1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজরে সাহেদ - দৈনিক শ্যামল বাংলা
মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১১:৩৮ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
যাত্রীবাহি বাসের ধাক্কায় প্রাণ গেল চুয়েটের দুই শিক্ষার্থীর নবীগঞ্জে সাংবাদিকদের সঙ্গে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী সাংবাদিক সাইফুল জাহান চৌধুরীর মতবিনিময় নবীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী বোরহান চৌধুরীর নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের মত বিনিময় সভা ঠাকুরগাঁওয়ে ঐতিহ্যবাহী বৈশাখী মেলাকে আবদ্ধ করার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন চট্টগ্রামের চন্দনাইশে পুকুরে ডুবে ২ শিশুর মৃত্যু তীব্র তাপদাহে রাউজানে পথচারীদের মাঝে সুপেয় পানি বিতরণ মাগুরায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ৬ পরিবারের প্রায় ১৫ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি! ছবি তোলার অপরাধে সাংবাদিক গ্রেফতার, অত:পর মুক্তি নবীনগরে প্রারম্ভিক শিশু বিকাশ বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত মহাকবি আল্লামা ইকবালের ৮৬তম মৃত্যুবার্ষিকী পালন

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজরে সাহেদ

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ১০ জুলাই, ২০২০
  • ১১৬ বার

বিশেষ প্রতিবেদনঃ মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার:

ইচ্ছেমতো করোনা পরীক্ষার সনদ দেওয়া নিয়ে আলোচনায় আসা ধুরন্ধর প্রতারক মোহাম্মদ সাহেদ এখন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কবজায় বলে খবর পাওয়া গেছে। বলা হচ্ছে, গত সোমবার র‌্যাবের অভিযানে তার মালিকানাধীন রিজেন্ট হাসপাতালের রাজধানীর উত্তরা ও মিরপুর শাখা এবং রিজেন্ট গ্রুপের প্রধান কার্যালয় সিলগালা করার পরপরই তাকে হেফাজতে নেয় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী একটি বাহিনী। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পুলিশ ও র‌্যাবের একাধিক কর্মকর্তা গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, সাহেদ তাদের নজরদারিতেই আছেন; কোনোভাবেই পালাতে পারবেন না তিনি। তবে সাহেদ আটক আছেন কি না, সে বিষয়ে গতকাল বুধবার রাতে এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত র‌্যাব-পুলিশের কোনো কর্মকর্তার পরিষ্কার কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

করোনার ভুয়া সনদ দেওয়াসহ বিভিন্ন অভিযোগ এনে গত মঙ্গলবার রাতে সাহেদসহ রিজেন্ট হাসপাতাল ও রিজেন্ট গ্রুপের ১৭ জনের বিরুদ্ধে উত্তরা পশ্চিম থানায় মামলা করেছে র‌্যাব। এ নিয়ে বিভিন্ন অভিযোগে তার বিরুদ্ধে ৩৩টি মামলা হলো। মঙ্গলবারের মামলায় র‌্যাবের অভিযানে আটক ৭ জনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। গতকাল আদালতের মাধ্যমে তাদের ৫ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ।

গণমাধ্যমের অনুসন্ধানে রিজেন্ট হাসপাতালের মালিক সাহেদের বিরুদ্ধে ৬ হাজার মানুষকে কভিড-১৯ টেস্ট না করেই ভুয়া সনদ দেওয়া, প্রতারণা, অর্থ আত্মসাৎ, রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের নাম ব্যবহার করে প্রভাব খাটানোর, এমএলএম (মাল্টি লেভেল মার্কেটিং) ব্যবসার, ঠিকাদারি ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করার, চাকরি দেওয়ার নামে অর্থ আত্মসাৎসহ নানা অপকর্মের তথ্য পাওয়া গেছে। বিভিন্ন জায়গায় নিজেকে আওয়ামী লীগ নেতা পরিচয় দিয়ে নানা সুযোগ নেওয়া সাহেদকে তার নিজ জেলা সাতক্ষীরায় দলীয় কোনো কাজেও দেখতে পাননি নেতাকর্মীরা।

তদন্ত সংশ্লিষ্টদের কাছ থেকে জানা গেছে, সাহেদের বাবার দেওয়া নাম মো. শাহেদ করিম। সেই নামের পাশাপাশি আরেকটি জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরি করেছেন মোহাম্মদ সাহেদ নাম দিয়ে। এ ক্ষেত্রে তিনি পুরান ঢাকার ভুয়া ঠিকানা ব্যবহার করেন।

সাহেদ নিজেকে কখনো পরিচয় দিতেন মেজর ইফতেখার আহম্মেদ চৌধুরী, কখনো কর্নেল ইফতেখার আহম্মেদ চৌধুরী বা মেজর শাহেদ করিম নামে। ব্যবহার করতেন ‘দৈনিক নতুন কাগজ’ পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশকের পরিচয়ও। তথ্য অধিদপ্তর থেকে ইস্যু করা প্রেস অ্যাক্রেডিটেশন কার্ডও আছে তার। তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপকমিটির সদস্য পরিচয় দিতেন। রিজেন্ট হাসপাতাল, রিজেন্ট ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট, রিজেন্ট কেসিএস লিমিটেড, রিজেন্ট আইটি, কর্মমুখী কর্মসংস্থান সোসাইটি ও রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান সাহেদের বহুমুখী প্রতারণা, জালিয়াতি, অর্থ আত্মসাতের ঘটনায় বিস্মিত তদন্তসংশ্লিষ্টরা। তিনি চ্যানেল আইর তৃতীয় মাত্রাসহ বিভিন্ন টক শোতে রাজনৈতিক বিশ্লেষক হিসেবে ‘গুরুত্বপূর্ণ মতামত ও বিশ্লেষণ’ দিতেন। নিজেকে জাহির করতেন ‘অতি আওয়ামী লীগ’ হিসেবে।
সাতক্ষীরা সদরের কামালনগরে জন্ম নেওয়া সাহেদ নবম শ্রেণিতে পড়ার সময় ভাগ্যের অন্বেষণে ঢাকায় চলে আসেন। মিরপুরে এক আত্মীয়ের বাড়িতে থেকে মিরপুরের একটি স্কুল থেকে এসএসসি পাস করেন। তার শিক্ষাগত যোগ্যতা বলতে এটুকুই। সাহেদ সাতক্ষীরা জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাফিয়া করিম (বর্তমানে মৃত) ব্যবসায়ী সিরাজুল করিমের ছেলে। দরিদ্র পরিবারের ছেলে সাহেদ প্রতারণা ও মানুষ ঠকিয়ে এখন শতকোটি টাকার মালিক। অভিযোগ রয়েছে, চারদলীয় জোট সরকারের আমলে যুদ্ধাপরাধী মীর কাশেম আলী ও বিএনপি নেতা গিয়াসউদ্দিন আল মামুনের সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠতা ছিল। সেই সময় বহুল আলোচিত ‘হাওয়া ভবনে’ও তার অবাধ যাতায়াত ছিল। ২০০৭ সালে জরুরি অবস্থা জারির পর গিয়াস উদ্দিন আল মামুনের সঙ্গে ২ বছর কারাভোগ করেন সাহেদ। ২০১১ সালে ধানম-ির ১৫ নম্বর সড়কে একটি এমএলএম কোম্পানি খোলেন তিনি, যার নাম ছিল বিডিএস ক্লিক ওয়ান। মূলত এই এমএলএম কোম্পানির মাধ্যমেই তার উত্থান শুরু। এমএলএম কোম্পানি খুলে ৫০০ কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। তখন সাহেদ নিজেকে মেজর ইফতেখার করিম চৌধুরী নামে পরিচয় দিতেন। এই পরিচয় দেওয়ায় তার বিরুদ্ধে ধানমন্ডি থানায় দুটি ও বরিশালে একটি মামলা রয়েছে। মামলার পর কয়েক বছর তিনি ভারতের বারাসাতে সপরিবারে আত্মগোপন করে থাকেন। পরে নানা কৌশলে মামলাগুলো থেকে জামিন নিয়ে দেশে ফিরে এসে নতুন কারবার শুরু করেন।

বিডিএস কুরিয়ার সার্ভিস নামে একটি প্রতিষ্ঠানে চাকরি দেওয়ার নামে অনেকের কাছ থেকে সাহেদ কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেন। এ কারণে তার বিরুদ্ধে উত্তরাসহ বেশ কয়েকটি থানায় ৮ মামলা হয়েছে। মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক বিমানবন্দর শাখা থেকে ৩ কোটি টাকা ঋণ নেন সাহেদ। সেখানে দাখিল করা নথিপত্রে নিজেকে কর্নেল (অব.) ইফতেখার আহম্মেদ চৌধুরী পরিচয় দেন। এই ভুয়া পরিচয় দিয়ে কাগজপত্র দাখিল করায় তার বিরুদ্ধে আদালতে দুটি মামলা চলছে।

সাহেদ প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার সঙ্গে তোলা ছবি তার ফেইসবুকের কভার ফটো করেছেন, যা গতকালও ছিল। এ ছাড়া তার ফেইসবুকে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির অনেক কেন্দ্রীয় নেতার এবং মন্ত্রী, রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি, আমলা ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তাদের সঙ্গে তার অসংখ্য ছবি রয়েছে। অনুসন্ধানে জানা গেছে, এসব ছবি ব্যবহার করে সাধারণ মানুষকে হুমকি-ধামকি দিতেন সাহেদ। সাহেদের উত্তরার রিজেন্ট গ্রুপের প্রধান কার্যালয় ছিল একটি টর্চার সেল। সেখানে বন্দুকধারী বডিগার্ড রাখতেন তিনি। অফিসে লাঠিসোঁটা রেখে লোকজনকে ধরে নিয়ে নির্যাতন করতেন।

অনুসন্ধানে আরও জানা গেছে, সাহেদ উত্তরার ১১ নম্বর সেক্টরের ১৭ নম্বর সড়কের ৩৮ নম্বর বাড়িতে ২০১০ সালে স্থাপন করেন রিজেন্ট হাসপাতাল। মিরপুরের শাখাটি তারও আগের। যার কোনোটির বৈধ সনদ ছিল না। প্রয়োজনীয় চিকিৎসক, নার্স ও যন্ত্রপাতি না থাকার পরও চুক্তিভিত্তিক দালালের মাধ্যমে টঙ্গী সরকারি হাসপাতাল,

বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতাল থেকে রোগী ভাগিয়ে এনে লাখ টাকা আদায় করতেন। উত্তরা পশ্চিম থানার পাশে রয়েছে তার রিজেন্ট কলেজ ও ইউনিভার্সিটি, আরকেসিএস মাইক্রোক্রেডিট ও কর্মসংস্থান সোসাইটি। যদিও এগুলোর সব কটির বৈধ সনদ আছে কি না, তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। অনুমোদনহীন আরকেসিএস মাইক্রোক্রেডিট ও কর্মসংস্থান সোসাইটির ১২টি শাখার মাধ্যমে হাজার হাজার সদস্যের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন তিনি। এর আগেও তিনি উত্তরার ৪, ৭ ও ১৩ নম্বর সেক্টরে অফিস খুলে ভুয়া শিপিং ব্যবসা করেছেন। সেখানে বিনিয়োগের নামে বিভিন্ন জনের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের অর্থ নিয়ে আত্মসাৎ করেন। কিছুদিন আগে তিনি একটি অস্ত্রের লাইসেন্সও নিয়েছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম