বই মেলায় পাঠকের অংশগ্রহণ মুখ্য নয়:___ মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার

বিশেষ প্রতিবেদকঃ খান ফয়সাল

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

পাঠকরা যদি না চান তবে আসবেন না মেলায়। লকডাউনে করোনা ঝুঁকির মাঝে মেলা চালু রাখলেও বাংলা একাডেমি ও জ্ঞান সৃজনশীল প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানের কাছে মুখ্য নয় এই সাংবাদিক ও প্রকাশক মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদারের মেলায় পাঠকের অংশগ্রহণ। বরং উল্টো দায় চাপালেন, তিনি গণম্যাধম ও প্রকাশকদের ওপর। যদিও, মেলায় আসা হাতে গোনা পাঠকরা বলছেন, নিরিবিলি ঘুরতে চাইলে মেলায় আসুন।

সোমবার (০৫ এপ্রিল) সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে মেলার মাঠে চ্যানেল মাই টিভি সঙ্গে কথা বলেন ।

তিনি জানান, পাঠক বইমেলায় না আসতে চাইলে আসবেন না, প্রকাশকরা না চাইলে আসবেন না। যদি মনে করেন ঝুঁকি তাহলে তারা আসবেন না। ‘আমি অবশ্যই তাদের জোর করবো না যে, আসুন’ বলেন তিনি।

লকডাউনের মাঝেও কেন চলছে বইমেলা এমন প্রশ্নের মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার বলেন, ‘পাঠকরা কি ঝুঁকির ভিতরে পড়ে, জনগণ কি ঝুঁকির ভিতরে পড়ে আপনাকে আমার শিখানো লাগবে না, আপনি আমাকে শিখাবেন না।’

বইমেলার দুপুর মেলার প্রধান ফটকে ১০ মিনিট ঠাই দাঁড়িয়ে শ্যামল বাংলা ডট নেট নিজস্ব প্রতিবেদক দেখতে পান ও কথা বলে প্রবেশকারী চারজনের মধ্যে তিনজনই বিক্রয় কর্মী। অন্যজন গণমাধ্যমকর্মী। এই হলো করোনার লকডাউনে অমর একুশে গ্রন্থমেলা।

লকডাউনে বিনাপ্রয়োজনে বাইরে বেরুলেই রয়েছে শাস্তির খড়গ। তাই শূণ্য মেলায় হঠাৎই দেখামেলে পাঠকের।

মেলায় আসা দর্শনার্থী জানান, একুশের বইমেলা সঙ্গে লকডাউনের আমেজ উপভোগ করতে আসা। অপরজন বলছেন কেউ যদি নিরিবিলি ঘুরতে চাই সেজন্য এটা উপযুক্ত জায়গা।

মেলা চালু রাখতে গণমাধ্যমের দায় কতটুকু? মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদারের দাবীর মুখে তাদের বক্তব্যই বা কী?

গণমাধ্যমকর্মী জিনিয়া কবির সূচনা বলেন, সবকিছু মিলিয়েই এই বইমেলা একটা প্রশ্নবোধক বইমেলা থেকে যাবে।

অপর গণমাধ্যমকর্মী নীল মাহবুব বলেন, গণমাধ্যমকর্মীরা আসলেই কখনোই চাইনি যে বইমেলাটা এইরকম পরিস্থিতিতে হোক।

তবে কেন বইয়ের মেলা? পাঠক ছাড়া মেলাই বা কেমন চলছে? প্রকাশকরা বলছেন, বাংলা একাডেমির খামখেয়ালীর কারণেই ক্ষতির মুখে পড়ছেন তারা।

শোভা প্রকাশনের প্রকাশক আশিকুর রহমান বলেন, প্রকাশকরা স্বেচ্ছাই চলে গেলে যাক, মেলা চললে চলুক। ব্যাপারটা এমন হয়ে গেল না। প্রকাশকদের একটা ঠেলায় রাখলো যে আপনারা মেলা করলে করেন। মেলা তো করতে দিয়েছি আপনাদেরকে। কে নিবে আমাদের এই দায়ভারটা।

এদিকে,গত রোববার রাতের কালবৈশাখী ঝড়ে ক্ষতির মুখে পড়ে অনেক স্টল। ভিজে যায় অসংখ্য বই।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.