১৯৯৫ সালে ওকলাহোমায় খ্রিস্টান সন্ত্রাসী হামলায় ১৬৮ জন নিহত

সাহাদত হোসেন খান

শেয়ার করুন
  • 3
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    3
    Shares

১৯৯৫ সালের ১৯ এপ্রিল যুক্তরাষ্ট্রের ওকলাহোমা সিটির উপকণ্ঠে আলফ্রেড পি. মুরাহ ফেডারেল ভবনে চরমপন্থী খ্রিস্টানদের বোমা হামলায় ১৬৮ জন নিহত এবং ৬৮০ জনের বেশি আহত হয়। নাইন ইলেভেনের আগে যুক্তরাষ্ট্রে এ বোমা হামলা ছিল অভ্যন্তরীণ বৃহত্তম সন্ত্রাস। মুরাহ ভবনে এমন একসময় সন্ত্রাসী হামলা চালানো হয় যে সময় ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে প্রথম বোমা হামলার জন্য নিউইয়র্কে মিসরীয় বংশোদ্ভূত শেখ আবদুর রহমান ও তার ১০ জন অনুসারীকে বিচারের মুখোমুখি করা হয়েছিল। এ বোমা হামলার জন্য প্রথমে মুসলমানদের দোষারোপ করা হয়েছিল। পরবর্তীতে হামলাকারী হিসেবে খ্রিস্টান চরমপন্থী টিমোর্থি ম্যাকভেই ও টেরি নিকোলসকে চি‎িহ্নত করা হয়। এ দুজন শ্বেতাঙ্গ খ্রিস্টান চরমপন্থী দুবছর আগে টেক্সাসের ওয়াকো অবরোধ এবং ওকব্রিজ অবরোধের প্রতিশোধ গ্রহণে এ বোমা হামলা চালায়। ওয়াকোতে ফেডারেল এজেন্ট ও ধর্মীয় গোষ্ঠী ব্রাঞ্চ ডাভিডিয়ানের মধ্যে সংঘর্ষে ৭৬ জন নিহত হয়। মুরাহ ফেডারেল ভবনে বোমা হামলায় আশপাশের ৩২৪টি ভবন ও ৮৬টি গাড়ি ধ্বংস অথবা ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং আরো ২৫৮টি ভবনের কাঁচ ভেঙে যায়। এতে ক্ষতি হয় আনুমানিক ৬৫ কোটি ২০ লাখ ডলারের। বিস্ফোরণের পর স্থানীয়, ফেডারেল ও আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো ব্যাপক উদ্ধার তৎপরতা চালায়। সারাদেশ থেকে বিপুল পরিমাণ ত্রাণ সামগ্রী এসে পৌঁছে।

ফেডারেল ইমারজেন্সি ম্যানেজমেন্ট এজেন্সি (এফইএমএ) ৬৬৫ জন ত্রাণ কর্মীর সমন্বয়ে গঠিত তাদের ১১টি নগরভিত্তিক সার্চ এন্ড রেসকিউ টাস্কফোর্সকে সক্রিয় করে। এসব ত্রাণ কর্মী উদ্ধার তৎপরতায় সহায়তা করে। বিস্ফোরণের ৯০ মিনিটের মধ্যে ওকলাহোমা রাজ্যের সৈনিক চার্লি হ্যাঙ্গার লাইসেন্স প্লেট ছাড়া গাড়ি চালানোর জন্য টিমোর্থি ম্যাকভেইকে থামায় এবং অবৈধ অস্ত্র রাখার দায়ে গ্রেফতার করে। এফবিআইয়ের চিত্রকর একটি স্কেচ অঙ্কন করে। স্কেচটি এলাকায় দেখানো হয়। স্থানীয় ড্রীমল্যান্ড মোটেলের ম্যানেজার লী ম্যাকগোয়ান স্কেচটি টিমোথি ম্যাকভেইয়ের বলে চি‎িহ্নত করেন। ফরেনসিক পরীক্ষায় হামলার সঙ্গে টিমোর্থি ম্যাকভেই ও নিকোলসের জড়িত থাকার প্রমাণ খুঁজে পাওয়া যায়। নিকোলসকে গ্রেফতার করা হয় এবং কয়েকদিনের মধ্যে উভয়কে অভিযুক্ত করা হয়। পরবর্তীতে মাইকেল ও লোরি ফর্টিয়ারকে সহযোগী হিসেবে চি‎িহ্নত করা হয়। উপসাগরীয় যুদ্ধে অংশগ্রহণকারী ২৬ বছরের টিমোথি ম্যাকভেই মুরাহ ভবনের সামনে বিস্ফোরক বোঝাই একটি রাইডার ট্রাকের বিস্ফোরণ ঘটায়। ম্যাকভেইয়ের সহযোগী নিকোলস বিস্ফোরণের প্রস্তুতিতে সহায়তা করে।

১৯৯২ সালে রুবি রিজ ঘটনা এবং ১৯৯৩ সালে ওয়াকো অবরোধকালে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের দ্বিতীয় বার্ষিকী স্মরণে মুরাহ ভবনে এ হামলার পরিকল্পনা করা হয়। ‘ওকবোম্ব’ নামে পরিচিত সরকারি তদন্তে মার্কিন ফেডারেল ব্যুরোর (এফবিআই) গোয়েন্দারা ২৮ হাজার সাক্ষ্য গ্রহণ করে, সাড়ে তিন টন প্রমাণ এবং প্রায় একশো কোটি তথ্য সংগ্রহ করে। ১৯৯৭ সালে বোমা হামলাকারীদের বিচার ও অভিযুক্ত করা হয়। ২০০১ সালের পহেলা জুন প্রাণঘাতি ইনজেকশন দিয়ে টিমোথি ম্যাকভেইয়ের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়। ২০০৪ সালে নিকোলসকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হয়। মাইকেল ও লোরি ফর্টিয়ার টিমোথি ম্যাকভেই ও নিকোলসের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দেয়। মার্কিন সরকারকে সতর্ক করতে ব্যর্থ হওয়ায় মাইকেলকে ১২ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়। রাজসাক্ষী হওয়ায় লোরি ফর্টিয়ারকে বিচার থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়। ওকলাহোমা সিটিতে বোমা হামলা হওয়ায় মার্কিন কংগ্রেস ১৯৯৬ সালে এন্টি-টেরোরিজম এন্ড ইফেক্টিভ ডেথ প্যানাল্টি অ্যাক্ট পাস করে। এ আইন যুক্তরাষ্ট্রে হেবিয়াস কর্পাসের জন্য মানদণ্ড কঠোর করে এবং ভবিষতে ফেডারেল ভবনগুলোতে সন্ত্রাসী হামলা প্রতিরোধে আইন কানুন তৈরির পথ প্রশস্ত করে। ২০০০ সালের ১৯ এপ্রিল ওকলাহোমা সিটিতে বোমা হামলায় হতাহতদের স্মরণে মুরাহ ভবনের স্থলে ওকলাহোমা সিটি ন্যাশনাল মেমোরিয়াল নির্মাণ করা হয়। বোমা হামলা স্মরণে প্রতি বছর সেখানে স্মরণসভার আয়োজন করা হয়।

মোটিভ
১৯৯৮ সালে মার্কিন সেনাবাহিনীতে মৌলিক প্রশিক্ষণ গ্রহণকালে ফোর্ট বেনিংয়ে মূল চক্রান্তকারী টিমোথি ম্যাকভেইয়ের সঙ্গে টেরি নিকোলসের সাক্ষাৎ হয়। মাইকেল ফর্টিয়ার ছিল ম্যাকভেইয়ের রুমমেট। এ তিনজনের অনুভূতি ছিল অভিন্ন। তারা ১৯৯২ সালে উত্তর ইডাহো রাজ্যের রুবি ব্রিজে শ্বেতাঙ্গ বর্ণবাদী র‌্যান্ডি ওয়েভারের সঙ্গে সংঘর্ষ এবং ১৯৯৩ সালে ৫১ দিনব্যাপী ওয়াকো অবরোধে এফবিআইয়ের ভূমিকায় অসন্তুষ্টি প্রকাশ করে। রুবি ব্রিজ অবরোধে র‌্যান্ডি ওয়েভারের স্ত্রী, তার পুত্র এবং একজন ফেডারেল এজেন্ট নিহত হয়। ওয়াকো অবরোধ ছিল এফবিআই ও ধর্মীয় গোষ্ঠী ব্রাঞ্চ ডাভিডিয়ানের সদস্যদের মধ্যে একটি বিরোধ।
এটিএফ (ব্যুরো অব এলকোহল, টোবাকো, ফায়ার আর্মস এন্ড এক্সপ্লোসিভ) এজেন্টরা সার্চ ওয়ারেন্ট কার্যকর করতে গেলে সংঘর্ষ বেধে যায়। ১৯৯৩ সালের ২৮ ফেব্র“য়ারি থেকে ১৯ এপ্রিল পর্যন্ত ওয়াকো অবরোধ স্থায়ী হয়। গোলাগুলি শুরু হয়ে গেলে রহস্যময় অগ্নিকাণ্ডে ব্রাঞ্চ ডাভিডিয়ানের গুরু ডেভিড কোরেশ ও আরো ৭৫ জনের মৃত্যু হয়। ১৯৯৩ সালের মার্চে সংঘর্ষ চলাকালে ম্যাকভেই ওয়াকো সাইট পরিদর্শন করে। সংঘর্ষ শেষ হওয়ার পর ম্যাকভেই পুনরায় জায়গাটি দেখতে যায় এবং এ হামলার প্রতিশোধ গ্রহণে একটি ফেডারেল ভবনে বোমা হামলার সিদ্ধান্ত নেয়।

লক্ষ্যবস্তু নির্ধারণ
প্রাথমিকভাবে টিমোর্থি ম্যাকভেই মাত্র একটি ফেডারেল ভবন ধ্বংস করতে চেয়েছিল। পরবর্তীতে সে সিদ্ধান্ত নেয় যে, বোমা হামলায় বহু লোকের মৃত্যু হলে তার বার্তায় যথার্থভাবে কান দেয়া হবে। ম্যাকভেই তার লক্ষ্যস্থল হিসেবে এমন একটি ভবন বেছে নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় যে, সেখানে কমপক্ষে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার দুই তিনটি অফিস থাকতে হবে। আইন প্রয়োগকারী সংস্থার অতিরিক্ত অফিস থাকলে তা হবে তার জন্য বোনাস। আরিজোনার কিংম্যানের বাসিন্দা ম্যাকভেই মিসৌরি, আরিজোনা, টেক্সাস ও আরকানসাসে লক্ষ্যবস্তু নির্ধারণের চেষ্টা করে। ম্যাকভেই তার অনুমোদিত আত্মজীবনীতে বলেছে, সে বেসামরিক লোকের মৃত্যুর সংখ্যা সর্বনিন্ম রাখার কথা ভাবছিল। এ চিন্তা থেকে সে আরকানসাসের লিটল রকে ৪০ তলার একটি সরকারি ভবনে বোমা হামলার সম্ভাবনা বাতিল করে দেয়। ১৯৯৪ সালের ডিসেম্বরে ম্যাকভেই ও ফর্টিয়ার আলফ্রেড পি. মুরাহ ফেডারেল ভবন পরিদর্শনে ওকলাহোমা সিটিতে আসে। ১৯৮৩ সালের অক্টোবরে চরম শ্বেতাঙ্গ বর্ণবাদী গ্র“প দ্য কভনেন্ট, দ্য সোর্ড এন্ড দ্য আর্মি অব গড (সিএসএ) মুরাহ ভবনে বোমা হামলা চালায়। এ গ্র“প ফেডারেল ভবনের সামনে বিস্ফোরক বোঝাই ট্রাক বা ট্রেইলার পার্ক করে এতে দূরনিয়ন্ত্রণের সাহায্যে বিস্ফোরণ ঘটানোর পরিকল্পনা করে। এ অপারেশনে গ্র“পের প্রতিষ্ঠাতা জেমস এলিসন ও তার সহযোগী রিচার্ড ¯েœইল অংশগ্রহণ করে। টার্গেট বহির্ভূত দুজন লোককে হত্যা করায় রিচার্ড ¯েœইলকে অভিযুক্ত ও মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়।
১৯৭৭ সালে নির্র্মিত এই ৯ তলা ভবনের নামকরণ করা হয় একজন ফেডারেল বিচারকের নামে। মুরাহ ভবনে সেনাবাহিনী ও মেরিন কোরসহ ১৪টি নিরাপত্তা সংস্থার অফিস ছিল। ভবনের সামনে কাঁচ থাকায় তাকে লক্ষ্যবস্তু হিসেবে বাছাই করা হয়। ম্যাকভেই বিশ্বাস করছিল যে, প্রচণ্ড বিস্ফোরণে ভবনের কাঁচ খান খান হয়ে ভেঙে পড়বে এবং সামনের উন্মুক্ত জায়গা ছবি তোলার জন্য চমৎকার হবে। ওয়াকো অবরোধ এবং লেক্সিনটন ও কনকর্ড যুদ্ধের ২২০তম বার্ষিকীতে ১৯৯৫ সালের ১৯ এপ্রিল মুরাহ ভবনে বোমা হামলার পরিকল্পনা করা হয়।

উপকরণ সংগ্রহ
ম্যাকভেই ও নিকোলস বোমা তৈরির জন্য প্রয়োজনীয় উপকরণ সংগ্রহ অথবা চুরি করে। তারা এসব উপকরণ একটি ভাড়া করা ছাউনিতে জমা করে রাখে। ১৯৯৪ সালের আগস্টে ম্যাকভেই অস্ত্র সংগ্রহকারী রজার ই. মোরের কাছ থেকে ৯টি এমোনিয়াম নাইট্রেটের মিশ্রণ কাইনস্টিক সংগ্রহ করে এবং কানসাসের হেরিংটনে নিকোলসের বাড়ির বাইরে বিস্ফোরণ ঘটায়। ১৯৯৪ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর নিকোলস ৫০ পাউন্ড ওজনের ৪০টি এমোনিয়াম নাইট্রেট ক্রয় করে। ১৯৯৪ সালের ১৮ অক্টোবর নিকোলস ২৩ কেজি ওজনের অতিরিক্ত বিস্ফোরক ক্রয় করে।
ম্যাকভেই ফর্টিয়ারের দ্বারস্থ হয় এবং তাকে বোমা হামলার পরিকল্পনায় সহায়তা করতে অনুরোধ করে। কিন্তু ফর্টিয়ার তাকে সহায়তা দানে অস্বীকৃতি জানায়। তারা অস্ত্র সংগ্রহকারী রজার ই. মোরের বাড়িতে ডাকাতি করে এবং ৬০ হাজার ডলার মূল্যের বন্দুক, স্বর্ণ, রূপা ও অলঙ্কার লুট করে এবং মোরের গাড়িতে করে এসব সামগ্রী পাচার করে। ম্যাকভেই মোরের কাছে চিঠি লিখে দাবি করে যে, সরকারি এজেন্টরা তার বাড়িতে ডাকাতি করেছে। পরবর্তীতে মুরের বাড়ি থেকে চুরি যাওয়া সামগ্রী নিকোলসের বাড়ি ও একটি ভাড়া করা ছাউনিতে পাওয়া যায়। ১৯৯৪ সালের অক্টোবরে ম্যাকভেই মাইকেল ফর্টিয়ার ও তার স্ত্রী লোরিকে তার বোমার একটি নকশা দেখায়। ম্যাকভেই এক হাজার ২০০ পাউন্ডের তরল নাইট্রোমিথেন ও সাড়ে তিন শো পাউন্ড টোবেক্স মিশ্রণের সমন্বয়ে ৫ হাজার পাউন্ডের বেশি এমোনিয়াম নাইট্রেটের একটি বোমা তৈরির পরিকল্পনা করছিল। ধারণা করা হয়েছিল যে, বোমাটির ওজন হবে ৭ হাজার পাউন্ড। প্রাথমিকভাবে ম্যাকভেই হাইড্রোজেন রকেট জ্বালানি ব্যবহার করতে চেয়েছিল। কিন্ত এ বোমা তৈরি ব্যয়বহুল হিসেবে প্রমাণিত হয়। ১৯৯৪ সালের অক্টোবরে একজন মোটর সাইকেল রেসার হিসেবে ম্যাকভেই তিনটি ৫৫-ইউএস-গ্যালন নাইট্রোমিথেন ড্রাম সংগ্রহ করে এই অজুহাতে যে, রেসের জন্য এ জ্বালানি তার ও অন্য বাইকারদের প্রয়োজন। ১৯৯৪ সালের অক্টোবরে ম্যাকভেই একটি গোলাঘর ভাড়া নেয়। এ গোলাঘরে সে ৭টি ১৮ ইঞ্চি দীর্ঘ টোবেক্স ঝুড়ি, ৮০টি শক টিউব ও ৫০০ ইলেক্ট্রিক বাস্টিং ক্যাপ মজুদ করে। ম্যাকভেই ও নিকোলস কানসাসের মেরিয়ান থেকে এসব উপকরণ চুরি করে। ম্যাকভেই সেখানে ৪০ হাজার পাউন্ড এমোনিয়াম নাইট্রেট দেখেছিল। তবে যথেষ্ট শক্তিশালী না হওয়ায় সে এগুলো চুরি না করার সিদ্ধান্ত নেয়।

ম্যাকভেই এমোনিয়াম নাইট্রেট প্রিল বা বটিকা, তরল নাইট্রোমিথেন ও বাস্টিং ক্যাপের সহায়তায় প্লাস্টিকের একটি গ্যাটোরেড বোমা তৈরি করে। মরুভূমিতে এ পরীক্ষামূলক বোমার বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। ম্যাকভেই তার তৎপরতাকে হিরোশিমা ও নাগাসাকিতে আণবিক বোমা নিক্ষেপের সঙ্গে তুলনা করে। তবে সে পার্ল হারবারে জাপানি হামলার সঙ্গে নিজের কর্মকাণ্ডকে তুলনা করেনি। তার মতে, অধিকতর প্রাণহানি রোধে পার্ল হারবারে বোমাবর্ষণের প্রয়োজন ছিল। ১৯৯৫ সালের ১৪ এপ্রিল ম্যাকভেই কানসাসের জংশন সিটিতে ড্রীমল্যান্ড মোটেলে একটি রুমের ভাড়া পরিশোধ করে। পরদিন সে রবার্ট ডি. ক্লিং ছদ্মনামে ১৯৯৩ সালে প্রস্তুত একটি ফোর্ড ট্রাক ভাড়া করে। ১৯৯৫ সালের ১৬ এপ্রিল সে টেরি নিকোলসকে নিয়ে ওকলাহোমা সিটিতে যায়। সেখানে সে আলফ্রেড মুরাহ ভবন থেকে কয়েক ব্লক দূরে ট্রাক পার্ক করে। নিকটবর্তী রিজেন্সি টাওয়ার্স এপার্টমেন্টের সিসি ক্যামেরায় ট্রাকের ছবি ধরা পড়ে। ট্রাক থেকে লাইসেন্স প্লেট নামিয়ে ম্যাকভেই গাড়ি শনাক্তকারী নম্বর (ভিন) সম্বলিত একটি নোট রেখে আসে। এতে লেখা ছিল, ‘পরিত্যক্ত নয়। দয়া করে পিছু নেবেন না। ২৩ এপ্রিল নাগাদ রওনা দেবো।

বোমা তৈরি
১৯৯৫ সালের ১৭-১৮ এপ্রিল ম্যাকভেই ও নিকোলস তাদের গোলাঘর থেকে বোমা তৈরির উপকরণ অপসারণ করে। তারা রাইডারের ভাড়া করা একটি ট্রাকে তাদের বোমার উপকরণ বোঝাই করে। দুজন গেরি লেক স্টেট পার্কে ট্রাক চালিয়ে যায়। তারা ১৩টি ব্যারেল স্থাপন করে এবং প্লাস্টিকের বাকেট ব্যবহার করে রসায়ন মিশ্রিত করে। প্রতিটি ব্যারেলে ৫০০ পাউন্ড ওজনের বিস্ফোরক বোঝাই করা হয়। ম্যাকভেই ট্রাকে চালকের আসনের পাশে আরো কিছু বিস্ফোরক রাখে। প্রাথমিক ফিউজ ব্যর্থ হলে সে তার গ্লোক-২১ পিস্তলের সাহায্যে খুব কাছ থেকে বিস্ফোরণ ঘটাতে পারতো। তবে এ প্রক্রিয়ায় সে মারা যেতে পারতো। ম্যাকভেইয়ের বিচারকালে মাইকেল ফর্টিয়ারের স্ত্রী লোরি ফর্টিয়ার সাক্ষ্য দেয় যে, ম্যাকভেই একটি শেপড চার্জ তৈরি করতে এসব ব্যারেল যোগাড় করেছিল। তারপর ম্যাকভেই ট্রাকের সামনের ক্যাবে দ্বিমুখী ফিউজ যুক্ত করে। সে সিটের নিচে ক্যাবে দুটি ছিদ্র করে। ১৩টি ব্যারেলের ৯টিতে ছিল এমোনিয়াম নাইট্রেট ও নাইট্রোমিথেন এবং চারটিতে ছিল সার ও চার গ্যালন ডিজেল জ্বালানি। ট্রাক বোমা তৈরি করে দুজন লোক দুদিকে চলে যায়। ম্যাকভেই ফিরে যায় জংশন সিটিতে এবং নিকোলস হেরিংটনে তার বাড়িতে।

বোমা বিস্ফোরণ
ম্যাকভেইয়ের প্রাথমিক পরিকল্পনা ছিল সকাল ১১টায় বিস্ফোরণ ঘটানো। কিন্তু ১৯৯৫ সালের ১৯ এপ্রিল সকাল ৯টায় সে মুরাহ ভবন উড়িয়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। মুরাহ ফেডারেল ভবনের দিকে ম্যাকভেই রাইডার ট্রাকে ছুটে যাবার সময় একটি ইনভেলপ বহন করছিল। এ ইনভেলপে ছিল উইলিয়াম লুথার পায়ার্সের লেখা দ্য টার্নার ডায়েরি নামে শ্বেতাঙ্গ বর্ণবাদী একটি উপন্যাস। শ্বেতাঙ্গ বর্ণবাদীরা এক সকালে সোয়া ৯টায় ট্রাক বোমার সাহায্যে এফবিআই সদরদপ্তর উড়িয়ে দেয়। ম্যাকভেই ভার্জিনিয়া কমনওয়েলথের প্রতিপাদ্য সিক সেম্পার টায়রানি সম্বলিত একটি রঙিন টি-শার্ট পরিধান করে। সিক সেম্পার টায়রানি হলো একটি ল্যাটিন শব্দ। তার অর্থ বরাবর স্বৈরাচারের জন্য। রোমান সম্রাট জুলিয়াস সিজারকে হত্যা করে ব্র“টাস এ কথা উচ্চারণ করেছিল। আব্রাহাম লিঙ্কনকে হত্যা করে জন উইকিস বুথও একই কথা উচ্চারণ করেছিল। বলেছিল, ‘স্বাধীনতার বৃক্ষকে সময়ে সময়ে দেশপ্রেমিক ও স্বৈরাচারের রক্তে ¯œাত হতে হয়।’ ম্যাকভেই সরকারবিরোধী একটি খাম বহন করছিল। এতে টমাস জেফারসনের একটি শ্লোগান লেখা ছিল, ‘সরকার কখনো জনগণকে ভয় পেলে তাকে বলতে হবে স্বাধীনতা। আর জনগণ সরকারকে ভয় পেলে তাকে বলতে হবে স্বৈরশাসন।’ তার নিচে ম্যাকভেই লিখে. ‘হয়তো হতে পারে এখন স্বাধীনতা।’ আরো ছিল ব্রিটিশ রাষ্ট্রবিজ্ঞানী জন লকের একটি উদ্ধৃতি। হাতে লেখা জন লকের উদ্ধৃতিটি ছিল, ‘যদি কেউ কারো স্বাধীনতা হরণ করে তাহলে তাকে অন্যের হত্যা করার স্বাধীনতা আছে।

হতাহত
বোমা বিস্ফোরণের সময় ভবনে ৬৪৬ জন অবস্থান করছিল। দিনের শেষভাগে ১৪ জন বয়স্ক এবং ৬টি শিশুর মৃত্যু এবং শতাধিক লোক আহত হওয়ার সংবাদ নিশ্চিত করা হয়। ক্রমে মৃতের সংখ্যা ১৬৮ জনে পৌঁছে। অমিল একটি পা পাওয়া যায়। সম্ভবত এ পা ছিল অজ্ঞাতনামা কোনো ব্যক্তির। বোমা বিস্ফোরণের চেয়ে ভবন ধসে অধিকাংশ লোকের মৃত্যু হয়। আলফ্রেড পি. মুরাহ ফেডারেল ভবনে নিহত হয় ১৬৩ জন, এথেনিয়ান ভবনে একজন, রাস্তার বিপরীতে একটি পার্কিং লটে একজন মহিলা, ওকলাহোমা ওয়াটার রিসোর্চ ভবনে আরো একজন মহিলা ও একজন পুরুষ এবং মাথায় আঘাতে আরো একজনের মৃত্যু হয়। নিহতদের মধ্যে তিনজন ছিল অন্তঃসত্ত্বা মহিলা, ৯৯ জন কেন্দ্রীয় সরকারের কর্মচারি, ৮ জন কেন্দ্রীয় আইন প্রয়োগকারী সংস্থার এজেন্ট, চারজন মার্কিন গোেেয়ন্দা সংস্থার সদস্য, দুজন শুল্ক বিভাগের কর্মচারি, একজন ড্রাগ নিয়ন্ত্রণ সংস্থার সদস্য, ৩৫ জন মার্কিন আবাসন ও নগর উন্নয়ন বিভাগের সদস্য, ৬ জন মার্কিন সামরিক বাহিনীর সদস্য, দুজন মার্কিন সেনাবাহিনীর সদস্য, দুজন মার্কিন বিমান বাহিনীর সদস্য ও দুজন মার্কিন মেরিন কোরের সদস্য। বাদবাকিরা ছিল ১৯টি শিশুসহ বেসামরিক লোক।

গ্রেফতার
প্রথমে এফবিআই তিনটি পক্ষকে সন্দেহ করছিল। সন্দেহের প্রথম তালিকায় ছিল আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী। এফবিআই মাদক পাচারকারী চক্রকেও সন্দেহ করছিল। সন্দেহের শেষ তালিকায় ছিল সরকার বিরোধী চরম দক্ষিণপন্থীরা। বিস্ফোরণের ৯০ মিনিটের মধ্যে ম্যাকভেইকে গ্রেফতার করা হয়। ওকলাহোমা রাজ্যের সৈনিক চার্লি হ্যাঙ্গার লাইসেন্স প্লেট ছাড়া হলুদ রংয়ের মার্কারি মার্কিস গাড়ি ব্যবহার করায় তাকে থামায় এবং গোপনে একটি অস্ত্র রাখার জন্য তাকে গ্রেফতার করে। ম্যাকভেই মিথ্যা দাবি করতো যে, সে মিশিগানে টেরি নিকোলসের ভাই জেমসের বাড়িতে বসবাস করে। ম্যাকভেইকে কারাগারে পাঠিয়ে হ্যাঙ্গার তার গাড়িতে তল্লাশি চালায় এবং ম্যাকভেইয়ের ব্যবহৃত একটি বিসিনেস কার্ড খুঁজে পায়। বিসিনেস কার্ডের পেছনে লেখা ছিল, ‘প্রতি স্টিক টিএনটির দাম ৫৫ ডলার।’ ম্যাকভেইয়ের বিচারকালে প্রমাণ হিসেবে এ কার্ড ব্যবহার করা হয়।

মুসলমানদের দোষারোপ করা নিয়ে বিশ্লেষণ
কোনো তদন্ত অথবা প্রমাণ ছাড়াই ওকলাহোমায় বোমা হামলার জন্য মুসলমানদের অভিযুক্ত করা হয়। ওকলাহোমায় বোমা হামলায় অভিভূত আমেরিকান মুসলমানরা দ্রুত তাদের প্রতি সন্দেহের তীর নিক্ষিপ্ত হতে দেখে। মুসলিম পাবলিক এফেয়ার্স কাউন্সিলের কর্মকর্তা সালাম আল-মারায়াতি বলেন, ‘মনে হচ্ছিল আমরা যেন ওকলাহোমায় বোমা হামলায় জড়িত। অথচ আমরা তখন বোমা হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের শোক লাঘবে অন্য আমেরিকানদের সঙ্গে কাজ করছিলাম।’ তিনি আরো বলেন, ‘বুধবার বিকাল থেকে হুমকি দিয়ে ইসলামী সেন্টারে অন্তত এক ডজন টেলিফোন আসে। টেলিফোনে বলা হয়, শিশু হত্যাকারী মুসলমান, তোমরা এখানে কি করো? তোমাদের সবার এ শহর থেকে পালিয়ে যাওয়া উচিত। তোমরা পশু।

সিভিল ইঞ্জিনিয়ার সামির ইতমান তার অধিকাংশ সহকর্মীকে সুশিক্ষিত ও সম্ভ্রান্ত বলে মনে করতেন। ওকলাহোমায় বোমা হামলার দিন সকালে তিনি কাজে গেলে কেউ একজন তাকে প্রশ্ন করে, ‘আপনি সকালে কোথায় ছিলেন?’ যেন তিনি সকালে ওকলাহোমায় বোমা হামলা চালাতে গিয়েছিলেন। এ ব্যাপারে মিসরীয় বংশোদ্ভূত আমেরিকান নাগরিক সামির ইতমান বলেন, ‘আমার বয়স ৫০ বছর। আমি এখানে ২৬ বছর ধরে বসবাস করছি। যে আমাকে এই প্রশ্ন করেছিল তার বয়স ২৩ বছর। তার জন্মের আগে আমি আমেরিকার নাগরিকত্ব পেয়েছি।’ বুধবার বোমা বিস্ফোরণের পরক্ষণে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মধ্যপ্রাচ্য বংশোদ্ভূত দুজন মুসলমানকে তলব করা হয়। একটু পরে ওকলাহোমার জর্দানি বংশোদ্ভূত আমেরিকান মুসলমানকে লন্ডনে থামানো হয় এবং জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাকে যুক্তরাষ্ট্রে ফেরত পাঠানো হয়।

ইসলামী পত্রিকার সম্পাদক আসলাম আবদুল্লাহ লস এঞ্জেলেসের ভারমন্ট এভিনিউতে দাঁড়ানো ছিলেন। এমন সময় একজন শ্বেতাঙ্গ পথচারী তাকে লক্ষ্য করে হুমকি দেয়, ‘আমরা তোমাকে গুলি করবো। আমরা তোমাকে মধ্যপ্রাচ্যে ফেরত পাঠাবো। তুমি এখানকার লোক নও।’ ইন্ডিয়ানোপোলিসে আল-ফজর মসজিদে গুলিবর্ষণ করা হয়। জর্দানি-আমেরিকান ইব্রাহিম আহমদকে ১৯ এপ্রিল ওকলাহোমায় গ্রেফতার করা হয়। সন্দেহ করা হচ্ছিল যে, মধ্যপ্রাচ্যের মুসলিম সন্ত্রাসীরা এ হামলা করেছে। তদন্তে বোমা হামলার সঙ্গে ইব্রাহিম আহমদের কোনো সংশ্লিষ্টতা খুঁজে পাওয়া যায়নি।

কোনো বিশেষ ধর্মীয় সম্প্রদায়কে দোষারোপ না করার জন্য সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন ও অন্যান্য সরকারি নেতৃবৃন্দ সতর্ক করে দেয়া সত্ত্বেও সান ডিয়াগোর ইসলামী সেন্টারে ওকলাহোমা শহরে বোমা হামলার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে হুমকি দিয়ে ৮টি টেলিফোন করা হয়। একজন টেলিফোনকারী হুমকি দেয়, ‘ওকলাহোমায় বোমা হামলায় আরবরা দায়ী একথা প্রমাণ হলে ইসলামী সেন্টার উড়িয়ে দেয়া হবে।’
ইন্ডিয়ানার প্লেইনফিল্ডের সৈয়দ সাইয়িদ রক্তক্ষয়ী ওকলাহোমা বোমা বিস্ফোরণে মুসলমানদের কঠিন মূল্য দেয়ার বিবরণ দিয়েছেন। হয়তো তাদের আরো মূল্য দিতে হতো। কিন্তু শুক্রবার এটর্নি জেনারেল জেনেট রেনোর একটি ঘোষণায় মুসলমান ও আরব-আমেরিকানরা হাঁফ ছেড়ে বাঁচে। জেনেট রেনো সাংবাদিকদের বলেন, সকল প্রমাণ সাক্ষ্য দিচ্ছে যে, ভেতরের কেউ ওকলাহোমায় বোমা হামলার জন্য দায়ী। অরেঞ্জ কাউন্টির মুসলিম নেতৃবৃন্দ বলেন, বুধবার থেকে তাদের হুমকি দেয়া হচ্ছিল। কিন্তু শুক্রবার এসব হুমকি দেয়া বন্ধ হয়ে যায়।

টিমোর্থি ম্যাকভেইকে গ্রেফতার করায় প্রশ্ন দেখা দেয় যে, ওকলাহোমা সিটিতে বোমা হামলার জন্য আমেরিকানরা এত দ্রুত মুসলমানদের দোষারোপ করলো কেন। এ প্রশ্নের জবাবে মুসলিম নেতৃবৃন্দ বলেছেন, দুই তিন বছর আগে ১৯৯৫ সালে নিউইয়র্কে ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে প্রথম বোমা হামলায় মুসলিম সন্ত্রাসীরা জড়িত থাকায় ওকলাহোমা শহরে বোমা হামলার জন্য সহজে মুসলমানদের দোষারোপ করা হয়। ইউএসসির অধ্যাপক রিচার্ড হারিয়ার ডাকমাজিয়ান বলেন, ‘আমেরিকার ইতিহাসে সন্ত্রাসী হামলার জন্য মুসলমানদের দোষারোপ এটাই প্রথম ঘটনা নয়। যুক্তরাষ্ট্রে কোনো সন্ত্রাসী হামলা হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে মধ্যপ্রাচ্য বংশোদ্ভূত লোকদের প্রতি আমাদের সন্দেহ জাগে এবং মুসলিম সন্ত্রাসীদের অভিযুক্ত করি।

লিহাই কারবন কাউন্টি কমিউনিটি কলেজের হিউম্যান ডাইভার্সিটি কমিটির কো-চেয়ারওমেন ট্রিশ ম্যাকভাউ বলেছেন, অধিকাংশ আমেরিকান বিশ্বাস করতে পারেনি যে, তাদের নিজ দেশের কোনো লোক এ হামলা চালাতে পারে। তিনি বলেন, আমেরিকার বাইরের কোনো লোককে দোষারোপ করা খুব সহজ। আমি মনে করি এটা হচ্ছে আমেরিকান হওয়ার মূল্যবোধের প্রতি একটি আঘাত। বাইরের দেশের লোকদের দোষারোপ করা আমাদের স্বভাবে পরিণত হয়েছে। মিসরীয় বংশোদ্ভূত মুসলমান বেথলেহেমের বাসিন্দা মোহাম্মদ বুগাইঘিশ বলেছেন, মুসলমানদের প্রতি আমেরিকার জনগণের দৃষ্টিভঙ্গি হচ্ছে মধ্যপ্রাচ্যের প্রতি মার্কিন সরকারের দৃষ্টিভঙ্গির প্রতিফলন। আমেরিকার সরকারগুলো ইসরাইলের প্রতি পক্ষপাতিত্বে বিশ্বাস করে। আমেরিকার জনগণ আমাদেরকে দানব হিসেবে গণ্য করছে এবং আমাদের লোকেরা নিহত হলে তারা উল্লাস করে। আমেরিকার রাজনীতি একতরফা। মধ্যপ্রাচ্যের লোকদের বলীর পাঁঠা বানানো হয়েছে। সন্ত্রাসীরা বরাবরই আরব ও মুসলমান। ইহুদি অথবা কৃষ্ণাঙ্গদের ক্ষেত্রে তা ঘটে না। ইসলামকে সহিংসতার সঙ্গে গুলিয়ে ফেলা হয়েছে। কুৎসটাউন বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক রজার হোয়াইট কোম্ব বলেছেন, কয়েকটি কারণে আমেরিকানরা মুসলমানদের সন্ত্রাসী হিসেবে চিহ্নিত করে। কারণগুলো হলো ১৯৭৯ সালে তেহরানে মার্কিন কূটনীতিকদের জিম্মি, লেবাননে মার্কিন মেরিন ঘাঁটিতে বোমা হামলা এবং ইরাক যুদ্ধ। তিনি বলেন, আমেরিকায় এমন একটি ধারণা বিরাজ করছে যে, সিরীয় অথবা আরব যাই হোক, মধ্যপ্রাচ্যের লোক হলেই সন্ত্রাসী।

হোয়াইট কোম্ব আরো বলেন, আমেরিকার সরকার তাদের কর্মকাণ্ড ও বক্তব্যের মাধ্যমে এ ভুল ধারণা তৈরি করেছে। উদাহরণ হিসেবে তিনি ফিলিস্তিনিদের সন্ত্রাসী হিসেবে চিহ্নিত করার ঘটনা উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, দীর্ঘদিন ধরে এ ধারণা পোষণ করা হচ্ছে যে, পিএলও একটি সন্ত্রাসবাদী গ্র“প এবং তারা বৈধ কোনো গ্র“প নয়। আমরা ফিলিস্তিনিদের ন্যায়সঙ্গত অধিকার ও আশা আকাঙ্খাকে অগ্রাহ্য করছি।
মোহাম্মদ বুগাইঘিশ বলেছেন, আরব ও মুসলমানরা ঐতিহাসিকভাবে ফিলিস্তিনিদের অধিকারের প্রতি সমর্থন দিচ্ছে। এজন্য তাদেরকে হামলার লক্ষ্যবস্তু বানানো হচ্ছে। একইসময় যুক্তরাষ্ট্র ইসরাইলকে একটি অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত দেশ হিসেবে বিবেচনা করছে। এ দেশটি যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে কোটি কোটি ডলার সহায়তা পায়। বুগাইঘিশ আরো বলেছেন, মিডিয়া বরাবরই ইসরাইলের দৃষ্টিভঙ্গি উপস্থাপন করে।
(লেখাটি আমার ‘পাশ্চাত্যে ইসলামভীতি থেকে নেয়া। বইটি প্রকাশ করেছে ‘প্রচলন।’)


শেয়ার করুন
  • 3
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    3
    Shares
  •  
    3
    Shares
  • 3
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.