আমাদের মূল্যবোধের শেকড় - শ্যামল বাংলা ডট নেট

আমাদের মূল্যবোধের শেকড়

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার

শেয়ার করুন
  • 9
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    9
    Shares

মহান রাব্বুল আলামীন একটি সুনির্দিষ্ট লক্ষ্যপথে চলার অঙ্গীকার নিয়ে সৃষ্টি করেছেন মানবজাতিকে। তিনি মানবজাতির সৃষ্টিরহস্য স্পষ্ট ভাষায় ব্যক্ত করে বলেছেন _ ‘ আমি মানবজাতিকে একমাত্র আমার ইবাদত – উপাসনা করার জন্যেই সৃষ্টি করেছি । মানবজাতি আল্লাহর ইবাদত বন্দেগীতে লিপ্ত থাকবে, অবাধ্য হবে না_ এটাই আল্লাহর নির্দেশ। তবে কীভাবে কোন পদ্ধতিতে ইবাদত – উপাসনা করবে, তা জানতে ও বুঝতে হলে সর্বাগ্রে প্রয়োজন ইলমে অহী কুরআন – সুন্নাহর জ্ঞানঅর্জন করা।

হেরা গুহায় মহানবী হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নিকট অহীর মাধ্যমে সর্বপ্রথম হযরত জিবরাইল আমীন যে ঐশীবাণী নিয়ে আসেন, তা ছিল ” পড় “।
এ থেকে একথা নিশ্চিতভাবে বলা যায়, মানব জীবনে শিক্ষার কোনো বিকল্প নেই। আর এক্ষেত্রে শিক্ষার মানদণ্ড হতে হবে কুরআন ও সুন্নাহ ভিত্তিক। এই শিক্ষাকেই নিশ্চিতভাবে অগ্রাধিকার দিতে হবে ।

কিন্তু আজকের এই মুহুর্তে কালামে ইলাহি ও ইলমে নববীর শিক্ষার্জন কয়েকজের ভাগ্যে জুটছে, তা খতিয়ে দেখার সময় এসেছে । হিসাব কষলে দেখা যাবে এর সংখ্যা একেবারেই নগন্য । আর প্রতিনিয়ত এই সংখ্যাও হ্রাস পাচ্ছে অত্যন্ত আশংকাজনক হারে। যা মুসলমানদের জন্য একটি দূঃসংবাদ ছাড়া আর কিছু নয়। ইংরেজ বেনিয়াদের ষড়যন্ত্রের শিকার মুসলিম জাতির মাঝে হাতেগোনা যে কয়জন শিক্ষার্থী আজ এ শিক্ষার দিকে পা বাড়াচ্ছে, তাদেরকেও সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে । তবে যারাই এ জ্ঞানর্জনের পথে পা বাড়াবে তাদের মনে রাখতে হবে, এ জ্ঞান অর্জনে বাধা আসবে প্রতি কদমে । সমস্ত প্রতিকূলতাকে জয় করতে দৃঢ় সংকল্প নিয়ে। এ সম্পর্কে মহামনীষীগণ বলেন- ” বিদ্যা হল মান- সম্মানের নিকুঞ্জ বা চাবিকাঠি । অসম্মান বা কলুষতার ধরা- ছোঁয়া – নেই তার মাঝে । তবে এই বিদ্যাকে হাতের নাগালে পেতে হলে কষ্ট স্বীকার করতে হয় প্রচুর, এ সময় মান- সম্মান কামনা করা নিতান্তই বোকামি।

ইলম অর্জনের জন্য অনেক কিছুই কুরবানি করতে হয়। ত্যাগ করতে হয় জন্মভূমির মায়া – মমতা। বলা হয়ে থাকে যে, মহানবী হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন _ ‘ তোমরা জ্ঞানার্জন কর, তার জন্য যদি সুদুর চীন দেশেও যেতে হয় তবুও ‘। রাসুলুল্লাহ সাঃ ইরশাদ করেন – ‘ তোমরা জ্ঞানার্জন কর দোলনা থেকে কবর পর্যন্ত । তিনি আরও ইরশাদ করেন – ইলম অর্জন করা প্রতিটি মুসলিম নর নারীর ওপর ফরজ।

এ সত্যকে আজ উপলব্ধি করতে হবে । এর কোন বিকল্প নেই। ইসলামি শিক্ষা মানবজাতির মুক্তি ও কল্যাণে অনস্বীকার্য ও অপরিহার্য । আজ সমগ্রবিশ্বে মানবতার ঘরে অন্ধকার বিরাজ করছে । মানবচরিত্রে নেমে এসেছে এক চরম অধ:পতন ও মহা বিপর্যয়। এর অন্যতম কারণ হলো, ইসলাম বিমূখ শিক্ষাগ্রহণ।
অথচ রাসুলুল্লাহ সাঃ ইরশাদ করেন _ ” তোমাদের মধ্যে সর্বোত্তম ওই ব্যক্তি, যিনি নিজে কুরআনের শিক্ষা গ্রহণ করেন এবং অপরকে কুরআনের শিক্ষা দান করেন । অন্য এক হাদিসে ঘোষিত হচ্ছে – যে ব্যক্তি অহীর জ্ঞানর্জন থেকে বঞ্চিত রয়ে গেল, তার বাস যেন তিমির আধাঁরে ‘। এ জন্যে প্রতিটি মুসলিম নাগরিকের চরম চাওয়া ও পরম পাওয়ার বিষয় হওয়া উচিত একটাই। আর তা হল, কালামে ইলাহি ও ইলমে নববীর শিক্ষা গ্রহণ । এ শিক্ষার মাধ্যমেই একজন মানুষকে সুনাগরিক হওয়ার সনদ দেয়া হয়েছে । এ শিক্ষাই মানুষকে সদাচারী ও সুচরিত্রের ধারক ও বাহক হিসেবে গড়ে তোলার গ্যারান্টি দেয়। আর যখন একজন মানুষ নিজেকে আদর্শবান, চরিত্রবান, হিসেবে দাবি করার সাহস রাখে, তখনই তাকে ” আশরাফুল মাখলুকাত ” এর ভূষণে ভূষিত করা যায়। তাই প্রয়োজন প্রতিটি মানুষ নিজেকে চরিত্রবান, আদর্শবান ও সুনাগরিক হিসেবে গড়ে উঠা।

আর এই আদর্শ নাগরিক ও উন্নত চরিত্র গঠনের অন্যতম পূর্বশর্ত হল, কালামে ইলাহি ও ইলমে নববীর জ্ঞানর্জন করা।
কুরআন ও সুন্নাহর এই অমূল্য জ্ঞানর্জনের প্রথমেই যে জিনিসটি প্রয়োজন, তা হল, উত্তম পরিবেশ ও উপযুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। আর মানবচরিত্র গঠনের লক্ষ্যেই এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে পৃথিবীর সবদেশে সবকালে। এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জন্ম দিয়েছে যুগশ্রেষ্ট চরিত্রবান লোকদের ।

মুক্তাকী, পরহেজগার ও চরিত্রবান মানুষ সৃষ্টি, সমাজ গঠন ও সমাজ উন্নয়নের তাগিদ অনুভব করেই মুখলিস উলামায়ে কেরামের একটি অনন্য দল প্রতিষ্ঠা করেছিলেন উপমহাদেশের ইতিহাসে এক যুগান্তকারী শিক্ষা কারিকুলাম ও আন্দোলন । বক্ষমান নিবন্ধে এই প্রতিষ্ঠানটির ইতিহাস, ঐতিহ্য ও অবদান আলোচনার পাশাপাশি এ ধরনের ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের উৎস – উৎপত্তি সন্ধান এবং প্রাসঙ্গিক কিছু বিষয়ের ওপর আলোকপাতই মূল লক্ষ্য। আশা করি এর মাধ্যমে পাঠকের মনে এর ইতিহাস ঐতিহ্যের সাথে সাথে এই ধরনের প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা সৃষ্টিতে সক্ষম হবে।
ইসলামি শিক্ষার প্রচার ও প্রসারে যেহেতু উপমহাদেশের মাদ্রাসাগুলোর অবদান সবচেয়ে বেশি । ভাই লেখার শুরুতে মাদ্রাসার উৎস সন্ধান এবং বিস্তার লাভের সংক্ষিপ্ত চিত্র তুলে ধরার প্রয়াস পাচ্ছি।

মাদ্রাসা উৎস সন্ধান :

মসজিদ থেকে মাদ্রাসার প্রথম সূচনা বা উৎপত্তি । মসজিদে নববীর চত্বরকেন্দ্রিক সুপ্রসিদ্ধ যে বিদ্যানিকেতনটি গড়ে উঠেছিল, ইতিহাস তাকে ” সুফফা ” নামে অভিহিত করেছে।
এই বিদ্যানিকেতন বা মাদ্রাসায় যেসব সাহাবায়ে কেরাম সীমাহীন ত্যাগ ও কষ্ট স্বীকার করে নিজেদের নাম লিপিবদ্ধ করেছিলেন, ইতিহাস আজো তাদেরকে ” আসহাবে সুফফা ” নামে অভিহিত করে। এ পরিচয়েই তারা ভাস্কর হয়ে থাকবেন কিয়ামত পর্যন্ত । এই মাদ্রাসার ছাত্রদের জন্য শিক্ষক ছিলেন নিদিষ্ট। ইসলামের প্রচার ও প্রসার বা দাওয়াত ও তাবলীগের জন্য ” মুবাল্লিগ ” বা প্রচারকের প্রয়োজনীয়তা দেখা দিলে সর্বাগ্রে এখনকার ছাত্রদেরই প্রেরণা করা হত দরবারে রিসালাতের পক্ষ থেকে।

রাসুলুল্লাহ সাঃ এর কাছে শিক্ষার স্থান ছিল সবকিছুর উর্ধ্বে। তার জীবনের একটি ঘটনা থেকেই শিক্ষার প্রতি তার গুরুত্ব ও শ্রেষ্টত্বের বিষয়টি অনুধাবন করা যায়। রাসুলুল্লাহ সাঃ একদিন মসজিদে নববীতে এসে সাহাবায়ে কেরামের দুটি দল প্রত্যক্ষ করলেন । এক
দলকে দেখলেন, তিলাওয়াত ও ইবাদতরত অবস্থায় । আর অপর একটি দলকে পেলেন

কুরআন নিয়ে পরস্পর আলোচনা ও গবেষণারত অবস্থায় । অবস্থা প্রত্যক্ষ করে তিনি ইরশাদ করলেন _ নিশ্চয় আমি প্রেরিত হয়েছি শিক্ষকরুপে “। অতঃপর তিনি কুরআন শিক্ষার আসরে বসে পড়লেন ।

হিজরি চতুর্থ শতাব্দী পর্যন্ত ইসলামি শিক্ষা – দীক্ষার কার্যক্রমটা মসজিদ কেন্দ্র করেই সম্পাদিত হয়ে আসছিল। তখনকার সময়ে এমন কোন মসজিদ পাওয়া কঠিন ছিল, যাকে কেন্দ্র করে কোন মাদ্রাসা বা মক্তব গড়ে উঠেনি। মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠার এই রেওয়াজটি সে সময় এতো ব্যাপকতা ও জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিল যে, কোথাও মসজিদ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে অথচ তাকে কেন্দ্র করে মাদ্রাসা ও মক্তব প্রতিষ্ঠিত হয়নি, তা ছিল কল্পনাতীত ব্যাপার। মসজিদ কেন্দ্রীক মাদ্রাসা মক্তব প্রতিষ্ঠার সন্দেহাতীত গ্রহণযোগ্যতা ও মাকবুলিয়্যাতের সেই সিলসিলাটি এখনো আলমে ইসলামের বিভিন্ন দেশে প্রত্যক্ষ করা যায়। যেমনটি দেখা যায় আমাদের এই বাংলাদেশেও।।

লেখকঃ নির্বাহী সম্পাদক দৈনিক আপন আলো | বিশেষ প্রতিবেদক – শ্যামল বাংলা ডট নেট ও টিভি | সাবেক কাউন্সিলর: বিএফইউজে-বাংলাদেশ ও সদস্য ডিইউজে |


শেয়ার করুন
  • 9
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    9
    Shares
  •  
    9
    Shares
  • 9
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.