মুসলমানরা বিশ্বের নিয়ন্তা হলে ড. জাকির নায়েক নোবেল পেতেন

সাহাদত হোসেন খান

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

দীর্ঘদিন ধরে ডা. জাকির নায়েকের বক্তব্য শুনছি না। আমি নিয়মিত পিস টিভিতে তার আলোচনা শুনতাম। কর্মব্যস্ত জীবনে কোরআন ও হাদিস সম্পর্কে তার জ্ঞানগর্ভ আলোচনা শুনে মুগ্ধ হতাম। হাজারো গ্লানির ভেতর তার জোরালো কথা শুনলে মনটা আনন্দে ভরে যেতো। চারদিকে শুধু মুসলমানদের দুর্দশার চিত্র। হতাশা ছাড়া আর কোনো খবর নেই। আমরা যেন এক গভীর অন্ধকারের যাত্রী। এমনি এক সময় তিনি ছিলেন আলোর মশাল। এখন আর তার হাসিমাখা মুখটা দেখি না। ভুলেই গিয়েছিলাম যে, ডা. জাকির নায়েক বলতে কেউ ছিলেন। আজ শনিবার নয়া দিগন্তে মালয়েশিয়া থেকে দেয়া তার একটি সাক্ষাৎকার পাঠ করে যেন জেগে ওঠি। মনে পড়ে যায় তাকে একদিন নিয়মিত দেখতাম। আজ ডা. জাকির নায়েক ভারত থেকে বিতাড়িত। আল্লাহর বিরাট দুনিয়ায় তার ঠাঁই হয়েছে মালয়েশিয়ায়। তিনি সেখানে কেমন আছেন, কিভাবে আছেন জানি না। আমরা চাই আল্লাহ তাকে ভালো রাখুন।

কে এই জাকির নায়েক? তিনি কি আমার কোনো আত্মীয়? না, তিনি আমার আত্মীয় নন। আত্মীয় না হলেও তিনি আত্মীয়ের চেয়ে বেশি। আমি যে দুজন ইসলামি বক্তার ওয়াজ শুনতাম ডা. জাকির নায়েক হলেন তাদের একজন। অন্যজন হলেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত দক্ষিণ আফ্রিকার মরহুম আহমদ দীদাত। উভয়ে ইংরেজিতে ওয়াজ করতেন। তাদের জ্ঞানের বিশালতা দেখলে শ্রদ্ধায় আপনাআপনি মাথা নুইয়ে আসতো। আমি বড় মাপের মানুষ নই। কিন্তু বড় মাপের মানুষকে শ্রদ্ধা করার মতো জ্ঞান আমার আছে। ডা. জাকির নায়েক ছিলেন আমার অতি কাছের মানুষ। প্রিয় মানুষ। শুধু আমার নয়, কোটি কোটি মানুষের আকর্ষণ। তাকে দেখে অবাক হতাম। ভাবতাম, তিনি যেন নরকে বসে পুষ্পের হাসি হাসছেন। তার জন্ম কোনো মুসলিম দেশে হলে তাকে নিয়ে দুশ্চিন্তা করতাম না। কিন্তু আমার মন বার বার বলতো, যেকোনো দিন ভারত এ আলো নিভিয়ে দেবে। তাদের কাছে এ আলো সহ্য হওয়ার কথা নয়। মুসলমানরাই সত্যের বাণী শুনতে চায় না, অমুসলিম কাফেররা শুনবে কেন।

১৯৮৯ সালে ভারতের বিখ্যাত নও-মুসলিম ড. ইসলামুল হক বাংলাদেশ সফরে এসেছিলেন। বাংলাদেশে তার সফর নিয়ে শুরু হয় তোলপাড়। একদিন দুপুরের পর অনেক আশা নিয়ে বায়তুল মোকাররাম মসজিদের দক্ষিণ চত্বরে তার ওয়াজ শোনার জন্য যাই। কিন্তু গিয়ে শুনি তাকে ২৪ ঘণ্টার নোটিশে বাংলাদেশ থেকে বের করে দেয়া হয়েছে। জেনারেল এরশাদের প্রতি যদি আমার একটি মাত্র ক্ষোভ থাকে তাহলে সেই ক্ষোভ এ কারণে। তিনি যেন আমার আশায় ছাই দিয়েছিলেন। ভারতের হিন্দু ভগবান হিসেবে পরিচিত ড. ইসলামুল হক দেখতে কেমন, তিনি কিভাবে কথা বলেন তা আর এ জীবনে দেখা হলো না। এ অভিজ্ঞতার আলোকে আমার মনে হতো, যে ভারত প্রতিবেশি বাংলাদেশে ড. ইসলামুল হকের পদচারণা মেনে নেয়নি, সেই ভারত তাদের প্রাণকেন্দ্রে ডা. জাকির নায়েকের অস্তিত্ব মেনে নিতে পারে না। আমরা বেয়াকুব হলেও ভারত বেয়াকুব নয়। ডা. জাকির নায়েকের বিরল যোগ্যতা মূর্তিপূজারীদের জন্য হুমকি হলেও তৌহিদবাদীদের জন্য আশীর্বাদ। একথা নিঃসন্দেহ যে, এই মানুষটি ভারতের জাতীয় নিরাপত্তার প্রতি হুমকি হয়ে উঠেছিলেন। ভারতে কোটি কোটি মানুষের জন্ম হয়। কিন্তু ডা. জাকির নায়েকের মতো বিস্ময়কর প্রতিভাবান মানুষের জন্ম হয় হাজার বছরে একবার। ডা. জাকির নায়েকের সমালোচকের অভাব নেই। কত ভাষায় তাকে আক্রমণ করা হয় তার শেষ নেই। তারা কারা জানি না। মুসলমান হলে তারা অবশ্যই আমার মতো ডা. জাকির নায়েককে ভালোবাসতেন।বাংলাদেশে বহু লোক মনের দিক থেকে ভারতীয়। এসব লোক ভারতের মন মগজ দিয়ে সব কিছু বিচার করে। ভারতের জন্য তাদের অন্তর পুড়ে। তাদের যুক্তির শেষ নেই। তাদের ভাষায় ভারত হলো আমাদের বন্ধু রাষ্ট্র। ডা. জাকির নায়েক ভারতের শত্রু। এ মানদন্ডে বিশ্বকাঁপানো মুসলিম ব্যক্তিত্ব জাকির নায়েককে তারা ‘কাফের’ ও ‘ইহুদিদের দালাল’ ফতোয়া দিতে কুণ্ঠাবোধ করে না।আমি পিস টিভিতে তার শত শত বক্তব্য শুনেছি।

তবে ড. উইলিয়াম ক্যাম্পবেলকে কাবু করার দৃশ্য আমি এখনো দেখি। ড. উইলিয়াম ক্যাম্পবেল দাবি করেছিলেন, পবিত্র কোরআনে নাকি ৩০টি ভুল আছে। সেদিন ড. উইলিয়াম ক্যাম্পবেলকে মোকাবিলা করার জন্য কেউ এগিয়ে আসেনি। এগিয়ে এসেছিলেন তুলনামূলক ধর্মতত্ত্বে শিক্ষিত এ চিকিৎসক। তিনি উইলিয়াম ক্যাম্পবেলকে ধরাশায়ী করে দিয়েছিলেন। আর একটু চাপ দিলে হয়তো ক্যাম্পবেল অক্কা যেতেন। তার জিভ শুকিয়ে গিয়েছিল। তিনি বাকরুদ্ধ হয়ে গিয়েছিলেন। তাকে মনে হয়েছিল তিনি যেন এক মহাসমুদ্রের বিপরীতে একটি অসহায় পিপিলিকা মাত্র। মুসলিম ধর্মতত্ত্ববিদ ডা. জাকির নায়েকের কাছে পরাজিত ড. উইলিয়াম ক্যাম্পবেল চিকিৎসা বিজ্ঞানে নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন। আর ড. জাকির নায়েক? তিনি পেয়েছেন শাস্তি। তার বাসা ও রিসার্চ সেন্টারে নজরদারি। পিস টিভি বন্ধ। তাকে কে দেবে নোবেল? তার জাতি পৃথিবীর নিয়ন্তা নয়। বিশ্ব আজ মুসলিম নিয়ন্ত্রণে হলে ড. উইলিয়াম ক্যাম্পবেল নয়, ড. জাকির নায়েকই নোবেলই পেতেন। আর কি হলে আমাদের ঘুম ভাঙ্গবে? হিংসা করে লাভ নেই। ডা. জাকির নায়ককে সম্মান করুন। আপনি নিজে সম্মানিত হবেন। আপনারা কি দেখতে পাচ্ছেন না যে, তাকে আল্লাহপাক অসামান্য যোগ্যতা দিয়ে পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন? কোনো একটি বক্তব্যের সমর্থনে একসঙ্গে এতগুলো ধর্মগ্রন্থের রেফারেন্স দিয়ে কোনো সাধারণ মানুষের পক্ষে কি বক্তব্য দেয়া সম্ভব? আপনাদের আর কি হলে বিশ্বাস হবে? আকাশের চন্দ্র-সূর্য হাতে তুলে দিলে? চন্দ্র-সূর্য হাতে তুলে দিলেও অবিশ্বাসীরা অবিশ্বাসীই থেকে যাবে।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.