1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
দুঃসময়ে চীনের শুল্কমুক্ত সুবিধা পুরোপুরি কাজে লাগাতে হবে - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১০:৫৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
বাঁশখালী স্টুডেন্টস্ ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের পুরস্কার বিতরণ বর্ষবরণে রাজধানীর মানিক মিয়া এভিনিউতে রঙ তুলির আঁচড়ে বাঙালী সংস্কৃতি তুলে ধরতে আয়োজিত  দেশের বড় আল্পনা উৎসব শোলাকিয়া ঈদগাঁহ ময়দানের ঈদুল ফিতরের নামাজ লাখ লাখ মানুষের অংশগ্রহণ ঠাকুরগাঁওয়ে আম বাগানগুলোর গাছে ব্যাপক পরিমাণে আম ঝুলছে ! ঠাকুরগাঁওয়ের সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোতে আনন্দের সীমা নেই! কারণ ভারতের কাছ থেকে ৯১ বিঘা জমি উদ্ধার ! Feelflame Evaluation: Initial Statements ঠাকুরগাঁও জেলা ও বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা বাসিকে ঈদ-উল-ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সাংবাদিক মোঃ মজিবর রহমান শেখ, Onwin bahis adresi nasıl alınır? Hızlı ve Kolay Rehber Site Adres Güncellemesi Onwin bahis sitesi ile oynayarak heyecan dolu oyunlara katılın! En güvenilir ve kazançlı bahis deneyimi Onwin’de sizi bekliyor. আলহাজ্ব  আমজাদ হোসেন মোল্লার উদ্দ্যোগে রাজধানীর রূপনগরে  গরীব, অসহায় পাশাপাশি  বিএনপির নেতা কর্মীদের মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ

দুঃসময়ে চীনের শুল্কমুক্ত সুবিধা পুরোপুরি কাজে লাগাতে হবে

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২২ জুন, ২০২০
  • ১১৮ বার

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার :
করোনা বিপর্যয়ের মধ্যে আমাদের রফতানি বাণিজ্যে ধস নেমেছে। প্রতি মাসেই আমাদের রফতানি আদেশ কমে যাচ্ছে। তাই বিদেশী আয়ও কমছে দ্রুত গতিতে। এই হতাশার মধ্যে চীন ঘোষণা দিয়েছে বাংলাদেশের ৯৭ শতাংশ রফতানি পণ্য সে দেশে শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকার দেয়ার। আগামী ১ জুলাই থেকে চীনের ঘোষণা কার্যকর হবে। এর ফলে বন্ধুপ্রতিম প্রতিবেশী দেশটির প্রায় ১৪০ কোটি মানুষের দেশে আমাদের বিপুল পণ্য রফতানির সুযোগ হলো। এখন এই সুযোগ কাজে লাগানোর ব্যাপারটি সম্পূর্ণ আমাদের হাতে। একে যদি দক্ষতার সাথে কাজে লাগানো যায় তাহলে দেশটিতে আমাদের পণ্য রফতানি নিঃসন্দেহে বিপুল বাড়বে। করোনায় রফতানি বাণিজ্যের যে ধস নেমেছে সেটা অনেকটাই কাটিয়ে ওঠা এর মাধ্যমে সম্ভব হবে, আশা করা যায়।
আগেই বাংলাদেশকে তিন হাজারের বেশি পণ্যে শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকার দিয়েছে চীন। ওইসব পণ্যের মধ্যে তৈরী পোশাকসহ বাংলাদশের রফতানি করা প্রধান প্রধান পণ্য না থাকায় তার খুব একটা সুযোগ নেয়া যায়নি। পণ্য রফতানির সুযোগ বাড়ানোর জন্য চীনের সাথে আলোচনা চলছিল। আগে থেকে আশা করা যাচ্ছিল চীনের কাছ থেকে আরো বেশ কিছু পণ্যে শুল্ক ছাড় পাওয়া যাবে। ১৬ জুন চীনের পক্ষ থেকে শুল্ক ছাড়ের ঘোষণাটি আসে। এ ঘোষণায় জানা যায়, চীন সরকার নতুন করে পাঁচ হাজার ১৬১টি বাংলাদেশী পণ্য সে দেশে শুল্কমুক্ত প্রবেশের সুবিধা দেবে। এতে তৈরী পোশাকসহ ১৭টি প্রধান রফতানি পণ্য রয়েছে। এতে করে সহজে সে দেশে আমাদের পণ্য রফতানি বাড়বে। বাংলাদেশকে তারা সর্বমোট আট হাজার ২৫৬টি পণ্য সে দেশে শুল্কমুক্ত প্রবেশ করার সুযোগ দিলো। এই দুর্দিনে চীনের মতো বিশাল একটি বাজারে পণ্য রফতানির সুযোগ অন্যতম বন্ধুত্বের নিদর্শন। বাংলাদেশের সাথে এশিয়ার বৃহৎ দেশটির সম্পর্ক এখন আরো গভীর হবে আশা করা যায়।
চীন এখন পৃথিবীর বৃহৎ উৎপাদক। তারা সস্তায় পণ্য রফতানি করে। সারা বিশ্বে তাদের পণ্য ছড়িয়ে পড়েছে। বাংলাদেশেও তারা বিপুল পণ্য রফতানি করে থাকে। একই সাথে চীনে এখন বিশাল ভোক্তা শ্রেণী সৃষ্টি হয়েছে। বিশ্বের সর্ববৃহৎ ভোক্তা এখন চীন। তাদের ক্রয়ক্ষমতা ঠিক একেবারে উন্নত দেশের সমপর্যায়ের না হলেও আমাদের মতো দেশের চেয়ে অনেক ভালো। তাদের বিশাল বাজারে পণ্যের বেচা এখন একটা লোভনীয় ব্যাপার। চীনের বাজারে পণ্য রফতানিতে আমরা ব্যাপকভাবে পিছিয়ে ছিলাম। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে চীন বাংলাদেশে এক হাজার ২০০ কোটি ডলারের পণ্য রফতানি করে। এর বিপরীতে বাংলাদেশ চীনে মাত্র ১০০ কোটি ডলারের পণ্য রফতানি করে। এই মহামারীর মধ্যে চীনের অর্থনীতি অন্যদের মতো এতটা গতি হারায়নি। তাদের বৃহৎ ভোক্তাবাজার সেখানে অটুট রয়েছে। আমাদের জন্য এই দুঃসময়ে এটা একটা ভালো সুযোগ।
বাংলাদেশের অবকাঠামোখাতে এর আগে চীন বিশাল বিনিয়োগ নিয়ে আসে। এগুলোর কিছু বাস্তবায়িত হয়েছে। অনেকগুলো রয়েছে বাস্তবায়নাধীন। আমাদের রফতানি বাণিজ্য যখন গুটিয়ে আসছে, চীনের কাছ থেকে পাওয়া এই সুযোগ কাজে লাগাতে হবে উত্তমভাবে। এ জন্য প্রধানত দু’দেশের মধ্যে সম্পর্কের মাত্রা যেন কোনোভাবে নেতিবাচক না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। আমাদের জানতে হবে এ অঞ্চলের দেশগুলোর মধ্যে সম্পর্কের বিভিন্ন সমীকরণ রয়েছে। আমাদের তাই এমনভাবে অগ্রসর হতে হবে যাতে অর্থনৈতিক প্রাপ্তিটা বিঘিœত না হয়। বিশেষ করে যারা আমাদের সুযোগ সুবিধা দেবে তাদের আমাদের উচিত মূল্যায়ন করতে হবে। অর্থাৎ কূটনৈতিক ভারসাম্য আমাদের রক্ষা করে চলতে হবে। এখন চীনা বাজারে আমাদের কোন কোন পণ্যের সম্ভাবনা বেশি সেগুলো নিরূপণ করতে হবে। চাহিদার অনুপাতে পণ্য উৎপাদন ও সরবরাহ করা একটা চ্যালেঞ্জ। সরকার ও ব্যবসায়ীদের সমন্বিতভাবে এ ব্যাপারে তৎপর হতে হবে। বন্ধুদের দেয়া এ সুযোগ দেশের স্বার্থে সর্বোচ্চ ব্যবহার করতে হবে।

লেখকঃ বিশেষ প্রতিবেদক শ্যামল বাংলা ডট নেট _| সাবেক কাউন্সিলরঃ বিএফইউজে-বাংলাদেশ ও সদস্য ডিইউজে _|

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম