সোমবার, ১৪ Jun ২০২১, ০১:৩৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
বিএফইউজে-ডিইউজে বিক্ষোভ সমাবেশে নেতৃবৃন্দ গণতন্ত্র ও গণমাধ্যমের স্বাধীনতা রক্ষায় বিচার বিভাগের নিরপেক্ষ ভূমিকা জরুরি আশুলিয়া শিল্পাঞ্চলে পুলিশের ধাওয়ায় এক নারী শ্রমিকের মৃত্যু তিতাস তাকওয়া ফাউন্ডেশনের সভাপতি শাহজালাল, সম্পাদক ফারুক ও সাংগঠনিক সজীব থানায় সাধারণ ডায়েরি বা মামলা গ্রহণ করেনি মাগুরায় ১৭ জন নতুন করোনা রোগী শনাক্ত! জেলা শহরে ও মহম্মদপুরে লকডাউন ঘোষনা উত্তরা আধুনিক মেডিকেলে ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারিদের ইনজেকটিং ড্রাগ্সের রমরমা ব্যবসা স্বাস্থ্যবিধি মেনে কুবিতে সশরীরে পরীক্ষা শুরু খুটাখালীতে ইজিবাইক উল্টে গৃহবধুর মৃত্যু রংপুরে ঘাঘট নদীতে দুই ভাইবোনের মৃত্যু বাঁচতে চায় কাজল রেখা, কিন্তু পরিবারের সাধ্য নেই

মুসলমানদের ২০টি স্মরণীয় আবিষ্কার

সাহাদত হোসেন খান

বৈজ্ঞানিক আবিষ্কারের সঙ্গে মুসলমানদের সম্পর্ক অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ। আমরা বিজ্ঞানের আর্শীবাদ হিসাবে যেসব বৈজ্ঞানিক যন্ত্রপাতি ব্যবহার করি সেগুলোর মধ্যে মুসলমানদের আবিষ্কার হলো এক হাজার একটি। ২০০৬ সালের ৮ মার্চ থেকে ৪ জুন পর্যন্ত ইংল্যান্ডের মানচেস্টারে মিউজিয়াম অব সায়েন্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিতে ‘ওয়ান থাউস্যান্ড ওয়ান ইনভেশন্স: মুসলিম হেরিটেজ ইন আওয়ার ওয়ার্ল্ড’ (1001 Inventions : Muslim Heritage in our world) ) শিরোনামে একটি প্রদর্শনীতে মুসলিম বিজ্ঞানীদের আবি®কৃত যন্ত্রপাতি প্রদর্শন করা হয়। এখানে সবগুলো আবিষ্কার নিয়ে আলোচনা করা সম্ভব নয়। শুধুমাত্র লন্ডনের দি ইন্ডিপেন্ডেন্ট পত্রিকায় যে ক’টি আবিষ্কারের কথা উল্লেখ করা হয়েছে সেগুলো নিয়ে আলোচনা করা হলো। ২০০৬ সালের ১১ মার্চ পল ভ্যালি পরিবেশিত হাউ ইসলামিক ইনভেন্টার্স চেঞ্জড দ্য ওয়ার্ল্ড ((How Islamic Inventors changed the world) বা কিভাবে ইসলামী বিজ্ঞানীরা পৃথিবীকে বদলে দিয়েছেন শিরোনামে প্রকাশিত রিপোর্টে উল্লেখিত ২০টি আবিষ্কারের বর্ণনা দেয়া হলো।

কফি
আজকাল আমরা ঘরে ঘরে আধুনিক সভ্যতার অনুষঙ্গ হিসাবে কফি নামে পরিচিত যে উপাদেয় পানীয় পরিবেশন করতে দেখি তার আবিষ্কারক হলো মুসলমান। উত্তর-পূর্ব ইথিওপিয়ার কাফা অঞ্চলের নাম থেকে কফি শব্দটি এসেছে। এখানে ব্যাপক পরিমাণ কফি উৎপন্ন হতো। তবে তা কারো জানা ছিল না। তার উপকারিতাও কেউ বুঝতে পারেনি। খালিদ নামে একজন আরব কাফা অঞ্চলে ছাগল চরাচ্ছিলেন। হঠাৎ তিনি লক্ষ্য করেন যে, এক ধরনের বীজ ভক্ষণ করায় তার ছাগলগুলোকে বেশ উৎফুল্ল দেখাচ্ছে। তিনি এ বীজ সিদ্ধ করে প্রথম কফি তৈরি করেন। ইথিওপিয়া থেকে ইয়েমেন ও দক্ষিণ আরবে কফি চাষ সম্প্রসারিত হয়। এ কফি বীজ থেকে পানীয় তৈরি করা হতে থাকে। আরব অঞ্চলে উৎপাদিত কফিকে বলা হতো কফিয়া আরাবিয়া ((Coffea Arabia)| )। পঞ্চদশ শতাব্দীতে ইয়েমেন ও দক্ষিণ আরবে সুফিদের মধ্যে কফি পানের প্রথম প্রমাণ পাওয়া যায়। এ পানীয় পান করে সারারাত জেগে মুসলিম সুফিরা এবাদত বন্দেগী করতেন। ১৬৪৫ সালে আরব থেকে কফি প্রথমে গিয়ে পৌঁছায় ইতালির ভেনিসে। পাসকুয়া রোসি নামে একজন তুর্কি ১৬৫০ সালে ইংল্যান্ডে কফি নিয়ে যান। রোসি লন্ডনের ল্যাম্বার্ড স্ট্রীটে প্রথম কফি হাউজ খোলেন। আরবী ‘কাওহা’ ((Qahwa) ) তুর্কি শব্দ কাহভে (Kahve) পরিণত হয়। পরে এ নাম থেকে ইতালীয় ‘কাফি’ (caffe´´) এবং পরে ইংলিশ ‘কফি’তে ((coffe) ) রূপান্তরিত হয়।

দাবা খেলা
আধুনিক দাবা খেলার জন্ম হয়েছে মুসলমানদের হাতে। প্রাচীন ভারতে চতুরঙ্গ (Chaturanga)) নামে এক ধরনের দাবা খেলার প্রচলন ছিল। তবে আজকে আমরা দাবা খেলাকে যে পর্যায়ে দেখতে পাই তার বিকাশ ঘটেছিল পারস্যে। সাসানীয় পারস্যে ভারতের চতুরঙ্গ ‘শাতরঞ্চ’ ((Shatranj) ) নামে প্রচলিত হয়। পারস্য থেকে দাবা খেলা পশ্চিম ইউরোপে ছড়িয়ে পড়ে। দশম শতাব্দীতে মুর মুসলমানরা স্পেনে দাবা খেলা চালু করে। দাবা খেলায় ব্যবহৃত রুক (Rook) ) শব্দটি এসেছে ফারসি ‘রখ’ (Rokh) শব্দ থেকে। ফারসি রখ শব্দটির মানে হলো চার চাকার গাড়ি (Chariot))।

প্যারাশ্যূট
আমরা সবাই জানি অরভিল রাইট ও উইলভার রাইট নামে আমেরিকার দু’ভাই ১৯০১ সালে বিমান আবিষ্কার করেছেন। কিন্তু তাদের এক হাজার বছর আগে আব্বাস ইবনে ফারনাস নামে একজন মুসলিম কবি, জ্যোতির্বিজ্ঞানী, সঙ্গীতজ্ঞ ও প্রকৌশলী একটি উড্ডয়ন যন্ত্র তৈরি করতে কয়েকবার চেষ্টা করেন। ৮৫২ সালে তিনি কাষ্ঠখণ্ডে একটি ঢিলা আলখাল্লা পেঁচিয়ে কর্ডোভার গ্রান্ড মসজিদের মিনার থেকে ঝাঁপ দেন। পাখির মতো উড়তে চেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু ব্যর্থ হন। আলখাল্লা তার গতি শ্লথ করে দেয়। নিচে পতিত হওয়ার সময় তিনি সামান্য আহত হন। তবে তার স্বপ্ন বৃথা যায়নি। তার প্রচেষ্টার পথ বেয়ে আধুনিক প্যারাশ্যূটের জন্ম হয়েছে।

ফারনাসের জন্ম ৮১০ সালে স্পেনের কর্ডোভায়। ল্যাটিন ভাষায় তার নাম আরম্যান ফারমান (অৎসধহ ঋরৎসধহ)। তার আকাশে উড্ডয়নের প্রচেষ্টা সম্পর্কে মরক্কোর ঐতিহাসিক আহমদ মোহাম্মদ আল-মাক্কারি সাক্ষ্য দিয়েছেন। তবে তিনি একজন কবি ছাড়া আর কোনো সূত্র উল্লেখ করতে পারেননি। নবম শতাব্দীর কবি মুমিন ইবনে সাঈদের একটি কবিতা ছিল তার সূত্র। প্রথম মোহাম্মদের আমলে কর্ডোভার এ রাজকবি তার কবিতায় লিখেছিলেন, ÔHe flew faster than the phoenix in his flight when he dressed his body in the feathers of a vulture.’ অর্থাৎ ‘শরীরে শকুনের পাখা পেঁচিয়ে যখন উড্ডয়ন করেন তখন তিনি ফিনিক্সের চেয়ে দ্রুতগতিতে উড়ে যেতে সক্ষম হন।’ প্রথম বারের প্রচেষ্টা ব্যর্থ হলে দ্বিতীয়বার ৮৭৫ সালে ৭০ বছর বয়সে ইবনে ফারনাস রেশম ও ঈগলের পাখা দিয়ে একটি যন্ত্র তৈরি করে আবার একটি পাহাড় থেকে ঝাঁপ দেন। তিনি বেশ উঁচুতে পৌঁছাতে সক্ষম হন এবং ১০ মিনিট অবস্থান করেন। তবে তিনি অবতরণ করতে গিয়ে ভেঙ্গে পড়েন। নির্ভুলভাবে তিনি তার ভুল বুঝতে পেরেছিলেন। পাখির মতো লেজ না লাগানোর জন্য অবতরণের সময় তিনি টাল সামলাতে পারেননি। লিন টাউনসেন্ড হোয়াইট জুনিয়র ‘টেকনোলজি এন্ড কালচার’-এ সেই ঐতিহাসিক ঘটনার বিবরণ দিতে গিয়ে লিখেছেন, ÔAmong other very curious experiments which he made, one is his trying to fly. He covered himself with feathers for the purpose, attached a couple of wings to his body, and, getting on an eminence, flung himself down into the air, when according to the testimony of several trustworthy writers who witnessed the performance, he flew a considerable distance, as if he had been a bird, but, in alighting again on the place whence he had started, his back was very much hurt, for not knowing that birds when they alight come down upon their tails, he forgot to provide himself with one.অর্থাৎ ‘তিনি (ইবনে ফারনাস) যেসব অতি কৌতূহলোদ্দীপক পরীক্ষা নিরীক্ষা চালান সেগুলোর মধ্যে তার আকাশে উড্ডয়নের প্রচেষ্টা ছিল অন্যতম। এ উদ্দেশ্যে তিনি পালক দিয়ে শরীর পেঁচিয়ে নেন, শরীরে এক জোড়া পাখা সংযুক্ত করেন এবং উঁচুতে পৌঁছে নিচে বাতাসে ঝুলতে থাকেন। এ ঘটনা প্রত্যক্ষকারী কয়েকজন বিশ্বস্ত লেখকের সাক্ষ্য অনুযায়ী এসময় তিনি পাখির মতো উল্লেখযোগ্য দূরত্ব অতিক্রম করেন। কিন্তু যেখান থেকে তিনি যাত্রা শুরু করেছিলেন পুনরায় সেখানে অবতরণ করতে গেলে পৃষ্ঠদেশে প্রচণ্ড আঘাত পান। পাখিরা তাদের লেজের ওপর ভর করে নিচে নেমে আসে। একথা জানা না থাকায় তিনি লেজ ব্যবহার করতে ভুলে গিয়েছিলেন।

ইবনে ফারনাসের আরো কৃতিত্ব আছে। তিনি পাঠের অযোগ্য গোপন সাংকেতিক বার্তার পাঠোদ্ধার করতে পারতেন। এছাড়া তিনি চশমা ও জটিল ক্রনোমিটার আবিষ্কার করেন। তিনি তার বাড়িকে একটি নক্ষত্রশালা হিসাবে নির্মাণ করেছিলেন। এ বাড়ি থেকে গ্রহ ও নক্ষত্র পর্যবেক্ষণ করা হতো এবং মেঘ ও বজ্রপাত দেখা যেতো। জ্যোতির্বিজ্ঞানী ইবনে ফারনাসকে বিশ্ব সম্মান দিতে কুন্ঠা প্রকাশ করেনি। ১৯৭৬ সালে চাঁদের একটি গহ্বরের নামকরণ করা হয় তার নামে। ৬ দশমিক ৮ দ্রাঘিমাংশ এবং ১২২ দশমিক ৩ ই অক্ষাংশে এ গহ্বরের দৈর্ঘ্য ৮৯ দশমিক শূন্য পাঁচ কিলোমিটার। বাগদাদের আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরের নামকরণ করা হয়েছে তার নামে। লিবিয়ার একটি পোস্ট কার্ডে তার প্রতিকৃতি শোভা পাচ্ছে।

শ্যাম্পু
অজু ও গোসলকে মুসলমানদের জন্য ফরজ কাজ হিসাবে গণ্য করা হয়। পবিত্রতা অর্জনের প্রয়োজনে মুসলমানরা সাবান তৈরির সরঞ্জাম সংগ্রহ করতে বাধ্য হয়। এ সাবান এখনো আধুনিক পৃথিবীতে ব্যবহৃত হচ্ছে। রোমানরা সাবানকে যেভাবে একটি সুগন্ধি দ্রব্য হিসাবে ব্যবহার করতো, প্রাচীন মিসরীয়রা ঠিক সেভাবে সাবান ব্যবহার করতো। তবে একমাত্র আরবরাই প্রথম সুগন্ধি দ্রব্য হিসাবে সোডিয়াম হাইড্রোক্সাইড ও এরোমেটিক্সের সঙ্গে শাকসব্জির তৈল মিশিয়ে শ্যাম্পু তৈরি করে। আরবদের মতো ক্রুসেডাররা অজু ও গোসল করতো না। তাই তাদের শ্যাম্পুর তেমন একটা প্রয়োজন হয়নি। বাঙালি মুসলমান শেখ দীন মোহাম্মদ ইংল্যান্ডে শ্যাম্পু চালু করেন। তিনি ১৭৫৯ সালে ব্রাইটন সিফ্রন্টে ‘মেহমুদের ইন্ডিয়ান ভ্যাপার বাথ’ (Mahomed’s Indian Vapour Baths) নামে শ্যাম্পুর একটি দোকান খোলেন। এ মুসলমানকে সম্রাট চতুর্থ জর্জ ও চতুর্থ উইলিয়াম শ্যাম্পুয়িং সার্জন (Shampooing Surgeon) হিসাবে নিয়োগ দিয়েছিলেন।

বর্ম
১২৬০ সালে আইন জালুতে তাতারদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে মিসরীয় সৈন্যরা বর্ম হিসাবে প্রথম অগ্নিপ্রতিরোধক পোশাক পরিধান করে এবং গোলাবারুদ থেকে আত্মরক্ষায় তাদের হাতে প্রথম পিচ্ছিল পাউডার ব্যবহার করে। এছাড়া আরবরা বর্ম হিসাবে সেলাই করা এক ধরনের কাপড়ও ব্যবহার করতো। বর্ম তৈরির কৌশল মুসলিম বিশ্বে উদ্ভাবিত হয়েছিল নাকি চীন অথবা ভারত থেকে মুসলিম বিশ্বে এসেছিল তা স্পষ্ট নয়। তবে তা নিশ্চিতভাবে ক্রুসেডারদের মাধ্যমে পাশ্চাত্যে গিয়ে পৌঁছে। ক্রুসেডাররা মুসলিম যোদ্ধাদের এ কৌশল ব্যবহার করতে দেখেছিল। মুসলিম যোদ্ধারা প্রতিরক্ষা হিসাবে বর্মের পরিবর্তে খড় বোঝাই ক্যাম্বিসের শার্টও পরিধান করতো। ক্রুসেডারদের ধাতব বর্মের আক্রমণের বিরুদ্ধে ক্যাম্বিসের এ মোটা শার্ট যুুদ্ধে একটি কার্যকর কৌশল হিসাবে প্রমাণিত হয় এবং তা ছিল ব্যবহৃত সামগ্রীগুলো কার্যকরভাবে পৃৃথক করার একটি পদ্ধতি। এ কৌশল এত সফল বলে প্রমাণিত হয় যে, ব্রিটেন ও হল্যান্ডের মতো শীতপ্রধান দেশগুলোতে তা একটি কুটির শিল্পে রূপান্তরিত হয়।

সার্জারি
আধুনিক যুগে শৈল্য চিকিৎসায় যেসব যন্ত্রপাতি ব্যবহার করা হয় সেগুলো অবিকল দশম শতাব্দীতে মুসলিম শৈল্যবিদ আল-জাহরাবি উদ্ভাবিত যন্ত্রপাতির অনুরূপ। তিনি চোখের অস্ত্রোপচারে সাঁড়াশি, সূক্ষè কাঁচি, ছুরি ও ছোট করাত ব্যবহার করতেন। এছাড়া তিনি আরো দু’শতাধিক যন্ত্রপাতি তৈরি করেছিলেন। আধুনিক সার্জনরা তার উদ্ভাবিত এসব যন্ত্রপাতি ব্যবহার করেন। আল-জাহরাবির আবিষ্কারের মধ্যে আরো রয়েছে পেট সেলাই করার জন্য ব্যবহৃত এমন সূতা যা আপনাআপনি গলে যায় এবং যা ক্যাপসুল তৈরিতেও ব্যবহার করা যায়। একটি বানর তার বাঁশির তার খেয়ে ফেলার ঘটনা থেকে তিনি এ সত্য বুঝতে পারেন। মুসলিম চিকিৎসকগণ আফিম ও এলকোহলের মিশ্রণে এনেসথেশিয়া উদ্ভাবন করেন এবং চোখের ছানি অপসারণে ফাঁপা সূই আবিষ্কার করেন। এখনো চোখের ছানি কাটতে এ ফাঁপা সূই ব্যবহার করা হয়।

স্যুপ
স্যুপ তৈরি করার পদ্ধতি মুসলমান ছাড়া আর কেউ জানতো না। ইউরোপে এ পদ্ধতি বয়ে নিয়ে যাবার জন্য আলী ইবনে নাফি স্মরণীয় হয়ে রয়েছেন। নাফির ডাকনাম ছিল জারিয়াব বা কালো পাখি। নবম শতাব্দীতে তিনি ইরাক থেকে স্পেনের কর্ডোভায় গিয়ে সেখানে স্যুপ তৈরির ধারণা ছড়িয়ে দেন। পানি অথবা অন্য কোনো তরল পদার্থের সঙ্গে মাংস, শাকসব্জি, জুস ও মসল্লা মিশিয়ে স্যুপ বা উষ্ণ খাদ্য তৈরি করা যায়। নাফি প্রথমে মাছ অথবা মাংস দিয়ে স্যুপ তৈরি করতেন। পরে ফলমূল বা বাদাম দিয়ে। নাফি স্পেনে ক্রিস্টাল গ্লাসও চালু করেন।

পে চেক
আধুনিক চেক শব্দটি এসেছে আরবী সাক থেকে। সাক হলো মাল ডেলিভারি দেয়ার পর পণ্যের মূল্য পরিশোধের একটি লিখিত অঙ্গীকারনামা। বিপজ্জনক জায়গায় অর্থ বহনের ঝুঁকি এড়াতে সাক-এর আশ্রয় নেয়া হতো। নবম শতাব্দীতে একজন মুসলিম ব্যবসায়ী বাগদাদের কোনো ব্যাংক থেকে নিজের নামে ইস্যুকৃত সাক সুদূর চীনে গিয়েও ভাঙ্গাতে পারতেন।

রকেট ও টর্পেডো
চীনারা যবক্ষার থেকে বারুদ আবিষ্কার করেছিল এবং আঁতশবাজিতে বারুদ ব্যবহার করতো। কিন্তু আরবরাই প্রথম সামরিক প্রয়োজনে পটাশিয়াম নাইট্রেটের সাহায্যে বারুদ পরিশোধন করে। মীর ফাতেহউল্লাহ খান হলেন বন্দুক ও বারুদের আবিষ্কারক। ‘অ্যারাব সিভিলাইজেশন’-এ ড. লীবন লিখেছেন, ‘ ÔGunpowder was a great invention of the Arabs who were already using guns.
অর্থাৎ ‘গোলাবারুদ হলো আরবদের একটি শ্রেষ্ঠতম আবিষ্কার। বারুদ আবিষ্কারের আগে তারা বন্দুক ব্যবহার করছিল।

১৩৪০ সালে ফ্রাঞ্জডল আল-বাশুর অবরোধ করলে আরবরা এ শহর প্রতিরক্ষায় বন্দুক ব্যবহার করে। ‘হিস্টরি অব দ্য মুরিশ এম্পায়ার ইন স্পেন’-এর লেখক স্কট আরবদের বন্দুক ব্যবহারের সত্যতা সমর্থন করেছেন।
আরবরা প্রাথমিক যুগে পটাশিয়াম নাইট্রেটের সঙ্গে পরিচিত ছিল এবং খলিফা খালিদ ইবনে ইয়াজিদ-ও পটাশিয়াম নাইট্রেটের কথা জানতেন। তবে বিভিন্ন নামে এ রসায়নিক পদার্থ ব্যবহার করা হতো। ধাতুর কাজকর্মে একটি ফ্লাক্স হিসাবে এবং নাইট্রিট এসিড ও একোয়া রিজিয়া তৈরিতে তা কাজে লাগানো হতো। জাবির ইবনে হাইয়ান, আবু বকর আল-রাজি ও অন্যান্য আরব রসায়নবিদের রচনাবলীতে এ রসায়নিক পদার্থ ব্যবহারের রেসিপি খুঁজে পাওয়া গেছে। আরবরাই প্রথম সল্টপিটারকে পরিশোধন করে অস্ত্র তৈরির মানে উন্নীত করে। ১০২৯ সালে ইবনে বখতাওয়ারের ‘আল-মুদ্দাদিমা’য় অস্ত্র উৎপাদনের উদ্দেশ্যে সল্টপিটার পরিশোধন করার বর্ণনা দেয়া হয়েছে। ১২৭০ সালে সিরীয় সামরিক প্রকৌশলী ও রসায়নবিদ হাসান আল-রাম্মাহ তার ‘আল-ফুরুসিয়া ওয়া আল-মানাসিব আল-হারবিয়া’য় (ঞযব ইড়ড়শ ড়ভ গরষরঃধৎু ঐড়ৎংবসধহংযরঢ় ধহফ রহমবহরড়ঁং ধিৎ ফবারপবং) বিস্ফোরক বারুদ ও বারুদের ব্যবহার নিয়ে আলোচনা করেছেন। তিনি প্রথম পটাশিয়াম নাইট্রেট পরিশোধন করার প্রক্রিয়া বর্ণনা করেন। এছাড়া তিনি পটাশিয়াম নাইট্রেট থেকে ক্যালশিয়াম ও ম্যাগনেশিয়াম সল্ট অপসারণে পটাশিয়াম কার্বোনেট ব্যবহারের কথা উল্লেখ করেছেন। ১২৭০-৮০ সালের মধ্যে তিনি বইটি লিখেছিলেন। বইটিতে ১০৭ প্রকারের বারুদ তৈরির বর্ণনা দেয়া হয়েছে। রকেট তৈরির বর্ণনা দেয়া হয়েছে ২২টি রেসিপিতে। আধুনিক বৈজ্ঞানিক হিসাব অনুযায়ী বারুদ তৈরির জন্য প্রয়োজন ৭৫ শতাংশ পটাশিয়াম নাইট্রেট, ১০ শতাংশ সালফার এবং ১৫ শতাংশ কার্বন। হাসান আল-রাম্মাহর রেসিপিতে ছিল ৭৫ শতাংশ পটাশিয়াম নাইট্রেট, ৯ দশমিক শূন্য ৬ শতাংশ সালফার এবং ১৫ দশমিক ৯৪ শতাংশ কার্বন। ১২৬০ সালে মিসরীয় সৈন্যরা তাতার সৈন্যদের বিরুদ্ধে আইন জালুতের যুদ্ধে ইতিহাসে প্রথম কামান থেকে গোলা ছুঁড়ে। স্পেনের আল-আন্দালুসে মুসলমানরা খ্রিস্টান ক্রুসেডারদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে একইভাবে কামান ব্যবহার করে। অগ্নিউদগীরণকারী মুসলিম অস্ত্রগুলো ক্রুসেডারদের ভীত করে তোলে। পঞ্চদশ শতাব্দীতে আরবরা রকেট ও টর্পেডো দু’টিই আবিষ্কার করে। রকেটকে বলা হতো ‘তায়ার বুরাক’ বা ‘স্বয়ংক্রিয় ও জলন্ত ডিম।’ আরবদের উদ্ভাবিত টর্পেডো ছিল সামনে বর্শা সজ্জ্বিত নাশপাতির আকৃতি বিশিষ্ট একটি স্বয়ংক্রিয় বোমা। বোমাটি শত্র“ জাহাজ ভেদ করে ভেতরে ঢুকে গিয়ে বিস্ফোরিত হতো।

টর্পেডো আবিষ্কারে মুসলমানদের কৃতিত্বের স্বীকৃতি দিয়ে ‘এনশিয়েন্ট ডিসকভারি, এপিসোড টুয়েলভ: মেশিন অব দ্য ইস্ট’-এ বলা হয়, ‘ One of the most significant inventions in medieval warfare was the torpedo, invented in Syria by the Arab inventor Hassan al-Rammah in 1275. His torpedo ran in water with a rocket system filled with explosive gunpowder meterials and had three firing points. It was a very effective weapon against ships. অর্থাৎ ‘টর্পেডো ছিল মধ্যযুগের যুদ্ধে অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ একটি আবিষ্কার। ১২৭৫ সালে আরব আবিষ্কারক হাসান আল-রাম্মাহ সিরিয়াতে টর্পেডো উদ্ভাবন করেন। তার উদ্ভাবিত টর্পেডো বিস্ফোরক গোলাবারুদ পূর্ণ একটি রকেট নিয়ে পানির ভেতর ছুটে যেতো এবং তাতে ছিল গোলা বের হওয়ার তিনটি ছিদ্র। যুদ্ধজাহাজের বিরুদ্ধে এ অস্ত্র ছিল অত্যন্ত কার্যকর।’
২০১১ সালে ওয়ার্ল্ড ডিসকভারি চ্যানেলে জেমি হ্যানিম্যান এবং এডাম স্যাভেজ আরব বিজ্ঞানী রাম্মাহর উদ্ভাবিত টর্পেডোর একটি নমুনা তৈরি করেন এবং কয়েক বার চেষ্টার পর নমুনাটি ছুঁড়তে সক্ষম হন। অস্ত্রটিকে তারা বিশ্বস্ত হিসাবে দেখতে পান।

এসব মারণাস্ত্র ব্যবহারের ফলাফল হয়েছিল বিস্ময়কর। কিন্তু মুসলমানদের দুর্ভাগ্য। এ প্রযুক্তি স্পেনের খ্রিস্টানদের কাছে হস্তান্তরিত হয় এবং মুসলমানদের সঙ্গে শেষ লড়াইয়ে ক্রুসেডাররা কামান ব্যবহার করে। স্পেনের খ্রিস্টানদের কাছ থেকে এ প্রযুক্তি পশ্চিম ইউরোপে গিয়ে পৌঁছে। ১৩৪২-৪৫ সালে ডারবি ও সলিসবেরির আর্লগণ আল-জাজিরা অবরোধে অংশগ্রহণ করেন এবং তারা গোলাবারুদ ও কামান তৈরির রহস্য ইংল্যান্ডে নিয়ে যান। তার মাত্র দু’এক বছর পর ১৩৪৬ সালে পশ্চিম ইউরোপে ক্রিসির যুদ্ধে ফরাসিদের বিরুদ্ধে ইংরেজরা কামান ব্যবহার করে।

ইউরোপীয়রা আতশবাজি তৈরি করতে জানতো না। মুসলমানদের কাছ থেকে তারা এ জ্ঞান লাভ করে। একজন ফরাসি বৈরুতে এসে লোকজনকে আতশবাজি করতে দেখেন। এ ফরাসির নাম ছিল বারট্রানডন দ্য লা ব্রকিয়েরি। ১৪৪২ সালে ব্রকিয়েরি ভ্রমণকারীর ছদ্মবেশে জেরুজালেম ও তুরস্কের আনাতোলিয়া সফর করেন। ভ্রমণের অভিজ্ঞতা নিয়ে তিনি ‘লা ভয়েজ ডি’কোত্রি-মার’ শিরোনামে একটি গ্রন্থ লিখেছিলেন। বারগুন্ডির ডিউকের নেতৃত্বে আরেকটি ক্রুসেড পরিচালনা করার সম্ভাব্যতা যাচাইয়ে তিনি ইসলামী দেশগুলো সফর করছিলেন। তিনি ছিলেন একজন দক্ষ গুপ্তচর এবং অত্যন্ত সূক্ষèদর্শী পর্যটক। ব্রকিয়েরি তার যাত্রাপথের সবকিছু খুটিয়ে খুটিয়ে দেখতেন। বর্তমান লেবাননের রাজধানী বৈরুতে এসে তিনি স্থানীয় অধিবাসীদের ঈদ উদযাপন করতে দেখতে পান। লোকজন ঈদের আনন্দে আতশবাজি করছিল। জীবনে তিনি প্রথমবার আতশবাজি দেখেন। তিনি যুদ্ধে বারুদের সম্ভাব্য গুরুত্ব অনুধাবনে সক্ষম হন এবং ঘুষ দিয়ে বারুদের ব্যবহার শিখে নেন। ব্রকিয়েরি তার এ ধারণা ফ্রান্সে নিয়ে যান।

উইন্ডমিল
৬৩৪ সালে পারস্যের একজন খলিফার জন্য উইন্ডমিল বা বায়ুকল প্রস্তুত করা হয়। শস্য চূর্ণ এবং সেচের জন্য পানি উত্তোলনে তা ব্যবহার করা হতে থাকে। গ্রীষ্মকালে পানির উৎসগুলো শুকিয়ে গেলে আরব দেশের বিশাল মরুভূমিতে শক্তির একমাত্র মাধ্যম হয়ে দাঁড়াতো বাতাস। কয়েক মাস পর্যন্ত একদিক থেকে অন্যদিকে দ্রুত বেগে বাতাস প্রবাহিত হতো। প্রতিটি উইন্ডমিল বা বায়ুকলে কাপড় অথবা খেজুর পাতায় আচ্ছাদিত পাল থাকতো ছয়টি কিংবা ১২টি। ইউরোপে বায়ুকল চালু হওয়ার ৫ শ’ বছর আগে আরব দেশে তা ব্যবহার করা হয়েছিল।

পিন হোল ক্যামেরা
প্রাচীন গ্রীক বিজ্ঞানীরা ধারণা করতেন যে, লেসারের মতো আমাদের চোখ থেকে রশ্মি বের হয়। এ রশ্মি বের হওয়ায় আমরা দেখতে পাই। কিন্তু তাদের ধারণা ছিল ভুল। দশম শতাব্দীর মুসলিম বিজ্ঞানী, জ্যোতির্বিদ ও চিকিৎসা বিজ্ঞানী ইবনে আল-হাইছাম হলেন প্রথম ব্যক্তি যিনি উপলব্ধি করতে সক্ষম হন যে, চোখ থেকে রশ্মি বের হওয়ার পরিবর্তে বরং আমাদের চোখে রশ্মি প্রবেশ করে। জানালার শাটার ভেদ করে আলো প্রবেশ করতে দেখতে পেয়ে তিনি প্রথম পিন হোল ক্যামেরা উদ্ভাবন করেন। তিনি অভিমত দেন যে, কোটর যত ছোট হবে ছবি তত বড় হবে। এ ধারণার ভিত্তিতে তিনি প্রথম ক্যামেরা অবসকিউরা নির্মাণ করেন। ইংরেজি অবসকিউরা (Obscura)) শব্দটি এসেছে আরবী ‘কামারা’ (Qamara) ) শব্দ থেকে। ইবনে হাইছাম হলেন প্রথম ব্যক্তি যিনি পদার্থবিজ্ঞানকে দর্শন থেকে আলাদা করতে সক্ষম হন।

শোধন
অষ্টম শতাব্দীতে সর্বশ্র্রেষ্ঠ মুসলিম বিজ্ঞানী জাবির ইবনে হাইয়ান শোধন ও পাতন প্রণালী আবিষ্কার করেন। হাইয়ান আলকেমি থেকে রসায়নকে মুক্ত করেন এবং আজকাল আমাদের ব্যবহৃত বহু মৌলিক প্রক্রিয়া ও যন্ত্রপাতি উদ্ভাবন করেন। তার উদ্ভাবিত প্রক্রিয়াগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো স্ফটিকীকরণ, পাতন, শোধন, ঊর্ধ্বপাতন, পরিস্রাবণ, দ্রবণ, কেলাসন, ভস্মীকরণ, গলন, বাষ্পীয়ভবন ইত্যাদি। সালফিউরিক এসিড ও নাইট্রিক এসিডও তার আবিষ্কার। ইসলামে নিষিদ্ধ হলেও তিনি এলকোহল আবিষ্কার করেন। জাবির ইবনে হাইয়ান বৈজ্ঞানিক গবেষণার ওপর জোর দেন এবং তিনি হলেন আধুনিক রসায়নের জনক।

ঘূর্ণায়মান হাতল
ঘূর্ণায়মান হাতল আবিষ্কার করেছেন মুসলিম বিজ্ঞানী আল-জাজারি। ঘূর্ণায়মান হাতল হলো এমন একটি যন্ত্র যা রোটারি যন্ত্রকে পিস্টন ইঞ্জিনে রূপান্তরিত করতে পারে এবং এ যন্ত্রটি আধুনিককালের বহু যন্ত্রপাতি আবিষ্কারে মূল দিকনির্দেশনা দিয়েছে। মানব জাতির ইতিহাসে ঘূর্ণায়মান হাতল হলো অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বৈজ্ঞানিক আবিষ্কার। পানি উত্তোলনের জন্য আল-জাজারি যন্ত্রটি তৈরি করেন। ১২০৬ সালে প্রণীত বুক অব নলেজ অব ইনজীনিয়াস মেকানিক্যাল ডিভাইসেস ((ইড়ড়শ ড়ভ কহড়ষিবফমব ড়ভ ওহমবহরড়ঁং গবপযধহরপধষ উবারপবং)-এ তিনি ভাল্ব ও পিস্টন নির্মাণের কলাকৌশল বর্ণনা করেন। তিনি পানি এবং ওজন চালিত কয়েকটি যান্ত্রিক ঘড়ি উদ্ভাবন করেন। তাকে রোবটের জনক হিসাবে আখ্যায়িত করা হয়।

ছুঁচালো খিলান
ইউরোপে গথিক স্টাইলে নির্মিত গীর্জায় শোভিত ছুঁচালো খিলানের আবিষ্কারক হলো মুসলমানরা। এ তীক্ষè খিলান রোমান ও নরম্যানদের ব্যবহৃত খিলানের চেয়ে বহুগুণ শক্তিশালী। এ খিলান ভবনগুলোকে উঁচু, প্রশস্ত ও সুপরিসর করার সুযোগ দেয়। ঠেকনা দেয়া খিলান করা ছাদ, রোজ উইনডোজ ও গম্ভুজ তৈরির কলাকৌশলের জন্য মানব জাতি আরব স্থপতিদের কাছে ঋণী। ইউরোপীয়রা মুসলমানদের তৈরি উঁচু চূড়া, নিচু পাচিল, ফোকর ও বর্গাকৃতির টাওয়ার সম্বলিত দুর্গ নির্মাণের কৌশল হুবহু অনুকরণ করেছে। পঞ্চম হেনরির দুর্গ নির্মাণের স্থপতি ছিলেন একজন মুসলমান।

টিকা
টিকা দানের কৌশল জেনার অথবা পাস্তুরের নয়, মুসলমানদের আবিষ্কার। ১৭২৪ সালে ইস্তা¤ু^লে নিযুক্ত ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূতের স্ত্রী তুরস্ক থেকে টিকা দানের কৌশল শিখে এসে ইউরোপে ছড়িয়ে দেন। তুর্কি শিশুদের গুটিবসন্তের প্রতিষেধক হিসাবে গরুর বসন্তের জীবাণু সম্বলিত টিকা প্রদান করা হতো। ইউরোপে টিকা উদ্ভাবনের ৫০ বছর আগে মুসলিম দেশগুলোতে টিকা দেয়ার প্রমাণ পাওয়া যাচ্ছে।

ফাউন্টেন পেন
ফাউন্টেন পেনের আবিষ্কারক হলো মুসলমান। ৯৫৩ সালে মিসরের সুলতান মোয়াদ আল-মুয়িজের নির্দেশে ফাউন্টেন পেন আবি®কৃত হয়। তিনি এমন একটি কলম তৈরির নির্দেশ দেন যেন তার হাত ও কাপড়ে দাগ না লাগে। তার নির্দেশে তৈরি ফাউন্টেন পেনে কালি একটি আধারে সংরক্ষণ করা হতো। খোলস থেকে নলের সংযোগ দিয়ে কলমের নিবে কালি নেমে আসতো। কাজী আল-নুমান আল-তামিনির ‘কিতাব আল- মাজালিস ওয়াল-মুসাওয়ার্দ’-এ ফাউন্টেন পেন আবিষ্কারের এ কাহিনীর বিবরণ পাওয়া গেছে। আরেকটি বর্ণনায় বলা হয়, ক্রুসেডের সময় মুসলমানরা ফাউন্টেন পেন ব্যবহার করতো। এসময় মুসলিম ভূখণ্ড থেকে ইউরোপে এ প্রযুক্তি স্থানান্তরিত হয়।

অসীম সংখ্যা লিখন
সারা পৃথিবী জুড়ে এখন সংখ্যার ব্যবহার দেখা যায়। এমন একসময় ছিল যখন ১ থেকে ৯ পর্যন্ত সংখ্যাগুলো লিখে থেমে যেতে হতো। শূন্যের ব্যবহার চালু করে আরব গণিতজ্ঞরা মানব জাতিকে এ জটিলতা থেকে মুক্তি দিয়েছেন। সংখ্যা মূলত প্রাচীন ভারতে উদ্ভাবিত হলেও তা প্রথম ব্যবহার করেছিল আরবীয় মুসলমানরা। আনুমানিক ৮৩০ সালের দিকে মুসলিম গণিতজ্ঞ আল-খাওয়ারিজমি ও আল-কিন্দির গ্রন্থাবলীতে প্রথম সংখ্যা ব্যবহার করা হয়। খাওয়ারিজমির গ্রন্থ ‘আল-ইলম ওয়াল জাবর ওয়াল-মুকাবালা’ থেকে এলজাব্রা শব্দটির উৎপত্তি হয়েছে। তার নামে এলজাব্রার নামকরণ করা হয়েছে। আল-জাবর ওয়াল-মুকাবালা’র অধিকাংশ বিষয়বস্তু এখনো প্রচলিত। তিন শ’ বছর পর ইতালীয় গণিতজ্ঞ ফিবোনাসি ইউরোপে মুসলিম গণিতজ্ঞদের গ্রন্থাবলী ইউরোপে আমদানি করেন। এলজাব্রা ও ত্রিকোণমিতির অধিকাংশ ফর্মুলা এসেছে মুসলিম বিশ্ব থেকে। আল-কিন্দি ফ্রিকোয়েন্সি বিশ্লেষণে সক্ষম হওয়ায় প্রাচীন বিশ্বের সব সংকেতের পাঠোদ্ধার করা সম্ভব হয় এবং তার আবিষ্কার আধুনিক ক্রিপটোলজির ভিত্তি স্থাপন করেছে।

কার্পেট
গালিচা বা কার্পেট ব্যবহারের জন্য আরবদের খ্যাতি ছিল বিশ্বব্যাপী। মধ্যযুগে আরব স্থাপত্য অগ্রগতির চরম শিখরে আরোহন করে। কার্পেট বুননে তাদের কৌশল এবং শৈল্পিক জ্ঞান ছিল অতুলনীয়। ইসলামী রসায়নের বদৌলতে রঙ্গীন ও সুদৃশ্য কার্পেট তৈরি হতে থাকে। পক্ষান্তরে, ইউরোপের মেঝেগুলো ছিল তখন অনাবৃত। আরবীয় ও পার্সী কার্পেট না পৌঁছা পর্যন্ত ইউরোপের অবস্থা ছিল এমনি। ইংল্যান্ডে ঘরের মেঝেতে নলখাগড়া বিছিয়ে রাখা হতো। কোনো কোনো সময় মেঝেগুলো নবায়ন করা হতো। তবে তাও সাদামাটাভাবে। অন্তত ২০ বছর মেঝেগুলোর কোনো যতœ করা হতো না। উন্মুক্ত মেঝেগুলো মানুষ ও কুকুরের মলমূত্র, বমি, পচা মাছ, উচ্ছিষ্ট ইত্যাদিতে ভরে যেতো। কার্পেট বিস্ময়করভাবে এ পরিস্থিতির পরির্বতন ঘটায়।

গোলাকার পৃথিবীর ধারণা
নবম শতাব্দীতে অধিকাংশ মুসলিম বিজ্ঞানী স্বীকার করে নেন যে, পৃথিবী গোলাকার। প্রমাণ হিসাবে মুসলিম জ্যোতির্বিজ্ঞানী ইবনে হাজাম বলেন যে, সূর্য বরাবরই পৃথিবীর একটি নির্দিষ্ট স্পট থেকে লম্বভাবে অবস্থান করে। ইতালীয় জ্যোতির্বিজ্ঞানী গ্যালিলিও পৃথিবীর গোলাকার তত্ত্ব প্রচার করার ৫ শ’ বছর আগে ইবনে হাজাম একথা প্রচার করেছিলেন। মুসলিম জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের গণনা এত নির্ভুল ছিল যে, নবম শতাব্দীতে তারা পৃৃথিবীর পরিধি ৪০ হাজার ২৫৩ কিলোমিটার হিসাবে নির্ধারণ করেন। তাদের নির্ধারিত পরিমাণ ছিল ২ শ’ কিলোমিটার কম। ১১৫৪ সালে আল-ইদ্রিসী সিসিলির রাজা দ্বিতীয় রজারের দরবারে পৃথিবীর ভৌগোলিক অবস্থান চিহ্নিত করে একটি মানচিত্র তৈরি করেছিলেন।

বাগান
ইউরোপীয়রা বাগান করার ধারণা পেয়েছে মুসলমানদের কাছ থেকে। সৌখিন ও সৌন্দর্য পিপাসী জাতি হিসাবে আরবরা বাগান করতো। এছাড়া বাগান করার পেছনে একদিকে ছিল তাদের ধর্মীয় আবেগ এবং অন্যদিকে ছিল ভূ-প্রকৃতি। পবিত্র কোরআনে বাগানের বহু বর্ণনা দেয়া হয়েছে এবং পবিত্র হাদিসে ঈমানদার মুসলিম নর-নারীকে আখেরাতে জান্নাতের বাগানে ঠাঁই দেয়ার প্রতিশ্র“তি দেয়া হয়েছে। তাই মুসলমানদের মনে বাগান একটি বিরাট স্থান দখল করে থাকতো। আরব দেশের ভূ-প্রকৃতি রুক্ষ ও মরুময় হওয়ায় আরবরা সুশীতল ছায়া লাভের আশায় বাগান করতো। বাগান তৈরিতে আব্বাসীয় খলিফা হারুনুর রশীদ ও তার পুত্র আল-মামুনের বিশ্বজোড়া খ্যাতি ছিল। বাগদাদে খলিফা আল-মামুনের প্রাসাদের মনোরম বাগানে দুর্লভ ফুল ছাড়াও যন্ত্রচালিত দু’টি পাখি ছিল। একটি ছিল রূপার এবং আরেকটি ছিল সোনালী রংয়ের। সুগন্ধিতে চারদিক আমোদিত হতো। একাদশ শতাব্দীতে মুসলিম শাসিত স্পেনে প্রথম রাজকীয় বাগান তৈরি করা হয়। আব্বাসীয়দের কাছে পরাজিত উমাইয়াদের একটি অংশ স্পেনের আন্দালুসিয়ায় গিয়ে বসবাস করতে শুরু করে। আন্দালুসিয়ার ভূমি ছিল বাগান করার জন্য আরব দেশের চেয়ে উৎকৃষ্ট। সেখানকার বাগানে পারস্যের লাল গোলাপ ও টিউলিপসহ অসংখ্য ফুল ফুটতো। ক্রমে ক্রমে স্পেন থেকে গোটা ইউরোপে বাগান ও ফুলের প্রতি আগ্রহ ছড়িয়ে পড়ে।
(লেখটি আমার ‘স্বর্ণযুগে মুসলিম বিজ্ঞানীদের আবিষ্কার’ থেকে নেয়া। বইটি আফসার ব্রাদার্সে পাওয়া যায়।)

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com