1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
ট্রাম্পের অভিবাসন নিষেধাজ্ঞা: অভিবাসীদের কর্মসংস্থানের সুবর্ণ সুযোগ - দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৩:১৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:

ট্রাম্পের অভিবাসন নিষেধাজ্ঞা: অভিবাসীদের কর্মসংস্থানের সুবর্ণ সুযোগ

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ১০ জুলাই, ২০২০
  • ১৬১ বার

এডভোকেট মাওলানা রশীদ আহমদঃ

করোনাভাইরাসের ধাক্কায় বেসামাল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প অভিবাসী ও নন-রেসিডেন্টদের ভিসার উপর নিষেধাজ্ঞা এ বছরের শেষ পর্যন্ত বর্ধিত করছেন। হোয়াইট হাউসের এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, এইচ১বি, এইচ২বি’সহ এইচ৪, জে এবং এল ক্যাটাগরির ভিসাও ২০২০ সালের ৩১ ডিসেম্বর অবধি স্থগিত থাকবে। গত ২২ এপ্রিল প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ৬০ দিনের জন্য নন-রেসিডেন্ট ভিসায় যুক্তরাষ্ট্রে আসা কর্মীদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করার একটি নির্বাহী আদেশে স্বাক্ষর করেছিলেন।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের এই আদেশের প্রভাব সবচেয়ে বেশি পড়বে এইচ১বি ভিসা প্রত্যাশীদের উপর।

ইতিমধ্যে এই আদেশকে বিপথগামী ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতির জন্য ক্ষতিকারক উল্লেখ করে গুগল, টেসলার মতো টেক জায়ান্টগুলো বিবৃতি দিয়েছে। মার্কিন শ্রম বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৮-১৯ সালে টেক জায়ান্ট গুগল, ফেসবুক এবং অ্যাপল ১৩,০০০ এরও বেশি উচ্চ দক্ষতা সম্পন্ন আইটি কর্মচারী এইচ১বি (H1B) ওয়ার্ক ভিসাসহ নিয়োগ করেছে।
যদিও হোয়াইট হাউস বলছে, করোনার কারণে অনেক মার্কিন নাগরিক অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন। এমন পরিস্থিতিতে বেকার আমেরিকানদের পাশ কাটিয়ে বিদেশি কর্মীদের কাজের জন্য যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের অনুমতি দেয়া উচিত নয়।

মূলত ট্রাম্প এইচ১বি ভিসা নিয়ে নিষেধাজ্ঞার আদেশটি দিয়েছেন সামনে নির্বাচনের কথা মাথায় রেখে। তার এই আদেশের মানে এই নয় যে, ২০২০-২১ সালের এইচ১বি ভিসা প্রত্যাশীদের আবেদন পুরোপুরি বাতিল করা হয়েছে। ইউএস সিটিজেনশিপ অ্যান্ড ইমিগ্রেশ সার্ভিস এ বছর এপ্রিলের ১ তারিখ পর্যন্ত ২০২০-২১ সেশনে প্রায় ২.৫ লাখ এইচ১বি ভিসা প্রত্যাশীদের আবেদন পেয়েছে। এসব আবেদন থেকে লটােরির মাধ্যমে ৮৫ হাজার প্রার্থী বাছাই সম্পন্ন হয়েছে। বাছাইকৃত ভিসা প্রার্থীদের সামনের অক্টোবরের ১ তারিখ থেকে কাজে যোগ দেওয়ার কথা রয়েছে।

এবার যারা এইচ১বি ভিসার জন্য সিকেক্টেড হবেন তারা মূলত ট্রাম্পের দেয়া এই আদেশের ফলে অক্টোবরের ১ তারিখ থেকে কাজে যোগ দিতে পারবেন না। যেহেতু নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত, সেক্ষেত্রে সিলেক্টেড প্রার্থীরা হয়তো জানুয়ারি থেকে কাজে যোগ দিতে পারবেন। এক্ষেত্রে আবেদনপ্রার্থীসহ তাদের নিয়োগকৃত কোম্পানিগুলো ক্ষতিগ্রস্থ হবেন তিন মাস- অক্টোবর, নভেম্বর, ডিসেম্বর। যদি ২০২০-২১ সেশনের পুরো আবেদন প্রক্রিয়াটি বাতিল করা হতো তাহলে সেটি সকল আবেদনপ্রার্থীকে জানিয়ে দেয়া হতো।

অবস্থা যদি এমন হতো, এপ্রিলে ভিসা আবেদন করার পরে কেউ সিলেক্টেড হয়েছে বলে চিঠি পেয়েছে এবং পরবর্তীতে ভিসা কর্তৃপক্ষ থেকে তাকে জানানো হয়েছে, এইচ১বি বন্ধের কারণে ভিসা বাতিল করা হলো, তখন এ ব্যাপারটি নিয়ে প্রশ্ন তোলা যেত। সিলেক্টেড প্রার্থী তখন বলতে পারতেন আমি চিঠি পেয়েছি, সিলেক্টেড হয়েছি, লটারিতে জিতেছি, আমার ল’ইয়ার খরচ হয়েছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত এমন প্রশ্ন তোলার কোন অবকাশ নেই।

প্রকৃতপক্ষে ট্রাম্প প্রশাসন তিন মাসের জন্য একটি গ্যাপ দিল। এইচ১বি ভিসা যদি সত্যি সত্যিই বন্ধ করে দেয়া হয় তাহলে এখন যুক্তরাষ্ট্রের স্থায়ী বাসিন্দা অথবা নাগরিকদের মধ্যে যারা ব্যাচেলর বা মাস্টার্স করছে তারা এর একটি সুবিধা পাবে।

এইচ – ১ বি ভিসার দক্ষ কর্মীদের অভাব পুষিয়ে নিতে এসব ছাত্রছাত্রীর একাডেমিক পড়াশোনা শেষ করার আগেই চাকরি করার মতো দক্ষতা অর্জন করতে হবে । কোনো কোম্পানিই চাইবে না এন্ট্রি লেভেলের কর্মী নিয়ে হাতে কলমে কাজ শিখিয়ে নিজেদের সময় অর্থ নষ্ট করতে । তাই এসব ছাত্রছাত্রী যেন মিড লেভেল কর্মীর দক্ষতা নিয়ে চাকরিতে যোগ দিতে পারেন সেজন্য তাদের ফাইনাল ইয়ারে তিন – ছয় মাসের বিশেষ কোর্সের ব্যবস্থা করা উচিত । এ বাড়তি অভিজ্ঞতা বা জ্ঞান চুড়ান্ত ইন্টারভিউতে তাদের পক্ষে বাড়তি পয়েন্ট যোগ করতে পারে। যেমনঃ আইটি চাকরির জন্য কেউ যদি নেটওয়ার্কিং বা সাইবার সিকিউরিটি বা ডেটাবেজ অ্যাডমিনিস্ট্রেটর হতে চায়, তবে তার আগ্রহ অনুসারে ওই বিষয়ের ওপর ভেন্ডর সার্টিফিকেট দেওয়া দরকার । ভেন্ডর প্রতিষ্ঠান যেমন মাইক্রোসফট, ওরাকল, নানা খাতে পরীক্ষা নিয়ে সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়।

পিপল অ্যান্ড টেক গত ১৫ বছরে ৬ হাজারের বেশি জনকে সফটওয়্যার টেস্টিং ( Software Testing.) এসকিউএল সার্ভার ডেটাবেজ অ্যাডমিনিস্টেশন ( SOL Server DBA, ) সাইবার সিকিউরিটি, ভেড অপস ( Devops, Amazon, Azure.) এ ডব্লিউ এস স্ট্রাম মাস্টার ( AWS, Serum, Master,) প্রজেক্ট ম্যানেজমেন্ট প্রফেশনাল ( Project Management Professional,) – এর ওপর হাতে কলমে কাজ শিখিয়ে উচ্চ বেতনের চাকরি পেতে সহায়তা করেছে, যাদের সবাই যুক্তরাষ্ট্রের স্থায়ী বাসিন্দা অথবা নাগরিক।

ইতিমধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের বড় করপোরেশন গুলো ট্রাম্পের এ নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলেছে। বড় কোম্পানিগুলোর চাই মুনাফা আর মুনাফার জন্য চাই দক্ষ কর্মী । তারা যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষ কর্মী না পেলে তাদের প্রজেক্টগুলো আউটসোর্স করবে। এতে ক্ষতি যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতিরই হবে এবং এইচ -১ বি বন্ধ করে এর সুফল নিতে হয় তখন আউটসোর্সিং বন্ধের জন্য বিধিনিষেধ আরোপের প্রয়োজন। আবার যারা আউটসোর্সিং করবে না, তাদের ট্যাক্স কমিয়ে দিয়ে উৎসাহ দেওয়া প্রয়োজন । সব মিলিয়ে পুরো ব্যাপারটি অসম্ভব জটিল হয়ে দাঁড়াবে।

গত ২৩ জুন সিএনএনের একটি প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, সিলিকন ভ্যালির উচ্চমর্যাদাসম্পন্ন প্রায় ১০০ জনের একটি প্রতিনিধি দল এরই মধ্যে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এর ঘোষণার বিরুদ্ধে তাদের জোরালো অবস্থান জানিয়ে প্রকাশ্যে অবস্থান নিয়ে বলেছেন, এ আদেশ সিলিকন ভ্যালির সার্বিক অগ্রযাত্রা ব্যাহত করবে।
গুগলের সিইও সুন্দর পিচাই বিবৃতি প্রদানকারীদের মধ্যে অন্যতম।

প্রতি বছর যুক্তরাষ্ট্র মোট ৮৫ হাজার এইচ – ১ বি ভিসা অনুমোদন দেয়। এর মধ্যে ৬৫ হাজার ভিসা পৃথিবীর যে কোনো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ব্যাচেলর ডিগ্রীধারী খুবই দক্ষ কর্মীদের জন্য আর বাকি ২০ হাজার আমেরিকান বিশ্ববিদ্যালয়গুলো, থেকে মাস্টার্স সম্পন্ন করা দক্ষ কর্মীদের জন্য বরাদ্দ থাকে। এইচ- ১ বি ভিসা পুরোপুরি বাতিল করে দিলে আমেরিকান বিশ্ববিদ্যালয়গুলো একদিক দিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হবে । ছাত্রছাত্রীরা কোনো দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার আগে সে দেশের অভিবাসননীতি সম্পর্কে ও খোঁজ খবরাখবর নেন। পড়াশোনা শেষ করে আমেরিকায় কাজ করা কঠিন হয়ে গেলে তারা স্বাভাবিক ভাবেই পড়াশোনার জন্য কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, জার্মানি মতো দেশগুলোর দিকে পা বাড়াবেন। এ কথা কে না জানে আমেরিকা পৃথিবীর মধ্যে আরেকটি পৃথিবী । আমেরিকার সব বিশ্ববিদ্যালয় গবেষণাগার সহ বড় বড় কোম্পানিতে খোজ নিলে দেখা যাবে বিশ্বের সব প্রান্ত থেকে আসা শ্রেষ্ঠ মেধাবী সেখানে কাজ করছেন। এসব মেধাবীর মেধা কাজে লাগিয়েই আমেরিকা আজ এ পর্যায়ে এসেছে।

আমেরিকার সেসব অর্জন বলা চলে পথে বসতে পারে একের পর এক অভিবাসনবিরোধী কর্মকাণ্ডে। এরই মধ্যে চলতি শিক্ষার্থীদের নিয়ে আরেক খেলা শুরু হয়েছে। এখন করোনাভাইরাস এর কারণে বিশ্বের অন্যসব দেশের মতো যুক্তরাষ্ট্রের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গুলোও অনলাইন ক্লাসকে বিকল্প হিসেবে গ্রহণ করছে । এ অবস্থায় বিদেশি শিক্ষার্থীদের যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানের প্রয়োজনীয়তা নেই বলে বলছে আইস। করোনাভাইরাসের কারণে পৃথিবী বেশ খানিকটা উল্টাপাল্টা হয়ে গেলে ও যুক্তরাষ্ট্রের অভিবাসন ব্যবস্থা থেকে এইচ-১ বি পুরোপুরি বাতিল করে দেওয়া এত সহজ নয়। এতে দিনের চলে আসা শৃঙ্খলা হুট করে ভেঙে দিলে যে হিতে বিপরীত হবে তা বুঝতে ট্রাম্প প্রশাসনের কষ্ট হওয়ার কথা নয়।

লেখকঃ সিনিয়র সাংবাদিক, কলামিস্ট, গবেষক, পিএইচডি, গণমাধ্যমব্যক্তিত্ব, ( সম্পাদক ও প্রকাশকঃ গোলাপগঞ্জ বিয়ানীবাজার সংবাদ “)

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম