রপ্তানীর সম্মুখে ভাদাইল সড়ক অল্প বৃষ্টিতেই হাঁটুপানি যেনো নৌকা চালানো যায়

বিশেষ প্রতিবেদক ঃ

শেয়ার করুন
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    2
    Shares

দেশের অর্থনীতির সিংহভাগই হচ্ছে আশুলিয়ার রপ্তানি প্রক্রিয়া করন জোন ডিইপিজেডের পোষাক শ্রমিকদের ঘামে ঝড়ানো পরিশ্রমের ফসল। আর সেই পরিশ্রমের শ্রমিকদের ভোগান্তির শিকার হতে হয় বর্ষাকালে অল্প বৃষ্টিতে হাটু পানি জমানো রাস্তায়। শ্রমিকরা এ প্রতিবেদককে বলেন, একটু বৃষ্টি হলেই হাটু পানি জমে সেখানে নৌকাও চালানো যায়, এমন মন্তব্য করে বলেন যেখানে আর নৌকা চালানোর দৃশ্য দেখতে পদ্না মেঘনা যমুনার তীরে যেতে হয়না এমন মন্তব্য করেন আশুলিয়ার ভাদাইলে অবস্থান কারী পোশাক শ্রমিক সহ সকল শ্রেনী পেশার মানুষ।

একটু বৃষ্টি হলেই হাঁটু সমান পানি জমে এ সড়কগুলো চলাচলের জন্য অনুপযোগী হয়ে পরে।

অপরিকল্পিত সড়ক ও বাড়ি নির্মাণ এবং পানি নিষ্কাষণের জন্য কোনো প্রকার ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকাই এর মূল কারণ হিসেবে উপস্থিত ভুক্তভোগীরা বলেন।

সরেজমিনে গিয়ে এ প্রতিবেদককে ভুক্তভোগীরা বলেন গত রবিবার সন্ধ্যায় দেশের উত্তর পশ্চিমান্চল থেকে ধেয়ে আশা ঝরহাওয়া পরেই বৃষ্টি নেমে আসে।
সকালে আশুলিয়ার ডিইপিজেডের বিপরীত পাশে পরমাণু গবেষণা কেন্দ্রের ওয়ালের পাশ দিয়ে ভাদাইল সড়কে এ দৃশ্য দেখে মনে হয় এটি কোনো সড়ক নয়, যেন খাল।

এ ব্যাপারে ভাদাইল এলাকায় বসবাসকারী শ্রমিকরা জানান, ডিইপিজেড কাছে থাকায় এ এলাকায় প্রায় লক্ষাধিক লোকের বসবাস। এদের মধ্যে বেশির ভাগই পোশাক শ্রমিক। ভাদাইল এলাকায় প্রবেশের একমাত্র সড়কটির ওপর হাঁটুপানি জমে রয়েছে। ডিইপিজেড থেকে ভাদাইল এলাকার এ সড়কটি প্রায় দেড় কিলোমিটার। পুরো রাস্তা এবং পার্শ্ববর্তী বাড়িঘর এখন পানিতে তলিয়ে গেছে। এতে অবর্ণনীয় দুর্ভোগের শিকার শ্রমিক অধ্যুষিত এ এলাকাটি। কর্মস্থলে আসা-যাওয়ায় সবাইকে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। প্রতিদিন ঘটছে এ রাস্তাটিতে নানা ধরনের দুর্ঘটনা।

চলাচলকারী কয়েকজন কারখানা শ্রমিক জানান, জীবিকার তাগিদে বাধ্য হয়ে সড়কগুলো দিয়ে ছুটে চলতে হয় তাদের। দীর্ঘদিন ধরে সমস্যা থাকলেও কোনো প্রতিকার নেই। বর্ষা ছাড়াও পানি জমে থাকে সড়কে। অনেক সময় তাড়াহুড়ো করে কারখানায় যেতে চাইলেও সড়কের কারণে সম্ভব হয় না।

এ ব্যাপারে ধামসোনা ইউপির চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলামকে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

উপজেলা প্রকৌশলীর সংগে যোগাযোহ করা হলেও পাওয়া যায়নি। তবে নাম না প্রকাশের শর্তে একজন নলেন,আঞ্চলিক সড়কগুলোতে কাজ সব বন্ধ রাখা হয়েছে করোনার জন্য। তবে এর আগে কিছু জটিলতা ছিল। এখন আর সমস্যা নেই। করোনার জন্য শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছে না। এখন খুব দ্রুতই সড়কগুলোর সংস্কার কাজ শেষ হবে।

ভুক্তভোগীরা সড়কের পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করা সহ সড়কে চলাচল উপযোগী করা আকুল আবেদন জানান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সহ সংশ্লিষ্টদের কাছে।


শেয়ার করুন
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    2
    Shares
  •  
    2
    Shares
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.