মানব রচিত আইন কুফুরি

সাহাদত হোসেন খান

শেয়ার করুন
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    2
    Shares

আমাদের মুসলিম সমাজ নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব সম্পর্কে ওয়াকেবহাল নয়। অজ্ঞতার জন্য তারা মনে করে তাদের ধর্ম ও কিতাব অন্য ধর্মের সমান। ইসলাম হলো আল্লাহর মনোনীত একমাত্র জীবন বিধান এবং ইসলাম ধর্মের পূরিপূর্ণতার মধ্য দিয়ে অন্য ধর্ম ও অন্যান্য আসমানী কিতাবের কার্যকারিতা স্বয়ংক্রিয়ভাবে বিলুপ্ত হয়ে গেছে। আল-কোরআনের বৈশিষ্ট্য হচ্ছে যে, এ ধর্মগ্রন্থ সমগ্র মানব জাতির শাসনতন্ত্র। একটি আইনি গ্রন্থ। কোরআন পাঠ করলে অবশ্যই পূণ্য হবে। তবে পাঠ করাই কোরআনের মূল দাবি নয়। মূল দাবি হচ্ছে কোরআনের শিক্ষা অনুসরণ করা এবং কোরআনের শিক্ষা অনুুযায়ী জীবন গঠন করা। কোরআন ঘোষণা করছে, জমিন যার হুকুম তার। কিন্তু আল্লাহর জমিনে আল্লাহর হুকুম কার্যকর নয়। আমরা রাষ্ট্র পরিচালনা করছি মানুষের রচিত খোদাদ্রোহী ধর্মনিরপেক্ষ আইন দিয়ে। আল্লাহ কি কোথাও বলেছেন যে, তোমরা আমার কিতাব বাদ দিয়ে আমার বান্দার তৈরি করা আইন দিয়ে রাষ্ট্র পরিচালনা করবে? তিনি কি কোথাও বলেছেন, আল-কোরআন শুধু পাঠ করার কিতাব?
কোরআন ঝাড়ফুঁক করার কোনো কিতাব নয়। স্পষ্টত এ আসমানী কিতাব হচ্ছে জীবন বিধান। আল্লাহ আমাদের সৃষ্টি করেছেন। সৃষ্টি করে তিনি তার কর্তব্য শেষ করেননি। কিভাবে আমরা ইহকালে আমাদের জীবন পরিচালনা করবো এবং কিভাবে আমরা পারলৌকিক জীবনে শান্তি লাভ করবো কোরআনে তিনি সেই দিকনির্দেশনা দিয়েছেন। রাষ্ট্র পরিচালনায় কোরআনের পরিবর্তে মানব রচিত আইন গ্রহণ করার অর্থ হলো স্রষ্টা হিসেবে আল্লাহকে অস্বীকার করার শামিল।
ভারতে হিন্দুত্ববাদী বিজেপি ক্ষমতায় এসেছে। তারা রাম রাজত্ব কায়েম করতে চায়। কিন্তু কিভাবে করবে? তারা শুধু মুসলমানদের মেরে কুটে শেষ করে দিতে পারবে। আর কি পারবে? তাদের পক্ষে তাদের ধর্মগ্রন্থ দিয়ে রাষ্ট্র পরিচালনা করা সম্ভব নয়। তাদের ধর্মগ্রন্থ হচ্ছে পৌরাণিক কাহিনী মাত্র। রাষ্ট্র পরিচালনায় গীতা, বাইবেল, তৌরাত অচল। এখানেই অন্য ধর্মের সঙ্গে ইসলামের পার্থক্য। কিভাবে রাষ্ট্র পরিচালনা করতে হবে মহানবী (সাঃ) তার আদর্শ রেখে গেছেন। আমরা স্পষ্টত ইসলামের মূল শিক্ষা থেকে দূরে সরে এসেছি। নিজেকে মুসলমান হিসেবে স্বীকার করলে ব্যক্তি ও রাষ্ট্রীয় জীবনে কোরআনের আইন মানতে হবে। ধর্মনিরপেক্ষ আইন অনুসরণের কোনো সুযোগ নেই। অমুসলিম হলে বাধা নেই। কিন্তু মুসলমান হলে সম্ভব নয়।

মহানবী ছিলেন শ্রেষ্ঠ রাজনীতিবিদ
আমরা সবাই মুসলমান। কিন্তু সমস্যা হলো আমরা ইসলাম সম্পর্কে বুঝি না। ইসলামকে আমরা অন্য ধর্মের সমান করে ফেলি। অন্য ধর্মের জ্ঞান দিয়ে বুঝার চেষ্টা করি। এজন্যই আমাদের হিসাবে গরমিল হয়। ইসলামকে কখনো অন্য ধর্মের সঙ্গে মিলানো যাবে না। মিলবে না। ইসলাম তার নিজের গুণে অনন্য। ইসলাম পূরিপূর্ণ জীবন বিধান। এ ধর্মে দাঁত মাজা থেকে শুরু করে রাষ্ট্র পরিচালনা পর্যন্ত সবই আছে। অন্য ধর্মে আপনি তা পাবেন না। অন্য ধর্মগুলো একমুখী। জগতকে বর্জন করা হলো গৌতম বুদ্ধের আদর্শ। জীব হত্যা মানা, বিয়ে করতে মানা। সংসার বিরাগী হতে হবে। ধ্যানের মধ্যে জীবনের অর্থ খুঁজতে হবে। ইসলাম সম্পূর্ণ বিপরীত শিক্ষা দেয়। ইসলামে চিরকুমার থাকার কোনো বিধান নেই। বৈরাগ্য সাধনের সুযোগ নেই। আপনি বিয়ে করবেন, সংসার ধর্ম করবেন, সব করবেন। বনে জঙ্গলে যাওয়ার কোনো দরকার নেই।
মহানবী (সা.) সম্পর্কে একই কথা প্রযোজ্য। তাকে শুধু নবী মনে করা হলে তার পরিচয় ও ব্যক্তিত্বকে খণ্ডিত করা হবে। তিনি ছিলেন শাসক, সেনাপতি, রাজনীতিবিদ, কূটনীতিক, শিক্ষক এবং সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মহামানব। আমরা রাজনীতিকে এড়িয়ে যাই। আমরা নামাজ-রোজার মধ্যে ইসলামকে সীমাবদ্ধ করে ফেলেছি। মহানবী (সাঃ) যদি শুধু নামাজ-রোজার মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকতেন তাহলে মদিনায় কখনো ইসলামী রাষ্ট্র কায়েম হতো না। তিনি ছিলেন তার সময়ের শ্রেষ্ঠ রাজনীতিবিদ ও শ্রেষ্ঠ রাষ্ট্রনায়ক। রাজনীতি বর্জন মহানবীর আদর্শ নয়।

বদর ও উহুদ যুদ্ধের দিকে তাকালে বুঝা যাবে ইসলাম কী। আল্লাহর রসূল (সা.) সেনাপতি হিসেবে লড়াই করেছেন। মৃত্যুর মুখোমুখি হয়েছেন। উহুদের যুদ্ধে তিনি আহত হয়েছেন। আপনি এবং আমি ইসলাম থেকে কত দূরে বদর ও উহুদের দিকে তাকালেই বুঝতে পারবেন। চলুন আমরা ইসলামকে জানি এবং পূরিপূর্ণ অবয়বে ইসলামকে পালন করি।

রাজনীতিতে আমরা ভিন্নধর্মমুখী
আমি আমাদের সমাজকে দীর্ঘদিন থেকে দেখছি। হিন্দু এবং মুসলমান নিয়ে আমাদের সমাজ। বাংলাদেশে আমরা মুসলমানরা সংখ্যাগরিষ্ঠ। তবে ব্রিটিশ ভারতের চিত্রটা ছিল ভিন্ন। তখন আমরা ছিলাম সংখ্যালঘু। আমরা আমাদের জীবদ্দশায় দুটি রাষ্ট্র দেখেছি। আমাদের প্রবীণরা এক জীবনে দেখেছেন তিনটি রাষ্ট্র। এক জনমে তিনটি রাষ্ট্র দেখার সৌভাগ্য বিরল। আজ থেকে ৫০-৬০ বছর পর আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম শুনলে অবাক হবে যে, এক জনমে তিনটি রাষ্ট্র দেখা অসম্ভব। অথচ আমাদের সময় তাই সত্যি। একটির পর একটি রাজনৈতিক পরিবর্তনের মূলে আছে আমাদের এ অঞ্চলের ধর্মীয় বিভাজন। নবাব সিরাজুদ্দৌলা মুসলিম শাসক না হলে ১৭৫৭ সালে ইংরেজদের কাছে তার পতন ঘটতো না। সংখ্যাগরিষ্ঠ হিন্দু প্রজারা মুসলিম শাসন থেকে মুক্তিলাভে বিদেশি ইংরেজদের স্বাগত জানিয়েছিল। একইভাবে ধর্মীয় বিভাজনে ১৯৪৭ সালে উপমহাদেশ বিভক্ত হয়। একটি জাতির বসবাস হলে উপমহাদেশ কখনো বিভক্ত হতো না। ১৯৪৭ সালের বিভক্তি ১৯৭১ সালে একটি নয়া মানচিত্রের জন্ম দেয়।

বঙ্গদেশ হিন্দু প্রধান হলে ইতিহাস হতো ভিন্ন। মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠতা আমাদের জন্য একদিকে আশীর্বাদ এবং অন্যদিকে অভিশাপ। প্রতিবেশি ভারত আমাদের দেশের জনসংখ্যাগত পরিবর্তন ঘটানোর জন্য নীরবে কাজ করছে। যেদিন এ দেশ মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারাবে সেদিন থেকে শুরু হবে পরাধীনতার নয়া অধ্যায়। আমরা কখনো আমাদের স্বাধীনতাকে হারাতে চাই না। কিন্তু চাইলে কি সব হয়? দুর্গাপূজার দিকে তাকান। কান পেতে শুনুন কি বলে। বলা হয় দুর্গাপূজা আমাদের জাতীয় উৎসব। বাঙালির শাশ্বত সাংস্কৃতিক উত্তরাধিকার। ধর্ম যার যার উৎসব সবার। আজ পর্যন্ত কোথাও জোরালো আওয়াজ উঠতে শুনিনি। প্রতিবাদ করা হয়নি যে, দুর্গাপূজা আমাদের সার্বজনীন জাতীয় উৎসব নয়।
চলচ্চিত্র অভিনেতা আলমগীরকে ধন্যবাদ। তিনি ছাড়া আজ পর্যন্ত কেউ এ চরম অন্যায়ের বিরুদ্ধে মুখ খুলেননি। অভিনেতা আলমগীর আক্ষেপ করে বলেছেন, দুর্গাপূজা সার্বজনীন উৎসব নয়। একটি বিশেষ ধর্মের ধর্মীয় উৎসব। এ উৎসবের সঙ্গে মুসলমানদের কোনো সম্পর্ক নেই। আমরা বলবো কার কাছে। যাদের কাছে আমরা সুবিচার প্রত্যাশা করতে পারি তারাই বলেন, ধর্ম যার যার উৎসব সবার। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্যি যে, আমাদের দুই ঈদের সময় কেউ বলেন না যে, ধর্ম যার যার ঈদ সবার। ইসলাম ধর্মকে আপনি আঘাত দিয়ে কথা বলুন। আপনার কিছু হবে না। কিন্তু হিন্দু ধর্মকে আঘাত দিয়ে কথা বললে আপনার কপালে দুর্ভোগ আছে।
বেশ কিছুদিন ধরে হিন্দুত্ববাদী ইসকনের তৎপরতার কথা শুনছি। আমি জানতাম হিন্দুরাই ইসকনের তৎপরতার সঙ্গে জড়িত। ২০১৯ সালের কোনো এক সময় জগন্নাথ মন্দিরে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে শিক্ষা উপমন্ত্রী নৌফেল অত্যন্ত আবেগের সঙ্গে বলেছেন, বিদেশে অবস্থানকালে তিনি ইসকনের তৎপরতার সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন। তার পিতা মরহুম মহিউদ্দিন চৌধুরী তাকে উচ্চশিক্ষার জন্য রামকৃষ্ণ মিশনে পাঠিয়েছিলেন। আহ, মুসলিম সস্তান হয়ে হিন্দু হওয়ার কি আদিখ্যেতা!

আমাদের মধ্যে শেরে বাংলার উপলব্ধির অভাব
কি হয়েছে আমার জাতির? আমার জাতি কি শেরে বাংলা একে ফজলুল হকের একটি অবিস্মরণীয় উক্তি ভুলে গেছে? শেরে বাংলা সারাজীবন হিন্দুদের বিরুদ্ধে লড়াই করেছেন। তাদের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করছেন। তিনি ছিলেন ইংরেজির ছাত্র। ইংরেজিতে মাস্টার্স করছিলেন। হিন্দুরা বলতো, মুসলমানদের অঙ্কে মেধা নেই। এ অপবাদ ঘুচাতে তিনি ইরেজির পাশাপাশি অঙ্কেও মাস্টার্স করেন। তিনি দেখিয়ে দেন যে, মুসলমানদের অঙ্কে মেধা আছে। শেরে বাংলা অত্যন্ত কাছ থেকে দেখেছিলেন, হিন্দুরা মুসলমানদের ঘৃণা করে। কখনো তাদের মঙ্গল কামনা করে না। মুসলমানদের ক্ষতি হলে হিন্দুরা খুশি হয়। অবিভক্ত বাংলার শিক্ষামন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালনকালে তিনি একথা ভুলে যাননি। তিনি জানতেন, তিনি কখনো বাংলার দুটি সম্প্রদায়কে খুশি করতে পারবেন না। তিনি মুসলমান। তিনি শুধু দেখবেন মুসলমানদের কোনো ক্ষতি হয়ে গেল কিনা। শেরে বাংলা সিদ্ধান্ত গ্রহণে হিন্দু ও মুসলমানদের প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করতেন। তাদের প্রতিক্রিয়া বলে দিতো তিনি ভুল করেছেন কিনা। এ ব্যাপারে তিনি তার আত্মজীবনীতে লিখেছেন, ‘হিন্দু ও মুসলমানদের প্রতিক্রিয়া দেখে আমি আমার কাজকর্মের যথার্থতা যাচাই করি। যদি দেখি হিন্দুরা খুশি তাহলে বুঝতে পারি আমি মুসলমানদের ক্ষতি করেছি। আর যদি হিন্দুদের অসন্তুষ্ট দেখি তাহলে বুঝতে পারি আমি মুসলমানদের ভালো করেছি।’ তিনি আরো বলেছেন, যখনি দেখবে কলকাতার দাদারা আমার প্রশংসা করছে তখনি বুঝবে যে, আমি আমার দেশের বিরুদ্ধে কাজ করছি।
শেরে বাংলার উত্তরসূরি হিসেবে তার কাজকর্মের সঙ্গে আমাদের কাজকর্ম কি মিলে? তিনি যেভাবে তার যেকোনো কাজ ও সিদ্ধান্তের যৌক্তিকতা যাচাই করতেন, আমরা কি কখনো সেভাবে যাচাই করার চেষ্টা করেছি? শেরে বাংলার বোধ কি আমাদের মধ্যে কাজ করে? তাহলে আমরা তার কাছ থেকে কি শিখলাম? তাহলে মহাপুরুষ হয়ে তিনি কেন এ হতভাগ্য জাতির মধ্যে জন্ম নিয়েছিলেন? আব্রাহাম লিঙ্কনকে আমেরিকার ইতিহাসে সবচেয়ে মেধাবী প্রেসিডেন্ট হিসেবে গণ্য করা হয়। এজন্য মার্কিন প্রেসিডেন্টগণ যেকোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণের আগে হোয়াইট হাউজে টানানো লিঙ্কনের ছবির দিকে তাকান। একবার ভেবে দেখেন লিঙ্কন হলে কী করতেন। আপনি কিংবা আমি কি কখনো যেকোনো কাজে শেরে বাংলার উপদেশকে অনুসরণ করেছি? কখনো করিনি এবং এখনো করছি না। জাতি হিসেবে আমরা ধ্বংসের শেষপ্রান্তে এসে দাঁড়িয়েছি। একবার ভাবুন আপনি কে। আপনার ইতিহাস কি। আপনি কেন ইতিহাসের বিপরীতে ছুটছেন। আপনি কেন আত্মহননের পথে ছুটছেন। থামুন। আয়নার সামনে দাঁড়ান। ভাবুন, আপনার জায়গায় শেরে বাংলা আবুল কাসেম ফজলুল হক থাকলে কী করতেন, কী ভাবতেন, কী সিদ্ধান্ত নিতেন।

(লেখাটি আমার ‘ধর্ম সমাজ ও রাজনীতি’ থেকে নেয়া। বইটি প্রকাশ করেছে আফসার ব্রাদার্স। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ২১১-২১৪ নম্বর স্টলে বইটি পাওয়া যায়।)


শেয়ার করুন
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    2
    Shares
  •  
    2
    Shares
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.