1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
ওষুধ নিয়ে নৈরাজ্য : কৃত্রিম সঙ্কট ও মূল্যবৃদ্ধি মজুদদারি দমন করতে হবে - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১০:৪১ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
বাঁশখালী স্টুডেন্টস্ ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের পুরস্কার বিতরণ বর্ষবরণে রাজধানীর মানিক মিয়া এভিনিউতে রঙ তুলির আঁচড়ে বাঙালী সংস্কৃতি তুলে ধরতে আয়োজিত  দেশের বড় আল্পনা উৎসব শোলাকিয়া ঈদগাঁহ ময়দানের ঈদুল ফিতরের নামাজ লাখ লাখ মানুষের অংশগ্রহণ ঠাকুরগাঁওয়ে আম বাগানগুলোর গাছে ব্যাপক পরিমাণে আম ঝুলছে ! ঠাকুরগাঁওয়ের সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোতে আনন্দের সীমা নেই! কারণ ভারতের কাছ থেকে ৯১ বিঘা জমি উদ্ধার ! Feelflame Evaluation: Initial Statements ঠাকুরগাঁও জেলা ও বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা বাসিকে ঈদ-উল-ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সাংবাদিক মোঃ মজিবর রহমান শেখ, Onwin bahis adresi nasıl alınır? Hızlı ve Kolay Rehber Site Adres Güncellemesi Onwin bahis sitesi ile oynayarak heyecan dolu oyunlara katılın! En güvenilir ve kazançlı bahis deneyimi Onwin’de sizi bekliyor. আলহাজ্ব  আমজাদ হোসেন মোল্লার উদ্দ্যোগে রাজধানীর রূপনগরে  গরীব, অসহায় পাশাপাশি  বিএনপির নেতা কর্মীদের মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ

ওষুধ নিয়ে নৈরাজ্য : কৃত্রিম সঙ্কট ও মূল্যবৃদ্ধি মজুদদারি দমন করতে হবে

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ২৮ জুন, ২০২০
  • ১৪০ বার

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার : কারো পৌষ মাস, কারো সর্বনাশ’। প্রবাদটিই সত্য হয়েছে দেশ ও জাতির এই মহাদুর্দিনে। কারণ, করোনাভাইরাসের অজুহাত দেখিয়ে সারা দেশের মেডিসিন মার্কেটে নৈরাজ্য সৃষ্টি করা হয়েছে। অসৎ ও অর্থগৃধ্নু কিছু মুনাফাখোর ও মজুদদারের কারসাজিতে বেশির ভাগ ফার্মেসিতে বিরাজ করছে ওষুধপত্রের সাজানো সঙ্কট। এ অবস্থায় জ্বর-সর্দি-কাশির ওষুধের দাম অনেক বেড়ে গেছে। বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে অক্সিজেন ও সার্জিক্যাল আইটেমের দামও। এক দিকে করোনা মহামারীর মরণছোবল, অন্য দিকে বিভিন্ন ধরনের ওষুধের মূল্য বেলাগাম বেড়ে যাওয়ার কারণে বিশেষত রোগীরা এবং তাদের স্বজন পরিজনসহ জনগণ দিশেহারা। ভুক্তভোগী মানুষ দোকানে দোকানে বহু ঘোরাঘুরি করেও জরুরি অনেক ওষুধের খোঁজ পাচ্ছেন না।

পত্রপত্রিকার খবরে প্রকাশ, নমুনাস্বরূপ বলা যায়Ñ অক্সিমিটারের দাম ৫-৬ শ’ টাকা থেকে কয়েক গুণ হয়ে গেছে। গত বুধবার এই যন্ত্রটি স্থানভেদে ২২ শ’ টাকা থেকে ২৮ শ’ টাকায় কিনতে হয়েছে। জ্বর পরিমাপের সাধারণ থার্মোমিটারের দাম উঠেছে ১২০ টাকায়। এর দাম সাধারণত ৪০ টাকা। হাতের দস্তানা বড়জোর ২৮০ টাকা দাম থেকে লাফ দিয়ে একেবারে ১১ শ’ টাকায় উঠেছে। জ্বরের ওষুধ নাপা ট্যাবলেট আগে ১৮০ টাকায় পাওয়া যেত। এখন পাইকারি দাম এর প্রায় আড়াই গুণ। আর নাপা ৫০০ ট্যাবলেটের পাইকারি দাম সাড়ে ৫ শ’ টাকা। মেলাডিন ট্যাবলেটের দামও বেড়ে গেছে। হ্যান্ড স্যানিটাইজারের দাম শতাধিক টাকা বেড়ে যাওয়ার পাশাপাশি এর নকলও বাজারে বের হয়েছে। এক পাতা সিভিলের মূল্য ২০ টাকা থেকে ডাবল হয়ে গেছে। তা-ও বাজারে পাওয়া কঠিন। খুচরা ডক্সিক্যাপের দাম ২২ থেকে ৫০ টাকায় পৌঁছে গেছে। ডেক্সামেথাসনের দাম ছিল পৌনে ২ শ’ থেকে ২ শ’ টাকা। এই ওষুধ করোনা রোগে কার্যকর এমন প্রচারণায় বাজার থেকে উধাও হয়ে যায়। পরে অবশ্য পরিস্থিতি অনেকটা স্বাভাবিক হয়ে আসে। নাপা সিরাপের সরবরাহ কম আর দাম বেশি ৫ শ’ টাকা পর্যন্ত। কোনো কোনো দোকানে ওষুধপত্র মিললেও ক্রেতাকে রসিদ দেয়া হয় না। ব্যবসায়ীদের মতে, অন্তত অর্ধশত মেডিসিন ও সার্জিক্যাল আইটেমের দাম বেড়েছে। রাজধানীর শাহবাগসহ হাসপাতালসংলগ্ন বিভিন্ন মার্কেটে ওষুধের দাম ওঠানামার ‘খেলা’ চলছে। দোকানে বিশেষ করে শ্বাসকষ্টের অক্সিজেনের অভাব চরমে। চালু আইটেমের সাথে ‘প্যাকেজ’ চালু করে অন্যান্য ওষুধ কিনতে বাধ্য করা হচ্ছে খুচরা বিক্রেতাদের।
দেশের প্রধান মেডিসিন বিপণি, পুরান ঢাকার মিটফোর্ড মার্কেটে প্যারাসিটামল, গ্লাভস, থার্মোমিটার, স্যানিটাইজার প্রভৃতির চরম ঘাটতি লক্ষ করা গেছে। কোনো কোনো ওষুধ অনেক বেশি দামেও পাওয়া যাচ্ছে না। সিভিট ট্যাবলেটের নিদারুণ সঙ্কট। এটাসহ কয়েকটি ওষুধের কোম্পানি বলেছে, ‘চাহিদা বেড়ে গেছে এবং সরবরাহ সে কারণে গেছে কমে।

ব্যবসায়ীদের কারো কারো বক্তব্য, টিভিতে কোনো ওষুধের ঘাটতি ও মূল্যবৃদ্ধি কিংবা করোনা চিকিৎসার কার্যকারিতা প্রচার করা হলে মার্কেটে ‘সঙ্কট’ সৃষ্টি করা হয়। যেমন, ডেক্সামেথাসন ব্যবহারে করোনা রোগী উপকার পাচ্ছে এমন খবরে দাম বেড়েছিল। তবে এর কৃত্রিম সঙ্কট শেষ হয়নি। কোনো কোনো ওষুধ কোম্পানি এক আইটেমের জন্য আরো দুই আইটেম কিনতে বাধ্য করছে। এই অতিরিক্ত আইটেম প্রেসক্রিপশনে না থাকলে বিক্রি হয় না। আবার ডাক্তাররা এ ওষুধের নাম লিখলে তা কিনে ক্ষতিগ্রস্ত হতে হয়। দেশের কোনো কোনো এলাকায় ক্রেতারা অপ্রয়োজনে কয়েক গুণ বেশি ওষুধ কিনে বাজারে সঙ্কট সৃষ্টি করছেন। যেমন প্রত্যহ সিভিট, স্যানিটাইজার ইত্যাদি কেনা হচ্ছে বহু পরিবারে। যেখানে করোনা মহামারী দেখা দেয়, সেখানেই জ্বর, সর্দি, গলাব্যথা, কাশির ওষুধের দাম বাড়ানো হয়।
সারা দেশে ওষুধ নিয়ে যখন ব্যাপক অব্যবস্থাপনা ও বিশৃঙ্খলা, তখন ঔষধ প্রশাসন কর্তৃপক্ষ বলেছেন, “কোথাও কোনো সঙ্কট নেই। ওষুধের দাম বাড়ানোর ‘অভিযোগ পেলে’ ব্যবস্থা নেয়া হবে। দোকান ও মার্কেট মনিটরিং চলছে। মোবাইল কোর্ট তৎপর রয়েছে।” কাউকেই ছাড় না দেয়ার হুঁশিয়ারির সাথে কর্তৃপক্ষ বলেছে, ‘বিনা প্রয়োজনে ওষুধ বা অক্সিজেন মজুদ করবেন না।’ প্রেসক্রিপশন ছাড়া ওষুধ বিক্রি না করতেও প্রশাসন বলেছে।
আমরা মনে করি, জাতির এই মহাবিপর্যয়ে ওষুধ ও চিকিৎসাসামগ্রী নিয়ে মুনাফা লুটার বিন্দুমাত্র সুযোগও দেয়া অন্যায়। তাই যেকোনো ওষুধপত্র ও চিকিৎসা সরঞ্জামের মজুদদারি ও কালোবাজারি কঠোর হস্তে এখনই দমন করা জরুরি।

লেখকঃ বিশেষ প্রতিবেদক শ্যামল বাংলা ডট নেট -| কাউন্সিলরঃ বিএফইউজে-বাংলাদেশ ও সদস্য ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন( ডিইউজে)

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম