‘নাস্তিকরা বাংলাদেশে থাকতে পারবে না’

ফরহাদ মজহার

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরীর একটি বক্তব্য কেন্দ্র করে আলোচনা। আমি প্রয়োজন বোধ করেছি বলেই কথাগুলো বলেছিলাম। অনেকের সাথে অমত হবে, অনেকের কাজে আসতে পারে। আরিফ প্রশ্নগুলো জিজ্ঞাসা করেছে বলেই উত্তর দিতে পেরেছি। আরিফকে ধন্যবাদ।

আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী একটি বক্তব্যে বলেছেন, ‘নাস্তিকরা বাংলাদেশে থাকতে পারবে না’। ফেসবুকে এ নিয়ে সরগরম বিতর্ক জমেছে। আমার ফেসবুক বন্ধুদের মধ্যে অনেকের মন্তব্য পড়ছি। পারভেজ আলম, ফারুক ওয়াসিফ, মোকাররম হোসেন (Mokarrom Hossain) ভাইয়েরা বাবুনগরীকে ‘ফ্যাসিস্ট’, ‘কসাই’, ‘হিটলার’ বলে মনে করেন। তারা খুব কড়া মন্তব্য করেছেন। পারভেজ আলম মনে করেন, বাবুনগরী হিটলারের মতো শক্তিশালী হতে পারবেন না, কিন্তু তার চিন্তাভাবনা ফ্যাসিস্ট। জনাব ফারুক ওয়াসিফের পোস্ট আরও আবেগী। আবেগ ভাল। তবে বাবুনগরী যা বলেন নি, সেইসবের বিশাল একটা তালিকা দিয়েছেন তিনি। এটা খারাপ করেছেন।
এদের লেখা আমি পড়ার চেষ্টা করি, তাদের কথাবার্তা শুনে খুব‌ই বিস্মিত হয়েছি। বাবুনগরী কেন এটা বললেন ভেবে আমি আহত বোধ করেছি। আমি তাই আমার উস্তাদজী ফরহাদ মজহার
এর কাছে বিষয়টি বুঝতে চাইলাম। কিন্তু তিনি আমাকে ডবল বিস্মিত করে বললেন,
বাবুনগরী ঠিকই বলেছেন।

কিন্তু কেন? আমি জানতে চাইলাম। উস্তাদজী আমাকে উত্তরে যা বলেছেন আমি তা সংক্ষেপে পেশ করছি। আমার লেখায় অনেক গ্যাপ থাকতে পারে। তবে আশা করব এ নিয়ে আরো আলোচনা হবে, পরস্পরের কাছ থেকে আমরা শিখব এবং ভুল বোঝাবুঝি কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হবে।

উস্তাদজী ফরহাদ মজহার জোর দিয়েই বলেছেন, বাবুনগরী সঠিক কথাই বলেছেন। আলবৎ এটা ছহী ফয়সালা। নাস্তিকতা কিম্বা নাস্তিক্যবাদকে আমরা কে কিভাবে বুঝি সেটা বাবুনগরীর বিবেচ্য নয়। সেই জায়গা থেকে তিনি কথাটি বলেন নি। তবে তিনি বাংলাদেশে নাস্তিক্যবাদের বিশেষ রূপ ও রাজনৈতিক ভূমিকা নিজের অভিজ্ঞতা থেকে বোঝেন। জুনাইদ বাবুনগরীর এই সরল উচ্চারণ বুঝতে হলে আগে আমাদের বুঝতে হবে নাস্তিক্যবাদ স্রেফ একটা দার্শনিক তত্ত্ব হিসাবে পাশ্চাত্যে গড়ে ওঠে নি। দার্শনিক ও রাজনৈতিক অর্থে মানবতাবাদের অনুষঙ্গ হিসাবে গড়ে উঠেছে। যারা ল্যুদভিগ ফয়েরবাখ পড়েছেন, তারা তাত্ত্বিকভাবে বিষয়টিকে আরও গভীর ভাব অনুধাবন করবেন।
পাশ্চাত্যে যে নাস্তিক্যবাদ গড়ে উঠেছে সেই প্রকার নাস্তিক বাংলাদেশে আছে কিনা।?
উস্তাদজী বললেন, ধূর! তার ছিটেফোঁটাও বাংলাদেশে নাই।

বাংলাদেশে কোন নাস্তিক নাই, এই কথা আমি প্রথম শুনলাম। উস্তাদজী বললেন, সম্ভবত আহমদ শরিফ কিছুটা ব্যতিক্রম, আরজ আলী মাতব্বরের মধ্যে কিছু মানবিক উপাদান আছে, কিন্তু তাঁর সম্পর্কেও খুব উৎসাহী হবার সুযোগ নাই। আহমদ শরিফ নিজেকে নাস্তিক বললেও তিনি ব্যতিক্রম। কারণ তিনি কখনই ইসলাম বিদ্বেষী কিম্বা ইসলাম নির্মূলের রাজনীতি করেন নি। মওলানা ভাসানীর সামন্তবাদ-সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী আন্দোলনে কমিউনিস্ট্রা সম্পৃক্ত থাকলেও নাস্তিকতা প্রশ্রয় পায় নি।

খেয়াল করলেই আমরা বুঝব, বাংলাদেশে নাস্তিক নামে কিম্বা নাস্তিক্যবাদ নামে যেসব আবর্জনা সম্প্রতিকালে দৃশ্যমান দেখা যায়, তা একান্তই ইসলাম বিদ্বেষ এবং ইসলাম নির্মূলের মতাদর্শ, রাজনীতি ও সমর নীতির সঙ্গে যুক্ত। শাহবাগে এদের চেহারা আমরা চিনেছি। এই দেশের জনগণের ধর্মীয়, সাংস্কৃতিক এবং রাজনৈতিক লড়াই তাই সরাসরি তথাকথিত বর্তমানে নাস্তিক্যবাদীদের বিরুদ্ধে, যারা সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে অনন্ত যুদ্ধ এবং উপমহাদেশ থেকে ইসলাম নির্মূল রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত।

বাংলাদেশের নাস্তিক্যবাদীরা শিথিল অর্থেও মানবতাবাদী কিম্বা মানবাধিকারের পক্ষে নয়। তার ভূরি ভূরি উদাহরণ বাংলাদেশে রয়েছে। যেমন, তারা মানবাধিকারের কথা বললেও তারা মুসলমানদের কোনো মানবাধিকার আছে বলে বিশ্বাস করে না। মুসলমান তার নিজের ক্ষোভ, বিক্ষোভ, প্রতিবাদ জানাতে গেলে প্রায় সবসময়ই তাদেরকে তালেবান, জঙ্গী, খুনি, বর্বর হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এটা পরিষ্কার, বাংলাদেশে সত্যকার অর্থে দার্শনিক কিম্বা রাজনৈতিক অর্থে নাস্তিক্যবাদ নাই, যার উদ্দেশ্য ধর্মান্ধতার বিপরীতে মানুষের মানবিক সত্তার স্বীকৃতি এবং মানবিক অধিকার আদায়। যদি থাকতো তাহলে বাংলাদেশে ফ্যাসিস্ট শক্তি ও ফ্যাসিস্ট রাষ্ট্র ব্যবস্থা কায়েম হতে পারতো না।
বাংলাদেশে ‘নাস্তিক’ নামধারী যারা আছে, তারা বাংলাদেশ থেকে ইসলাম নির্মূল করতে চায়। বাংলাদেশে জনগণের লড়াই অতএব সেই সব নাস্তিকদের বিরুদ্ধে যারা মানবতা এবং মানবিক মূল্যবোধ বর্জিত। মানবতাবাদ বাদ দিয়ে ‘নাস্তিক’ নামক কোনো দার্শনিক বা রাজনৈতিক ধারা নাই। কারণ নাস্তিকতা নিছকই জ্ঞানতত্ত্ব নয়, এর পরিসর আল্লাহ আছে কি নাই সেই তর্কে সংকীর্ণ না। বরং পাশ্চাত্যে নাস্তিকতা মানবতাবাদী রাজনীতির অনুষঙ্গ হিসাবেই গড়ে উঠেছে। কার্ল মার্কস তাই খুব সুন্দর বলেছিলেন, কমিউনিস্টদের নাস্তিক হবার দরকার পড়ে না। কারণ নাস্তিক হবার দার্শনিক ও রাজনৈতিক প্রয়োজন তখনই দেখা দেয়, যখন খ্রিস্টিয় কিম্বা অন্যনায় ধর্মে মানুষের মহিমা অস্বীকার করে সব মহিমা ঈশ্বরে আরোপ করা হয়।

কিন্তু ইসলাম খ্রিস্ট ধর্ম নয়। বরং খ্রিস্ট ধর্মের বিপরীতে ইসলামে মানুষের মহিমা প্রবল ভাবে ঘোষিত। মানুষকে কোর‌আন শরিফ আল্লার খলিফা হিসাবে ঘোষণা দিয়েছেন। অর্থাৎ ইসলাম দাবি করে, মানুষের পক্ষে আল্লার গুণাবলী অর্জন সম্ভব। মানুষ রুহানি শক্তির অধিকারী, সে তার জীবের স্বভাব অতিক্রম করে পরমার্থিক গুণাবলী অর্জন করতে পারে। আল্লাহ পাক তাই ফেরেশতাদের নিষেধ সত্ত্বেও মানুষ সৃষ্টি করেছেন।
দার্শনিক বিচারে ইসলামে আলাদা ভাবে নাস্তিক হবার দরকার পড়ে না। কারণ ইসলামের কালেমা শুরুই হয় ‘লা ইলাহা’ দিয়ে, যেন ‘নাফি’র পর ‘ইল্লাল্লাহ’ বলে ‘ইছবাত’ করা সম্ভব হয়। যারা নাফি করতে অক্ষম তারা ইছবাতের স্তরে পৌঁছাতে পারে না। দার্শিনিক নাস্তিক্যবাদ বা জ্ঞানতাত্ত্বিক নাস্তিকতা ইসলামের জন্য কোনো সমস্যা না। ইসলাম যা বরদাশত করে না সেটা শেরেকি বা শির্ক, এবং রিদ্দাত বা মুরতাদ; যারা ইসলাম গ্রহণ করবার পরেও পরে ইসলাম অস্বীকার করে।

বাবুনগরী বাংলাদেশের রাজনৈতিক বাস্তবতার পরিপ্রেক্ষিতে সরলভাবে কথাটা বলেছেন। তিনি নাগরিক অধিকার থাকা না থাকার আলোকে কথাটা বলেন নি। তাছাড়া ‘অধিকার’ পাশ্চাত্য আধুনিক রাষ্ট্রের অনুমান ও ধারণা। ইসলামে এই ধারণার আদৌ উপযোগিতা আছে কিনা সেটা তর্কের বিষয়, কারণ ইসলাম আরও উচ্চতর ‘হক’-এর কথা বলে। যেমন কারো রিজিক হরণ করবার অধিকার ইসলাম কাউকে দেয় না। কিন্তু আধুনিক পুঁজিবাদী রাষ্ট্র ক্রমাগত মানুষকে গরিব, সর্বহারা ও সর্বস্বান্ত করছে। তাদের রিজিকের হক কিম্বা জীবন জীবিকা নিশ্চিত করবার অধিকার বাদ দিয়ে বিমূর্ত নাগরিক অধিকার বা মানবাধিকারকে অগ্রাধিকার দেয়।
ইসলামের দিক থেকে তথাকথিত ‘অধিকার’ সর্বহারা ও গরিব জনগণের সঙ্গে তামাশা। তাছাড়া ইসলাম ভিক্টিম বা করুণার রাজনীতি করে না। জালিমের বিরুদ্ধে জিহাদই তার রীতি।

এই দিকগুলো আমরা আমাদের সমাজে যতো আলোচনা করতে পারব ততোই পাশ্চাত্য মতাদর্শের মোহ আমাদের কেটে যাবে। শ্রদ্ধেয় বাবুনগরীও তাঁর বক্তব্য প্রকাশের ক্ষেত্রে ইসলামের ভাষায় কথা বলতে পারবেন। কারণ আল্লাহ কারো অধিকার হরণ করেন না। কে কোথায় থাকতে পারবে বা পারবে না সেটার সিদ্ধান্ত নেবার অধিকারী আমরা কেউ না। জুনাইদ বাবুনগরীও নন। ফলে তার প্রকাশ ভঙ্গীর আমি সমর্থন করি না। কিন্তু তাঁর কথা না বুঝে, যারা খামাখা তাকে নিয়ে বড় বড় প্রতিবাদী লেখা লিখছে তা সময়ের অপচয়।
উস্তাদজী মনে করেন, যেহেতু ইসলামের দার্শনিক ও রাজনৈতিক মর্ম নিয়ে বাংলাদেশে আলোচনা নাই বললেই চলে, ফলে এই ধরণের ভুল বোঝাবুঝি অসম্ভব কিছু না।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.