দয়া করে হেফাজতকে ‘কাজী অফিস’ বানাবেন না -| পলাশ রহমান |

পলাশ রহমান, ইতালী প্রবাসী সাংবাদিক

হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের একাংশের নেতারা (মামুনুলপন্থী) তড়িঘড়ি বৈঠক করেছেন। বৈঠক শেষে তারা জানিয়েছেন, মামুনুল হকের দ্বিতীয় বিয়ে শরীয়তের আলোকে সম্পূর্ণ শুদ্ধ। সুতরাং তার দ্বিতীয় স্ত্রী বা অবকাশযাপন নিয়ে বিভ্রান্তির কিছু নেই।

আমরা হেফাজত নেতাদের কথায় আশ্বস্ত হতে চাই। আমরা বিশ্বাস করতে চাই মামুনুল হক তার বিয়ে করা স্ত্রী নিয়েই হোটেলে গিয়েছিলেন। সেখানে যারা তার অবকাশে বিঘ্ন ঘটিয়েছে, তার সম্মানহানি করেছে, তার ফোনালাপ ফাঁস করেছে তারা সবাই দেশের প্রচলিত আইন অমান্য করেছে। অপরাধ করেছে। তাদের অবশ্যই শাস্তি হওয়া উচিত। কিন্তু সব কথা এখানেই শেষ হয়ে যায় না। কিছু কথা, কিছু প্রশ্নের উত্তর মেলানো দরকার।

শরীয়তের দৃষ্টিতে মামুনুলের বিয়ে শুদ্ধ হয়েছে ভালো কথা, রাষ্ট্রের দৃষ্টিতে কী শুদ্ধ হয়েছে? হয়নি। এখন পর্যন্ত আমরা মামুনুলের দ্বিতীয় বিয়ের কাবিন বিষয়ে কিছু জানি না। কেউ তার কাবিনের সত্যতা প্রমাণ করতে এগিয়ে আসেনি। মামুনুল নিজেও না।

কেনো মামুনুলের মতো একজন মানুষ রাষ্ট্রের আইন মানবেন না? বিয়ে নিবন্ধনের মতো একটা জরুরী আইন কেনো অমান্য করলেন? ঘাপলা কোথায়?

মামুনুলসহ সংশ্লিষ্ট যাদের ফোনালাপ ফাঁস হয়েছে সেগুলোকে কেউ কেউ ফেইক বলে প্রচার করার চেষ্টা করলেও আমাদের কাছে ফেইক মনে হয়নি। কারণ এখন পর্যন্ত মামুনুল নিজে এগুলোকে ফেইক বলে দাবী করেননি। সুতরাং তার এবং তাদের কথা-বার্তায় পরিস্কার বোঝা যায় মামুনুল হকের দ্বিতীয় বিয়ের খবর প্রথম স্ত্রী জানেন না। দুই বছর যাবত তিনি দ্বিতীয় বিয়ে গোপন করেছেন প্রথম স্ত্রীর কাছে। (প্রথম স্ত্রীকে জানিয়ে বিয়ে করেছেন বা পরে জানিয়েছেন এমন দাবী মামুনুল নিজেও করেননি) এই কাজ করতে গিয়ে তাকে নিশ্চই অনেক ছল-চাতুরি এবং মিথ্যার আশ্রয় নিতে হয়েছে। প্রথম স্ত্রীর সাথে প্রতারণা করতে হয়েছে। এগুলো তিনি কেনো করলেন? শরীয়তের দৃষ্টিতে এ জাতীয় অপরাধের শাস্তি কী?

হেফাজতের নেতারা বৈঠক করে বলেছেন, মামুনুলের দ্বিতীয় বিয়ে শরীয়তের আলোকে বৈধ। এর অর্থ মামুনুলের দ্বিতীয় বিয়ের বৈধতা দেয়া, তার ব্যক্তিগত অপরাধের বৈধতা দেয়ার দায় হেফাজত নেতারা নিজেদের কাঁধে তুলে নিয়েছেন। সুতরাং এসব প্রশ্নের উত্তর তারা এখন আর এড়িয়ে যেতে পারবেন না। তাদেরকেও জবাবদিহি করতে হবে। দেশের ধর্মপ্রাণ মানুষের সামনে ফের গলাতুলে কথা বলার আগে পরিস্কার করে এসব প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে।

ইসলাম হলো ইনসাফের ধর্ম, মামুনুল যতটুকু অপরাধ করেছেন এতটুকুর ইনসাফ ভিত্তিক শাস্তি কী? আমরা বলছি না রাষ্ট্রের প্রচলিত আইনের বাইরে গিয়ে তাকে কোনো শাস্তি দিতে, কিন্তু শরীয়া আইন থাকলে তার কী শাস্তি হতো তা পরিস্কার করে বলতে হবে।

মামুনুল পেশায় একজন মাদরাসার শিক্ষক। তিনি নাকী ২০ বছর যাবৎ হাদিস পড়ান। আমরা জানি কোনো মিথ্যাবাদীর কাছ থেকে হাদিস নেয়া নিষেধ। মামুনুল প্রকাশে মিথ্যা বলেছেন। প্রতারণা করেছেন। তিনি হোটেল রেজিস্টারে দ্বিতীয় স্ত্রীর নামের পরিবর্তে প্রথম স্ত্রীর নাম লিখেছেন। লাইভেও প্রথম স্ত্রীর নাম বলে মিথ্যার আশ্রয় নিয়েছেন। এমন মিথ্যা বলা একজন মানুষের কাছ থেকে কী হাদিসের দরস নেয়া বৈধ হয়? তার কাছ থেকে নেয়া সনদের বৈধতা থাকে? দেশের নির্ভরযোগ্য মুফতিদের কাছ থেকে আমরা এ বিষয়ে বিস্তারিত জানতে চাই।

মামুনুল হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব। খেলাফত মজলিসের মহাসচিব। এতকিছুর পরেও কী তিনি এমন দুইটি আদর্শিক দলের দায়িত্বশীল পদে থাকতে পারেন? নেতৃত্ব দিতে পারেন? তার এমন চরিত্র প্রকাশ পাওয়ার পরেও কোনো ইসলামপন্থী দল বা সংগঠনের নেতৃত্ব দেয়ার নৈতিক অধিকার থাকে?

দেশের ইসলামপন্থী যুবকদের মধ্যে মামুনুলের একটা জনপ্রিয়তা আছে। বহু যুবক তাকে আইডল মনে করে। তার কথায় জীবনবাজি ধরতেও তারা দ্বিধা করে না। এই যুবকদের কাছে কী বার্তা পাঠালেন আপনারা? তারাও কী এখন দলে দলে গোপন বিয়ে করা শুরু করবে? পরিস্কার দিকনির্দেশনা দিতে হবে আপনাদের।

আমরা সবাই জানি পুরুষের জন্য শর্ত সাপেক্ষে ইসলাম ৪টা পর্যন্ত বিয়ে করার সুযোগ রেখেছে। মামুনুল কী দ্বিতীয় বিয়ের সময়ে শর্তগুলো মেনেছেন? কী কী মেনেছেন, কী কী মানেননি তা পরিস্কার করে বলতে হবে। কারণ হেফাজতের নেতারাই তার দ্বিতীয় বিয়ের বৈধতার দায় নিয়েছেন। ফলে তাদের সাংগঠনিক দৈন্যতা প্রকাশ পেয়েছে সেদিকে ফিরেও তাকাননি।

২০ জন শহীদের রক্তের দাগ এখনো মোছেনি। সাড়ে ৪ হাজার মানুষ আহত হয়ে চিকিৎসার অভাবে গোঙ্গাচ্ছে। হাজার হাজর মানুষ জেলখানায় বন্দি। উকিলের অভাবে, টাকার অভাবে তাদের জামিন হচ্ছে না। আর আপনারা মেতে উঠেছেন, একজন মামুনুল হকের দ্বিতীয় বিয়ের বৈধতা নিয়ে। ঘরে বাইরে, হাটে বাজারে, সোস্যাল মিডিয়ায় আপনাদের ‘জিহাদ’ করতে হচ্ছে মামুনুলের অপরাধ ঢাকতে। এর থেকে তো মনে হয় আপনাদের জন্য ‘আত্মহত্যা’ বেশি সম্মানের ছিল।

হাফেজ শহিদের বড় ছেলে সোস্যাল মিডিয়ায় কিছু কথা বলেছে। তা নিয়েও একদল কওমীপন্থী জেহাদি ঝাপিয়ে পড়েছে। কী অদ্ভুত বেপার! তারা একবারও ওই শিশুটার মনে অবস্থা বুঝলো না। এতটুকু একটা ছেলে, সোস্যাল মিডিয়ায় এসে নিজের মাকে নিয়ে কথা বলতে হচ্ছে। অস্বস্তির কথা, বিব্রত হওয়ার কথা। তারা এই দিকটা একবারও ভাবছে না।

অন্যান্য সমালোচকদের কথা না হয় বাদই দিলাম, ছোট ছেলেটাকেও রেহাই দেননি, দিচ্ছেন না আপনারা। আপনাদের প্রতি কীভাবে আস্থা রাখবে দেশের মানুষ? কীভাবে নিজেদের মানবিক দৈন্যতা ঘুচাবেন? কীভাবে নিজেদের ক্ষমা করবেন?

একজন মামুনুলের অপরাধে, অপরিপক্কতায়, একগুয়েমিতে আজ গোটা দেশের ইসলামপন্থীরা বিব্রত, বিদ্ধস্ত, ব্যাপক ক্ষতির মুখে। তবু বলবো- এই ক্ষতি সাময়িক। এই ক্ষতি পুশিয়ে উঠা সম্ভব, যদি হেফাজতসহ দেশের ইসলামপন্থী নেতারা সঠিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে পারেন। আর তারা যদি হেফাজতকে ‘কাজী অফিস’ বানাতে চান, কারো ব্যক্তিগত অপরাধের দায় নিতে চান, ইনসাফ না করেন তবে আগামীতে আরো বড় ক্ষতির জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করা দরকার। অপরাধকে প্রশ্রয় দেয়ার ফল ভোগ করার জন্য প্রস্তুত থাকা দরকার। এবং তা দুই কালেই।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.