সোমবার, ২১ Jun ২০২১, ০১:৪৫ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
জুলাই থেকে মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানী ২০ হাজার টাকা মৌলভীবাজার জেলা সদর উপজেলা ১২ নং গিয়াসনগর ইউনিয়ন নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী সৈয়দ গৌছুল হোসেন জনপ্রিয়তায় এগিয়ে। ভোলায় প্রধানমন্ত্রীর ঘর পেলেন ৩৭১ ভূমিহীন পরিবার নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে ৬০০ পিচ ইয়াবা সহ আটক ২ নজরপুর ইউনিয়নে জনমত জরিপে এগিয়ে যুবলীগ নেতা জহিরুল ইসলাম জহির মুজিববর্ষের উপহার : ভূমিসহ ঘর পেলো হাটহাজারীর ২৬ পরিবার একাধিক হত্যা মামলার আসামী সোমেদ আলী গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব ১১ নরসিংদী মডেল থানার অভিযানে শীর্ষ সন্ত্রাসী সুজন সাহা আটক আক্রান্তের নয়া রেকর্ড আনােয়ারায় ২৫ গৃহহীন পরিবার পেল প্রধানমন্ত্রী’র ঘর উপহার

‘সংবাদপত্রবিহীন সরকার বা সরকারবিহীন সংবাদপত্র’

ফেরদৌস আহমদ ভূইয়া

বাংলাদেশ একটি স্বাধীন গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র। আমাদের সংবিধানের পরতে পরতে গণতন্ত্র, স্বাধীনতা ও বাকস্বাধীনতার কথা বলা হয়েছে। সংবিধানের শুর”তেই তথা তৃতীয় ভাগেই বলা হয়েছে, ‘সংবাদক্ষেত্রের স্বাধীনতার নিশ্চয়তা দান করা হইল’। কিন্তু বাংলাদেশে বর্তমানে রেডিও-টেলিভিশনসহ সংবাদপত্র তথা গণমাধ্যম কি প্রকৃত স্বাধীনতা তথা লেখা ও বলার স্বাধীনতা উপভোগ করতে পারছে? বাংলাদেশের গণমাধ্যম কি মুক্ত? বাংলাদেশের গণমাধ্যম কতটুকু স্বাধীনতা ভোগ করে, তা দেশের পত্রপত্রিকাগুলো বা কোনো প্রতিষ্ঠান কোনো ধরনের জরিপ বা সমীক্ষা করে না, বরং করার কোনো সুযোগ নেই বললেই চলে। কিন্তু বিশ^ব্যাপী কিছু কিছু আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান রয়েছে, যারা বাংলাদেশসহ সারাবিশে^র দেশগুলোর গণমাধ্যমের স্বাধীনতার ওপর সমীক্ষা ও জরিপ করে থাকে। তেমনি একটি ইউরোপভিত্তিক প্রতিষ্ঠান হচ্ছে ‘রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডারস’ (আরএসএফ), যার সদর দফতর হচ্ছে ফ্রান্সের প্যারিসে।

সাংবাদিকদের সুরক্ষা ও অধিকার নিয়ে কাজ করা আন্তর্জাতিক এ গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠান ‘রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডারস’ (আরএসএফ) গত ২০ এপ্রিল মঙ্গলবার বাকস্বাধীনতা তথা গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। ‘ওয়ার্ল্ড প্রেস ফ্রিডম ইনডেক্স’ তথা বিশ^ মুক্ত গণমাধ্যম সূচক নামের এ প্রতিবেদনে বিশে^র ১৮০টি দেশের গণমাধ্যম ও সাংবাদিকতার স্বাধীনতার একটি চিত্র তুলে ধরা হয়েছে। এ সূচকে সবার শীর্ষে রয়েছে নরওয়ে। সূচকে ১৮০টি দেশের মধ্যে এ বছর বাংলাদেশের অবস্থান ১৫২তম। ২০২০ সালের সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১৫১তম। বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম সূচকে বাংলাদেশ গত বছরের তুলনায় আরও এক ধাপ পিছিয়েছে। আর ২০১৯ সালের সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১৫০তম। অর্থাৎ গতবারের সূচকেও বাংলাদেশের এক ধাপ অবনতি হয়েছিল। বিশ্ব গণমাধ্যম সূচকে পরপর তিন বছর বাংলাদেশের অবনতি হয়েছে। সূচকে শীর্ষ পাঁচ দেশ হচ্ছে যথাক্রমে নরওয়ে, ফিনল্যান্ড, সুইডেন, ডেনমার্ক ও কোস্টারিকা। তার নিচের পাঁচ দেশ হচ্ছে যথাক্রমে ইরিত্রিয়া (১৮০), উত্তর কোরিয়া (১৭৯), তুর্কমেনিস্তান (১৭৮), চীন (১৭৭) ও জিবুতি (১৭৬)।
গণমাধ্যমের স্বাধীনতায় বাংলাদেশ শুধু এক ধাপই পিছিয়েছে তা নয়, এবারের সূচকে প্রতিবেশী দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান সবার নিচে। সূচকে বাংলাদেশের চেয়ে ভালো অবস্থানে রয়েছে পাকিস্তান (১৪৫), ভারত (১৪২), মিয়ানমার (১৪০), শ্রীলঙ্কা (১২৭), আফগানিস্তান (১২২), নেপাল (১০৬), মালদ্বীপ (৭৯), ভুটান (৬৫)।
সূচকে বাংলাদেশ প্রসঙ্গে আরএসএফের ব্যাখ্যায় বলা হয়েছে, ২০২০ সালে করোনা ভাইরাস সংকট এবং লকডাউন চলাকালে সাংবাদিকদের ওপর পুলিশ ও বেসামরিক সহিংসতা উদ্বেগজনকভাবে বেড়েছে। মহামারি ও সমাজে তার প্রভাব নিয়ে প্রতিবেদনের জন্য অনেক সাংবাদিক, ব্লগার, কার্টুনিস্ট গ্রেফতার ও বিচারের মুখোমুখি হয়েছেন।

আর বিশেষ উদ্দেশ্য অর্জনে সাংবাদিকদের মুখ বন্ধ করতে সরকারের কাছে এখন একটি বিচারিক অস্ত্র আছে। তা হলো ২০১৮ সালের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন। এই আইনে ‘নেতিবাচক প্রচারণা’র দায়ে সর্বোচ্চ সাজা ১৪ বছরের কারাদণ্ড। ফলে আত্মনিয়ন্ত্রণ (সেলফ-সেন্সর) অভূত পর্যায়ে পৌঁছেছে। সম্পাদকরা সংগত কারণেই জেল বা গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠান বন্ধের ঝুঁকি এড়াতে চান।
সর্বশেষ ২০১৮ সালে পুনর্র্নির্বাচিত হওয়ার পর সরকার গণমাধ্যমের বির”দ্ধে লক্ষণীয় কঠোর অবস্থান নিয়েছে। দলীয় নেতা-কর্মীদের হাতে সহিংসতার শিকার হয়েছেন সাংবাদিকরা। তাদের নির্বিচারে গ্রেফতার করা হয়েছে। ওয়েবসাইট ব্লক করে দেওয়া হয়েছে।

যেসব সাংবাদিক দুর্নীতি বা স্থানীয় অপরাধী চক্র নিয়ে অনুসন্ধান করেন, তারা ভয়াবহ নির্যাতনের শিকার হন। এই নির্যাতনে মৃত্যুর ঘটনাও ঘটেছে।
বিশ্বের বিভিন্ন দেশে গণমাধ্যম কতটা স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারছে, তার ভিত্তিতে ২০০২ সাল থেকে আরএসএফ এই সূচক প্রকাশ করে আসছে। ২০১৩ সাল থেকে এই সূচকে বাংলাদেশ আছে।
মোটাদাগে আরএসএফ বাংলাদেশের সংবাদপত্র তথা গণমাধ্যমের স্বাধীনতার যে সূচক প্রকাশ করেছে, তাতে অবস্থান বিশে^র অনেক দেশ থেকে এগিয়ে রয়েছে। যেমন ১৮০ দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১৫২তম। বাংলাদেশের পিছনেও আরো ২৮টি দেশ রয়েছে। কিন্তু বাস্তবে বাংলাদেশের সংবাদমাধ্যম ও টেলিভিশন তথা গণমাধ্যমের স্বাধীনতা আরো পিছনে। সরকারের বস্তুনিষ্ঠ সমালোচনা করা হয় এমন দৈনিক পত্রিকাগুলোকে সরকারি বিজ্ঞাপন থেকে শুর” করে রাষ্ট্রীয় কোনো ধরনের সহায়তা করা হয় না। বরং বর্তমান সরকারের আমলে একটি জনপ্রিয় টেলিভিশন কেন্দ্র ও একটি দৈনিক পত্রিকাকে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। বর্তমানে যে দু’একটি সরকার সমালোচক পত্রিকা ও গণমাধ্যম রয়েছে, সেসব গণমাধ্যমের সম্পাদক থেকে শুর” করে অনেক সাংবাদিকের বির”দ্ধে মামলা করা হয়েছে। বাংলাদেশে যে কজন শীর্ষস্থানীয় সম্পাদক রয়েছেন, তার মধ্যে সর্বশীর্ষ সম্পাদক হচ্ছেন দৈনিক সংগ্রাম সম্পাদক আবুল আসাদ, তার ওপরও আজ মামলার হুলিয়া। দৈনিক সংগ্রাম পত্রিকার বার্তা সম্পাদক সা’দাত হোসাইন ও চিফ রিপোর্টার র”হুল আমিন গাজীকে একটি ঠুনকো অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং তারা প্রায় এক বছর ধরে জেলখানার অন্ধকার প্রকোষ্ঠে দিনাতিপাত করছেন। অথচ আমাদের সংবিধানে তৃতীয় ভাগের মৌলিক অধিকার বিষয়ক ৩৯ ধারার (১)-এ বলা হয়েছে, ‘চিন্তা ও বিবেকের স্বাধীনতার নিশ্চয়তাদান করা হইল।’ ৩৯ ধারা ২(ক)-তে বলা হয়েছে, ‘প্রত্যেক নাগরিকের বাক ও ভাবপ্রকাশের স্বাধীনতার অধিকারের এবং (খ)-তে বলা হয়েছে, সংবাদক্ষেত্রের স্বাধীনতার নিশ্চয়তাদান করা হইল’।

একটি দেশের গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে হলে শক্তিশালী গণমাধ্যম দরকার। গণমাধ্যম শুধু সরকারের সমালোচক বা প্রতিপক্ষ নয়। বরং শক্তিশালী গণমাধ্যম গণতান্ত্রিক সরকার পরিচালনায় সহায়কই বটে। আধুনিক বিশে^ রাষ্ট্র ও সরকারের আকার অনেক বড়। বাংলাদেশের মতো একটি সরকারের ৬০টির অধিক মন্ত্রণালয় রয়েছে। এসব মন্ত্রণালয়ের অধীনে রয়েছে শতাধিক অধিদপ্তর ও পরিদপ্তর এবং স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান। আরো আছে ৬৪টি জেলা প্রশাসন, প্রায় পাঁচশত উপজেলা ও ছয়শতের মতো থানা। স্থানীয় সরকারের অধীনে রয়েছে ৬৪টি জেলা পরিষদ, পাঁচশত উপজেলা পরিষদ, ১২টি সিটি কর্পোরেশন, কয়েকশত পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদ। স্বাস্থ্য বিভাগের রয়েছে সরকারি ও বেসরকারি মিলিয়ে শতাধিক মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, শিক্ষা বিভাগের রয়েছে কয়েকশত বিশ্ববিদ্যালয় ও সহ¯্রাধিক কলেজ, হাজার হাজার স্কুল ও মাদরাসা। এছাড়া রয়েছে কৃষি বিভাগের অসংখ্য কার্যালয়। এভাবে সরকারের প্রতিটি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের অধীনে রয়েছে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ হাজার হাজার প্রতিষ্ঠান। এসব প্রতিষ্ঠানে প্রতিদিন কী কী কাজ হচ্ছে আর এসব কাজ করতে গিয়ে কোনো ধরনের অনিয়ম, বিশৃঙ্খলা ও দুনীর্তি হচ্ছে কিনা, তা সরকারপ্রধান, সরকারের মন্ত্রী ও সচিবদের প্রাত্যহিকভাবে খোঁজখবর রাখা সম্ভব নয়। কিন্তু প্রতিটি সরকার ও প্রশাসনই চায় তাদের প্রতিটি মন্ত্রণালয় ও বিভাগে সুশাসন প্রতিষ্ঠিত হোক, দুর্নীতিমুক্ত হোক, তথা সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে পরিচালিত হোক। আধুনিক বিশ্বের সরকার ও প্রশাসনের আওতা এত বড় হয়েছে, সরকারপ্রধান ও মন্ত্রীদের প্রতিদিন এসব কাজ দেখা ও তদারকি করা সম্ভব নয়। সরকার ও প্রশাসনের এ কাজের সহায়ক হতে পারে গণমাধ্যম। দেশে যদি শক্তিশালী গণমাধ্যম থাকে এবং গণমাধ্যমকে যথাযথভাবে কাজ করতে উৎসাহিত করা হয়, তাহলে গণমাধ্যমকর্মী তথা সাংবাদিকরা প্রতিদিন এসব অনিয়ম, দুর্নীতি ও বিশৃঙ্খলা সংবাদপত্রের মাধ্যমে তুলে ধরতে পারেন। এতে করে সংবাদপত্র ও সাংবাদিকরা যতটা না উপকৃত হবেন, তার চেয়ে বেশি উপকৃত হবেন এবং সেবা পাবেন সরকারপ্রধান, সরকারের মন্ত্রী ও তাদের সচিবগণ। আর তাই মার্কিন প্রেসিডেন্ট টমাস জেফারসন বলেছিলেন, If he had to choose between “a government without newspapers or newspapers without a government, I should not hesitate a moment to prefer the latter”: অর্থাৎ তাকে যদি সংবাপত্রবিহীন একটি সরকার অথবা একটি সরকারবিহীন সংবাদপত্রÑ এ দুটির মধ্যে যে কোনো একটিকে বেছে নিতে বলা হয়, তখন তিনি বলেছিলেন, আমি শেষেরটিকে বেছে নিতে এক মুহূর্তও ইতস্তত করবো না। তিনি সরকারকে চেক দিতে তথা পাহারা দিতে মুক্ত গণমাধ্যমের গুর”ত্ব বোঝাতে গিয়ে এ কথা বলেছিলেন। তিনি আরো বলেছেন, The only security of all is in free press’ অর্থাৎ ফ্রি প্রেস তথা মুক্ত গণমাধ্যমই কেবল দিতে পারে জনগণের সত্যিকারের নিরাপত্তা। টমাস জেফারসন ছিলেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতাদের একজন এবং তৃতীয় মার্কিন প্রেসিডেন্ট। আরেক মার্কিন রাষ্ট্রনায়ক এডলাই ই. স্টিভেনসন বলেছেন, ‘The free press is the mother of all liberties and progress’ মার্কিন রাষ্ট্রনায়করা সরকার পরিচালনা থেকে শুর” করে জনগণের জীবনের নিরাপত্তা ও উন্নয়নে গণমাধ্যমের গুর”ত্বকে সবসময় তুলে ধরেছেন। আর তাই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে গণমাধ্যম তথা সাংবাদিকরা মুক্তভাবে কাজ করতে পারছেন।

বাংলাদেশের বিশিষ্ট সাংবাদিক নয়া দিগন্ত সম্পাদক আলমগীর মহিউদ্দিন বনেদি প্রকাশক ‘বুকমাস্টার’ প্রকাশিত ‘ঘৃণায় ঈর্ষায় আবৃত সময়’ নামক বইয়ের ‘দুস্থ সাংবাদিকতা’ শীর্ষক নিবন্ধে বলেছেন, ‘সংবাদমাধ্যম নিয়ন্ত্রণের চেষ্টার অন্যতম প্রধান কারণ, জনগণ যেন সত্য না জানতে পারে এবং তা নিয়ে তাদের মাঝে যোগাযোগ ও মতামত গঠন না হয়।’ তিনি একই নিবন্ধে আরো বলেছেন, ‘সংবাদপত্র এবং সাংবাদিক উভয়ের স্বাধীনতা গণতন্ত্রের জন্য এবং জনকল্যাণে একান্ত প্রয়োজন। অনেক কারণের মাঝে একটি অত্যন্ত গুর”ত্বপূর্ণ। তা হলো, যদি তথ্য স্বাধীনভাবে উপস্থাপন করা না যায় এবং তার ওপর মন্তব্য স্বাধীনভাবে উপস্থাপন করা না যায়, তাহলে শাসকদের কর্মকাণ্ডের জবাবদিহিতা কখনোই থাকবে না।’ শুধু স্বাধীন সংবাদমাধ্যমই তাদের রাশ টেনে ধরতে পারে।

একটি দেশের সংবাদপত্র তথা গণমাধ্যম দেশের গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেয়ার পাশাপাশি জবাবদিহিমূলক সরকার প্রতিষ্ঠায় ভূমিকা পালন করে। এতে করে সরকার ও প্রশাসন জবাবদিহির আওতায় আসে এবং দুর্নীতিমুক্ত একটি প্রশাসন তৈরি হতে বাধ্য। এভাবেই গণমাধ্যমের সহায়তায় দুর্নীতিমুক্ত একটি জবাবদিহিমূলক সরকারের মাধ্যমে রাষ্ট্র ও দেশ এগিয়ে যেতে পারে। প্রতিষ্ঠা লাভ করতে পারে একটি উন্নত জাতি ও রাষ্ট্র। তাই মুক্ত গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠায় রাষ্ট্র ও সরকারকেই অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে। সর্বস্তরের প্রশাসনকে মেসেজ দিতে হবে রাষ্ট্র ও সরকার গণমাধ্যমের সহায়ক তথা গণমাধ্যমবান্ধব। আর তখন প্রশাসন ও দুর্নীতিবাজ মহল গণমাধ্যমের বির”দ্ধে অবস্থান নিতে পারবে না। গণমাধ্যমকর্মীরা এমন পরিবেশ ও সহায়তা পেলে দেশ জাতি গঠনে আরো সক্রিয় ভূমিকা পালন করতে পারবেন। তাই একটি উন্নত জাতি গঠনে রাষ্ট্র, সরকার ও গণমাধ্যমকে পরস্পরের সহায়ক হিসেবেই দায়িত্ব পালন করতে হবে। আর সকল পক্ষের সমন্বিত উদ্যোগেই গঠিত হতে পারে একটি উন্নত রাষ্ট্র ও জাতি।

https://www.weeklysonarbangla.net/news_details.php?newsid=25870&fbclid=IwAR15CJGjuFxQvQJ5FCrgDXqwQMFIDmF59somDKkryDNSR4Ckb3KLax96qrg#

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com