চরমোনাই পীর বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণের বিরোধিতা করলেও তার কিছুই হয়নি

সাহাদত হোসেন খান

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

কথায় বলে, একই যাত্রায় দুই রকমের ফল। বঙ্গবন্ধু শেখ মুুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য নির্মাণের বিরোধিতা করায় হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম-মহাসচিব আল্লামা মামুনুল হকের জীবনে নেমে এসেছে অভিশাপ। কিন্তু চরমোনাইয়ের পীর সৈয়দ ফয়জুল করীম বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণের বিরোধিতা করলেও তার কিছুই হয়নি। বরং তিনি বহাল তবিয়তে আছেন। মানননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে লক্ষ্য করে বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী যদি মনে করেন দেশটা তার পিতার তাহলে তিনি বলবেন এ দেশ তার দাদার।

২০২০ সালের ১৩ নভেম্বর সৈয়দ ফয়জুল করীম ধোলাইখালের কাছে গেন্ডারিয়ায় বলেন, আন্দোলন করবো, সংগ্রাম করবো, জেহাদ করবো। রক্ত দিতে চাই না। রক্ত দেয়া শুরু হলে বন্ধ করবো না। রাশিয়ায় লেনিনের ৭২ ফুট লম্বা মূর্তি যদি ক্রেন দিয়ে তুলে সাগরে নিক্ষেপ করতে পারে তাহলে আমি মনে করি শেখ সাহেবের এই মূর্তি আজ হোক, কাল হোক খুলে বুড়িগঙ্গায় নিক্ষেপ করা হবে।

আদালত হেফাজতে ইসলামের আমির মাওলানা জুনায়েদ বাবুনগরী, যুগ্ম-মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হক এবং চরমোনাইয়ের পীর সৈয়দ ফয়জুল করিমের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে দুটি মামলা তদন্তের নির্দেশ দেয়। রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা দায়েরের পরদিন ২০২০ সালের ৮ ডিসেম্বর ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমির ও পীর সাহেব চরমোনাই মুফতি সৈয়দ মোহাম্মদ রেজাউল করীম বলেন, উলামায়ে কেরামের দাবির মধ্যে মরহুম বঙ্গবন্ধুর প্রতি কোনো বিদ্বেষ ছিল না, অসম্মানও ছিল না। বরং বিষয়টি ছিল দেশের জনগণের বোধ বিশ্বাসের সঙ্গে সাংঘর্ষিক মূর্তি স্থাপন না করে অন্য কোনো পন্থায় তাকে স্মরণ করার দাবি। আলেম সমাজ ও সাধারণ ধর্মপ্রাণ মুসলিম জনগণ এ ক্ষেত্রে সরকারের কাছে নিজেদের প্রাণের আকুতি তুলে ধরতেই পারে। মানা না মানা কর্তৃপক্ষের দায়িত্ব। এই যৌক্তিক দাবিকে কেন্দ্র করে তারা তাদের দীর্ঘদিনের লালিত মূর্তি প্রীতি ও বিজাতীয় চেতনার বহিঃপ্রকাশ ঘটিয়েছে। বিষয়টিকে বিকৃতভাবে উপস্থাপন করে দেশের সর্বজন শ্রদ্ধেয় উলামায়ে কেরামকে অপদস্থ করার হাতিয়ার হিসেবে গ্রহণ করেছে।

মুফতি সৈয়দ মোহাম্মদ রেজাউল করীম আরো বলেন, বাংলাদেশ সরকারের বিদ্যমান আইন কানুন মেনে তৌহিদী জনতা সমাবেশ করেছে এবং সেখানে শালীন ভাষায় যৌক্তিকভাবে ভাস্কর্য স্থাপনের বিরোধিতা করা হয়েছে। একই সঙ্গে বঙ্গবন্ধুকে সম্মান জানানোর বিকল্প পন্থাও প্রস্তাব করা হয়েছে। বিষয়টি একেবারেই স্বাভাবিক একটি নাগরিক প্রতিক্রিয়া। কিন্তু আমরা বিস্ময়ের সঙ্গে লক্ষ্য করছি, একটি সুবিধাভোগী মহল বিষয়টিকে কেন্দ্র করে দেশে চরম উস্কানি ও উত্তেজনা তৈরি করছে। জনবিচ্ছিন্ন সুবিধাভোগী শ্রেণি উলামায়ে কেরামকে সন্ত্রাসী ভাষায় গালিগালাজ করছে, ঢালাওভাবে অপবাদ দিচ্ছে। মাহফিলের মতো চিরায়ত ধর্মীয় সংস্কৃতিকে উগ্রপন্থায় প্রতিহত করার ঘোষণা দিচ্ছে। রাজপথে সন্ত্রাসী কায়দায় উগ্র বক্তব্য ও শ্লোগান দিচ্ছে। প্রকাশ্যে আলেম সমাজকে মারধর, অপমান এমনকি তাদের প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে।

চরমোনাই পীর বলেন, ভাস্কর্য ও মূর্তি ইস্যুতে চরম উস্কানির মুখেও দেশের শান্তি ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখার স্বার্থে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ সীমাহীন ধৈর্যের পরিচয় দিয়ে এসেছে। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ নামে একটি ভূঁইফোড় সংগঠন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সিনিয়র নায়েবে আমির মুফতি সৈয়দ মোহাম্মদ ফয়জুল করীমের নামে একটি জঘন্য মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে। সঙ্গে আরো দুজন বিশিষ্ট আলেম আল¬ামা জুনায়েদ বাবুনগরী ও মাওলানা মামুনুল হকের নামেও মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। আমরা বিষয়টিকে রাজনৈতিক ইস্যু মনে করিনি। যে কারণে ধৈর্যের সঙ্গে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করেছি মাত্র। আমরা আমাদের দলীয় ব্যানারে বা কোনো সহযোগী সংগঠনের ব্যানারে কোনো কর্মসূচিও দেইনি।

বরিশালে ইসলামী আন্দোলনের ডাকা সমাবেশকে কেন্দ্র করে যাতে কোনো দুষ্কৃতকারী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্যে হামলা চালাতে না পারে সে জন্য সেখানে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের স্বেচ্ছাসেবকরা পাহারা দেয়। এসময় সদররোড, ফজলুল হক এভিনিউসহ আশপাশের মন্দিরগুলোতেও পাহারা দেয়া হয়। ২০২০ সালের ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবস উপলক্ষে ইসলামী আন্দোলন বরিশাল নগরের ফজলুল হক এভিনিউতে সমাবেশ ও বিজয় র‌্যালির আয়োজন করে। তবে এই সমাবেশকে কেন্দ্র করে কোনো দুষ্কৃতকারী যাতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য এবং মন্দির বা গির্জায় হামলা চালিয়ে তাদের ওপর দোষ চাপাতে না পারে সে জন্য চরমোনাই পীরের নির্দেশে স্বেচ্ছাসেবক নিয়োগ করা হয়।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.