মারামারিতে অংশগ্রহণ না করায় নিরহ ড্রাইভারদের মাডার মামলায় আসামী করার অভিযোগ

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) : নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ের নয়াগাঁও গ্রামে আধিপত্য বিস্তার ও কোম্পানির বালূ ভরাটকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনায় উভয় পক্ষের তিনজন নিহত ও ৩০ জন আহত হয়। এতে আলাউদ্দিন পক্ষের সমর আলী ও সাদেক পক্ষের আহম্মদ আলী ও সাইদুল ইসলাম চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

এ ঘটনায় আলাউদ্দিন পক্ষের নিহত সমর আলীর ভাই আব্দুল আলী বাদি হয়ে ১৭জনকে আসামী করে হত্যা মামলা দায়ের করেন। অপর পক্ষের দু’জন নিহতের ঘটনায় নারায়ণগঞ্জ আদালতে মামলা দায়ের করা হয়।

আব্দুল আলীর মামলায় আলাউদ্দিনের পক্ষ না নেওয়ায় মিজান ও আলম নামের ড্রাইভার দুই ভাই পিকআপ চালককে জড়ানো হয়েছে বলে মিজান দাবি করেন।

হত্যা মামলার আসামী হওয়া ভূক্তভোগী মিজান জানান, তিনি ঘটনার সময় ঘটনাস্থল থেকে প্রায় দেড় কিলোমিটার দূরে তার বাড়িতে অবস্থান করেছেন আর বড় ভাই কাজে ছিল।

সংঘর্ষের পর তিনি বাড়ি থেকে বের হন। তিনি দাবি করেন, তার বাড়ি গজারিয়া উপজেলার হোসনদী এলাকা থেকে ১০ বছর আগে জমি ক্রয় করে বাড়ি তৈরি করেন। নয়াগাঁও গ্রামে দুটি পক্ষ হয়ে হামলা ও মামলায় জড়িয়ে আছেন।

তিনি আলাউদ্দিনের পক্ষে অবস্থান না নেওয়ায় তাকে ও তার ভাইকে এ হত্যা মামলায় জড়িয়েছেন। হত্যা মামলা জড়ানোর পর তাদের বাড়ি ছাড়া করে তাদের বাড়িঘরে হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও লুটপাট করে।

বুধবার উচ্চ আদালত থেকে জামিনে বের হয়ে বাড়িতে গিয়ে তিনি দেখতে পান তাদের দুই ভাইয়ের বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাট করে আলাউদ্দিনের লোকজন।

তিনি আরো জানান, আলাউদ্দিনের নেতৃত্বে বাদল, আব্দুল আলী, শাহজাহান, করিম, দেলোয়ার, মঞ্জু, জলিল, নুরতাজ, আমেনা, মীম, রাজিয়া, শাহিন ও ইয়ানবী তাদের বাড়িঘরে হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও লুটপাট করে। এসময় তাদের ঘরে থাকা নগদ ২ লাখ ২০ হাজার টাকা ও ৩ ভরি স্বর্ণলংকার লুট করে নিয়ে যায়।

মিজান আরো জানান, তার ভাই অন্যের জমিতে ঘর তৈরি করে বসবাস করে থাকে । তার ভাইয়ের বাড়িঘরেও লুটপাট করা হয়েছে।

এবিষয়ে মামলার বাড়ি আব্দুল আলীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, মিজান হত্যাকান্ডের সঙ্গে জড়িত থাকায় তার বিরুদ্ধে মামলা দেওয়া হয়েছে।

আলাউদ্দিনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, একজন ড্রাইভার আমার কথা মতো চলতে হবে এটা কোন কথা না। আমি এ মামলার বাদি না। মিজান ড্রাইভার জড়িত থাকায় আসামী করা হয়েছে।

সোনারগাঁও থানার ওসি রফিকুল ইসলাম বলেন, হত্যাকান্ডের বিষয়ে গুরুত্বসহকারে তদন্ত চলছে। কেউ জড়িত না থাকলে কাউকে হয়রানি করা হবে না। জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.