ইসলামের দৃষ্টিতে আমাদের স্বাধীনতা ও স্বাধীনতা সুবর্ণ জয়ন্তী

শেয়ার করুন
  • 13
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    13
    Shares

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার |
২৬ মার্চ আমাদের স্বাধীনতা দিবস । এ দেশকে পাকিস্তানি শাসকদের হাত থেকে মুক্ত করার জন্য এ দিন স্বাধীনতা ঘোষণা করা হয় । ১৯৭১ সালে বর্বর পাকিস্তান সেনাবাহিনী ও তাদের এ- দেশীয় দোসররা গণহত্যা কিংবা নারীর সম্ভুব হরণ, লুণ্ঠন, অগ্নিসংযোগের মতো জঘন্য ঘটনা ঘটিয়েছে।
শোষণ – শাসন অপমানের শিকার বাঙালি তখন ভেজা৷ মাটির সোঁদা গন্ধ হৃদয়ে ধারণ করে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল দেশকে শত্রুমুক্ত করার লড়াইয়ে । এ দেশের মুক্তিপাগল জনগণ জীবন বাজি রেখে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল পাকিস্তানি সামরিক বাহিনীর ওপর । দীর্ঘ নয় মাসের মুক্তিযুদ্ধে লাখ লাখ মানুষ নিজের তাজা প্রাণ বিলিয়ে দিয়েছে দেশের জন্য । জানা অজানা বহু মানুষ হারিয়ে গেছে ফিরে না আসার দেশে। বলা হয়েছে, যারা আল্লাহর রাস্তায় জীবন দেন তারা শহীদ । কারণ দেশের জন্য মজলুম জনতার দাবি আদায়ের স্বার্থে লড়াই করারই নামান্তর ।

আল কোরআনে আল্লাহ তায়ালা বলেছেন ” যারা আল্লাহর পথে জীবন দেয় তোমরা তাদেরকে মৃত্যু বলো না বরং তারা জীবিত।
কিন্তু তোমরা তা উপলব্ধি করতে পারো না । ( সুরা বাকারার ১৫৪ আয়াত -)। রাষ্ট্রের রক্ষায় নিয়োজিত লোকদের দায়িত্ব ও তার মধ্যকার সবকিছুর চেয়ে অতি উত্তম । অন্য হাদিসে রাসুলুল্লাহ সাঃ বলেছেন – রাষ্ট্রের সীমানা পাহারা দেওয়া দুনিয়া ও তার মধ্যকার সবকিছুর চেয়ে অতি উত্তম। অন্য হাদিসে রাসুলুল্লাহ সাঃ বলেছেন মানুষের মৃত্যুর পর তার সব আমল বন্ধ হয়ে যায়। ফলে তার আমল আরও বৃদ্ধি পেতে পারে না। তবে ওই ব্যক্তির কথা ভিন্ন যে কোনো রাষ্ট্রের সার্বভৌমত্ব রক্ষার জন্য সীমান্ত পাহারায় নিয়োজিত থাকাবস্থায় মৃত্যুবরণ করে । তার আমল কিয়ামত পর্যন্ত বৃদ্ধি পেতে থাকবে এবং কবরে প্রশ্নত্তর থেকে সে মুক্তি পাবে। ( তিরমিজি, আবুদাউদ -)।

ইসলাম কোনো পরাধীনতা পছন্দ করে না। মহান আল্লাহ বলেন, যে মুক্ত করে তাদের গুরুভার ও শৃঙ্খলা থেকে যা তাদের ওপর ছিল । সুতরাং যারা তার প্রতি বিশ্বাস করে তাকে সম্মান প্রদর্শন করে তাকে সাহায্য – সহযোগিতা করে এবং যে নুর তার সঙ্গে অবতীর্ণ হয়েছে এর অনুসরণ করে তারাই হলো সফলকাম ।
( সুরা- আরাফ আয়াত ১৫৭-)
স্বাধীনতা আমাদের শ্রেষ্ঠ অর্জন।
বাঙালি জাতির চিন্তা, নিদ্রা, স্বপ্নে ছিল শুধু স্বাধীনতা অর্জন। দেশপ্রেমের উদ্দীপনা হৃদয়ে ধারণ করে দেশপ্রেমীরা মৃত্যু উপেক্ষা করে আমাদের শৃঙ্খলা মুক্ত করেছেন । প্রত্যেক মানুষ তার ভূমিষ্ঠ স্থান এবং তার লালনপালনের স্থানটিকে সহজাতভাবেই ভালোবাসে।
কেননা জন্মভূমিকে ভালোবাসা একজন নাগরিকের নৈতিক ও ঈমানী দায়িত্ব । তা ছাড়া এটা রাসুলুল্লাহ সাঃ এর আদর্শ।
মক্কা ত্যাগের সময় প্রিয় নবী রাসুলুল্লাহ সাঃ এর চোখ দিয়ে অঝোর ধারায় পানি ঝরছিল।
তিনি বলেছিলেন হে মক্কা! আমি তোমাকে ভালোবাসি।
কাফিররা যদি আমাকে বের করে না দিত তাহলে তোমাকে ত্যাগ করতাম না। আবার যখন মদিনা থেকে অন্যত্র বের হতেন তখন তাঁর মন কাঁদত। সফর শেষে ফিরে যখন উহুদ পাহাড় দেখতেন তখন খুশি হয়ে যেতেন এবং বলতেন ” এ উহুদ পাহাড় আমাদের ভালোবাসে আমরাও উহুদ পাহাড়কে ভালোবাসি।
( বুখারী, ইবনে কাসির -)

মহান স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী আজ। স্বাধীনতা যে কোনো জাতির সবচেয়ে বড় অর্জন। বাঙালি জাতির জন্যও তা এক মহাসত্যি। বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষিত হয়েছিল এমন একসময় যখন চারদিকে চলছিল পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর তান্ডব। ১৯৭০ – এর নির্বাচনে জরী আওয়ামী লীগের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর অস্বীকৃতি জানায় পাকিস্তানি সামরিক জান্তা। ৭১- সালের ২৫ মার্চ রাতে হানাদাররা শুরু করে ইতিহাসের সবচেয়ে বর্বরতম গণহত্যা । জাতির এই ক্রান্তিলগ্নে ২৬ মার্চের শুরুতেই শেখ মুজিবুর রহমানের পক্ষ থেকে বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা মহান স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ রাষ্ট্রপ্রতি জিয়াউর রহমান দেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন।
৫০তম মহান স্বাধীনতা – বার্ষিকীতে দেশবাসীর প্রতি আমার শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।

লেখকঃ নির্বাহী সম্পাদক দৈনিক আপন আলো | সদস্য ডিইউজে | ও প্রকাশক জ্ঞান সৃজনশীল প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান!৷


শেয়ার করুন
  • 13
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    13
    Shares
  •  
    13
    Shares
  • 13
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.