কাঁচামালের অভাবে আটকে হালদা নদীর পাউবোর প্রকল্প

এম আর আমিন,চট্টগ্রাম

চট্টগ্রাম হালদা নদীর তীর রক্ষা ও বন্যা নিয়ন্ত্রণ প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়নে দেখা দিয়েছে অনিশ্চয়তা।গত দুই বছর ধরে এর নির্মাণ কাজ শুরু হলেও এখনো নির্মাণাধীন রয়েছে।প্রকল্পের বাস্তবায়নে ৬৬% কাজ হলেও আটকে আছে বাকী কাজ।এ প্রকল্পে নির্মাণ কাজ শেষ হয়ার কথা ছিল চলতি বছরের জুন মাসে।
হালদা নদীতে ইঞ্জিন চালিত বোট-নৌকা চলাচল বন্ধ করে দেয়ায় ঠিক মত কাঁচামাল সরবারাহ করতে সমস্যা হচ্ছে।এতে প্রকল্পের কাজ নির্দ্বারিত সময়ে শেষ হতে শংকা দেখা দিছে।
হালদা নদীর এ প্রকল্পের আওতায় রয়েছে প্রায় ১০টি ইউনিয়ন ২টি পৌরসভা।

ঠিকমত বন্যা নিয়ন্ত্রণের অবকাঠামো না থাকাতে প্রতি বছর বর্ষার মৌসুমে এ অঞ্চলের বসিন্দারা নদী ভাঙন আর বন্যায় বিপুল পরিমাণে ক্ষতিগ্রস্ত হয়।তলিয়ে যায় ধানের জমি,ফসল ভরা ক্ষেত আর বসত ভিটা।অনেক বছর অপেক্ষার পর এ অঞ্চলের বাংলাদেশ সরকারের মানুষের ভাগ্য উন্নয়নের জন্য এ প্রকল্প হাতে নেয়া হয়।২০১৮ সালের অক্টোবর থেকে প্রকল্পের কাজ শুরু হয়।এটি সমাপ্তের কার্যকাল ধরা হয়ছে চলতি বছরের জুন মাসে।কিন্তু হালদা নদীতে ইঞ্জিন চালিত বোট নৌকা চলাচলে বন্ধ হওয়াতে কাজের গতিবেগকমে যায়।
তাহাতে স্থানীয়দের কপালে চিন্তার ভাঁজ পরে গেছে।আক্ষেপ করে বলছে এ দুর্গতির শেষ কবে!।

হালদা নদীর উৎপত্তি পার্বত্য অঞ্চলে হওয়ায় বর্ষার এখন সেই হালদা নদীর ভাঙ্গণ রোধে বসছে সিসি ব্লক। বন্যা প্রতিরোধে নির্মিত হচ্ছে বেড়ী বাঁধ। বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড ১৫৭ কোটি টাকা ব্যয়ে হালদা নদীর ফটিকছড়ি-হাটহাজারী অংশে এবং তার উপ-শাখা খাল ধুরং এ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে।

সরেজমিনে পরিদর্শনে দেখা যায়, হালদা নদীর সমিতিরহাট ইউনিয়নের দক্ষিণ নিচিন্তাপুর, ধুরং খালের মুখ, পেলা গাজির বাড়ি, আকবর শাহ বাড়ি, ছাদেক নগর, আরবানীয়া হালদা ব্রীজ এলাকায় দেখা গেছে বেড়ী বাঁধ নির্মাণের কাজ অনেক শেষ হয়েছে। সমিতিরহাট হাজির ঘাটা, রোসাংগীরি ইউনিয়নের শীলের হাট, নাজিরগাট পৌরসভার ফরহাদাবাদ, কুম্ভারপাড় এলাকায় সিসি ব্লক স্থাপনের বেশ কিছু ¯পর্ট সমপন্ন হয়েছে। সুন্দরপুর, আজিমপুর, সুয়াবিল, হারুয়ালছড়ি, পাইন্দং, ভুজপুর, নারায়ণহাট, হাটহাজারীর ফরহাদাবাদ এলাকায এবং ধুরং খালের ফটিকছড়ি পৌরসভার বিভিন্ন অংশে বেড়ী বাঁধ নির্মাণ ও সিসি ব্লক স্থাপনের কাজ চলছে।

এ ব্যাপারে পানি উন্নয়ন বোর্ড চট্টগ্রামের নির্বাহী প্রকৌশলী তয়ন কুমার ত্রিপুরা বলেন, হালদা নদী ও ধুরং খালে বেড়ী বাঁধ নির্মাণ, সিসি ব্লক স্থাপনের কাজ প্রায় ৬৬% শেষ। বাকি কাজও সময়মত শেষ করতে পারবো।
প্রকল্পটি বাস্তবায়নে পানি উন্নয়ন বোর্ডের মাধ্যমে হলদার পাড়ে ও বিভিন্ন এলাকাজুড়ে বেশ কিছু কাজ দৃশ্যমান হচ্ছে।

এ ব্যাপারে পানি উন্নয়ন বোর্ড চট্টগ্রামের সাব ডিভিশনাল অফিসার মো. আরিফ রহমান বলেন, হালদা নদী ও ধুরং খালের তীর রক্ষা ও বন্যা নিয়ন্ত্রণ প্রকল্পের কাজ প্রায় ৬৬% শেষ। আশা করি সময়মত শেষ করতে পারবো।

সমিতির হাট ১৯নং ইউপি চেয়ারম্যান হারুন উর রশিদ ইমন বলেন, এ প্রকল্পের বাস্তবায়ন হলে হালদার ভাঙ্গণ এবং বাঁধ উপছে বন্যার হবে না। প্রতি বছর যা উন্নয়ন কর্মকান্ড করি তা রক্ষা হবে।

ফটিকছড়ি পৌরসভার মেয়র মো. ইছমাইল হোসেন বলেন, ধুরং খালে পাউবোর বাস্তবায়িত প্রকল্পটির কাজ সমপন্ন হলে খালের পাড়ে পর্যটন মুখরিত হবে ।

নাজিরহাট পৌরসভার মেয়র মো. সিরাজুদৌল্লাহ বলেন, হালদা নদীর ভাঙ্গণ আর হালদার পুরাতন সেতু আমাদের দুঃখ। এখন ভাঙ্গণ রোধে সিসি ব্লক হচ্ছে, বেড়ী বাঁধ হচ্ছে। নিঃস্ব মানুষ গুলো নতুন করে স্বপ্ন দেখছে।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.