1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
সাংস্কৃতিক আগ্রাসনে স্বকীয়তা হারাচ্ছে জাতি-(২) - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১০:৩১ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
বাঁশখালী স্টুডেন্টস্ ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের পুরস্কার বিতরণ বর্ষবরণে রাজধানীর মানিক মিয়া এভিনিউতে রঙ তুলির আঁচড়ে বাঙালী সংস্কৃতি তুলে ধরতে আয়োজিত  দেশের বড় আল্পনা উৎসব শোলাকিয়া ঈদগাঁহ ময়দানের ঈদুল ফিতরের নামাজ লাখ লাখ মানুষের অংশগ্রহণ ঠাকুরগাঁওয়ে আম বাগানগুলোর গাছে ব্যাপক পরিমাণে আম ঝুলছে ! ঠাকুরগাঁওয়ের সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোতে আনন্দের সীমা নেই! কারণ ভারতের কাছ থেকে ৯১ বিঘা জমি উদ্ধার ! Feelflame Evaluation: Initial Statements ঠাকুরগাঁও জেলা ও বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা বাসিকে ঈদ-উল-ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সাংবাদিক মোঃ মজিবর রহমান শেখ, Onwin bahis adresi nasıl alınır? Hızlı ve Kolay Rehber Site Adres Güncellemesi Onwin bahis sitesi ile oynayarak heyecan dolu oyunlara katılın! En güvenilir ve kazançlı bahis deneyimi Onwin’de sizi bekliyor. আলহাজ্ব  আমজাদ হোসেন মোল্লার উদ্দ্যোগে রাজধানীর রূপনগরে  গরীব, অসহায় পাশাপাশি  বিএনপির নেতা কর্মীদের মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ

সাংস্কৃতিক আগ্রাসনে স্বকীয়তা হারাচ্ছে জাতি-(২)

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১ জুলাই, ২০২০
  • ২৯৬ বার

আগেই লিখেছি- Culture is the mirror of a nation.
বলা হয় যে, সংস্কৃতি হচ্ছে একটি জাতির আয়না স্বরুপ।
আয়নার কাজ কি? আয়নার কাজ হল হুবহু ব্যক্তির অবয়বকে তার সামনে উপস্থাপন করা। লুকানো অথবা অতিরঞ্জিত করে উপস্থাপন করা নয়।
যদিও আগেই সংস্কৃতি কী এ সম্পর্কে লিখেছি। তারপর ও বলতে চাই…
সংস্কৃতিকে নির্দিষ্ট সংজ্ঞায় সংজ্ঞায়িত করা কঠিন। কারণ সংস্কৃতির বলয় ব্যপক ও জীবনময়।
সংস্কৃতি বলতে বোঝায়, একটা জাতির দীর্ঘদিনের জীবনাচরণের ভেতর দিয়ে যে মানবিক মূল্যবোধ সুন্দরের পথে কল্যাণের পথে এগিয়ে চলে তাই সংস্কৃতি। বিভিন্ন আচার-প্রথা, নিয়ম কানুন, বিশ্বাস সব কিছুই সংস্কৃতির অন্তর্ভূক্ত। একটি জাতির সংস্কৃতি বলতে সামগ্রিকভাবে অবশ্যই তার অস্তিত্ব ঐ জাতির সত্ত্বার মধ্যে থাকতে হবে। আমাদের সংস্কৃতির দিকে তাকালে আমরা কি আমাদের নিজস্বতা খুঁজে পাব?
মোতাহের হোসেন চৌধুরী বলেন, ‘সংস্কৃতি মানে সুন্দরভাবে, বিচিত্রভাবে, মহৎভাবে বাঁচা।’ তাই সমাজ জীবনে সংস্কৃতির গুরুত্ব অত্যধিক।

কিন্তু আমাদের দেশে সংস্কৃতি মানেই যেন বিদেশি বিনোদনের অন্ধ অনুকরণ। আমাদের মনে রাখা প্রয়োজন যে, বিনোদন সংস্কৃতির মূল লক্ষ্য নয়, উপলক্ষ মাত্র। সুস্থ বিনোদন সবার কাছেই গ্রহণীয় এবং প্রশংসনীয়।
মানবতার ধর্ম ইসলামও সুস্থ সংস্কৃতি ও বিনোদনকে সমর্থন ও উৎসাহ প্রদান করে। অনেকেই মনে করেন, ইসলামে বিনোদনের কোনো সুযোগ নেই। ইসলামের গন্ডিতে থাকা মানেই রসহীন জীবনযাপন করা। তাই চিত্তবিনোদনের জন্য ইসলামের চাদর গা থেকে খুলে ফেলা ছাড়া আর কোনো উপায় নেই। এমন ধারণা যাদের, তাদের জ্ঞানের পরিধি সংকীর্ণ। তাদের ধারণা সম্পূর্ণই ভুল।

শিক্ষণীয় বিনোদনের জন্য ভ্রমণ অত্যন্ত ফলপ্রসূ। আল্লাহ তায়ালা ভ্রমণ প্রসঙ্গে বলেন, ‘বলুন, তোমরা পৃথিবীতে পরিভ্রমণ করো, কীভাবে তিনি সৃষ্টি কর্ম শুরু করেছেন।’ (সূরা আনকাবুত : ২০)। বিনোদনের জন্য রাসুল (সা.) সাহাবিদের উৎসাহ দিতেন। তাদের থেকে কোরআন তেলাওয়াত, কবিতা ও বক্তৃতা শুনতেন। শরীরচর্চার তাগিদ দিতেন।
বিনোদনের অজুহাতে নগ্নতার মাতাল নেশায় আচ্ছন্ন তরুণ প্রজন্ম। বাদ নেই আবালবৃদ্ধবনিতাও। আর এর মূলে রয়েছে আকাশ সংস্কৃতির সহজলভ্যতা। বর্তমান বিশ্বে বিজ্ঞানীদের অন্যতম বিস্ময়কর অবদান হচ্ছে আকাশ সংস্কৃতি। এ আকাশ সংস্কৃতির যেমন অবদান রয়েছে, তেমনি এর অপকারেরও শেষ নেই। স্যাটেলাইট প্রযুক্তির অপব্যবহারে পুরো পৃথিবী আজ নিমজ্জিত। চিত্তবিনোদনের শিরোনামে লাগামহীন উগ্র আয়োজনের নিকষ অন্ধকারে হারিয়ে যাচ্ছে। এর বিষক্রিয়া থেকে বেঁচে নেই ৫৬ হাজার বর্গমাইলের লাল সবুজের বাংলাদেশও।

ভারতীয় সাংস্কৃতিক আগ্রাসন দিনদিন বিস্তৃত হয়ে উঠছে।’ শিক্ষাবিদ অধ্যাপক ড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, ‘ভারত প্রাচীন সংস্কৃতির দেশ হলেও আমরা দেশটির পর্নো সংস্কৃতির আগ্রাসনের শিকার। আমাদের রাজনৈতিক নেতৃত্ব, মিডিয়া ব্যবসায়ীরা ওই পর্নো সংস্কৃতি উপভোগ করছে। এতে এদেশের সংস্কৃতি বিকশিত হতে পারছে না। সংস্কৃতি চর্চার নামে এদেশের আইন না মেনে যারা ভারতীয় শিল্পীদের আনছেন, তাদের জবাবদিহি করতে হচ্ছে না। ফলে তারা একের পর এক শিল্পীকে আনছেন।’ প্রসঙ্গত উল্লেখ করা প্রয়োজন যে, বাণিজ্যিক বৈষম্যের মতো বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রেও বৈষম্য দিনদিন বাড়ছে।

ওরা ওদের বস্তাপচা সংস্কৃতি আমাদের ঘরে ঘরে পৌঁছে দিয়ে আমাদের আগামীর প্রজন্মকে ধ্বংস করে দিচ্ছে।
আমরা হারাচ্ছি আমাদের স্বকীয়তা। আমাদের মেয়েরা যখন হাসে তখন কোয়েল মল্লিকের মত হাসে। তাদের কান্না শ্রাবন্তীর মত। তাদের জেদ মিমির মত!
আমাদের ছেলেরা কাটিংয়ে দেব, চলায় জিৎ! স্টাইলে সোহম!
আফজাল হোসাইন মিয়াজী
(শিক্ষক,লেখক, সাংবাদিক)

চলবে…..

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম