1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
আনোয়ারায় সেই আলোচিত প্রধানশিক্ষক সুধাংশু চন্দ্রের অনিয়মও দূনীতির চিত্র মুখ খুলতে শুরু হয়েছে - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১০:২৭ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
বর্ষবরণে রাজধানীর মানিক মিয়া এভিনিউতে রঙ তুলির আঁচড়ে বাঙালী সংস্কৃতি তুলে ধরতে আয়োজিত  দেশের বড় আল্পনা উৎসব শোলাকিয়া ঈদগাঁহ ময়দানের ঈদুল ফিতরের নামাজ লাখ লাখ মানুষের অংশগ্রহণ ঠাকুরগাঁওয়ে আম বাগানগুলোর গাছে ব্যাপক পরিমাণে আম ঝুলছে ! ঠাকুরগাঁওয়ের সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোতে আনন্দের সীমা নেই! কারণ ভারতের কাছ থেকে ৯১ বিঘা জমি উদ্ধার ! Feelflame Evaluation: Initial Statements ঠাকুরগাঁও জেলা ও বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা বাসিকে ঈদ-উল-ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সাংবাদিক মোঃ মজিবর রহমান শেখ, Onwin bahis adresi nasıl alınır? Hızlı ve Kolay Rehber Site Adres Güncellemesi Onwin bahis sitesi ile oynayarak heyecan dolu oyunlara katılın! En güvenilir ve kazançlı bahis deneyimi Onwin’de sizi bekliyor. আলহাজ্ব  আমজাদ হোসেন মোল্লার উদ্দ্যোগে রাজধানীর রূপনগরে  গরীব, অসহায় পাশাপাশি  বিএনপির নেতা কর্মীদের মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ মাগুরায় রেনেসার উদ্যোগে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত

আনোয়ারায় সেই আলোচিত প্রধানশিক্ষক সুধাংশু চন্দ্রের অনিয়মও দূনীতির চিত্র মুখ খুলতে শুরু হয়েছে

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৪ জুলাই, ২০২০
  • ১০৯ বার

নিজস্ব সংবাদদাতা: আনোয়ারা উপজেলার কৈনপুরা উচ্চ বিদ্যালয়ের আলোচিত সেই প্রধান শিক্ষক সুধাংশু চন্দ্র দেবনাথের বিরুদ্ধে স্কুলের বিভিন্ন অনিয়ম ও দুনীর্তি নিয়ে মুখ খুলতে শুরু করেছে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। ওই স্কুলে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকের কাছে আতঙ্কের নাম প্রধান শিক্ষক। এতদিন ভয়ে সেই প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে কেউ মুখ মুখতে সাহস না করলেও তার গাফিলতিও দায়িত্বহীনতার কারণে জেএসসি পরীক্ষার রেজিট্রেশন করতে না পেরে অষ্টম শ্রেণীর ছাত্র দুর্জয় দাশের আত্মহত্যার পর ভুক্তভোগীরা মুখ খুলতে শুরু করেছে। দুর্জয় দাশের মত আরও ৮ জন শিক্ষার্থীকে প্রধান শিক্ষক এবার জেএসসি পরীক্ষার রেজিট্রেশন করেনি বলে জানায় ভুক্তভোগীরা। রেজিট্রেশন না করার বিষয়টি স্বীকার করেছেন বিদ্যালয়ের কেরানি অনুপম রায় ও অষ্টম শ্রেণীর দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষকরা। প্রতিবছর এভাবে অনেক শিক্ষার্থী প্রত্যয়নপত্রের জন্য জন্মনিবন্ধন সংশোধন করতে না পেরে জেএসসি ও এসএসসি পরীক্ষার রেজিট্রেশন করতে পারে না। ফলে তারা পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করা থেকে বাদ পড়ে। এ স্কুলে শিক্ষার্থীদের শিক্ষাজীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলা যেন প্রধান শিক্ষকের অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। একের পর এক শিক্ষার্থীদের শিক্ষা জীবন নিয়ে ছিনিমিননি খেললেও এ বিষয়ে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি নীরব ভূমিকায় রয়েছে বলে জানান ভুক্তভোগীরা।

ভুক্তভোগী অভিভাবক ও শিক্ষার্থীরা জানায়, প্রধান শিক্ষকের কাছে আমরা জিম্মি হয়ে পড়েছি। জন্মনিবন্ধন সংশোধন করতে না পেরে এবার আমাদের ছেলেমেয়েরা রেজিট্রেশন করতে পারেনি। প্রতিবছর এভাবে অনেক শিক্ষার্থী রেজিট্রেশন করতে পারে না। জেএসসি ও এসএসসি পরীক্ষার রেজিট্রেশন করতে গেলে প্রধান শিক্ষক বলে জন্মনিবন্ধন সংশোধন করে না আনলে রেজিট্রেশন করা যাবে না। জন্মনিবন্ধন সংশোধন করতে তথ্যসেবা কেন্দ্রে গেলে সেখানে স্কুল থেকে প্রত্যয়নপত্র আনতে বলে। প্রত্যয়নপত্রের জন্য স্কুলের প্রধান শিক্ষকের কাছে গেলে তিনি প্রত্যয়নপত্র দিতে চায়না। এবং এ দায়ভার তিনি নিতে পারবেনা বলে পরিষ্কার করে জানিয়ে দেয়।। প্রতি বছর অনেক শিক্ষার্থী বিভিন্ন দ্বারে দ্বারে ঘুরেও বয়স সংশোধনী প্রত্যয়নপত্র না পেয়ে রেজিট্রেশন করতে না পারার কারণে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারেনা। এসব বিষয়ে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সদস্যদের অবগত করলেও তারা কোন ব্যবস্থা নেয়না।

তার আরও জানায়, দুর্জয় দাশের আত্মহত্যার ঘটনায় দায়ীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি না হলে প্রতিবছর এভাবে রেজিট্রেশন করতে না পেরে আরও অনেক শিক্ষার্থী ভবিষ্যতে অঘটন ঘটাতে পারে। তখন এর দায়ভার কে নিবে? এজন্য প্রধান শিক্ষক সুধাংশু চন্দ্র দেবনাথকে অপসারণের দাবি জানান ভুক্তভোগীরা।

এছাড়াও প্রধান শিক্ষক সুধাংশু চন্দ্র দেবনাথের বিরুদ্ধে স্কুলের বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। এসব অনিয়ম ও দুর্নীতির মধ্যে রয়েছে ভর্তি বাণিজ্য, জেএসসি ও এসএসসির অতিরিক্ত রেজিস্ট্রেশন ফি আদায়, আর্থিক সুবিধা নিয়ে অকৃতকার্য শিক্ষার্থীদের ভর্তি, শিক্ষার্থীদের দিয়ে নির্দিষ্ট লাইব্রেরী থেকে জোরপূর্বক গাইড বই কিনতে বাধ্য করাসহ নানা অভিযোগ রয়েছে। বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা এসব অভিযোগ করেছেন। শুধু তাই নয় ওই প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সাথে দুর্ব্যবহার করাসহ নানা অভিযোগ রয়েছে। প্রধান শিক্ষকের ব্যাংক এক্যাউন্ট জব্দের দাবিও জানান তারা।

স্কুলের এসব অনিয়ম ও দুর্নীতির বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার ও দুর্নীতি দমন কমিশনে অভিযোগও করেছিলেন বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির বর্তমান সদস্য ডাক্তার নিতাই কর।

অভিযোগ থেকে জানা যায়, কৈনপুরা উচ্চ বিদ্যালয়ের ২০২০ সালের নির্বাচনী পরীক্ষায় ৯৬ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে। তন্মধ্যে ২৪ জন কৃতকার্য এবং ৭২ জন জন অকৃতকার্য হয়। অকৃতকার্য ছাত্রছাত্রীদের কাছ থেকে ৬৩০০ টাকা করে আদায় করে পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ দেয়। অতিরিক্ত টাকা আদায়ের ব্যাপারে ছাত্রছাত্রীদের অভিভাবকদের উল্লেখিত নিয়ম ও দুর্নীতির ব্যাপারে কাউকে না জানানোর জন্য ভয়ভীতি প্রদর্শন করেন অন্যথায় পরীক্ষা বন্ধ করে দেওয়া হবে বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়। স্কুলের এসব দুর্নীতির বিরুদ্ধে তদন্ত পূর্বক যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ ও প্রতিকারের দাবিও জানিয়েছিলেন বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটিং এ সদস্য।

ভুক্তভোগী মহরপাড়া গ্রামের বাসিন্দা ও উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা মোঃ মহিউদ্দিন জানান, গতবছর আমার এলাকার ছোট বোনের জন্মনিবন্ধন সংশোধন করতে স্কুলের প্রধান শিক্ষকের কাছে প্রত্যয়নপত্রের জন্য গেলে তিনি প্রত্যয়নপত্র দেয়নি। বিষয়টি স্কুল কমিটির সভাপতিকে জানালে তিনি সমাধানের আশ্বাস দিলেও পরবর্তীতে কোন সুরাহা হয়নি। পরে প্রধান শিক্ষক শিক্ষা বোর্ডের অজুহাত দেখিয়ে রেজিষ্ট্রেশন করতে পারবে না বলে আমাকে সাফ জানিয়ে দেয়। ফলে আমার ছোট বোনটি এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করত পারেনি।

দুর্জয়ের আত্মহত্যার বিষয় নিয়ে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেইসবুকের এক পোস্টে মন্তব্য করে সমিতির হাট উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক মঈন উদ্দিন বলেন, আমি প্রধান শিক্ষক থাকাকালীন কত শিক্ষার্থীর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের টিসিতে নামের বানান ভুল এবং জন্ম তারিখের অসংগতি নিজ হাতে ঠিক করে দিয়েছি তার সঠিক সংখ্যা জানা নেই। রেজিষ্ট্রেশন করার জন্য বোর্ডে জন্মসনদ বা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের টিসি জমা দিতে হয় না। রেজিষ্ট্রেশন করার জন্য উপযুক্ত জন্ম তারিখ বসিয়ে অনলাইনে রেজিষ্ট্রেশন করে পরে তদানুসারে জন্ম নিবন্ধন করে নেওয়া যেত। প্রধান শিক্ষক হতে হলে কিছুটা কমন সেন্স থাকতে হয়। শিক্ষার্থীর পিতা মাতার ভুল নামও সংশোধন করে কত রেজিষ্ট্রেশন করলাম। আর এই জন্ম তারিখের জন্য একজন শিক্ষার্থীকে আত্মহত্যা করতে হলো! প্রধান শিক্ষক হিসেবে তিনিও এর দায় এড়াতে পারেন না।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম