দেওবন্দ কোনো মাযহাবের আওতায় অখন্ড ভারত চেয়েছে?

দেওবন্দ ফতোয়া দিয়েছে জাকির নায়েক কোনো মাযহাব মানেন না তাহলে দেওবন্দ কোনো মাযহাবের আওতায় অখন্ড ভারত চেয়েছে? সাহাদত হোসেন খান

শেয়ার করুন
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    2
    Shares

অন্যের কথা না হয় নাই বললাম। নিজের কথাই আগে বলি। ইসলামের প্রতি সীমাহীন আবেগ আর ভালোবাসা নিয়ে বড় হয়েছি। মুসলমানদের দুঃখ ও দুর্ভাগ্য আমাকে ব্যথিত করতো। মুসলমানদের গৌরবে আমি পুলকিত হতাম। আমি বরাবর মুসলমানদের শ্রেষ্ঠ জাতি হিসেবে বিবেচনা করতাম। কিন্তু বিশ্বের দিকে তাকালে আমি কষ্ট পেতাম। দেখতাম, দুনিয়া জুড়ে মুসলমানদের ওপর দিয়ে ঝড় বয়ে যাচ্ছে। হাল ধরার মতো কেউ নেই। জ্ঞান বিজ্ঞান ও শিল্প সাহিত্যে মুসলমানরা পেছনে। প্রতি বছর নোবেল পুরস্কারের তালিকায় মুসলিম নাম খুঁজতাম। ছিঁটেফোটা ব্যতিক্রম ছাড়া নোবেল পুরস্কারের তালিকায় কখনো কোনো মুসলিম নাম খুঁজে পেতাম না। মুসলিম ইতিহাসের এমন এক অন্ধকার সময়ে আলোর ঝলক হিসেবে ডা. জাকির নায়েকের আবির্ভাব ঘটে।

হ্যাংলা পাতলা একটি মানুষ। কথা বলতে গেলে জিহ্বা আড়ষ্ট হয়ে আসে। বক্তৃতা করেন ইংরেজিতে। হাজার হাজার মানুষ তন্ময় হয়ে তার বক্তৃতা শোনে। তার পা-িত্য, তার ধীশক্তি, তার মেধা আমাকে মুগ্ধ করতো। নিজেকে তার পাশে রেখে কল্পনা করতাম। খুব সহজে অনুভব করতে পারতাম যে, তিনি হলেন আমাদের সময়ের এক বিস্ময়কর প্রতিভা, মানব জাতির এক শ্রেষ্ঠ সন্তান। তিনি হলেন হতভাগ্য মুসলিম জাতির গর্ব। আমাদের অহঙ্কার। তার মতো প্রতিভার জন্ম হয় হাজার বছরে একবার। আমি তাকে যত দেখতাম তত অবাক হতাম। ভাবতাম, একটি মানুষের স্মৃতিশক্তি এত প্রখর হয় কিভাবে। গল্প শুনলে অবিশ্বাস করতাম। কিন্তু আমি চর্ম চোখে দেখতে পেতাম যে, জাকির নায়েকের যোগ্যতা গল্পকেও হার মানায়। তিনি হলেন এক জীবন্ত কিংবদন্তি। তাকে নিয়ে আমার দুশ্চিন্তা হতো। তিনি ভারতীয়। বুঝতে কষ্ট হতো না যে, ভারত তার ভূমিকায় সন্তুষ্ট হতে পারে না। ভারত কেন, পাশ্চাত্যের তাঁবেদারিতে নিয়োজিত মুসলিম দেশগুলোও তাকে সুনজরে দেখতে পারে না। আমার ধারণা সত্যি প্রমাণিত হয়।

২০১৬ সালের পহেলা জুলাই ঢাকার গুলশানে হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় সন্ত্রাসী হামলা হলে জাকির নায়েকের জীবনে নেমে আসে অনিশ্চয়তার অন্ধকার। ইংরেজি দৈনিক ডেইলি স্টারের একটি রিপোর্টে বলা হয়, এ জঘন্য হামলায় জড়িত একজন সন্ত্রাসী ফেসবুকে জাকির নায়েকের পেইজ ফলো করতো এবং তার বক্তৃতায় প্রভাবিত হয়ে এ সন্ত্রাসী হামলা চালায়। তারপর থেকে জাকির নায়েক দেশান্তরী।
২০২০ সালের ২০ ডিসেম্বর ফেস দ্য পিপলে মুখোমুখি অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের বিশিষ্ট আলেম ড: এনায়েতউল্লাহ আব্বাসী চ্যালেঞ্জ দিয়ে বলেন, তিনি জাকির নায়েকের বহু ওয়াজ শুনেছেন। কিন্তু তার ওয়াজে সন্ত্রাসে উস্কানি দেয়া হয়নি। পরিকল্পিতভাবে ভারত থেকে তাকে বিতাড়িত করার জন্য এটা ছিল একটি অজুহাত মাত্র।

ব্রাহ্মণ্যবাদী ভারত মুসলিম জাকির নায়েকের সঙ্গে কী ধরনের আচরণ করলো তাতে আমি বিস্মিত কিংবা দুঃখিত নই। সুযোগ পেলে ভারত তো তাকে গিলে খাবেই। কিন্তু দারুল উলুম দেওবন্দ কেন তার বিরুদ্ধে ফতোয়া দিলো? দেওবন্দ তো বাংলাদেশের নারীবাদী লেখিকা তাসলিমা নাসরিনের বিরুদ্ধে কাফের ফতোয়া দেয়নি? বরং তাসলিমা নাসরিনের পক্ষে ফতোয়া দিয়েছে। কলকাতার একদল আলেম তাসলিমা নাসরিনের প্রাণদ-ের পক্ষে ফতোয়া দেয়। দেওবন্দ এ ফতোয়ার বিরুদ্ধে পাল্টা ফতোয়া দেয়। শুধু তাসলিমা নাসরিন নয়, দেওবন্দ স্যাটানিক ভার্সেসের কুখ্যাত লেখক সালমান রুশদীর বিরুদ্ধেও ফতোয়া দিতে পারেনি। ১৯৮৯ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল¬াহ খোমেনী সালমান রুশদীর মৃত্যুদ-ের ফতোয়া দেন এবং তাকে হত্যার জন্য ২৫ লাখ ডলার পুরস্কার ঘোষণা করেন।
সালমান রুশদী ভারতীয় বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ লেখক। তার বিরুদ্ধে প্রথম ফতোয়া দেয়ার কথা দেওবন্দের। কিন্তু ফতোয়া দিতে হলো খোমেনীকে। আল¬াহর কাছে কি জবাব দেবে তারা? সালমান রুশদী কোরআনের ৫৩ নম্বর সুরা নজমের ২১ ও ২২ নন্বরে দুটি ভুল আয়াত উলে¬খ করেন।
১৯. তোমরা কি ভেবে দেখেছো লাত ও ওজ্জা সম্পর্কে?
২০. এবং তৃতীয় আরেক (দেবী) মানাত সম্পর্কে?
২১. তাহলে কি পুত্র সন্তান তোমাদের জন্য এবং কন্যা সন্তান আল¬াহর জন্য? এমতাবস্থায় এটা তো খুবই অসঙ্গত বন্টন।
কিন্তু রুশদীর স্যাটানিক ভার্সেসে লেখা হয়:
২১. তারা হলেন উচ্চপর্যায়ের গারানিক (এক ধরনের পাখি)।
২২. তাদের কাছে সাহায্য চাওয়া যায়।

রুশদী দাবি করেন যে, বিশ্বনবীর (সা.) কাছে শেষোক্ত দুটি আয়াত নিয়ে এসেছিল শয়তান এবং জিব্রাইল (আ.) স্মরণ করিয়ে দেয়া মাত্র তিনি আয়াত দুটি প্রত্যাহার করেন। আসলে কোরআন নাজিলে এমন কোনো ঘটনা ঘটেনি। কিন্তু ধর্মদ্রোহী রুশদী মহানবীর (সা.) নবুয়তকে প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য উলে¬খিত দুটি আয়াত জুড়ে দেন। পবিত্র কোরআন অবমাননা করায় রুশদীর বিরুদ্ধে গোটা মুসলিম বিশ্বে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। ইমাম খোমেনী যথার্থভাবে মুসলিম আবেগে সাড়া দেন। আর দেওবন্দ? দেওবন্দ মুসলিম আবেগের বিপরীতে জাকির নায়েকের বিরুদ্ধে ফতোয়া দিয়েছে।

২০০৮ সালের নভেম্বরে লক্ষেèৗতে ভারত সরকারের নিয়োজিত মুফতি আবুল ইরফান মিয়া ফিরাঙ্গি মাহালি জাকির নায়েককে কাফের ঘোষণা করে একটি ফতোয়া জারি করেন এবং তাকে ইসলাম থেকে বহিষ্কার করতে বলেন। তিনি বলেন, জাকির নায়েক কোনো ইসলামি প-িত নন। তার শিক্ষা কোরআনের পরিপন্থী। মুসলমানদের তার বক্তৃতা শোনা থেকে বিরত থাকা উচিত। তিনি তার বক্তৃতায় বিশ্বনবী (সা.) ও তার পরিবারের সদস্যদের অবমাননা করেছেন এবং ইমাম হোসেনের হত্যাকারী ইয়াজিদের প্রশংসা করেছেন। দারুল উলুম দেওবন্দ থেকে ইস্য্কুৃত একটি ফতোয়ার স্মারক নম্বর হলো ১৫৪১/১৩২২=বি/১৪২৯। আরেকটি ফতোয়ার স্মারক নম্বর হলো ৩৫২=৩৬৩বি। দেওবন্দের ফতোয়ায় বলা হয়, জাকির নায়েক হলেন ‘গায়ের মুকালি¬দিন।’ অর্থাৎ যিনি কোনো মাজহাব অনুসরণ করেন না। তাহলে কি প্রশ্ন করা যায় না যে, দেওবন্দ কোনো মাযহাবের আওতায় অখ- ভারত চেয়েছে?
সৌদি আরব ও মালয়েশিয়া জাকির নায়েককে সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় পদকে ভূষিত করেছে। ২০১০ সালে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস ১০০ প্রভাবশালী ভারতীয়ের একটি তালিকা প্রকাশ করে। এ তালিকায় জাকির নায়েক হলেন ৮৯ নম্বর। ২০০৯ সালে তার অবস্থান ছিল ৮২ নম্বরে। আর সেই লোকটি দেওবন্দের কাছে ‘গায়ের মুকালি¬দিন।

ডা. জাকির নায়েক মালয়েশিয়ায় নির্বাসিত। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি তাকে দেশে ফিরে আসার জন্য দুটি শর্ত দেন: (১) তিনি বিজেপি সরকারের সমালোচনা করবেন না। (২) কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসন বাতিলে তাকে সমর্থন দিতে হবে। ২০১৯ সালে ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ ধারা রহিত করে মুসলিম প্রধান কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসন কেড়ে নেয়া হয়। ডা. জাকির নায়েককে এ দুটি শর্ত মেনে নেয়ার প্রস্তাব দিয়ে বলা হয়, তাহলে তিনি ভারতে ফিরে আসতে পারবেন। মুম্বাইয়ে তার দুশো বিঘা জমি, পিস টিভি ও ফাউন্ডেশন ফেরত দেয়া হবে। কিন্তু ডা. জাকির নায়েক ঘৃণাভারে নরেন্দ্র মোদির প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে বলেন, মুসলমানদের ক্ষতির বিনিময়ে তিনি তার অনুকূলে কোনো শর্তে মেনে নেবেন না। আত্মত্যাগের কি বিরল দৃষ্টান্ত! তারপরও তিনি ‘ইহুদি-খ্রিস্টানের দালাল।

নিজের সীমা বুঝে কথা বলা উচিত। বিজ্ঞানী টমাস আলভা এডিশন ২ হাজার জিনিসের আবিষ্কারক। আমার মতো সাধারণ লোকের মুখে তার সমালোচনা বেমানান। তেমনি বেমানান ডা: জাকির নায়েকের সমালোচনা। তার মেমোরি কম্পিউটারের মতো তীক্ষè। ২০২১ সালের জানুয়ারিতে এক ভিডিওতে তার সঙ্গে এক খ্রিস্টানের তর্ক দেখলাম। খ্রিস্টান বাইবেল থেকে উদ্ধৃতি দেয়। জাকির নায়েক খ্রিস্টানের ভুল ধরিয়ে দেন। খ্রিস্টান মানতে চায়নি। জাকির নায়েক খ্রিস্টানের মনোযোগ আকর্ষণ করে বলেন, ভুল শুদ্ধ তিনি তার কাঁধে ঝুলানো বাইবেল খুলে দেখে নিতে পারেন। খ্রিস্টান লজ্জিত হয়। ডা. জাকির নায়েক কী অনন্য প্রতিভা! কিন্তু আমরা তাকে চিনলাম না। (লেখাটি আমার ‘ধর্ম সমাজ ও রাজনীতি’ থেকে নেয়া। বইটি প্রকাশ করেছে আফসার ব্রাদার্স। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ২১১-২১৪ নম্বর স্টলে বইটি পাওয়া যাচ্ছে।)


শেয়ার করুন
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    2
    Shares
  •  
    2
    Shares
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.