লকডাউনের খবরেই ফের অস্থির নিত্যপণ্য বাজার

এম আর আমিন,চট্টগ্রাম

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

চট্টগ্রাম বিভিন্ন বাজারে মানুষের ঢল লকডাউনের দিনগুলোতে যেন ঘরের বাইরে আসতে না হয় সেজন্য আগাম নিত্যপণ্য কিনেছেন নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ। এ সুযোগ নিয়েই নিত্যপণ্যের দাম বাড়িয়ে দেন ব্যবসায়ীরা। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ কমাতে সাতদিন লকডাউন হচ্ছে দেশ। এই একটি খবরেই ফের অস্থির নিত্যপণ্য বাজার।

এদিকে পাইকারি বাজার খাতুনগঞ্জে রোজার আগে সিন্ডিকেটের কারসাজিতে ভোগ্যপণ্যের দাম বাড়িয়ে অধিক মুনাফার নেশায় মাতোয়ারা হয়ে উঠেছেন ব্যবসায়ীরা। এমনটাই অভিযোগ তুলেছেন সাধারণ ক্রেতারা। এদিকে লকডাউনও সামনে রোজার ক্রেতারা বেশি পণ্য কিনে মজুদ করায় দাম বাড়ছে বলে দাবি বিক্রেতাদের।

এপ্রিলের শুরু হতে যাচ্ছে পবিত্র রমজান মাস। অথচ দীর্ঘ দুই মাসেরও বেশি সময় ধরে উত্তাপ ছড়াতে শুরু করেছে নিত্যপ্রয়োজনীয় ভোগ্যপণ্যের বাজারে। ভোজ্য তেল, চাল, চিনি, খেঁজুর, ডাল, ছোলা, গুঁড়া দুধ সবকিছুই বিক্রি হচ্ছে বাড়তি দামে। ভোজ্যতেল বিক্রিতে সরকার দাম নির্ধারণ করে দিলেও তা আমলে নিচ্ছে না কেউই। সরকার ভোজ্যতেলের দাম নির্ধারণ করে দিলেও সেদিকে কর্ণপাত করছেন না কোন ব্যবসায়ী। পণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণে কোন কার্যকরী পদক্ষেপ এখনো চোখে পড়েনি।

খুচরা বাজারে নিত্যপণ্যের বাড়তি দাম থাকায় নগরীর বিভিন্ন স্পটে ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) এর ট্রাকে পণ্য কিনতে মানুষের উপচে পড়া ভিড়। টিসিবির চট্টগ্রাম অফিস প্রধান জামাল উদ্দিন আহমেদ বলেন, নগরীতে ২৩টি স্পটে টিসিবির নিত্যপণ্য বিক্রি করা হয়ছে।

বাজার মনিটরিংয়ের বিষয়ে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মাসুদ রানা জানান, লকডাউন বা অন্য কোনো অজুহাতে পণ্যের দাম বেশি নেওয়ার সুযোগ নেই। আমরা বাজারে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করছি। অনিয়ম পেলেই আইনি ব্যবস্হা নেওয়া হবে।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.