হয়। গ্রীসকে দেয়া হয় স্মার্ণা ও তার আশপাশের অঞ্চল। আন্তালিয়ার আশপাশে আনাতোলিয়ার দক্ষিণ-মধ্য ও পশ্চিমাঞ্চলীয় উপকূল দেয়া হয় ইতালিকে। ফ্রান্সকে দেয়া হয় সিলিসিয়া এবং ব্রিটেনকে আর্মেনিয়ার দক্ষিণের ভূখ-। কিন্তু লাউসেন চুক্তিতে এসব ব্যবস্থা ও ভৌগোলিক দাবি নাকচ করে দেয়া হয়। ১৯১৫ সালের মার্চে রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সার্গেই সাজোনভ যথাক্রমে ব্রিটিশ ও ফরাসি রাষ্ট্রদূত জর্জ বুকানন এবং মরিস পালিওলগকে জানান, যুদ্ধোত্তর স্থায়ী নিষ্পত্তির জন্য রাশিয়াকে কন্সটান্টিনোপল, বসফোরাস ও দার্দানেলিস প্রণালী, মারমারা সাগরের পশ্চিম উপকূল, ইনোস-মিডিয়া লাইন পর্যন্ত দক্ষিণাঞ্চলীয় থ্রেস, বসফোরাস ও সাকারনা নদীর মধ্যবর্তী এশীয় উপকূলের একটি অংশ এবং ইজমিত উপসাগরের উপকূল দখলের সুযোগ দিতে হবে। ১৯১৭ সালের নভেম্বরে রুশ বিপ্লবে আর্মেনীয়দের সমর্থন লাভে রুশ দৈনিক ইসভেস্তিয়ায় কন্সটান্টিনোপল চুক্তির বিষয়বস্তু প্রকাশ করা হয়। কিন্তু রুশ বিপ্লব তাদের সব পরিকল্পনা নস্যাৎ করে দেয়।
মারমারা প্রণালী নিয়ন্ত্রণে আগ্রহী ব্রিটিশ সরকার ফ্রান্সের সহায়তায় ১৯১৮ সালের ১৩ নভেম্ব^র থেকে ১৯২৩ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত কন্সটান্টিনোপল অধিকার করে রাখে। লাউসেন চুক্তি স্বাক্ষরের পর ব্রিটিশ সৈন্যরা কন্সটান্টিনোপল থেকে বিদায় নেয়। ফ্রান্স, ইতালি ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে ১৯১৭ সালে স্বাক্ষরিত সেন্ট জ্যাঁ-ডি মাউরিয়েন চুক্তির আওতায় ইতালিকে আদানা অঞ্চল ছাড়া ইজমিরসহ দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় গোটা আনাতোলিয়া দেয়া হয়।
সাইকস-পিকোট চুক্তি অনুযায়ী ফ্রান্স হ্যাতে, লেবানন ও সিরিয়া লাভ করে এবং দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় আনাতোলিয়ায় নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠায় আগ্রহ প্রকাশ করে। ফ্রান্স, ইতালি ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে ১৯১৭ সালে স্বাক্ষরিত সেন্ট জ্যাঁ-ডি মাউরিয়েন চুক্তি অনুযায়ী ফ্রান্সকে তুরস্কের আদানা অঞ্চল বরাদ্দ দেয়া হয়। ব্রিটিশ সৈন্যবাহিনীর পাশাপাশি ফরাসি সৈন্যরা ১৯১৯ থেকে ১৯২১ সাল পর্যন্ত কয়লা খনি, রেলওয়ে, কৃষ্ণসাগরীয় বন্দর জঙ্গলদাক ও কারাদেনিজ ইরেগিল, কন্সটান্টিনোপল, পূর্ব থ্রেসের ইউজুনকোপরু এবং সিলিসিয়া অঞ্চলসহ আনাতোলিয়ার অংশবিশেষ দখল করে রাখে। মুদানিয়া চুক্তি, আঙ্কারা চুক্তি এবং লাউসেন চুক্তির পর পর্যায়ক্রমে ফরাসি সৈন্যরা এসব অঞ্চল থেকে পিছু হটে।
পশ্চিমা মিত্রপক্ষ বিশেষ করে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড লয়েড জর্জ প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন যে, গ্রীস যুদ্ধে মিত্রপক্ষে যোগদান করলে দেশটিকে অটোমান সাম্রাজ্যের ভূখ- দেয়া হবে। প্রতিশ্রুত ভূখ-ের মধ্যে ছিল পূর্বাঞ্চলীয় থ্রেস, ইম্ব্রোস ও টেনিডোস দ্বীপপুঞ্জ এবং ইজমির শহরের আশপাশে পশ্চিম আনাতোলিয়ার অংশবিশেষ। ১৯১৭ সালের মে মাসে প্রথম কন্সটান্টাইনকে নির্বাসনে পাঠানোর পর গ্রীক প্রধানমন্ত্রী ভেনিজেলোস এথেন্সে ফিরে আসেন এবং ত্রিপক্ষীয় আঁতাতের সঙ্গে জোটবদ্ধ হন। সীমান্তে গ্রীক সৈন্যবাহিনী বুলগেরীয় সৈন্যবাহিনীর বিরুদ্ধে সামরিক অভিযানে অংশগ্রহণ করতে শুরু করে। একই বছর সেন্ট জ্যাঁ-ডি মাউরিয়েন চুক্তির আওতায় ইতালির কাছে আদানা হস্তান্তরের প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়। ১৯১৮ সালে প্যারিস শান্তি সম্মেলনে গ্রীক প্রধানমন্ত্রী ভেনিজেলোস তার দেশকে আরো বেশি ভূখ- দেয়ার জন্য জোর প্রচেষ্টা চালান। তার দাবিকৃত ভূখ-ের মধ্যে ছিল উত্তরাঞ্চলীয় ইপিরাসে সংখ্যাগরিষ্ঠ গ্রীক অধ্যুষিত ভূখ-, কন্সটান্টিনোপলসহ থ্রেস ও এশিয়া মাইনর। ১৯১৯ সালে ইতালির বিরোধিতা সত্ত্বেও তিনি ইজমির দখলে প্যারিস শান্তি সম্মেলনের অনুমোদন লাভ করেন।
১৯১৮ থেকে ১৯২৩ সাল পর্র্যন্ত মোস্তফা কামাল আতাতুর্কের নেতৃত্বে তুর্কি জাতীয়তাবাদীরা গ্রীক ও আর্মেনীয়দের আনাতোলিয়া থেকে বহিষ্কার করে। অন্যদিকে ইতালীয়রা কখনো আনাতোলিয়ায় পা রাখতে পারেনি। ১৯২০-এর দশকে তুর্কি জাতীয়তাবাদীরা কুর্দিদের স্বাধীনতার প্রচেষ্টা বাঞ্ছাল করে দেয়। আনাতোলিয়ায় তুর্কি প্রতিরোধ আন্দোলনকারীরা নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করলে সেভার্স চুক্তির শর্ত পূরণের প্রয়োজন হয়নি। সোভিয়েত ইউনিয়নে যোগদানের আগে আর্মেনিয়া গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র ১৯২০ সালের ৩ ডিসেম্বর আলেক্সান্ড্রোপল চুক্তিতে স্বাক্ষর করে। চুক্তিতে আর্মেনিয়া দুটি দেশের মধ্যকার সীমান্ত মেনে নিতে সম্মত হয়। তবে একইসময় সোভিয়েত আক্রমণে ১৯২০ সালের ২ ডিসেম্বর আর্মেনীয় সরকারের পতন ঘটেছিল। পরবর্তীতে আর্মেনিয়া সোভিয়েত ইউনিয়নের অবিচ্ছেদ্য অংশে পরিণত হয়।

দক্ষিণ-পশ্চিম ককেশাস প্রজাতন্ত্র বিলুপ্ত
মুদ্রোস চুক্তির আওতায় অটোমান সৈন্য প্রত্যাহারের পর ১৯১৮ সালে রুশ ভূখ-ে দক্ষিণ-পশ্চিম ককেশাস প্রজাতন্ত্র (কারস প্রজাতন্ত্র) প্রতিষ্ঠা করা হয়। ফখরুদ্দিন পিরিয়গলুর নেতৃত্বে এ প্রজাতন্ত্রের একটি নামমাত্র স্বাধীন অস্থায়ী সরকার ছিল। দক্ষিণ-পশ্চিম ককেশাস প্রজাতন্ত্রের সঙ্গে জর্জিয়া ও আর্মেনিয়ার যুদ্ধ বেধে গেলে ব্রিটিশ হাইকমিশনার এডমিরাল সোমারসেট আর্থার গাফ-কার্লথ্রোপ ১৯১৯ সালের ১৯ এপ্রিল কারস দখল করেন, পার্লামেন্ট ভেঙ্গে দেন এবং ৩০ জন সরকারি কর্মকর্তাকে গ্রেফতার করেন। তিনি কারস প্রদেশকে আর্মেনীয় শাসনে ন্যস্ত করেন। কোনো কোনো ঐতিহাসিক কারস প্রজাতন্ত্রকে অটোমান সাম্রাজ্যের ক্রীড়নক রাজ্য হিসেবে উল্লেখ করছেন। এ প্রজাতন্ত্রের অধিকাংশ অধিবাসী ছিল মুসলমান। ১৯১৮ সালের ৩০ অক্টোবর স্বাক্ষরিত মুদ্রোস যুদ্ধবিরতি চুক্তিতে বলা হয়, ককেশাস অঞ্চলে রাশিয়ার মালিকানাধীন সব ভূখ- থেকে অটোমান সৈন্যবাহিনীকে রাশিয়ার সঙ্গে যুদ্ধ-পূর্ব সীমান্তের পশ্চিমে প্রত্যাহার করতে হবে। ১৯১৮ সালের ৪ ডিসেম্বর অটোমান সৈন্যরা রাশিয়ার সঙ্গে ১৮৭৭ সালের পুরনো সীমান্ত পর্যন্ত পিছু হটে। তবে কারস ওব্লাস্ট থেকে তাদের পিছু হটতে দুমাস বিলম্ব হয়। এ বিলম্ব আর্মেনীয় প্রজাতন্ত্রে আত্মীকরণ প্রতিরোধে একটি তুর্কিপন্থী অস্থায়ী সরকার গঠনের সুযোগ দেয়। কারস প্রদেশের জনবহুল শহরগুলোতে জাতীয় ইসলামী কাউন্সিল প্রতিষ্ঠা করা হয়। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ছিল ১৯১৮ সালের ৫ নভেম্বর প্রতিষ্ঠিত কারস ইসলামী কাউন্সিল। ডিসেম্বরে নামকরণ করা হয় জাতীয় কাউন্সিল এবং ১৯১৯ সালের জানুয়ারিতে কারস জাতীয় কাউন্সিল এবং ১৯১৯ সালের মার্চে চূড়ান্তভাবে নামকরণ করা হয় দক্ষিণ-পশ্চিম ককেশিয়ার অন্তর্বর্তীকালীন জাতীয় সরকার। ১৯১৮ সালের পহেলা ডিসেম্বর কারস সম্মেলনে মুসলিম জাতীয় কমিটি একতরফাভাবে স্বাধীন দক্ষিণ-পশ্চিম ককেশাস প্রজাতন্ত্র ঘোষণা এবং জাহাঙ্গীরজাদা ইব্রাহিম বে’কে প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত করে।
এ নয়া প্রজাতন্ত্র কারস, বাটাম, আখালৎসিখ, আখালকালাকি, শারুর ও নাখিচেভান জেলা দাবি করে। আজারবাইজান এ দাবির প্রতি সমর্থন দেয়। দক্ষিণ-পশ্চিম ককেশাস প্রজাতন্ত্র আর্মেনীয় ছাড়া সবার ওপর তাদের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করে এবং প্যারিস শান্তি সম্মেলনে এসব দাবির নিষ্পত্তি হওয়া নাগাদ জর্জিয়া ও আর্মেনিয়ার আগ্রাসনের বিরুদ্ধে ব্রিটেনের কাছ থেকে সুরক্ষার নিশ্চয়তা লাভ করে। ১৯১৯ সালের ১৩ জানুয়ারি আর্মেনিয়ান রাজনীতিবিদ স্টিপান কারগানোভকে কারসের গভর্নর পদে নিয়োগদানে ৬০ জনের একটি প্রতিনিধি দলকে বাটামের ব্রিটিশ কমান্ড কারসে পাঠায়। কারস প্রজাতন্ত্রের পার্লামেন্ট এ প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে এবং আর্মেনীয়দের সঙ্গে ভবিষ্যতে যেকোনো ধরনের আলোচনা নাকচ করে দেয়। সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলোর মধ্যে নাটকীয়ভাবে সহিংসতা বৃদ্ধি পায়। ১৯১৯ সালের জানুয়ারিতে একটি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় এবং ১৪ জানুয়ারি প্রতি ১০ হাজার ভোটারের মধ্য থেকে একজন করে ডেপুটি নির্বাচন করা হয়। ৬০ জন মুসলিম, তিনজন গ্রীক এবং একজন মলোকান রুশ নিয়ে এ পার্লামেন্ট গঠন করা হয়। ১৭ জানুয়ারি নয়া পার্লামেন্ট অধিবেশনে মিলিত হয় এবং ১৮টি অনুচ্ছেদ সম্বলিত একটি সংবিধান অনুমোদন করে। মহিলাদের ভোটাধিকার দেয়া হয় এবং কারসকে রাজধানী এবং তুর্কি ভাষাকে সরকারি ভাষা হিসেবে ঘোষণা করা হয়। ২৭ মার্চ পার্লামেন্ট একটি নয়া সরকার নিয়োগ করে। নয়া সরকার স্বীকৃতির জন্য জাপানের রাজকীয় সরকারের কাছে আবেদন করে। দক্ষিণ-পশ্চিম ককেশাস প্রজাতন্ত্রের সঙ্গে জর্জিয়া ও আর্মেনিয়ার যুদ্ধ বেধে যায়। এ পরিস্থিতিতে জেনারেল উইলিয়াম এম. টমসনের নির্দেশে ১৯১৯ সালের ১৯ এপ্রিল বাটাম থেকে প্রেরিত ব্রিটিশ সৈন্যরা কারস দখল করে, পার্লামেন্টের অধিবেশন ভেঙ্গে দেয় এবং ৩০জন এমপি ও সরকারি কর্মকর্তাকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে ১১জনকে প্রথমে বাটাম এবং পরে ইস্তাম্বুলে বহিষ্কার করা হয়। ২ জুন তাদেরকে মাল্টায় নির্বাসনে পাঠানো হয়। ১৯২০ সালের ৭ জুলাই কারস প্রদেশকে আর্মেনীয় শাসনে ন্যস্ত করা হয়। বাটামে জর্জীয় সৈন্যবাহিনী ব্রিটিশ সৈন্যবাহিনীর স্থলাভিষিক্ত হয়। তুর্কি সৈন্য প্রত্যাহারের পর ব্রিটিশ সৈন্যরা বাটামের নিয়ন্ত্রণ গ্রহণ করে।

আর্মেনিয়া গঠন
১৯১৯ সালে প্যারিস শান্তি সম্মেলনে আর্মেনিয়ার বাইরে বসবাসকারী এবং আর্মেনীয় রেভলিউশনারি ফেডারেশন যুক্তি দেয় যে, ১৯১৫ থেকে ১৯১৮ সাল পর্যন্ত অটোমান সাম্রাজ্যের নিয়ন্ত্রণের বাইরে অবস্থানকারী অঞ্চলকে গণতান্ত্রিক আর্মেনিয়া প্রজাতন্ত্রের অংশে পরিণত করতে হবে। প্রেসিডেন্ট উইলসনের ১৪-দফা নীতির আলোকে উদ্বাস্তু আর্মেনিয়ানরা দাবি করে যে, এ অঞ্চল নিয়ন্ত্রণে আর্মেনিয়ার সামর্র্থ্য রয়েছে। আর্মেনিয়ার বাইরে বসবাসকারীরা আরো যুক্তি দেয় যে, তুর্কি বাসিন্দারা পশ্চিমাঞ্চলীয় প্রদেশগুলোতে স্থানান্তরিত হওয়ায় এ অঞ্চলের সংখ্যাগরিষ্ঠ অধিবাসীরা আরো বেশি আর্মেনীয় হয়ে উঠেছে। আর্মেনীয় ন্যাশনাল ডেলিগেশনের সভাপতি বোঘোস নুবার রাজকীয় রুশ সৈন্যবাহিনীতে নিয়োজিত দেড় লাখ আর্মেনীয় সৈন্যের উল্লেখ না করে বলেন, ককেশাস অঞ্চলে ৪০ হাজারের বেশি আর্মেনীয় স্বেচ্ছাসেবক আর্মেনিয়ার একটি অংশ মুক্ত করতে সক্ষম হয়েছে। বলশেভিকরা পিছু হটার পর জেনারেল আন্দ্রানিক ওজানিয়ান ও তোভমাস নাজারবাকিয়ানের নেতৃত্বে তারা তুর্কি সৈন্যবাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াই করেছে। প্রেসিডেন্ট উড্রো উইলসন তাদের যুক্তি মেনে নেন। প্যারিস শান্তি সম্মেলন গণতান্ত্রিক আর্মেনিয়া প্রজাতন্ত্রের সীমান্ত আধুনিক তুরস্কের পূর্ব সীমান্ত পর্যন্ত সম্প্রসারিত করার সুপারিশ করে।

পশ্চিম আর্মেনিয়া দখল
১৯১৫ সালের এপ্রিলে রাশিয়া রুশ-আর্মেনীয় বংশোদ্ভূত গভর্নর ও ভান প্রতিরক্ষার নেতা আরাম মানুকিয়ানের অধীনে আর্মেনিয়ার অস্থায়ী সরকার গঠনে সমর্থন দেয়। আর্মেনীয় ন্যাশনাল মুভমেন্ট আশা করছিল যে, রুশ সৈন্যবাহিনীকে সমর্থন দেয়ার বিনিময়ে আর্মেনিয়া অটোমান সাম্রাজ্যের কাছ থেকে স্বাধীনতা লাভ করতে পারে। রাশিয়া অটোমান সাম্রাজ্যের কয়েকটি ভূখ-ের ভবিষ্যৎ নিয়ে প্রথম বিশ্বযুদ্ধকালে ত্রিপক্ষীয় আঁতাতের অন্যান্য দেশগুলোর সঙ্গে গোপন চুক্তি করেছিল। আর্মেনীয় জনগণের সমর্থন আদায়ে আর্মেনীয় বিপ্লবীরা ১৯১৭ সালে এসব পরিকল্পনা ফাঁস করে দেয়। ইতিমধ্যে অধিক সংখ্যক আর্মেনীয় অভিবাসন শুরু করলে অস্থায়ী আর্মেনীয় সরকার আরো বেশি স্থিতিশীল হয়। ১৯১৭ সালে দেড় লাখ আর্মেনীয় ইরজুরুম, বিটলিস, মুশ ও ভান প্রদেশে স্থানান্তরিত হয়। আরমেন গারো এবং আরো কয়েকজন আর্মেনীয় নেতা ইউরোপীয় রণাঙ্গনে মোতায়েন আর্মেনিয়ার নিয়মিত সৈন্যদের ককেশাস ফ্রন্টে স্থানান্তরিত করার আহবান জানান। রুশ বিপ্লবে তুরস্কের পূর্ব সীমান্ত অস্থিতিশীল হয়ে পড়ে। ১৯১৭ সালের ডিসেম্বরে অটোমান সাম্রাজ্য ও ট্রান্সককেশীয় কমিশারিয়েটের প্রতিনিধি দল একটি যুদ্ধবিরতি চুক্তি সই করে। অন্যদিকে অটোমান সাম্রাজ্য ইস্টার্ন ফ্রন্টে থার্ড আর্মির শক্তিবৃদ্ধি করতে শুরু করে। ১৯১৮ সালের মধ্য ফেব্রুয়ারিতে লড়াই শুরু হয়। অটোমান সৈন্যবাহিনী ও অনিয়মিত কুর্দি বাহিনীর মারাত্মক চাপে আর্মেনীয়রা প্রাথমিকভাবে ইরজিনকান থেকে ইরজুরুম এবং পরবর্তীতে কারসে পিছু হটে। অটোমান সৈন্যবাহিনীর অগ্রযাত্রার জবাবে ট্রান্সককেশীয় কমিশারিয়েট ক্ষণস্থায়ী ট্রান্সককেশীয় ফেডারেশনে রূপান্তরিত হয়। ট্রান্সককেশীয় ফেডারেশন ভেঙ্গে গেলে আর্মেনীয়রা ১৯১৮ সালের ৩০ মে গণতান্ত্রিক আর্মেনিয়া প্রজাতন্ত্র গঠন করে। ৪ জুন স্বাক্ষরিত বাটাম চুক্তিতে আর্মেনীয় প্রজাতন্ত্রের আয়তন মাত্র ১১ হাজার বর্গকিলোমিটারে সীমিত করা হয়।

জর্জিয়া গঠন
রুশ সাম্রাজ্যের পতন ঘটার পর জর্র্জিয়া একটি স্বাধীন প্রজাতন্ত্রে পরিণত হয় এবং মুসলিম অধ্যুষিত বাটুমি, আরদাহান, আরৎভিন ও অল্টোর নিয়ন্ত্রণ দাবি করে। ১৮৭৮ সালে রাশিয়া অটোমান সাম্রাজ্যের কাছ থেকে এসব অঞ্চল দখল করে নিয়েছিল। ১৯১৮ সালের জুন নাগাদ অটোমান সৈন্যবাহিনী এসব বিতর্কিত ভূখ- পুনর্দখল করে এবং জর্জিয়াকে বাটুম চুক্তিতে স্বাক্ষরদানে বাধ্য করে। অটোমান সাম্রাজ্যের বিলুপ্তি ঘটলে জর্জিয়া ১৯১৯ সালে স্থানীয় মুসলিম মিলিশিয়াদের কাছ থেকে আরদাহান ও আরৎভিন এবং ১৯২০ সালে ব্রিটিশের কাছ থেকে বন্দর নগরী বাটুমের নিয়ন্ত্রণ লাভ করে। দাবি করলেও জর্জিয়া কখনো অল্টোর নিয়ন্ত্রণ গ্রহণের চেষ্টা করেনি। আর্মেনিয়াও অল্টো দাবি করছিল। ১৯২১ সালের ফেব্রুয়ারি-মার্চে সোভিয়েত রাশিয়া ও তুরস্ক একযোগে জর্জিয়ায় আক্রমণ চালায়। এতে কারস চুক্তিতে নতুন করে ভৌগোলিক বিন্যাস ঘটানো হয়। কারস চুক্তিতে বাটুমিকে সোভিয়েত জর্জিয়ার সীমান্তের ভেতর রাখা হয়। অন্যদিকে আরদাহান ও আরৎভিনকে তুরস্কের অংশ হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া হয়।

(লেখাটি আমার ‘অটোমান সাম্রাজ্যের পতন’ থেকে নেয়া। বইটি প্রকাশ করেছে আফসার ব্রাদার্স।)

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম