একজন সফল তরুন উদ্দোক্তার হার না মানার গল্প

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শ্যামল বাংলা ডট নেট এর বিশেষ প্রতিবেদক মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার এর সাথে একান্ত আলোচনায় এই কথা গুলো বলেন তুরণ প্রজন্মের প্রিয়মুখ সোয়েবুল হাসান অভিক

আমি পুরান ঢাকার ছেলে। আমার শৈশব, কৈশোর কাটে এই পুরান ঢাকাতেই। পৈতৃক সূত্রেই আমরা লালবাগের বাসিন্দা। ছোটোবেলা থেকেই গানের প্রতি আমার দূর্বলতা ছিল। বন্ধুরা মিলে একসাথে হয়ে গান করতাম। সেই সুবাদে আমার গানের জগতে পদার্পণ। যখন মাধ্যমিকের গন্ডি পেরিয়ে উচ্চ মাধ্যমিকে ভর্তি হই তখন থেকেই ইভেন্ট ম্যানেজমেন্টের সাথে আমার অন্তর্ভুক্তি। বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানগুলোতে বন্ধুরা মিলে ডিজে মিউজিক নিয়ে কাজ করতাম । তখন থেকেই ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট সম্পর্কে আমার অভিজ্ঞতা হয়। একটা সময় আমি উপলব্ধি করি, আমি নিজেই কিছু করতে চাই। আমার নিজেকে নিজের পায়ে দাঁড়াতে হবে। কিন্তু আমার পথের শুরুটা খুব একটা মসৃণ ছিল না। আমাকে সমর্থন করার মতো কেউ ছিল না। এমনকি বাবা মাও কখনো চাইতেন না, আমি পড়ালেখার মাঝে এই ধরনের কাজ করি। আমি ছোট থেকেই উদ্দোক্তা হওয়ার স্বপ্ন দেখতাম। পরবর্তীতে আমি আমার বাবা মাকে বুঝাতে সক্ষম হই। তারপরে ‘ফেদার হাউস” নামে সম্পূর্ণ নিজ উদ্যোগে একটি প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলি । শুরুতেই হোঁচট খাই। একদিকে আমি ছাত্র। আর ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট পরিচালনা করতে হলে আর্থিক বিষয়টা বেশি গুরুত্বপূর্ণ। কারণ ইভেন্ট সংশ্লিষ্ট আনুষাঙ্গিকগুলো একটু ব্যয়বহুল ও দূর্লভ। আমার পক্ষে এই ব্যয় বহন করা খুবই কষ্টকর ছিল। তবে আমি একটা ব্যাপার সবসময় বিশ্বাস করতাম, কোনো কিছু মন থেকে চাইলে এবং সে অনুযায়ী কাজ করলে যত বাঁধাই আসুক না কেন, সবকিছু দূরে ঠেলে ঠিকই সামনে এগিয়ে যাওয়া যায়। প্রতিষ্ঠান তৈরির শুরুতে বিভিন্ন প্রোগ্রামে আমরা ইভেন্ট ম্যানেজমেন্টের আনুষঙ্গিকগুলো (প্রফেশনাল লাইট, প্রফেশনাল সাউন্ড সিস্টেম ইত্যাদি) ভাড়া দিতাম। পরবর্তীতে ভাবলাম, এগুলো ভাড়া না দিয়ে নিজেই কেন ইভেন্ট পরিচালনা করছি না। তখন থেকেই আমি ও আমার প্রতিষ্ঠান ফেদার হাউস বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানগুলোর দায়িত্ব নেয়। ধীরে ধীরে আমাদের আওতা বাড়তে থাকে। শুরুতে এলাকা ভিত্তিক প্রোগ্রাম করলেও পরবর্তীতে আমরা সরকারি, বেসরকারি বিভিন্ন বড় বড় সামাজিক অনুষ্ঠান পরিচালনা করার সুযোগ পাই। তবে এসব কাজে অনেক প্রতিবন্ধকতা ছিল। কারণ যে ধরণের উন্নত যন্ত্রের দরকার হয়, অনেক সময় সেগুলো দেশের বাইরে থেকে আনতে হয়। পাশাপাশি আর্থিক ব্যাপার তো আছেই। তবে এই কাজে সহায়তা পাওয়ার জন্য পূর্বসূরিদের দ্বারে দ্বারে ঘুরেছি। কিন্তু প্রতি পদক্ষেপে আমাকে নিরাস করা হয়েছে। আমি তাদের থেকে সামান্য সাহয্যটুকু পাইনি। তবে একজনের কথা না বললেই নয়, তিনি আমার মামা। শুরুতে সব ধরনের আর্থিক সাহায্য তিনিই আমাকে করেছেন। সব সময় আমাকে উৎসাহ যুগিয়েছন। আজ মামা নেই। তবে তিনি আমার মাঝে, এই প্রতিষ্ঠানের মাঝে চিরজীবন অমর হয়ে থাকবেন। বর্তমানে আমি ইভেন্ট লজিস্টিক ব্যবসায়িক এসোসিয়েশন এর দপ্তর সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পালন করছি। আমার এই প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে বর্তমানে ১৫ জন ব্যক্তির কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হয়েছে। যেখানে আমি তরুণদেরকেই সুযোগ দিয়েছি। যাতে তারাও আমার মতো ভবিষ্যতে কিছু করতে পারে। নিজের পায়ে দাঁড়াতে পারে।

২০০৯ থেকে যাত্রা শুরু করে এই দীর্ঘ ১২ বছরে যদি হিসেব করি তাহলে প্রাপ্তির খাতা কম নয়। তবে এর পেছনে ছিল কঠোর পরিশ্রম ও ইচ্ছাশক্তি। সেই সাথে ছিল বাবা মায়ের অনুপ্রেরণা। আমি মনে করি, যদি কেউ মন থেকে চায়, লক্ষ অর্জনে অটুট থাকে, পরিশ্রম করে, তবে সফলতা তার কাছে ধরা দিবেই। হ্যা, কোনো কাজের শুরুটা কঠিন। তবে একবার শুরু করতে পারলে ঠিকই চলতে থাকে। আমাদের দেশ প্রচুর সম্ভাবনাময় দেশ। দেশের জনসংখ্যা দিন দিন বাড়তে থাকলেও এই জনসংখ্যাকে যদি সম্পদে পরিণত করা যায়, তবে আমরাও বিশ্বের বুকে মাথা উচু করে বাঁচতে পারবো। এজন্য প্রয়োজন নতুন নতুন চিন্তা, নতুন নতুন উদ্যোগ। শুধুমাত্র চাকরির পেছনে না ছুটে, নিজে কিছু করার চেষ্টা করলে, একদিকে নিজের লাভ অপরদিকে অন্য মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা সম্ভব।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.