মঙ্গলবার, ১৫ Jun ২০২১, ১২:০৬ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
হত্যাকান্ডের ৯ দিন পর খুনিকে গ্রেপ্তার করেছে র্্যাব মাগুরা শ্রীপুরের জনপ্রিয় শিক্ষক আমিরুজ্জামান সেলিমের ইন্তেকাল বাকলিয়ার সন্ত্রাসী এয়াকুবসহ চিহ্নিত অস্ত্রধারীদের গ্রেফতার দাবি চট্টগ্রামে বায়েজিদ লিংক রোডে ঝুঁকিপূর্ণ ভাবে পাহাড়ের বসতিদের উচ্ছেদ অভিযান শুরু পরীমণিকে ধর্ষণচেষ্টায় নাসির উদ্দিন গ্রেফতার রাউজানের গণি পাড়ার মেয়ে কিংবদন্তি শাবানার গ্রামের বাড়িতে বছরে পর বছর ঝুলছে তালা র‌্যাব ক্যাম্পের অভিযান : দুই মাদক কারবারি আটক সদ্য নবনির্বাচিত দিনাজপুর চেম্বারের রেজা হুমায়ুন ফারুক চৌধুরী (শামীম) পরিষদের বিজয়ীদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানালো পরিবেশক সমিতি দিনাজপুর কোম্পানীগঞ্জে সিএনজি ধর্মঘটের ঘোষণা পৌর মেয়র কাদের মির্জা’র চট্টগ্রামের বাকলিয়ার এয়াকুব আলী বাহিনীর চিহ্নিত অস্ত্রধারীদের অস্ত্র উদ্ধারের দাবিতে সাংবাদিক সম্মেলন

কুমিল্লায় মা-বাবার কবরের পাশে মুনিয়ার দাফন: মরদেহ বাড়িতে নেয়া হয়নি

আমিনুল হক বিশেষ প্রতিনিধি

রাজধানীর গুলশানের বিলাসবহুল ভাড়াটিয়া বাড়িতে ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধারকৃত কুমিল্লা নগরীর তরুনী মোসারাত জাহান মুনিয়ার দাফন সম্পন্ন হয়েছে। বিকেলে ঢাকা থেকে মরদেহ কুমিল্লায় এসে পৌছানোর পর মরদেহ নিজ বাড়িতে না নিয়ে সরাসরি তাকে নগরীর টমছমব্রিজের কবরস্থানে নেওয়া হয়। সেখানে জানাজা শেষে মা-বাবার কবরের পাশে তাকে দাফন করা হয়।

রাজধানীর গুলশানের বিলাসবহুল ভাড়াটিয়া বাড়িতে মোসারাত জাহান মুনিয়ার ঝুলন্ত মরদেহ পাওয়া যায়। আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগে বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীরকে দায়ী করে সোমবার রাতে মামলা দায়ের করেছেন ঐ তরুণীর বড় বোন নুসরাত জাহান। সায়েম সোবহান আনভীর বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহানের ছেলে।

মোসারাত জাহান মুনিয়া (২১) কুমিল্লা নগরীর উজির দিঘীর দক্ষিণ পাড়ের সেতারা সদনের মৃত বীর মুক্তিযোদ্ধা শফিকুর রহমানের মেয়ে।নিহত মুনিয়া মিরপুর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী ছিলেন।

মামলার বরাতে জানা যায়, মুনিয়ার সঙ্গে বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীরের সম্পর্ক দুই বছরের। আনভীর এক বছর মুনিয়াকে বনানীর ফ্লাটে রাখেন। পরে আনভীরের সঙ্গে মনোমালিন্য হলে মুনিয়া কুমিল্লায় চলে যান। তবে মার্চ মাসে ঢাকায় এসে গুলশানের নতুন ফ্লাটে থাকা শুরু করেন।’ আনভীর গুলশানের ওই ফ্ল্যাটে যাতায়াত করতেন। ‘চুক্তিপত্র অনুযায়ী ওই ফ্লাটের মাসিকভাড়া ১ লাখ টাকা। এবং অগ্রিম দেয়া হয়েছে দুই লাখ টাকা। এরই মধ্যে দুই মাসের ভাড়া পরিশোধ করা হয়েছে।’

জানা যায়, ‘২৩ এপ্রিল একটি ইফতার পার্টি হয় ওই ভাড়াটিয়া বাসায়। ওই পার্টির ছবি ফেসবুকে আপলোড করা হলে মেয়েটির সঙ্গে আনভীরের মনোমালিন্য হয়। পরে মেয়েটি তার বোনকে ফোন করে জানান, যে কোনো মুহূর্তে তার যে কোনো ঘটনা ঘটতে পারে।’এই ফোনের পর কুমিল্লায় থেকে সোমবার বিকেলে ঢাকায় আসেন ওই তরুণীর বোন। তবে গুলশানের ফ্লাটটির দরজা ভেতর থেকে বন্ধ পান তিনি। পরে দরজা ভেঙে ভেতরে ঢুকে শোবার ঘরে তরুণী ঝুলন্ত মরদেহ দেখতে পান।

আত্মহত্যার পূর্বে কুমিল্লার মেয়ে মুনিয়ার সাথে প্রেমিক বসুন্ধরা গ্রুপের মালিকের ছেলে সায়েম সোবহান আনভীরের ফোনে ঝগড়া হয়েছিল বলে একটি সূত্র জানায়। ফোনালাপের একটি অডিও রেকর্ডও প্রকাশ হয়েছে। ফোনালাপে মুনিয়াকে কান্না করতেও শোনা গেছে।

এছাড়া ১৫ মার্চ মুনিয়া ফেসবুক চ্যাটে লিখেছিল- ‘‘ কি করলাম আমি, কেন রাগ করছো, বলো প্লিজ, এই কি তোমার প্রেম, আমার সাথেই, আমি আসবো এখন তোমার বাসায়, কিছু বলো, কি দোষ আমার বলবা তো । এরপর সায়েম সোবহান তাদের দুইজনের কিছু ছবি পাঠিয়ে লিখছে- এইগুলা কি ’’।

গুলশান জোনের উপকমিশনার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী সাংবাদিকদের জানান, সোমবার সন্ধ্যার দিকে গুলশান ২ নম্বরের ১২০ নম্বর সড়কের ফ্ল্যাট থেকে ওই তরুণীর ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করা হয়। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ‘ঘটনাস্থল থেকে সিসিটিভির ফুটেজ সংগ্রহ করা হয়েছে। ফুটেজ বিশ্লেষণ করার মাধ্যমে মামলার তদন্তে গুরুত্বপূর্ণ অগ্রগতি আসবে।’

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com