রবিবার, ১৩ Jun ২০২১, ০৯:০৭ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
সড়ক ও বিদ্যুৎ এর দায় কে নেবে? সড়কের মাঝখানে খুঁটি রেখেই চলছে সংস্কার শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস উপলক্ষ্যে চবি প্রাক্তন ছাত্রলীগ ঐক্যের দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে আমৃত্যু সংগ্রাম করেছেন বীর চট্টলার সাহসী কন্যা কবরী -শোক সভায় এম এ সালাম কল্পনা চাকমার অপহরণ বাংলাদেশ রাষ্ট্রের চরম লজ্জ্বার’ কোম্পানীগঞ্জে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান বাদলের উপর হালার প্রতিবাদে ৪৮ ঘন্টার অবরোধ অবশেষে গাইবান্ধা সদর থানার ওসির বদলি শরণখোলায় সাউথখালী ইউনিয়নের মানুষের চরম দুর্ভোগে কাটে বছরের অর্ধেক সময় কোভিড পরবর্তী সস্তা শ্রমের কারণে শিশুশ্রম বাড়তে পারে মাগুরার শ্রীপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১ আহত-৩ আনোয়ারায় পুকুরে ডুবে দুই দিনে দুই শিশুর মৃত্যু

করোনায় ক্ষতিগ্রস্থ শিল্পীদের অনুদান বিতরণে দূর্নীতির বিচারের দাবীতে অভিযোগ দাখিল

মাগুরায় করোনায় কর্মহীন ৪৩৮জন শিল্পী কলা কুশলীর জন্য প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকে দেয়া ৪৩ লাখ ৮০ হাজার টাকা বিতরণে অনিয়ম দূর্ণীতির বিচারের দাবীতে ২৭ এপ্রিল মঙ্গলবার দুপুরে জেলা প্রশাসকের কাছে অভিযোগপত্র দাখিল দিয়েছেন জেলার বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের প্রতিনিধি ও শিল্পীবৃন্দ। ওই তালিকায় ব্যাপক দূর্ণীতি, অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতি করা হয়েছে বলে উল্লেখ করে তারা মাগুরা জেলা শিল্পকলা একাডেমীর কালচারাল অফিসার মোঃ জসিম উদ্দিন ও সহ-সাধারণ সম্পাদক ও উদিচির সাধারণ সম্পাদক বিশ্বজিৎ চক্রবর্তীসহ কতিপয় কর্মকর্তার যোগসাযোশে গোপনে তালিকা তৈরীর বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আবেদন জানান। জেলার ২৬ জন সাংস্কৃতিক কর্মী স্বাক্ষরিত এক পত্রে শিল্পীরা অভিযোগ করেন- জেলা শিল্পকলা একাডেমীর আবেদন যাচাই বাছাইয়ে জেলার সক্রিয় কোন সাংস্কৃতিক ও সাহিত্য সংগঠনের কোন প্রতিনিধিই উপস্থিতি ছিলেন না। তারা অভিযোগে জানান তালিকায় বিশ্বজিৎ চক্রবর্তী শুধু তার নিজ পরিবারেরই ১৫ জন সদস্যের নাম শিল্পী হিসেবে অন্তর্ভূক্ত করেছেন।

যারা কেউই শিল্পী নন। শুধুমাত্র ব্যক্তিগত পরিচয় থাকায় বিশ্বজিৎ চক্রবর্তীর সহযোগিতায় জেলা শহরে ২টি ফ্লাট ও একাধিক বাড়িসহ কোটি কোটি টাকার সম্পত্তির মালিকের স্ত্রীকেও দেয়া হয়েছে করোনায় ক্ষতিগ্রস্থ শিল্পীর প্রনোদনা। বিশ্বজিতের সহায়তায় শিল্পকলার সংগীত শিক্ষক অজিত রায় ও অপর একটি সংগীত বিদ্যালয়ের শিক্ষক সুকুমার পাল বিভিন্ন এলাকা থেকে অশিল্পীদের নামের তালিকা সংগ্রহ করে তাদের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকার কমিশন বাণিজ্য করেছে। (যার একটি অডিও ইতিমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে ) এভাবে ওই চক্রটি একদিকে যেমন প্রকৃত শিল্পীদের বঞ্চিত করেছেন অপর দিকে গ্রামের সহজ সরল সাধারণ মানুষের সরলতার সুযোগ নিয়ে তাদের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। অথচ মাগুরার বহু সাংস্কৃতিক সংগঠন ও সংগঠনের বাইরে থাকা অনেক গরীব শিল্পীরা কোন প্রনোদনাই পাননি। এমনকি ওই প্রনোদনা দেয়ার তথ্যও তাদেরকে জানানোই হয়নি। এমনকি জামাত বিএনপির সাথে সরাসরি জড়িত ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী অশিল্পী ব্যক্তিকে শিল্পী হিসেবে প্রনোদনা দেয়া হয়েছে বলেও তারা অভিযোগ করেন। তালিকায় দেখা যায়, ব্যক্তিগত পরিচয় থাকায় অন্য জেলার বাসিন্দা অনেকেই তালিকায় স্থান পেয়েছেন। শিল্পকলার সরকারি কর্মচারির পরিবারের সদস্যের নামেও নেয়া হয়েছে এ সহায়তা। এতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর একটি মহতি উদ্যোগকে প্রশ্নবিদ্ধ করা হয়েছে। যা নিয়ে ভেতরে ভেতরে বিক্ষুব্ধ জেলার সাধারণ শিল্পী সমাজসহ সচেতন মহল।

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com