1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
গত কয়েক মাসে ৩ দফায় চালের মুল্য বৃদ্বি পেলো দিনাজপুরের চালের বাজার আবারো অস্থিতিশীল হয়ে উঠেছে - দৈনিক শ্যামল বাংলা
বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০২:২৭ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
বাঁশখালীতে মধ্যরাতে অগ্নিকান্ডে পুড়েছে চার দোকান ফাঁসিয়াখালী-মেদাকচ্ছপিয়া পিপলস ফোরাম (পিএফ) সাধারণ কমিটির সভা সম্পন্ন চৌদ্দগ্রামে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উদযাপন চৌদ্দগ্রামে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে ৩ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা ফের ৩দিন ক্লাস বর্জনের ঘোষণা কুবি শিক্ষক সমিতির নবীনগরে পৃথক মোবাইল কোর্ট অভিযানে সাড়ে ৪ লাখ টাকা জরিমানা দৈনিক আমাদের চট্টগ্রামের সম্পাদক মিজানুর রহমান চৌধুরী উপর হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী ঠাকুরগাঁওয়ে রানীশংকৈলে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মাঠে নেমেছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা তিতাসে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা শেরপুরে আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত

গত কয়েক মাসে ৩ দফায় চালের মুল্য বৃদ্বি পেলো দিনাজপুরের চালের বাজার আবারো অস্থিতিশীল হয়ে উঠেছে

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ২৬ জুন, ২০২০
  • ১৫৮ বার

রফিকুল ইসলাম ফুলাল দিনাজপুর প্রতিনিধি :
দিনাজপুরে চালের বাজার আবারো অস্থিতিশীল হয়ে উঠেছে। জেলার বিভিন্ন বাজারে আবারো চালের দাম বেড়েছে। প্রকারভেদে সব ধরনের চাল কেজীতে ৩-৪ টাকা বেড়েছে। এনিয়ে গত কয়েক মাসে ৩ দফায় চালের মুল্য বৃদ্বি পেলো। বাজারে হঠাত চালের মুল্য বৃদ্বির কারনে ভোগান্তিতে পড়েছে স্থানীয় মধ্যবিত্ব ও খেটে খাওয়া অসহায় মানুষেরা।

স্থানীয় বাজারের চাল ব্যবসায়ীরা বলছেন বাজারে ধানের দাম বেশী হওয়ায় এবং মিল পর্যায়ে দাম বৃদ্বির ফলে পাইকারী ও খুচরা চালের বাজারে এর প্রভাব পড়েছে। সপ্তাহের ব্যবধানে সব ধরনে চাল (৫০ কেজী) প্রতি বস্তায় বেড়েছে ১৫০ থেকে ২০০ টাকা। বাজারে ২৮ ও ২৯ চাল আগে ছিল প্রতিকেজী ৪২ থেকে ৪৩ টাকা এখন বিক্রি হচ্ছে ৪৬ থেকে ৪৭ টাকা। মিনিকেট চাল ৪৪-৪৫ টাকা কেজি এখন বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৫১ টাকা কেজি। এছাড়াও সুমন ও গুটি স্বর্ণ চাল ৩৮ টাকার স্থলে এখন বিক্রি হচ্ছে ৪২ টাকা দরে।

দিনাজপুর শহরের প্রধান বাজার এন এ মার্কেটে চাল ক্রয় করতে আসা মো: আব্দুস সালাম জানান,গত সপ্তাহেই ৪৪-৪৫ টাকা কেজি দরে মিনিকেটে চাল কিনেছি কিন্তু বর্তমানে ওই একই চাল ৫০-৫১ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে, আমরা অসহায় কিভাবে বাচঁবো বুঝতে পারছি না। বাজারে কোনো দ্রব্যের দাম বাড়লে আর কমতেই চায়না।

শহরের পুলহাট এলাকার চালের পাইকার ও খুচরা বিক্রেতা মো: শফিউদ্দীন জানান, মিল পর্যায়ে চালের দাম বৃদ্বির কারনে খুচরা বাজারে এর প্রভাব পড়েছে । বেশী দামে কিনলে তো লাভ রেখেই বেচঁতে হবে নইলে আমাদের ক্ষতির মুখে পড়তে হবে। এছাড়া গ্রামগঞ্জের বাজারে ধানেরও দাম বৃদ্ধি পেয়েছে, চালের দাম বৃদ্ধির এটাও একটা কারন। যে কারনে বেশী দামে ধান কেনায় মিল মালিকরা প্রতি বস্তায় চালের দাম ২০০-৩০০ টাকা বৃদ্ধিতে কেনাবেচা করছে।

চালকল মিল মালিক সুজা উর রব জানান,এবারের বোরো মৌসুমে হাটে-বাজারে ধানের দর বেশী হওয়ায় কৃষকরা বেশ লাভবান হয়েছেন। বেশী দরে ধান ক্রয়ের কারনেই চালের মুল্য সামান্য বৃদ্ধি হয়েছে ফলে ব্যবসায়ীরাও একটু সুবিধাজনক অবস্থায় রয়েছে।

দিনাজপুর জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মো : আশরাফুজ্জামান জানান,সরকার নিধার্রিত দরে এবছরও চুক্তিবদ্ধ মিলারদের কাছ থেকে ধান ও চাল সংগ্রহ করা হচ্ছে। বোরো সংগ্রহ অভিযানে জেলা খাদ্য বিভাগ এবার মিলারদের কাছ থেকে ৯১ হাজার ৭২৩ মেট্রিক টন চাল এবং ৩২ হাজার ৭২ টান ধান ক্রয় করবে বলে তিনি জানান।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম