1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : naga5000 : naga5000 naga5000
করোনার থাবায় মানিকছড়ির ব্যবসায়ীদের বৈশাখের বিক্রিতে টানা দুবছর মন্দা - দৈনিক শ্যামল বাংলা
মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ০৯:০২ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
Tips for choosing the best sugar daddy for you Fun88 Sổ Xô Miên Nam Hôm Nay: Hướng Dẫn Chơi Online Với Trang Đánh Bài Uy Tín Thabet88 আ’লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বাঁশখালী আ’লীগে ঐক্যের সুর 1win – лучшая букмекерская контора с высокими коэффициентами и широкой линией ставок для азартных игроков ১০৫ জন অধ্যাপক ও সহযোগী অধ্যাপক থাকা স্বত্বেও ডিন হওয়ার অভিযোগ কুবি উপাচার্যের বিরুদ্ধে নকলায় ইউএনওর সাজানো মামলা থেকে সাংবাদিক রানা বেকসুর খালাস ঠাকুরগাঁয়ের বালিয়াডাঙ্গীতে আওয়ামী লীগের পৃথক পৃথক ভাবে ৭৫ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন। বাস্তব জীবনেও সামাজিক মাধ্যমের প্রভাব স্বাধীন গণমাধ্যমে হুমকি, কণ্ঠ রোধে চেষ্টার প্রতিবাদে রাজশাহীতে মানববন্ধন তিতাসে বিএনপি থেকে পদত্যাগ করলেন সাংবাদিক কবির হোসেন

করোনার থাবায় মানিকছড়ির ব্যবসায়ীদের বৈশাখের বিক্রিতে টানা দুবছর মন্দা

মো. ইসমাইল হোসেন, মানিকছড়ি (খাগড়াছড়ি) প্রতিনিধি:-

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল, ২০২১
  • ১০৫ বার

প্রতিবছর সারাদেশে পহেলা বৈশাখ (১৪ এপ্রিল) উৎসব মূখর পরিবেশে উদযাপন করে থাকে। মানিকছড়িতেও এর ব্যতিক্রম নয়। উপজেলা প্রশাসনস ও মারমা উন্নয়ন সংসদসহ সর্বস্থরের মানষের নানা আয়োজনে বর্ষবিদায় ও বরণকে আনন্দঘন করে রাখে উপজেলার পাহাড়ী-বাঙ্গালী সম্প্রদায়ের নানা শ্রেণিপেশার হাজারও মানুষ। বর্ষবরণকে কেন্দ্র করে মানিকছড়ি উপজেলা রাজ বাজারসহ বিভিন্ন বাজারে ক্রেতাদের ভিড় লক্ষ করা যেত। কিন্তু করোনা ভাইরাসের কারণে সেই দৃশ্য পাল্টে গেছে। ফলে টানা দুই বছর ধরে পোশাকসহ বিভিন্ন ব্যবসায়ীদের মুখে হাসি ফোটাতে পারেনি বৈশাখ। সরকারি বিধিনিষেধ ও সংক্রমিত হওয়ার ভয়ে অধিকাংশ ক্রেতা বাসা থেকে বের হচ্ছেন না বলে ব্যবসায়ীদের মত।

গত ৯ এপ্রিল সরকার বিধি-নিষেধ কিছুটা শিথিল করায় দোকানপাট খুলে বসেছিল ব্যবসায়ীরা। কিন্তু রেকর্ড সংখ্যক আক্রান্ত হওয়ায় এবং মৃত্যুবরণ করায় অনেক ক্রেতাই দোকানে যাওয়া থেকে নিজেদের বিরত রাখছেন।

ঈদুল ফিতর কেনাকাটার সবচেয়ে বড় পর্ব হলেও দ্বিতীয় বৃহত্তম কেনাকাটার পর্ব ‘পয়লা বৈশাখ’ উপলক্ষে প্রত্যাশা অনুযায়ী ব্যবসা করতে পারেননি বলে জানিয়েছেন মানিকছড়ির সব ধরণের ব্যবসায়ীরা। বাংলা নববর্ষের উৎসবমূখর পরিবেশকে মলিন করে দিয়েছে ভংকর করোনা ভাইরাস। যদিও অনেক দোকান খোলা আছে, অনেক ক্রেতাও আসছেন, তবুও ব্যবসার সার্বিক পরিস্থিতি তেমন ভালো নয়।

মানিকছড়ি বাজারের কাপড় ব্যবসায়ী জহিরুল ইসলাম বলেন, ‘ক্রেতা ও বিক্রির যে পরিস্থিতি দেখছি, তা স্বাভাবিক সময়ের মতোই। বৈশাখের আগে আমরা যে অতিরিক্ত মৌসুমি বিক্রি দেখে অভ্যস্ত, টানা দুবছর তা একেবারেই অনুপস্থিত।’ সরকারের আরোপ করা নিষেধাজ্ঞার ফলে জনসাধারণের মনে উদ্বেগ তৈরি হয়েছে যে, আগামী দিনগুলোতে পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে।

অন্য ব্যবসায়ী ছিদ্দিকুর রহমান ভূঁইয়া বলেন, করোনা ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে রাখতে কঠোর লকডাউনের ঘোষণাটি বিক্রেতাদের জন্য ‘মরার উপর খাড়ার ঘা’। ঘোষণা আসার পর ঈদুল ফিতরের ব্যবসার সব সম্ভাবনাও উড়ে গেল।’ এ বছরের মোট বিক্রি অন্যান্য বছরে বৈশাখের অর্ধেকের সমপরিমাণও না বলে জানিয়েছেন তিনি।

আরেক ব্যবসায়ী চমক বলেন, কয়েক সপ্তাহ আগেও বিক্রির পরিমাণ ভালো ছিল। এক সপ্তাহের লকডাউনের খবরটি ছড়িয়ে পড়ায় বিক্রি কমতে শুরু করে। ফলে, এ বছর আমরা প্রত্যাশা অনুযায়ী বিক্রি করতে পারিনি।

মানিকছড়ি এপেক্স শোরুমের স্বাত্ত্বাধিকারি বেলাল জানান, ‘বৈশাখকে ঘিরে বিক্রির পরিমাণ তুলনায়মূলক অনেক কম হয়েছে। ‘আমরা নিষেধাজ্ঞার কারণে সীমিত সময়ের জন্য দোকানপাট খোলা রাখতে পেরেছিলাম। সত্যিকার্থে কোনো ব্যবসায়ী তুলনামূলক বিক্রি করতে পারেনি।’

কসমেটিক্স ব্যবসায়ী জামাল হোসেন জানান, আগের দুদিনের চেয়ে গতকাল এবং আজ বেশি ক্রেতার দেখা পেয়েছেন।

ক্রেতাদের দাবী পয়লা বৈশাখ উদযাপনের জন্য কাপড়, জুতো আর কসমেটিক্স কিনতে দোকানপাটে গেলেও স্বাচ্ছন্দ্যমত কেনা কাটা করতে পারেনি। ক্রেতাদের মনে সর্বদা এক ধরণে আতংক বিরাজ করছিল।

উল্লেখ্য, করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যা আশঙ্কাজনক হারে বাড়তে থাকায় সরকার গত ৫ এপ্রিল থেকে এক সপ্তাহের নিষেধাজ্ঞা জারি করে, যেখানে অন্যান্য বিধি-নিষেধের পাশাপাশি গণপরিবহন চলাচল নিষিদ্ধ এবং দোকানপাট বন্ধ রাখতে বলা হয়।

দোকান মালিকদের প্রতিবাদের মুখে সরকার নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে নেয় এবং বিক্রেতারা বৈশাখের আগে তাদের পণ্যগুলো বিক্রি করার সুযোগ পান। তবে পরিস্থিতির কোনো উন্নতি না হওয়ায় সরকার আবারও ১৪ এপ্রিল থেকে ২১ এপ্রিল পর্যন্ত কঠোর লকডাউন ঘোষণা করেন। সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী আগামীকাল থেকে এক সপ্তাহের জন্য সব ধরনের অফিস ও যানবাহন চলাচল নিষিদ্ধ এবং সব শপিংমল, দোকান, হোটেল এবং রেস্টুরেন্ট বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম