1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
অক্সফোর্ড খ্যাত শতবর্ষে পা রাখলো আজ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:৫৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
বর্ষবরণে রাজধানীর মানিক মিয়া এভিনিউতে রঙ তুলির আঁচড়ে বাঙালী সংস্কৃতি তুলে ধরতে আয়োজিত  দেশের বড় আল্পনা উৎসব শোলাকিয়া ঈদগাঁহ ময়দানের ঈদুল ফিতরের নামাজ লাখ লাখ মানুষের অংশগ্রহণ ঠাকুরগাঁওয়ে আম বাগানগুলোর গাছে ব্যাপক পরিমাণে আম ঝুলছে ! ঠাকুরগাঁওয়ের সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোতে আনন্দের সীমা নেই! কারণ ভারতের কাছ থেকে ৯১ বিঘা জমি উদ্ধার ! Feelflame Evaluation: Initial Statements ঠাকুরগাঁও জেলা ও বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা বাসিকে ঈদ-উল-ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সাংবাদিক মোঃ মজিবর রহমান শেখ, Onwin bahis adresi nasıl alınır? Hızlı ve Kolay Rehber Site Adres Güncellemesi Onwin bahis sitesi ile oynayarak heyecan dolu oyunlara katılın! En güvenilir ve kazançlı bahis deneyimi Onwin’de sizi bekliyor. আলহাজ্ব  আমজাদ হোসেন মোল্লার উদ্দ্যোগে রাজধানীর রূপনগরে  গরীব, অসহায় পাশাপাশি  বিএনপির নেতা কর্মীদের মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ মাগুরায় রেনেসার উদ্যোগে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত

অক্সফোর্ড খ্যাত শতবর্ষে পা রাখলো আজ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১ জুলাই, ২০২০
  • ১৭৬ বার

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদারঃ
আজ পহেলা জুলাই গর্বের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের(ঢাবি) ৯৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী।শতবর্ষে পা রাখলো ঢাবি।

বাংলাদেশের স্বাধীনতার পূর্বাপর সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলন সংগ্রাম এবং বড় কোনো অর্জনের সাথে অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত ঢাবি।নানা ঘটনার একপর্যায়ে ১৯২১ সালে তদানীন্তন ব্রিটিশ ভারতে অক্সব্রিজ শিক্ষা ব্যবস্থা অনুসরণে স্থাপিত হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

প্রতিষ্ঠার পর থেকেই জ্ঞানের প্রদ্বীপ জ্বেলে চলেছে ঐতিহ্যবাহী এই প্রতিষ্ঠানটি। তৈরি করেছে অসংখ্য জ্ঞানী ব্যক্তি। ঢাবির শিক্ষার্থীদের মধ্যে সমাজসেবক-রাজনীতিবিদ, বিজ্ঞানী থেকে শুরু করে বড় বড় প্রতিষ্ঠানের গবেষক সংখ্যা প্রচুর। দেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ খাতে কর্মরতদের প্রায় অর্ধেকের বেশি ঢাবির শিক্ষার্থী।

সূচনালগ্নে বিভিন্ন প্রথিতযশা বৃত্তিধারী ও বিজ্ঞানীদের দ্বারা কঠোরভাবে মান নিয়ন্ত্রিত হবার প্রেক্ষাপটে প্রাচ্যের অক্সফোর্ড নামে স্বীকৃতি পায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। দেশের প্রাচীন এবং ঐতিহ্যবাহী সর্বোচ্চ এই বিদ্যাপীঠের একটি বিশেষত্ব হলো বাংলাদেশ স্বাধীন করতে এর বিশেষ অবদান ছিল। যেখানে দেশের সরকার বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করে সেখানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করতে বিশেষ অবদান রেখেছিল। অদ্যাবধি যা বিশ্ব দরবারে বিরল ঘটনা।

ঢাবির শিক্ষকবৃন্দ সবচেয়ে বেশি সংখ্যক বাংলাদেশ বিজ্ঞান একাডেমি পদক লাভ করেছেন। কিন্তু শতাব্দীর দ্বারপ্রান্তে এসে নানা কারণে ঢাবির শিক্ষার মান নিয়ে প্রশ্নও তৈরি হয়েছে।তবে আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তির সাথে খাপ খাইয়ে সামনে এগিয়ে যাওয়াকেই চ্যালেঞ্জ হিসেবেই দেখছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন কয়েকজন ভাইস চ্যান্সেলর(ভিসি)।উক্ত বিষয়টি আজকের আমার বিশেষ প্রতিবেদন রিপোর্ট পত্রিকার মধ্যে বিস্তারিত এসেছে সাবেক ( ভিসি-)কয়েকজনের মন্তব্য।
২-.
করোনাভাইরাস কবলিত দিনযাপনের নির্মমতা ও মৃত্যুভীতির মধ্যে শতবর্ষের পথে এগিয়ে চলা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৯৯তম দিবসের তাৎপর্য অন্বেষণ করা সত্যিই কঠিন কাজ। এবারের ১ জুলাই যেভাবে উদযাপিত হওয়ার কথা ছিল তা হচ্ছে না ঠিকই; কিন্তু ব্যাধির সংক্রমণ ভয়ে গৃহবন্দি মানুষের জীবনে স্মৃতির আঙিনায় মুখরিত হয়ে উঠেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস। ৯৯ বছরের পুরোনো প্রতিষ্ঠানটির অগ্রযাত্রা বিস্ময়কর।

যারা এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটি থেকে স্নাতক,স্নাতকোত্তর,এমফিল, পিএইচডি কিংবা ভিন্ন সব ডিগ্রি অর্জন করে এদেশের রাষ্ট্রও সমাজের বিচিত্র কর্মযজ্ঞে নিয়োজিত-সকলেরই রয়েছে এর সঙ্গে আন্তরিক সংযোগ। বিশেষত যেসব গ্র্যাজুয়েট দেশের বাইরে অবস্থান করছেন কিংবা ভাষা-আন্দোলনের উত্তাল মুহূর্ত থেকে তাঁদের প্রিয় ক্যাম্পাসে পদচারণা করেছিলেন তারা আশি বছর বয়সে এসে ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে স্মৃতির মণিকোঠায় ধারণ করে আছেন। এদেশের রাজধানী ঢাকা যেমন একমাত্র শহর,তেমনি এদেশের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় একমাত্র সফল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠদান, গবেষণা, জ্ঞান আদান-প্রদান এবং আন্তর্জাতিক দৃষ্টিভঙ্গি এখনও পর্যন্ত অনন্য।

জরিপ অনুসারে এশিয়া কিংবা বিশ্ববাসীর তালিকায় এই প্রতিষ্ঠানের নাম নিচে কিংবা উপরে থাকার চেয়ে বাঙালির কাছে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রীয় ও সামাজিক মর্যাদা। তবে নিজের প্রতিষ্ঠানের সুনাম সকলেই প্রত্যাশা করেন, সকলেই চান এর মান উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাক। উচ্চশিক্ষার মান নিয়ে গত এক দশক কেবল আলোচনা, সমালোচনা ও সেমিনার হয়েছে। মাঝে মাঝে দীর্ঘনিঃশ্বাস ছেড়েছেন বিশিষ্টজনরা। অবশ্য কার্যকর পদক্ষেপ এখনো পর্যন্ত গৃহীত হয়নি।
৩-.
প্রকৃতপক্ষে শতবর্ষের পথে এগিয়ে চলা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে আমরা দেখতে পাই, মানসম্পন্ন শিক্ষা এবং জ্ঞানসৃষ্টি ও প্রসারের কেন্দ্রস্থল হয়ে উঠেছে এটি। আমাদের দেশে অতীতে রাজনীতির নামে বিবদমান ছাত্র গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ ও রক্তপাতের কারণে সৃষ্ট নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষাকার্যক্রমকে চরমভাবে বিঘ্নিত করত। সেই অবস্থা এখন আর নেই। ছাত্র-ছাত্রীরা বিশ্ববিদ্যালয়ে আসে জ্ঞানার্জনের উদ্দেশ্যে উচ্চশিক্ষা ও গবেষণা করতে। দলীয় রাজনীতিতে সম্পৃক্ত করে তাদের মেধা, মনন বিকাশের দ্বার রুদ্ধ করা একেবারেই অন্যায়। স্বাধীনতার পরে ‘ডাকসু’ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা বেশি মাত্রায় দলীয় লেজুড়বৃত্তি করায় বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম ব্যাহত হয়েছিল। অন্যদিকে স্বৈর-শাসকরা ছাত্র-ছাত্রীদের শিক্ষাজীবন বিনষ্ট করায় সৎ, যোগ্য ও দক্ষ মানবসম্পদ এবং নেতৃত্ব গড়ে না উঠার ফলে দেশ ও জাতি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

এই একবিংশ শতাব্দীতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র রাজনীতির নামে দলীয় লেজুড়বৃত্তি থাকবে না বলেই আমরা মনে করি। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস হবে সবার জন্য উন্মুক্ত। সেখানে সকল দলের ও মতাদর্শের সমন্বয় সাধন হবে।
৪-.
অযথা জোরপূর্বক কাউকে দলীয় লেজুড়বৃত্তিতে অংশগ্রহণে বাধ্য করারও অবকাশ নেই। তবে দেশের সমাজ ও সম্প্রদায়ের মধ্যে নিপীড়ন-বৈষম্যের বিরুদ্ধে এবং মতপ্রকাশের স্বাধীনতার পক্ষে কাজ করা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকদের অবশ্য কর্তব্য বলে আমরা মনে করি। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা প্রথম শ্রেণির অন্যান্য সরকারি চাকরির তুলনায় অনেক কম সুযোগ সুবিধা পাচ্ছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। সেদিকেও মনোযোগ দিতে হবে সরকারকেই।

১৯২১ সালের ১ জুলাই ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বার উন্মুক্ত হয়। সে সময়কার ঢাকার সবচেয়ে অভিজাত ও সৌন্দর্যময় রমনা এলাকায় প্রায় ৬০০ একর জমির ওপর পূর্ববঙ্গ এবং আসাম প্রদেশ সরকারের পরিত্যক্ত ভবনসমূহ ও ঢাকা কলেজের (বর্তমান কার্জন হল) ভবনসমূহের সমন্বয়ে মনোরম পরিবেশে গড়ে ওঠে ঢাবি।

৩টি অনুষদ ও ১২টি বিভাগ নিয়ে একটি আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে এর যাত্রা শুরু হয়। প্রথম শিক্ষাবর্ষে বিভিন্ন বিভাগে মোট ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা ছিল ৮৭৭ জন এবং শিক্ষক সংখ্যা ছিল মাত্র ৬০ জন। ঢাবিকে কেন্দ্র করে এ দেশের মানুষের আশা-আকাঙ্ক্ষা উজ্জীবিত হয়।

লেখকঃ বিশেষ প্রতিবেদক শ্যামল বাংলা – | সদস্য ডিইউজে

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম