আনোয়ারা লন্ডন প্রবাসী হাজী আব্দুস ছালামের ১ম মৃত্যু বার্ষিকী পালিত

আনোয়ারা প্রতিনিধি ::

আনোয়ারা উপজেলা ১নং বৈরাগ ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের লন্ডন প্রবাসী হাজী আব্দুস ছালামের ১ম মৃত্যু বার্ষিকী পালিত হয়েছে। ২০শে মার্চ (শনিবার) সকালে তাহার পরিবারের সদস্যরা কবর জিয়ারত করে তাহার রুহের মাগফিরাত কামনার জন্য আশেপাশের এলাকা হতে প্রায় ৫হাজার মানুষের জন্য মেজবানের আয়োজন করেন। পরিবারের ৩পুত্র সন্তান আব্দুর নূর, আব্দুল আজিজ,আব্দুর রহিম বলেন, আমাদের পিতা আনোয়ারা হতে প্রথম লন্ডন প্রবাসী ছিলেন, তিনি একজন প্রবাসী হয়েও সারা জীবন দেশ,সমাজ ও ইসলামের খেদমত করে গেছেন। তিনি বিদেশ থেকে ছুটিতে এসে এসে নিজ উদ্দ্যোগে প্রতিষ্ঠিত করেছেন বৈরাগ গ্রামে পূর্ব বৈরাগ রহমানিয়া গাউছিয়া সুন্নিয়া মাদ্রাসা, বৈরাগ পশ্চিম পাড়া জামে মসজিদের মুতায়াল্লীর দায়িত্ব পালন করে মসজিদ উন্নয়নে কাজ করেছেন। আজকের পূর্ব বৈরাগ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় যখন শুরুতে বিভিন্ন দাতাদের সহযোগীতা নিয়ে ভিত্তি প্রতিষ্ঠিত হয়ে ছিল তৎকালীন সময়ে স্কুলে পাঁচ গন্ডা জায়গা দিয়ে দাতা সদস্য হিসেবে সহযোগীতা করে স্কুল প্রতিষ্ঠায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছে।

বৈরাগ গ্রামে আল্লাহ্ অলী হযরত আলাউদ্দিন শাহ (রহ:) মাজার জিয়ারত করতে জনগণের সুবিধার জন্য নিজ অর্থায়নে বিলের মধ্য ছোট্ট হাটার পথের আইলকে প্রশস্ত করে বড় রাস্তা তৈরী করে দিয়ে এলাকাবাসীর কাঁছে চিরস্মরণীয় হয়ে আছেন। এছাড়াও মুহাম্মদপুর রাস্তার মাথায় রিজুয়ান মুন্সীর হাটে রাজারে আগত মুসল্লীগণ যাতে নামায আদায় করতে পারে সেজন্য ইবাদত খানা প্রতিষ্ঠিত করেন। মালঘর বাজার মসজিদ, পাঁচসিকদার পুল ফোরকানিয়া মাদ্রাসা, মহালখাঁন বাজার মসজিদের জায়গা অনুদান, পুরাতন ফেরীঘাট ইবাদত খানা সহ আরো সামাজিক বিভিন্ন জনস্বার্থ কাজে নিজ উদ্দ্যোগে এলাকাবাসী সকলের সহযোগীতায় বিভিন্ন সমাজিক ও দ্বীনি প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য আজীবন খেদমত করে গেছেন। এ সমস্ত প্রতিষ্ঠানগুলোর বিনিময়ে আল্লাহপাক যেন তাহাকে জান্নাত দান করেন সেজন্য মরহুমের সন্তানেরা দোয়ার জন্য এলাকাবাসীর কাঁছে আবেদন জানান। মরহুম আব্দুস ছালাম ১৯৩৯সালে জন্ম গ্রহণ করে ২০২০সালে ২০শে মার্চ বার্ধক্য জনিত কারণে ৮১বছর বয়সে মৃত্যু বরণ করেন। মেজবানের আগত রাজনৈতিক, সামাজিক ব্যাক্তিবর্গরা বলেন, হাজী আব্দুস ছালাম সমাজ এবং জনগনের জন্য যে সাহসী ও মহতী ভূমিকা রেখেছেন তা চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে। তিনি জীবদ্দশায় দেশ, সমাজ ও ধর্মীয় মূল্যবোধ প্রতিষ্ঠায় যে অসামান্য কৃতিত্ব রেখে গেছেন তা তরুণ প্রজন্মের জন্য অনুসরণীয় হয়ে থাকবে।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.