মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে ৬ মাস ধরে চিকিৎসক নেই সেবা বন্ধ

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

জেলার একমাত্র সরকারি মাতৃসেবা প্রতিষ্ঠান গাইবান্ধা মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র। বিগত ছয়মাস ধরে এখানে চিকিৎসক নেই। বর্তমানে কেন্দ্রে কোন চিকিৎসাসেবা দেওয়া যাচ্ছে না। প্রতিদিন গ্রামাগঞ্জ থেকে আসা অসংখ্য গর্ভবতী ও শিশু চিকিৎসা না পেয়ে ফিরে যাচ্ছেন।

গাইবান্ধা জেলা পরিবার পরিকল্পনা কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গতবছরের ১৮ আগস্ট গাইবান্ধা মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রের গাইনী চিকিৎসক (মেডিকেল অফিসার- কিøনিক) আফসারী খানম বদলি হয়ে যান। তারপর সেই পদে চিকিৎসক সুলতানা আজরিন ওই বছরের ৬ ডিসেম্বর কাগজপত্রে যোগদান করেই কর্মস্থল ত্যাগ করেন। তিনি পরবর্তীতে আর ফিরে না আসায় পদটি কার্যত আগস্ট মাস থেকেই শূন্য রয়েছে। ফলে এখানে অপারেশন থিয়েটারও বন্ধ হয়ে গেছে। কোন গর্ভবতীর সিজার অপারেশন হচ্ছে না। আগে যেখানে প্রতিদিন ৩০-৪০টি সিজার অপারেশন হতো এখন তা সম্পূর্ণ বন্ধ।

সরেজমিন কেন্দ্রটিতে গিয়ে দেখা যায়, ২০ শয্যার এই কেন্দ্রের শয্যাগুলো ফাঁকা পড়ে আছে। কোনো রোগী নেই। বহি:বিভাগও ফাঁকা। অন্যান্য কর্মকর্তারা থাকলেও চিকিৎসাসেবা বন্ধ রয়েছে। বন্ধ হয়ে আছে অপারেশন থিয়েটার ও পোস্ট অপারেটিভ কক্ষ। কেন্দ্রে কর্মরত ফার্মাসিস্ট শিশু ও নারীদের সর্দ্দি জ¦রসহ ছোট ছোট রোগের চিকিৎসা দিচ্ছেন। কোন চিকিৎসক সেখানে আর চিকিৎসা দেন না। এখানকার মেডিকেল অফিসার তাছনিম আক্তার তিনমাস ধরে বগুড়ায় প্রশিক্ষণে রয়েছেন। আরেকজন মেডিকেল অফিসার রেদোয়ান ইসলাম এনেসথেসিয়া চিকিৎসক।

কেন্দ্রের কর্মরতরা জানালেন, শুধুমাত্র একজন গাইনী চিকিৎসকের অভাবে কেন্দ্রটি অচল হয়ে আছে। অন্য কর্মচারীরা অলস সময় পাড় করছেন। সমস্যা থাকলে স্বাভাবিক ডেলিভারী করানোর ঝুঁকিও তারা নিতে চান না।

ফলে জেলার দরিদ্র মানুষ এখানে যে চিকিৎসা সুবিধা পেতেন তা বন্ধ হয়ে রয়েছে। তাদের বেসরকারি ক্লিনিক ও হাসপাতালে বেশি টাকা খরচ করতে হচ্ছে। জমিজমা বিক্রি বা ধারদেনা করে তাদের মেটাতে হচ্ছে চিকিৎসা ব্যয়।

এ প্রসঙ্গে গাইবান্ধা জেলা পরিবার পরিকল্পনা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মো. সাইফুল ইসলাম চিকিৎসক সংকটের কথা শিকার করে বলেন, উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে সার্বিক বিষয় জানিয়ে চিঠি দেওয়া হয়েছে। কিন্তু কোন সমাধান পাওয়া যাচ্ছে না। তবে কেন্দ্রে স্বাভাবিক ডেলিভারি চালু আছে।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.