যুদ্ধাপরাধ থেকে শান্তিবাহিনীকে ছাড় - শ্যামল বাংলা ডট নেট

যুদ্ধাপরাধ থেকে শান্তিবাহিনীকে ছাড়

সাহাদত হোসেন খান

শেয়ার করুন
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    1
    Share

১৯৭১ সালে চাকমারা মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করেছে। ১৯৭১ সালের ২৭ এপ্রিল মুুক্তিবাহিনীর একটি রেকি টিম চাকমাদের জ্ঞাতি ভাই মিজোদের আড্ডায় ঢুকে পড়ে। মিজোরা তখন হাতি কেটে খাওয়ায় ব্যস্ত ছিল। মেজর মীর শওকত আলীর রেকি টিম পালিয়ে আসতে সক্ষম হয়। একইদিন দুপুর ১২টায় ক্যাপ্টেন খালেকুজ্জামানের অবস্থানের ওপর মিজো উপজাতিরা হামলা চালালে তিনি আত্মরক্ষামূলক অবস্থান গ্রহণ করেন। উভয়পক্ষের লড়াই তীব্রতর হয়ে ওঠে। মিজোদের অব্যাহত আক্রমণের মুখে ক্যাপ্টেন খালেকের সহায়তায় লেফটেন্যান্ট মাহফুজ দুই কোম্পানি সৈন্য নিয়ে তৎক্ষণাৎ মিজোদের ওপর পাল্টা আঘাত হানেন। হাজার হাজার মিজোর তীব্র আক্রমণে ক্যাপ্টেন খালেক বিচ্ছিন্নভাবে পিছু হটেন। সশস্ত্র মিজোরা লেফটেন্যান্ট মাহফুজকে ঘিরে ফেলে। শোচনীয় অবস্থায় লেফটেন্যান্ট মাহফুজ সহায়তা পাঠানোর জন্য মেজর মীর শওকতকে অনুরোধ করেন। মেজর শওকতের নির্দেশে ক্যাপ্টেন আফতাব কাদের ও ক্যাপ্টেন খালেক লেফটেন্যান্ট মাহফুজের সাহায্যে অগ্রসর হন। অবস্থার অবনতি দেখে মেজর মীর শওকত মহালছড়ি সদরদপ্তর রক্ষায় সর্বাত্মক শক্তি নিয়োগ করেন। কিন্তু মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিরোধ ব্যর্থ করে দিয়ে সহস্রাধিক মিজো ও দ্বাদশ পাঞ্জাব রেজিমেন্টের দুটি কোম্পানি মর্টার ও মেশিনগান নিয়ে এগিয়ে আসতে থাকে। উভয়পক্ষের মধ্যে তুমুল সংঘর্ষ বেধে যায়। চারদিকে শুধু আগুন আর আগুন। মুক্তিযোদ্ধা অফিসাররা মহালছড়ি সদরদপ্তর রক্ষায় আপ্রাণ চেষ্টা চালান। কিন্তু পাকিস্তানি ও মিজোদের যৌথ হামলার মুখে মুক্তিবাহিনীর পক্ষে টিকে থাকা অসম্ভব হয়ে ওঠে। যুদ্ধে ক্যাপ্টেন আফতাব কাদের শহীদ হন। গোলাবৃষ্টির মধ্যে মেজর শওকত, ফারুক ও সিপাহী আব্বাস ক্যাপ্টেন আফতাবের লাশ গাড়িতে তুলে রামগড় নিয়ে আসেন। ক্যাপ্টেন আফতাবের মৃত্যুতে মুক্তিবাহিনীর মনোবল ভেঙ্গে যায়।

শুধু কি সেদিন? চাকমারা বহুবার মুক্তিবাহিনীর ওপর হামলা করেছে। প্রতিশোধের আশংকায় চাকমা রাজা ত্রিদিব রায় মুক্তিযুদ্ধের পর পর পাকিস্তানে পালিয়ে যান। আজীবন তিনি পাকিস্তানে কেবিনেট মন্ত্রীর মর্যাদা ভোগ করেছেন। পাকিস্তানে তার মৃত্যু হয়েছে। চাকমারা শুধু মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করেছে তাই নয়, স্বাধীন বাংলাদেশের বিরুদ্ধেও অস্ত্রধারণ করেছে। এত কিছু করার পরও আজ পর্যন্ত আমি কাউকে চাকমাদের স্বাধীনতা বিরোধী বলতে শুনিনি। কেউ কখনো তাদের রাজাকার বলে গালি দেয়নি। স্বাধীনতা বিরোধী চাকমাদের মন্ত্রী বানানোর বিরোধিতা করা হয় না। তাদের গাড়িতে বাংলাদেশের পতাকা উড়ানোর সুযোগ দেয়ার জন্য বিএনপি, জাতীয় পার্টি অথবা আওয়ামী লীগকে খোটা দেয়া হয় না। যত দোষ নন্দ ঘোষ। মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীর গাড়িতে পতাকা উড়ানোর জন্য বিএনপিকে খোটা দেয়া হয়। এককভাবে জামায়াতকে রাজাকার বলে গালি দেয়া হয়। কেন? জামায়াত কি ১৯৭১ সালে পাকিস্তানের ক্ষমতায় ছিল? সবাইকে বাদ দিয়ে শুধু জামায়াতকে মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী হিসেবে চিহ্নিত করার যুক্তি আমার কাছে দুর্বোধ্য।

২০১৯ সালে একটি ভিডিওতে দেখলাম, পার্বত্য চট্টগ্রামের চাকমারা ভারতের সঙ্গে একীভূত হওয়ার আবদার করছে। তারা দাবি করছে, ১৯৪৭ সালের ১৭ আগস্ট পর্যন্ত পার্বত্য চট্টগ্রামে ভারতীয় পতাকা উড়েছে এবং পাকিস্তানি সৈন্যরা ভারতীয় পতাকা নামিয়ে পাকিস্তানি পতাকা উড়িয়ে দেয়। হ্যাঁ, শত্র“ হলেও তারা সত্যি বলেছে। বালুচ রেজিমেন্ট পার্বত্য চট্টগ্রামে পাকিস্তানের পতাকা উড়িয়েছে। নয়তো পার্বত্য চট্টগ্রাম আমাদের হাতছাড়া হয়ে যেতো।
পার্বত্য চট্টগ্রামে চাকমারা তো বলতে গেলে একপ্রকার স্বাধীন। ১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর বিচ্ছিন্নতাবাদী পার্বত্য জনসংহতি সমিতির (জেএসএস) চেয়ারম্যান সন্তু লারমার সঙ্গে শান্তিচুক্তি স্বাক্ষর করা হয়। এ চুক্তির আওতায় বিচ্ছিন্নতাবাদী শান্তিবাহিনী ও সন্তু লারমাকে সাধারণ ক্ষমা করা হয়। ১৯৯৮ সালে শান্তিবাহিনীর এক হাজার ৯৪৯ জন আত্মসমর্পণ করে এবং ৮৭২টি অস্ত্র জমা দেয়। স্বাধীন দেশের বিরুদ্ধে অস্ত্রধারণ এবং গণহত্যা চালালেও যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে শান্তিবাহিনী ও সন্তু লারমার বিচার হয়নি। শুধু কি শান্তিবাহিনী? সিরাজ সিকদারের পূর্ব বাংলার সর্বহারা পার্টি এবং জাসদের গণবাহিনীও বাংলাদেশের বিরুদ্ধে সশস্ত্র লড়াই চালিয়েছে। গণবাহিনীর অন্যতম কমান্ডার হাসানুল হক ইনু মন্ত্রীত্ব পেয়েছেন। তাদেরকে কোন যুক্তিতে যুদ্ধাপরাধের বিচার থেকে অব্যাহতি দেয়া হলো তা আমার মাথায় ঢুকে না। জামায়াতের ৬ জন শীর্ষ নেতা এবং বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীকে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে ফাঁসি দেয়া হয়েছে। তাদের অপরাধ এবং বিচারের স্বচ্ছতা নিয়ে আমি কোনো কথা বলতে চাই না। কিন্তু তারা তো বাংলাদেশের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেননি। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তারা স্বাধীনতাকে মেনে নেন এবং দেশ গঠনে ভূমিকা পালন করেন। নিয়মতান্ত্রিকভাবে তারা রাজনীতি করতেন। তারপরও যদি ধরে নেই যে, যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে তাদের বিচার সঠিক হয়েছে। তাহলে সঙ্গে সঙ্গে এ প্রশ্ন এড়িয়ে যাওয়া সম্ভব নয় যে, যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে শান্তিবাহিনী, পূর্ব বাংলার সর্বহারা পার্টি এবং জাসদের গণবাহিনীর বিচার হবে না কেন।

সিরাজ সিকদারের দলের কর্মকাণ্ড ছিল সশস্ত্র। তাদের সশস্ত্র তৎপরতায় মনোহরদী থানার আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য গাজী ফজলুর রহমানসহ বিপুল সংখ্যক নেতা কর্মী নিহত হয়। রণনীতির কৌশল হিসেবে ১৯৭৩ সালের ২৬ জুলাই বর্তমান মুন্সীগঞ্জ জেলার লৌহজং থানা দখলের মধ্য দিয়ে সর্বহারা পার্টি তাদের বর্ষাকালীন অভিযান শুরু করে। দলটি একই বছরের পহেলা আগস্ট মানিকগঞ্জ মহকুমার ঘিওর থানার জাবরা পুলিশ ক্যাম্প দখল করে। তারপর লুট করা হয় ময়মনসিংহ জেলার ত্রিশাল থানার ধানিখোলা পুলিশ ক্যাম্প, টাঙ্গাইলের পাথরাইল পুলিশ ফাঁড়ি, ফরিদপুরের চাঁদপুর পুলিশ ফাঁড়ি, বরিশালের ইন্দেরহাই ও ভাসানচর ফাঁড়ি। অক্টোবরের প্রথমদিকে মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া থানা দখল করা হয়। নভেম্বরে সিলেটের বালাগঞ্জ থানা, সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা থানা, ডিসেম্বরে কুমিল্লার মতলব থানা ও চট্টগ্রামের চন্দ্রঘোনা থানা দখল করা হয়। ময়মনসিংহের বারহাট্টা থানা, ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ এবং আঠারবাড়ি ও বৈদ্যেরবাজার ব্যাংক লুট করা হয়। মুন্সীগঞ্জের তহুরি স্টেশনে রক্ষীবাহিনীর সঙ্গে সর্বহারা পার্টির সশস্ত্র সংঘর্ষ হয়। ১৯৭৪ সালে বরিশালের বাহুগঞ্জ থানা, ঢাকা জেলার কেরানীগঞ্জে ৮টি পুলিশ ফাঁড়ি, সাভারের শিমুলিয়া পুলিশ ফাঁড়ি, ময়মনসিংহের গফরগাঁও ও সিলেটের ধর্মপাশা থানা এবং পার্বত্য চট্টগ্রামের পারোয়া ফাঁড়ি লুট করা হয়। ১৯৭৪ সালের আগস্টে পটুয়াখালীর বাউফল থানা ও ফরিদপুরের কালকিনি থানার সাহেব রামপুরে রক্ষীবাহিনীর ক্যাম্প তছনছ করা হয়।
চরম বাম নক্সাল ও জাসদের গণবাহিনীর হাতে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের অনেক নেতাকর্মীও নিহত হন। ১৯৭২ সালের ৬ জুন সংসদ সদস্য আবদুল গফুর নিহত হন। তার সঙ্গে ছিল কামাল ও রিয়াজ নামে দুজন দলীয় কর্মী। তারাও নিহত হয়। আবদুল গফুর ১৯৭০ সালের নির্বাচনে খুলনা থেকে পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। ১৯৭৩ সালের ৩ জানুয়ারি নিহত হন সংসদ সদস্য সওগাতুল আলম সগির। তিনি পাকিস্তান জাতীয় পরিষদ নির্বাচনে মঠবাড়িয়া থেকে নির্বাচিত হয়েছিলেন। ১৯৭৩ সালের ৩ মে সংসদ সদস্য নূরুল হক নিহত হন। তিনি ১৯৭০ সালে পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য হিসেবে নড়িয়া থেকে নির্বাচিত হয়েছিলেন। ১৯৭৪ সালের ১০ জানুয়ারি নিহত হন সংসদ সদস্য মোতাহারউদ্দিন আহমদ। তিনি ১৯৭০ সালে ভোলা থেকে প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। সংসদ সদস্য গাজী ফজলুর রহমান নিহত হন ১৯৭৪ সালের ১৬ মার্চ। তিনি ছিলেন নরসিংদী জেলার মনোহরদী থানা থেকে নির্বাচিত প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য। ১৯৭৪ সালের পহেলা আগস্ট সংসদ সদস্য এডভোকেট ইমান আলী নিহত হন। তিনি জাতীয় পরিষদ সদস্য এবং ময়মনসিংহ আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ ছিলেন। ১৯৭৪ সালের ২৭ ডিসেম্বর কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে ঈদের নামাজ পড়ার সময় নিহত হন সংসদ সদস্য গোলাম কিবরিয়া। তিনি ১৯৭০ সালে প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হয়েছিলেন। ১৯৭৫ সালের ২৪ ফেব্র“য়ারি সংসদ সদস্য আবুল খালেক নিহত হন। তিনি প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন নেত্রকোনা থেকে। স্বাধীনতার ঊষালগ্নে এভাবে শুরু হয় হত্যার রাজনীতি।

১৯৭২ সাল থেকে শান্তিবাহিনী সশস্ত্র তৎপরতা চালিয়েছে এবং পার্বত্য চট্টগ্রামকে ‘স্বাধীন’ ঝুমল্যান্ড হিসেবে আখ্যা দেয়। ১৯৭৩ সালের ৭ জানুয়ারি মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমার নেতৃত্বে খাগড়াছড়ির ইটাছড়িতে জনসংহতি সমিতির সামরিক শাখা শান্তিবাহিনী গঠন করা হয়। খাগড়াছড়ি জেলার দীঘিনালা উপজেলার ভিত্তি নামে একটি জায়গায় শান্তিবাহিনীর সদর দপ্তর স্থাপন করা হয়। গোটা পার্বত্য চট্টগ্রামকে ৬টি সামরিক অঞ্চলে ভাগ করা হয় এবং সদর দপ্তরকে একটি বিশেষ অঞ্চল হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। প্রতিটি সেক্টরকে আবার চারটি সাব-সেক্টরে ভাগ করা হয়। প্রতিটি সাব-সেক্টরকে আরো কয়েকটি ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র অঞ্চলে ভাগ করা হয়।
শান্তিবাহিনী গঠনে প্রতিবেশি ভারতের প্রত্যক্ষ হাত ছিল। ‘সিএইচটিঃ এ ভিক্টিম অব ইন্ডিয়ান ইন্টারভেনশন’ শিরোনামে বইয়ের লেখক জয়নাল আবেদীন প্রামাণ্য দলিল ও তথ্য দিয়ে প্রমাণ করেছেন যে, পার্বত্য চট্টগ্রামে পাহাড়িদের বিদ্রোহের প্রধান পৃষ্ঠপোষক হলো ভারত। শান্তিবাহিনী ভারতের সামরিক সহায়তা গ্রহণ করেছে। শান্তিবাহিনী ও জনসংহতি সমিতিকে ভারতের সহায়তা দানের উদ্দেশ্য কেবল বাংলাদেশকে পঙ্গু করে দেয়া নয়, ত্রিপুরার টিএনভি, নাগাল্যান্ডের এনএসসিএন, মিজোরামের এমএনএফ, মনিপুরের পিএলএ ও পিএএম এবং আসামের উলফা গেরিলাদের উৎখাত। এসব গেরিলা গ্র“প ভারতের নাগপাশ থেকে তাদের মাতৃভূমির স্বাধীনতা পুনরুদ্ধারে লড়াই করছে। উত্তর-পূর্ব ভারতীয় উপজাতিদের সঙ্গে চাকমাদের চেহারার মিল থাকায় ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা রিসার্চ এন্ড এনালাইসিস উইং (‘র’) নাগাল্যান্ড, মনিপুর, ত্রিপুরা, মিজোরাম ও অসমের স্বাধীনতাকামী গেরিলা বাহিনীতে শান্তিবাহিনীর অনুপ্রবেশ ঘটায়। ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা এসব স্বাধীনতাকামী গেরিলা গ্র“পের পরিকল্পনা ও তৎপরতার বিস্তারিত বিবরণ সংগ্রহে সাধারণ চাকমাদের ব্যবহার করে।

১৯৭৪ সালে মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমা একদলীয় বাকশালে যোগদান করেন। ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নিহত হলে তিনি গোপনে প্রতিবেশি ভারতে আশ্রয় গ্রহণ করেন এবং সেখান থেকে সশস্ত্র তৎপরতা চালাতে থাকেন। ১৯৭৬ সালে প্রথম একটি পুলিশ ফাঁড়ির ওপর আক্রমণ চালিয়ে শান্তিবাহিনী তাদের অস্তিত্বের জানান দেয়। ১৯৮৩ সালের ১০ নভেম্বর খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গায় ভগবান টিলা নামে একটি জায়গায় প্রীতি গ্র“পের হাতে নিহত হন মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমা। লারমা নিহত হলে তার কনিষ্ঠ ভাই জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় ওরফে সন্তু লারমা দলের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। ১৯৮৫ সালের এপ্রিলে প্রীতি গ্র“পের ২৩৬ জন সদস্য ২৪ পদাতিক ডিভিশনের জিওসি ও চট্টগ্রামের এরিয়া কমান্ডার মেজর জেনারেল এম. নূরুদ্দিন খানের (পরবর্তীতে সেনাবাহিনী প্রধান ও লেফটেন্যান্ট জেনারেল) কাছে আত্মসমর্পণ করে। কিন্তু প্রীতি কুমার চাকমা আত্মসমর্পণ করা থেকে বিরত থাকেন। তিনি তখনো ছিলেন ভারতে।
১৯৯২ সালের ১০ এপ্রিল লোগংয়ে শান্তিবাহিনীর সহযোগী সংগঠন পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ একটি গণহত্যা সংঘটিত করে। বিলুপ্ত বিডিআরের একটি দল ঘটনাস্থলে গেলে নিকটবর্তী পাহাড়ের আড়াল থেকে তাদের ওপর গুলিবর্ষণ করা হয়। বিডিআর পাল্টা গুলি চালায়। এ সময় শান্তিগ্রামের ১১ জন নিহত এবং ৯ জন আহত হয়। ৫৮৭টি ঘর ভস্মীভূত এবং চারটি পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এরকম নৃশংসতার আরো অসংখ্য নজির আছে।
উপজাতীয়দের ভারতে ঠেলে দেয়ার অশুভ উদ্দেশ্যে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করা হয়। ২৬ হাজারের বেশি শরণার্থী ভারত থেকে ফিরে আসায় শান্তিবাহিনী উদ্বিগ্ন হয়ে ওঠে। ১৯৯৬ সালের জুনে নিখিল ত্রিপুরা টাইগার্স ফোর্স (এটিটিএফ) শরণার্থীদের তাদের শিবিরের বাইরে বের না হতে সতর্ক করে দেয়। ইত্তেফাকের বিশেষ প্রতিনিধি শাহজাহান সরদার এসব শরণার্থী শিবির পরিদর্শনকালে সরকারি কর্মকর্তা ও স্থানীয় সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপ করেন। তার সঙ্গে আলাপকালে সবাই চাকমা শরণার্থীদের শিগগির প্রত্যাবাসন দাবি করেন।

এক দেশে বিচারের মানদণ্ড দুরকম হবে কেন। ভারতের ভয়ে শান্তিবাহিনীকে তোয়াজ নোয়াজ করা হয়। আর যাদের কোনো বিদেশি মুরুব্বী নেই তাদেরকে ফাঁসিকাষ্ঠে ঝুলানো হয়েছে। যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে শান্তিবাহিনী, পূর্ব বাংলার সর্বহারা পার্টি ও জাসদের গণবাহিনীর বিচার করা হলে জামায়াতের শীর্ষ নেতাদের বিচার নিয়ে প্রশ্ন উঠতো না। নয়তো আগামী প্রজন্ম প্রশ্ন তুলবে। বিচার না হওয়ায় আজ চাকমারা ভারতে যোগ দিতে চায়।
(লেখাটি আমার ‘জাতীয় ও বহির্বিশ্ব’ থেকে নেয়া। বইটি প্রকাশ করবে আফসার ব্রাদার্স)।


শেয়ার করুন
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    1
    Share
  •  
    1
    Share
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.