বুধবার, ১৬ Jun ২০২১, ০৫:৩৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
হত্যাকান্ডের ৯ দিন পর খুনিকে গ্রেপ্তার করেছে র্্যাব মাগুরা শ্রীপুরের জনপ্রিয় শিক্ষক আমিরুজ্জামান সেলিমের ইন্তেকাল বাকলিয়ার সন্ত্রাসী এয়াকুবসহ চিহ্নিত অস্ত্রধারীদের গ্রেফতার দাবি চট্টগ্রামে বায়েজিদ লিংক রোডে ঝুঁকিপূর্ণ ভাবে পাহাড়ের বসতিদের উচ্ছেদ অভিযান শুরু পরীমণিকে ধর্ষণচেষ্টায় নাসির উদ্দিন গ্রেফতার রাউজানের গণি পাড়ার মেয়ে কিংবদন্তি শাবানার গ্রামের বাড়িতে বছরে পর বছর ঝুলছে তালা র‌্যাব ক্যাম্পের অভিযান : দুই মাদক কারবারি আটক সদ্য নবনির্বাচিত দিনাজপুর চেম্বারের রেজা হুমায়ুন ফারুক চৌধুরী (শামীম) পরিষদের বিজয়ীদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানালো পরিবেশক সমিতি দিনাজপুর কোম্পানীগঞ্জে সিএনজি ধর্মঘটের ঘোষণা পৌর মেয়র কাদের মির্জা’র চট্টগ্রামের বাকলিয়ার এয়াকুব আলী বাহিনীর চিহ্নিত অস্ত্রধারীদের অস্ত্র উদ্ধারের দাবিতে সাংবাদিক সম্মেলন

ঈদগাঁও ফুলেশ্বরী নদীর চিরায়ত রুপ ও গতিপ্রকৃতি বিলুপ্তির পথে!

সেলিম উদ্দীন, কক্সবাজার।

কক্সবাজার সদরের ঈদগাঁও (ফুলেশ্বরী) নদী ক্রমাগত দূষণ, অবৈধ দখলের ফলে চিরায়ত রূপ ও গতিপ্রকৃতি যেমন বিলুপ্ত হতে চলছে তেমনি মানুষের জীবিকা ও জীবনযাত্রা, পরিবেশ,প্রাণবৈচিত্র্যতা,বাস্তুতন্ত্রও মারাত্মকভাবে হুমকির মুখে পড়েছে।

পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্যতা সংরক্ষণ উন্নয়ন শিরোনামে বাংলাদেশের সংবিধানের দ্বিতীয়ভাগে রাষ্ট্রের মূলনীতির ১৮ (ক) অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, রাষ্ট্র বর্তমান ও ভবিষৎ নাগরিকদের জন্য পরিবেশ সংরক্ষণ ও উন্নয়ন করিবেন এবং প্রাকৃতিক সম্পদ , জীববৈচিত্র্য, জলাভূমি, বন, বণ্যপ্রাণির সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা বিধান করিবেন।

পাবলিক ট্রাস্ট ডক্ট্রিন ও বাংলাদেশের সংবিধান অনুযায়ী, পরিবেশ প্রাকৃতিক সম্পদ, জীববৈচিত্র্য, সকল উন্মুক্ত জলাভূমি, সমুদ্র, নদ-নদী, খাল-বিল, হাওড়-বাঁওড়, ঝিল, সমুদ্রসকত, নদীর পাড়, পাহাড়-পর্বত, টিলা, বন, বাতাস পাবলিক ট্রাস্ট সম্পত্তি এবং ওই সকল সম্পত্তি দেশের বর্তমান ও ভবিষৎ নাগরিকদের জন্য সংরক্ষিত।

এই সকল সম্পত্তির উপর জনগণের মৌলিক অধিকার প্রতিষ্ঠিত। কিন্তু কে মানে কার কথা।

নদী-খালগুলি ক্রমাগত দূষণ ও প্রভাবশালীদের অবৈধ দখলে চলে যাচ্ছে। হারিয়ে যাচ্ছে নদীর প্রাণ ও প্রাণবৈচিত্র্যতা। নদীগুলি পড়েছে চরম অস্তিত্বসংকটে।

নদী সংশ্লিষ্ট সরকারী দপ্তরগুলোর দৃশ্যমান কোন ভূমিকাও অদৃশ্য।

ক্ষেত্রবিশেষে নদী দখলদারদের সাথে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের রহস্যময় যোগসাজশের অভিযোগও উঠছে।

বাংলাদেশের সর্বোচ্চ আদালতের একটি ঐতিহাসিক রায় নদীদূষণ ও দখলদারদের বিরুদ্ধে কড়া সতর্কবার্তা জারির মাধ্যমে নদীপ্রেমী ও নদীনির্ভর জনগোষ্ঠীকে আশাবাদী করে তুলেছে।

সেই সাথে নদী ও পরিবেশ রক্ষার আন্দোলনে যোগ করেছে নতুনমাত্রা।

২০১৯ সালের ৩ ফেব্রুয়ারী বিচাপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচাপতি মো. আশরাফুল কামাল সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের দ্বৈতবেঞ্চ তুরাগ নদী’সহ দেশের সকল নদ-নদী,খাল-বিল ও জলাশয়কে জীবন্ত সত্ত্বা হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার পাশাপাশি জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনকে আইনগত অভিভাবক ঘোষণা করে।

ওই রায়ে আরো বলা হয়েছে, কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান সরকারী ইজারার মাধ্যমে নদী তীরের জমি দখল করে স্থাপনা তৈরী করে থাকলে সেই ইজারাও বাতিল বলে গণ্য হবে ।

নদীকে জীবন্ত সত্ত্বা ঘোষণায় বাংলাদেশ বিশ্বে চতুর্থ রাষ্ট্র। বর্তমান সরকার বা বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের নির্বাচনী ইশতেহার ২০১৮, বাংলাদেশ বদ্বীপ পরিকল্পনা ২১০০, বাংলাদেশ পানি আইন ২০১৩, বাংলাদেশ পরিবেশ সংরক্ষণ আইন ১৯৯৫, বাংলাদেশ পানি ব্যবস্থাপনা নীতি , জাতীয় নদী রক্ষা কমিশন আইন ২০১৩, বাংলাদেশ জীববৈচিত্র্যতা সংরক্ষণ আইন ২০১৭, জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাস্ট আইন ২০১০’সহ প্রতিটি আইনে পরিবেশ প্রাকৃতিক সম্পদ, জীববৈচিত্র্য, সকল উন্মুক্ত জলাভূমি, সমুদ্র,নদ-নদী, খাল, বিল , হাওড়-বাঁওড়, ঝিল, সমুদ্রসৈকত,নদীর পাড়, পাহাড়-পর্বত,টিলা,বন,পরিবেশ সংরক্ষণের উপর আইনগত সুরক্ষা দেয়ার অঙ্গীকার করার পাশাপাশি ওই সকল আইন দ্বারা পাবলিক ট্রাস্ট সম্পত্তিকে সুদৃঢ়ভাবে বর্তমান ও ভবিষৎ নাগরিকের জন্য প্রতিষ্ঠিত করা হয়েছে।

সরকারের সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনার মাধ্যমে জলবায়ু পরিবর্তনজনিত ঝুঁকি মোকাবেলাসহ জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণের মাধ্যমে দেশের নদ-নদী-,খাল-বিল,জলাাশয়,হাওড়-বাঁওড়,ঝিল,সমুদ্রসৈকতকে রক্ষার করতে ব্যাপক গণসচেতনতা সৃষ্টির বিকল্প নেই।

ফুলেশ্বরী নদী বাঁচলে ঈদগাঁও বাঁচবে , বাঁচবে এই অঞ্চলের মানুষ ও প্রকৃতি।

ফুলেশ্বরী নদীকে বাঁচাতে আসুন সকলে সম্মিলিতভাবে ব্যাপক গ্ণসচেতনতা গড়ে তুলি এমনটাই জানিয়েছেন পরিবেশকর্মী কাফী আনোয়ার।

ফুলেশ্বরী নদী রক্ষায় ঈদগাঁও’র সামাজিক সংগঠন সম্মিলিত নাগরিক ফোরাম ও ফুলেশ্বরী নদী বাঁচাও আন্দোলন’ যৌথ উদ্যাগে বিভিন্ন কর্মসূচী পালনের ঘোষণা দিয়েছে ইতিমধ্যে।

দাবী সমুহের মধ্যে ফুলেশ্বরী বাঁচান, ঈদগাঁও বাঁচান’ শ্লোগানে ফুলেশ্বরী নদী রক্ষার দাবিতে মানববন্ধন। এছাড়াও গনস্বাক্ষর কর্মসূচি, স্মারকলিপি প্রদান, ফুলেশ্বরী নদীর দূষণরোধে জনসচেতনতামূলক প্রচারপত্র বিতরণ, নদী দূষণকারীদের চিহ্নিত করে রিভার কাউন্সেলিং, নদীভিত্তিক মোটিভেশনাল পাবলিক ওয়ার্ক,
নদীভিত্তিক সাংস্কৃতিক কার্যক্রম, নদী গল্প লেখা প্রতিযোগিতা,নদীভিত্তিক চিত্রাংকন ও রচনা প্রতিযোগিতা,
রিভার ফটোগ্রাফি কনটেস্ট, নদীভিত্তিক প্রামাণ্যচিত্র নির্মাণ ও প্রদর্শনী আয়োজন, নদীভিত্তিক বেস্ট রিপোর্ট অ্যাওয়ার্ড প্রদান, নদী মেলা,
নৌকা বাইচ,নদী সাঁতার প্রতিযোগিতা,সেমিনার
নদীধ্যান, নদী আড্ডা, নদী স্নান ও রিভার সারভাইভাল এন্ড এডভেঞ্চার, কবিতা পাঠ – বিষয় নদী, নদীভিত্তিক চলচ্চিত্র প্রদর্শন, নদীভিত্তিক বইপড়া কর্মসূচী, নদী রক্ষা শপথ ও নদীপুত্র খেতাব প্রদান ও ফুলেশ্বরী নদীকে ঘিরে ইকো রিভার ট্যুরিজম গড়ে তুলতে সরকারের কাছে দাবি উত্থাপন।

ওই সকল কর্মসূচি বাস্তবায়নের প্রাকপ্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ফুলেশ্বরী নদী বাঁচাও আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক আজাদ মনসুর।

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com